adv
৮ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ডিডিএলজে: প্রশংসায় পঞ্চমুখ আমির খান

বিনােদন ডেস্ক : আমির খান ও শাহরুখ খানের তিক্ত সম্পর্ক এক সময় বেশ আলোচনায় ছিল। হঠাত্‍ করেই সালমান খানের বোনের বিয়েতে মিটে যায় সব তিক্ততা। কাছাকাছি চলে আসেন তিন খান। বজায় রেখেছেন সুসম্পর্ক।

মঙ্গলবার ২৫ বছর পূর্ণ করেছে শাহরুখ ও কাজল অভিনীত সাড়া জাগানো ছবি ‘দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে জায়েঙ্গে’ তথা ডিডিএলজে। এই উপলক্ষে আমির খান শুভেচ্ছা জানালেন শাহরুখ-কাজল থেকে শুরু করে ছবির সঙ্গে যুক্ত সবাইকে।

টুইট বার্তায় আমির লেখেন, “এক হিরো যে তার বিবেকবোধ খুঁজে পান এবং এক হিরোইন যিনি নিজের প্রতিবাদের কণ্ঠ… এক ভিলেন যার মনের পরিবর্তন ঘটে… আমাদের সবার মধ্যে যে দয়ালু, ভালো মানুষের বাস রয়েছে তার মন ছুঁয়ে যেতে পেরেছিল ডিডিএলজে। ২৫ বছর ধরে এই ছবি দুনিয়াকে জাদুতে আচ্ছন্ন করে রেখেছে। থ্যাংক ইউ আদি (আদিত্য চোপড়া), কাজল, শাহরুখ এবং ডিডিএলজে-র গোটা টিম।”

১৯৯৫ সালের ২০ অক্টোবর মুক্তি পাওয়া এই ছবি টানা চলেছে মুম্বাইয়ের মারাঠা মন্দির প্রেক্ষাগৃহে লকডাউন শুরু হওয়ার আগে পর্যন্ত। ছবির সিলভার জুবিলি উপলক্ষে সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজেদের প্রোফাইল ছবি ও নাম পালটে রাজ-সিমরানকে স্মরণ করেছেন শাহরুখ ও কাজল।

তবে মজার বিষয় হলো রাজ চরিত্রটি করতে শুরুতে মোটেই রাজি ছিলেন না শাহরুখ।

২০১৫ সালে প্রকাশিত একটি তথ্যচিত্রে এ তথ্য জানা যায়। সেখানে ইয়াশ চোপড়ার স্ত্রী পামেলা চোপড়া জানিয়েছিলেন, সবচেয়ে বড় নেতিবাচক উত্তর এসেছিল স্বয়ং শাহরুখ খানের থেকে।

এই বিষয়ে শাহরুখ বলেন, “আমার মনে হয় চিত্রনাট্য পড়ে শোনানোর এক-দুদিন ওরা মনে করেছিলেন আমার এটি একেবারেই পছন্দ হয়নি। তাই আদি (আদিত্য চোপড়া) ইয়াশজিকে বলেছিল আমার সঙ্গে কথা বলতে। আমি কখনোই রোম্যান্টিক রোল করতে চাইতাম না সেই সময়ে।”

আরও বলেন, “আমি যখন ছবির দুনিয়ায় পা রাখি তখন আমার বয়স ২৬। সাধারণত রোম্যান্টিক ছবি বলতে আমার মনে হতো কলেজ পড়ুয়াদেরই সবচেয়ে ভালো মানায়, বা সদ্য কলেজ থেকে পাশ করা। মনে হয়েছিল রোম্যান্টিক হিরো হওয়ার জন্য আমার বয়স অনেক বেশি। একই সঙ্গে আমি বিশ্বাস করতাম রোম্যান্টিক হিরোদের হ্যান্ডসাম এবং গুড লুকিং হওয়া মাস্ট। আমি তার কোনোটাই ছিলাম না। তাই গোটা ছবি জুড়ে আমার বারবার একটাই প্রশ্ন থাকত… আরে ভাই আমাকে দিয়ে কেন এই সব করাচ্ছ!”

আড্ডার মাঝে পামেলা চোপড়া জানান, ছবির শেষে শাহরুখ একটা অন্তত ফাইট সিকোয়েন্স চেয়েছিল। শাহরুখও সুর মিলিয়ে বলেন, তিনি অ্যাকশন ভালোবাসলেও যশ চোপড়া ও আদিত্য চোপড়ার এই আইডিয়াটা একেবারেই ভালো লাগেনি।

এতই যখন অপছন্দ ছিল রোম্যান্টিক রোল, তাহলে শেষ পর্যন্ত রাজি হয়েছিলেন কেন? উত্তরে জানান, “ইয়াশজির একটা কথা মনে ধরেছিল খুব। উনি বলেছিলেন, জীবনে একটাও রোম্যান্টিক ছবি না করলে আমি কোনো দিন বড় স্টার হতে পারব না। উনি আমাকে এও বলেছিলেন অভিনেতা হিসেবে আমি খুবই ভালো এবং পরিশ্রমও করি।”

“কিন্তু আমি ডিডিএলজে করেছিলাম একটামাত্র কারণে… যশজির প্রতি আমার শ্রদ্ধা এবং আদির প্রতি ভালোবাসা। ওদের খুবই বিশ্বাস করতাম। মজার কথা হলো, নিজেকে মাচো মনেই হচ্ছিল না ছবিটা করতে গিয়ে। শুটিং করতে করতে একদিনও ঘামিনি। আর আমার মনে হতো, ঘাম ঝরেনি মানে আমি কোনো কাজই করিনি!”

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া