আসামি ব্যাংকক-আইনজীবী লন্ডনে-বিচারক ঢাকায়, তবুও শুনানি!

ডেস্ক রিপাের্ট : এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে দেশ ছাড়ার পর ব্যাংককে বসে হত্যাচেষ্টা মামলায় আগাম জামিন চেয়ে চমক সৃষ্টি করেছেন দুই আসামি। সবচেয়ে মজার বিষয় হলো তাদের আইনজীবী শুনানি করেছেন লন্ডনে বসে। পলাতক আসামির এমন আবেদনকে বেআইনি উল্লেখ করে সময় নষ্ট করায় ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ঢাকার উচ্চ আদালত।

দেশের উচ্চ আদালতে আগাম জামিন যখন বন্ধ তখন ব্যাংককে বসে পলাতক দুই আসামির আগাম জামিন আবেদনকাণ্ডে দিনভর আলোচনায় দেশের সর্বোচ্চ আদালত। সাড়ে দশটার পর ভার্চুয়াল কোর্টে শুরু হয় শুনানি। লন্ডনে বসে আসামিদের পক্ষে জামিন চান তাদের এক আইনজীবী। আসামিদের অবস্থান তখন ব্যাংকক।

দেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো পলাতক কোনো আসামির নজিরবিহীন এমন আবেদনে কি আদেশ হয় জানার জন্য অপেক্ষায় থাকেন আইনজীবীরা। বিচারপতি ঢাকায়, আসামি ব্যাংককে ও তার আইজীবী লন্ডন থেকে দীর্ঘ শুনানি হয়। শুনানি শেষে আবেদনটিকে বেআইনি বলে মত দেন উচ্চ আদালত। আর কোর্টের সময় নষ্ট করায় দুই আসামিকে করা হয় ১০ হাজার টাকা জরিমানা।

আগাম জামিন বন্ধ থাকায় দেশের অনেক আসামি যখন এ সুযোগ থেকে বঞ্চিত, তখন দেশের বাইরে পলাতক দুই আসামির পক্ষে জামিন চাওয়ায় আইনজীবীদের সমালোচনা করেন উচ্চ আদালত। যদিও এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি কেউ।

ঋণ দেয়া-না দেয়া নিয়ে দ্বন্দ্বে এক্সিম ব্যাংকের এমডি ও ডিএমডিকে অপহরণ করে হত্যার হুমকি দেয়ার অভিযোগ ওঠে শিকদার গ্রুপের এমডি রন হক শিকদার ও দিপু হক শিকদারে বিরুদ্ধে। এ অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে হত্যাচেষ্টা মামলা হলে ২৫ মে করোনা মহামারির মধ্যে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে দেশ ছাড়েন শিকদার পরিবারের এই দুই সদস্য।

দেশের বাইরে থেকে পলাতক কোনো আসামির আগাম জামিন আবেদন বিচার বিভাগের ইতিহাসে এটাই প্রথম। এমনকি তাদের পক্ষে লন্ডন থেকে এক আইনজীবী শুনানি করেন।

পলাতক আসামি শাহেদ প্রকাশ্যেই যেতেন বঙ্গভবন-গণভবন ও সেনাকুঞ্জে

ডেস্ক রিপাের্ট : ১০ বছর পর অবশেষে ঘুম ভাঙল পুলিশের। তারা বলছেন, গ্রেফতারি পরোয়ানা হাতে পেলেও বাবার নাম না থাকায় এতদিন প্রতারক শাহেদ করিমকে গ্রেফতার করা যায়নি। এ ঘটনায় সংশ্লিষ্টদের গাফিলতি দেখছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী। বিষয়টি তদন্তের দাবি জানিয়েছেন আইনজীবীরা।

প্রতারক হিসেবে দেশে পরিচিত হওয়ার ১০ বছর আগেই প্রতারণার এক মামলায় ছয় মাসের কারাদণ্ড হয় রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান শাহেদ করিমের। তাকে গ্রেফতারে পরোয়ানাও জারি করেন আদালত। ১৫ জুলাই গ্রেফতারের আগ পর্যন্ত আইনের চোখে পলাতক আসামি হয়েই বঙ্গভবন, গণভবন, সেনাকুঞ্জসহ রাষ্ট্রীয় নানা অনুষ্ঠানে অংশ নেন তিনি।

পরোয়ানা থাকা সত্ত্বেও কেন তাকে এতদিন গ্রেফতার করা হয়নি এনিয়েও চলছে সমালোচনা। অনেকেই বলছেন, প্রশাসনকে ম্যানেজ করেই এই মামলায় গ্রেফতার এড়িয়েছেন তিনি। আদালতে শাহেদের মামলার নথি ঘেটে জানা যায়, তাকে হাজির করতে দু’দফা সমন দেয়া হয়। কিন্তু তার ঠিকানায় সমন পৌঁছেনি।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী বলছেন, রায় ঘোষণার পর দণ্ড কার্যকরের দায়িত্ব পুলিশের। এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ গাফিলতির পরিচয় দিয়েছে।

