পাঁচ মাস পর শারীরিক উপস্থিতিতে হাইকোর্টে বিচার কাজ শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রাণঘাতী ভাইরাস করোনার কারণে প্রায় পাঁচ মাস পর শারীরিক উপস্থিতিতে হাইকোর্টে বিচার কার্যক্রম শুরু হয়েছে। বুধবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে হাইকোর্টের ১৮টি বেঞ্চে বিচার কার্যক্রম শুরু হয়। পাশাপাশি চলছে ভার্চুয়াল আদালতও।

গত ১৪ মার্চ থেকে বন্ধ রয়েছে দেশের সর্বোচ্চ আদালতের স্বাভাবিক কার্যক্রম। করোনায় অন্য সব কিছুর মতো বিচার বিভাগের কার্যক্রমও স্থবির হয়ে পড়ে।

১১ মে থেকে ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে বিচারকাজ শুরু করে অধস্তন আদালত ও হাইকোর্ট। আর ১৯ জুলাই থেকে আপিল বিভাগ ভার্চুয়াল বিচারকাজ শুরু করে। তবে ভার্চুয়াল আদালত নিয়ে আইনজীবীদের মধ্যে দেখা দেয় মিশ্র প্রতিক্রিয়া। দাবি ওঠে শারীরিক উপস্থিতিতে বিচারকাজ চালু করার।

গত বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতির সভাপতিত্বে ফুলকোর্ট সভা অনুষ্ঠিত হয়। শারীরিক উপস্থিতিতে কার্যক্রম ও ভার্চুয়াল আদালত চালু রাখার পক্ষে বিচারপতিরা মতামত দেন ফুলকোর্ট সভায়। এরই মধ্যে গত ৫ আগস্ট থেকে শারীরিক উপস্থিতিতে বিচারকাজ শুরু করে দেশের সব বিচারিক আদালত।

আর আজ থেকে সুপ্রিম কোর্টের ১৮টি বেঞ্চে বিচারকাজ পরিচালনা করবেন বিচারপতি একেএম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দ, বিচারপতি মো. আতাউর রহমান খান, বিচারপতি শেখ আবদুল আউয়াল, বিচারপতি এসএম এমদাদুল হক ও বিচারপতি ভীষ্মদেব চক্রবর্তী, বিচারপতি একেএম আবদুল হাকিম ও বিচারপতি ফাতেমা নজীব, বিচারপতি বোরহান উদ্দীন ও বিচারপতি সরদার মো. রাশেদ জাহাঙ্গীর, বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি একেএম জহিরুল হক, বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমান, বিচারপতি কৃষ্ণা দেবনাথ ও বিচারপতি এএসএম আব্দুল মোবিন, বিচারপতি শেখ মো. জাকির হোসেন ও বিচারপতি কেএম জাহিদ সারওয়ার, বিচারপতি মো. হাবিবুল গনি ও বিচারপতি মো. রিয়াজ উদ্দিন খান, বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি খোন্দকার দিলীরুজ্জামান, বিচারপতি জেবিএম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলম, বিচারপতি মো. রুহুল কুদ্দুস ও বিচারপতি কাজী ইবাদত হোসেন, বিচারপতি মো. খসরুজ্জামান ও বিচারপতি মো. মাহমুদ হাসান তালুকদার, বিচারপতি মো. খুরশীদ আলম সরকার, বিচারপতি জাফর আহমেদ ও বিচারপতি খিজির আহমেদ চৌধুরী।

জয় পরাজয় আরো খবর