কোলেস্টেরল কমাতে

ডা. শেখ মইনুল খোকন : যকৃতে প্রস্তুত এক ধরনের চর্বিজাতীয় মোমের মতো বস্তুকে কোলেস্টেরল বলা হয়। শরীরে বিভিন্ন প্রয়োজনীয় কাজকর্ম যেমন হরমোন, ভিটামিন উৎপাদন, ভিটামিন A, D, E এবং K, জাতীয় চর্বিতে দ্রবণীয় ভিটামিন শোষণের জন্য, এবং কোষ গঠন এবং রক্ষণাবেক্ষণের জন্য কোলেস্টেরল জরুরি। রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা স্বাভাবিকের থেকে বেশি হলে হার্টের রোগ, হৃদরোগে আক্রমণ ও স্ট্রোক হতে পারে।

ওষুধ নিয়ে পরামর্শ

 বর্ধিত কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাধারণত স্ট্যাটিন ব্যবহার করা হয়। যকৃতে কোলেস্টেরলের উৎপাদন বন্ধ করে দেয় স্ট্যাটিন।

 যকৃতের ওপর PCSK 9 (Proprotein convertase subtilisin/kexin type 9) ইনহিবিটরের মতো ওষুধ ভালো কাজ করে এবং রক্ত LDL মুক্ত করতে যকৃতকে সাহায্য করে। রক্তে ট্রাইগ্লিসারাইড কমাতেও এই ওষুধ সাহায্য করে।

 বাইল অ্যাসিড সিকোয়েসট্র্যান্ট (খাদ্যে গুণমান বাড়ায়) বাইল অ্যাসিডের ওপর প্রতিক্রিয়া করে রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়।

 নিয়াসিন (ভিটামিনই ৩ বা নিকোটিনিক অ্যাসিড) খউখ (খারাপ কোলেস্টরল) কমায় এবং HDL (ভালো কোলেস্টেরল) বাড়ায়।

 ফাইব্রেটস রক্ত খুব কম-ঘনত্বের লাইপোপ্রোটিন (VLDL) থেকে মুক্ত করে। তারা ঐউখ মাত্রাও বাড়ায়। যাই হোক, যখন স্ট্যাটিনের সঙ্গে একযোগে ব্যবহার হয় তখন ফাইব্রেটস পেশির সঙ্গে সম্পর্কিত সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে।

 খাদ্য থেকে কোলেস্টেরল শোষণে বাধা সৃষ্টি করতে পারে এজাটিমিব।

 যকৃত থেকে VLDL কোলেস্টরল ক্ষরিত হয়ে রক্তে মিশতে বাধার সৃষ্টি করে লোমিটাপাইড এবং মাইপোমার্সেন। জিনের কারণে যাদের শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা বেশি তাদের জন্য এটি ব্যবহৃত হয়।

 শরীরের বাইরে একটি পরিষ্করণ যন্ত্র বসিয়ে রক্তকে খারাপ কোলেস্টেরল মুক্ত করার পদ্ধতি হলো লাইপোপ্রোটিন অ্যাফেরেসিস।

খাদ্যতালিকায় পরিবর্তন

 আপনার দৈনিক প্রয়োজনীয় ক্যালরির ৭% আসবে সম্পৃক্ত চর্বি (স্যাচুরেটেড ফ্যাট-মাংস, ডেয়ারি পণ্য, অন্যান্য খাবারের সঙ্গে ভাজাভুজি) থেকে, এবং সামগ্রিকভাবে স্নেহজাতীয় খাদ্য থেকে আসবে ৩৫%।

 দৈনিক ২০০ মি.গ্রা কোলেস্টেরল গ্রহণ করা যেতে পারে।

 খাদ্যতালিকায় বেশি মাত্রায় থাকবে দ্রবণীয় তন্তু (ফাইবার) যার মধ্যে আছে শস্যদানা, ফল এবং শুঁটিজাতীয় সবজি (উদাহরণ : ওট, আপেল, কলা, নাশপাতি, কমলালেবু, রাজমা বা শিম, ডাল, ছোলা)। সবজি এবং ফলে দ্রবণীয় তন্তু (ফাইবার) কোলেস্টেরল শোষণে বাধা দেয়।

 মাছে খুব ভালো পরিমাণে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড আছে বলে হার্টের বিভিন্ন রোগ এবং হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়া থেকে রক্ষা করে।

 সীমিত মাত্রায় লবণ এবং কম মদ্যপান রক্তচাপ এবং রক্তে ট্রাইগ্লিসারাইড নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।

 নিয়মিত শারীরিক ব্যায়াম উচ্চ কোলেস্টেরল কমাতে এবং স্থূলতা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।

 কোলেস্টরল নিয়ন্ত্রণ করতে একেবারেই ধূমপান করবেন না।

 কোলেস্টরল কমাতে ওটস, বার্লি, বিনস (রাজমা, ছোলা, ডাল), বেগুন, ঢেঁড়স (ওকরা), বাদাম (কাঠবাদাম, আখরোট, চিনাবাদাম), বনস্পতি তেল (সূর্যমুখী তেল, কুসুমবীজের তেল), ফল (লেবুজাতীয়, আপেল, আঙুর), স্টেরল এবং স্ট্যানল সমৃদ্ধ খাদ্য (প্লান্ট গাম যা ফল থেকে কোলেস্টরল শোষণ করে), সয়া (টোফু, সয়াদুধ), মাছ, (সামন, ম্যাকরিল), জোলাপের মধ্যে থাকা ফাইবার ইত্যাদি বেশ উপকারী।- দেশরূপান্তর থেকে

জয় পরাজয় আরো খবর