আমার বোনকে বাঁচাতে চাই (প্লিজ আপনারা সহযোগিতা করুন)- পার্থ সারথী

দুর্লভ এক মানবজনম নিয়ে আমাদের জন্ম। মৃত্যুক্ষণ কারোরই জানা নেই। তবুও সাবধানতার জন্য সৃষ্টিকর্তা কিছু সংকেত পাঠান। কেউ তা বুঝি, কেউ বুঝিনা আবার কেউ অবহেলা করি। মাত্র ১২ বছর বয়সে বাবাকে হারাই, এখন ৩৬ বছর বয়সে একমাত্র বোন মৃত্যুর মুখোমুখি দাঁড়িয়ে।

গত ১২/০৭/২০ইং তারিখে আমার বোন ( মুক্তা মজুমদার, বয়সঃ ৩৬, ছোট দু’টো ছেলেমেয়ের মা) এর হঠাৎ করে প্রচন্ড শ্বাসকষ্ট হয়। অনেক আগে থেকে অ্যাজমা জনিত সমস্যায় ভুগছে। যার কারণে ইনহেলার সাথে ছিল এবং ইনহেলার নিয়েও শ্বাস নিতে পারছিলো না। পরবর্তীতে ডাক্তারের পরামর্শে অক্সিজেন নিয়ে শ্বাস স্বাভাবিক করে। ডাক্তার অনেকগুলো টেস্ট করে এবং রক্তে সিরাম ক্রিয়েটিনিন 6.4 পাওয়া যায় এবং আলট্রাসনোগ্রাফীতে দুটো কিডনীর সাইজ ছোট আসে।

পরবর্তীতে চট্টগ্রাম মেডিকেলের কিডনী ও নেফ্রোলজির দু’জন ডাক্তারের পরামর্শ অনুসারে ১৪ দিনের ওষুধ এবং পর্যবেক্ষন রাখা হয়। দুর্ভাগ্য যে ১৪ দিন পর ক্রিয়েটিনিন লেভেল 8.4 হয়ে যায়। জরুরী ভিত্তিতে ঢাকা কিডনী ফাউন্ডেশান এর ডাঃ হারুনুর রশীদ স্যারের সিরিয়াল নেয়া হয় এবং ৪/৮/২০ ইং তারিখে ডাক্তারের পরামর্শে কিডনী ফাউন্ডেশান হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। পুনরায় সবগুলো টেস্ট করানোর পর ক্রিয়েটিনিন 9.3 পান এবং eGFR দেখে ডাক্তার দুটো কিডনীর 95% ডেমেজ বলেন এবং জরুরী ভিত্তিতে গলার পাশে ক্যাথেটারের মাধ্যমে ডায়ালাইসিস করান এবং আগামীকাল হাতে ফিসচুলা বসানোর সিদ্ধান্ত দেন। পাশাপাশি ডাঃ কিডনী ট্রান্সপ্ল্যান্টের পরামর্শ দেন।

অঙ্গ প্রতিস্থাপন আইন’২০১৮ অনুসারে বাংলাদেশে আত্মীয় সম্পর্ক ছাড়া কিডনী স্থানান্তরের বৈধতা নেই। এক রুগীর করা রিটের রায়ে গত ৫ ডিসেম্বর ২০১৯ ইং এ মহামান্য হাইকোর্ট স্বেচ্ছায় অনাত্মীয় ব্যক্তিগণের অঙ্গ প্রতিস্থাপনের পক্ষে রায় দিয়েছেন কিন্তু গেজেট আকারে প্রকাশিত না হওয়ায় ডাঃ এটাকে অবৈধ বলে মানছেন।

আমার বোনের রক্তের গ্রুপ O+ ( ও পজিটিভ)। আমাদের মা এবং আমরা ২ ভাইয়ের রক্তের গ্রুপ O+ আমার ভগ্নিপতির B+ হওয়ায় ম্যাচিং হলে যে কেউ কিডনী দিতে আগ্রহী ছিলাম। কিন্তু দুর্ভাগ্যক্রমে আমরা সবাই ডায়াবেটিক পেশেন্ট হওয়ায় ডাক্তারের মতে আমরা ৪ জনই কিডনী ডোনেট করতে পারবো না।

O+ রক্তের গ্রুপের কোন রুগী ICU তে থাকা অবস্থায় ব্রেইন ডেথ হলে মানবিক দৃষ্টিকোন বিবেচনায় রুগীর পরিবার ঐ ব্যক্তির অঙ্গ দান করতে পারেন। এই সহযোগীতাও কোন সুহৃদয়বান ও মহানুভব ব্যক্তি করতে চাইলে দয়া করে আমাদের জানাবেন।

ইন্ডিয়াতে ডোনারের মাধ্যমে অপারেশন করানো যায় কিন্তু সর্বনিম্ন ৩০-৩৫ লাখ টাকার প্রয়োজন হয়। অপারেশন পরবর্তী আরও ৩-৪ লাখ টাকার চিকিৎসার প্রয়োজন হয়। আমরা নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবার। প্রাইভেট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতা করি আর আমার ভগ্নীপতিও প্রাইভেট প্রতিষ্ঠানে (গ্লাস এজেন্সী) কর্মরত ছিলো। করোনার জন্য আমরা দু’জনই বেকার। এমতবস্থায় আমরা দু’টো পরিবার প্রায় দিশেহারা।

বন্ধু , বান্ধব, আত্মীয়স্বজন, মানবতাবাদী এবং জনদরদী ব্যক্তিগনের নিকট বিনীত অনুরোধ আমাদের এই দুর্যোগে আপনারা দোয়া/আশীর্বাদ, পরামর্শ, মানবিক, আর্থিক, লজিস্টিক ও লিগাল সাপোর্টের পাশাপাশি যে কোন মতামত দিয়ে সহযোগীতা করবেন। আপনাদের পরামর্শ অনুযায়ী আমরা পদক্ষেপ নেয়ার চেষ্টা করবো।

Account no for helping:
Partha Sarathi Mazumder (Patient’s Younger Brother)
A/C No: 152.101.8013
Dutch Bangla Bank, Chowmuhani Branch.
Noakhali.
Mobile: 01717 573062 / 01842 573062

Shantu Mozumder (Patient’s Younger Brother)
Bkash- 01738000989
Rocket- 017380009895
Nogod- 01738000989

সাহায্য পাঠানোর হিসাব নম্বর:
পার্থ সারথী মজুমদার (রুগীর ছোট ভাই)
হিসাব নং: ১৫২.১০১.৮০১৩
ডাচ্ বাংলা ব্যাংক, চৌমুহনী শাখা, নোয়াখালী।
মোবাইল: ০১৭১৭ ৫৭৩০৬২ / ০১৮৪২ ৫৭৩০৬২

শান্তু মজুমদার (রুগীর ছোট ভাই)
বিকাশ – ০১৭৩৮ ০০০৯৮৯
রকেট – ০১৭৩৮ ০০০৯৮৯ ৫
নগদ – ০১৭৩৮ ০০০৯৮৯

বিশেষ দ্রষ্টব্য : ‘জয়পরাজয়’ কর্তৃপক্ষ  আবেদনকারীর  সাথে যোগাযোগ কিংবা কোনো রকম আর্থিক লেনদেনের দায়িত্ব নেবে না। দাতা নিজেই আবেদনকারী প্রদত্ত তথ্যের  সত্যতা  যাচাই করে আর্থিক লেনদেনসহ সব রকমের সাহায্যে এগিয়ে আসবেন। – সম্পাদক

জয় পরাজয় আরো খবর