মহানগর দায়রা জজ আদালতের এপিপি অ্যাডভোকেট আব্দুস সাত্তার দুলাল বলেন, থানা কর্তৃপক্ষের গাফিলতি রয়েছে। পরবর্তী স্টেপ নিতে হলে থানা থেকে রিপোর্ট আসতে হবে। আসামি যদি এরেস্ট না হয়, অথবা তাকে পাওয়া যায়নি এমন রিপোর্ট না দিলেও কোর্ট ব্যবস্থা নিতে পারে না।

যদিও উত্তরা পূর্ব থানার ওসি এ বিষয়ে ক্যামেরার সামনে কথা বলতে রাজি হননি। তবে তিনি বলেছেন, সাজা পরোয়ানায় শাহেদের বাবার নাম উল্লেখ না থাকায় তখন তাকে গ্রেফতার করা হয়নি। বিষয়টি তদন্তের দাবি জানিয়েছেন সিনিয়র আইনজীবীরা।

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট খুরশীদ আলম খান বলেন, কাজেই দুটো জায়গায় তদন্ত করা হয়েছে। এবং এটা গুরুতর লঙ্ঘন, এবং গুরুতর অপরাধ। এতে আদালতের প্রতি মানুষের আস্থাই থাকবে না।

উত্তরা পূর্ব থানা পুলিশ জানিয়েছে, শাহেদের পূর্ণাঙ্গ পরিচয় নিশ্চিত হওয়ায় এখন ওই মামলাতেও তাকে গ্রেফতার দেখানো হবে।

উত্তর পূর্ব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নূরে আলম সিদ্দিকী বলেন, ওই ওয়ারেন্টে যেটা ছিল, নাম লেখা ছিল শাহেদ। বাবার নাম ঠিকানা লেখা ছিল না। তাহলে কিভাবে আইডেন্টিফাই করা হতো। তখন কিন্তু বাদীর দায়িত্ব ছিল।- শীর্ষনিউজ

অক্সফোর্ডের করোনা ভ্যাকসিন সফল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ব্রিটেনের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীদের তৈরি নভেল করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন চ্যাডক্স১ এনকোভ-১৯ নিরাপদ এবং করোনার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সহায়ক বলে ঘোষণা দেয়া হয়েছে। সোমবার বিজ্ঞানবিষয়ক সাময়িকী ল্যানসেটে প্রকাশিত প্রথম ধাপের পরীক্ষার ফলে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রথম ধাপে ১ হাজার ৭৭ জনের শরীরে ভ্যাকসিনটি পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করা হয়েছিল। প্রাথমিক ফলাফলে দেখা গেছে, এই ভ্যাকসিনটি যাদের প্রয়োগ করা হয়েছিল, তাদের শরীরে অ্যান্টিবডি এবং শ্বেত রক্তকণিকা (হোয়াইট ব্লাড সেল) তৈরি করে; যা শরীরে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করতে পারে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি বলছে, অক্সফোর্ড বিজ্ঞানীদের এই ভ্যাকসিনকে বড় ধরনের প্রতিশ্রুতিশীল উদ্ভাবন হিসেবে মনে করা হচ্ছে। তবে এই ভ্যাকসিন করোনার বিরুদ্ধে যথেষ্ট সুরক্ষা দেবে কিনা; সেটি এখনই বলা যাচ্ছে না। ভ্যাকসিনটির কার্যকারিতা ও সুরক্ষার ব্যাপারে জানতে বৃহৎ পরিসরে দক্ষিণ আফ্রিকা, ব্রাজিল এবং যুক্তরাষ্ট্রে পরীক্ষা চলমান রয়েছে।

আরও বেশি সংখ্যক মানুষকে দেয়ার জন্য ভ্যাকসিনটি যথেষ্ট নিরাপদ কিনা সেটি জানাই ছিল প্রথম ধাপের পরীক্ষার মূল উদ্দেশ্য। ভ্যাকসিনটি প্রয়োগে শরীরে তৈরি হওয়া প্রতিরোধ ব্যবস্থা বৃদ্ধি করতে পারে বলে প্রথম ধাপের পরীক্ষার ফলে জানানো হয়েছে।

প্রথম ধাপের ফল আজ প্রকাশিত হলেও অক্সফোর্ডের এই ভ্যাকসিনটির তৃতীয় বা চূড়ান্ত পর্যায়ের পরীক্ষার জন্য যুক্তরাষ্ট্র, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং ব্রাজিলে ৪২ হাজার স্বেচ্ছাসেবীর দেহে পরীক্ষার ফল পেতে আরও অপেক্ষা করতে হবে। ভ্যাকসিনটির তৃতীয় ধাপের পরীক্ষার জন্য যুক্তরাজ্যে ১০ হাজার মানুষের দেহে তা প্রয়োগ করবে অক্সফোর্ড। এছাড়া যুক্তরাষ্ট্রে ৩০ হাজার ও ব্রাজিলে ২ হাজার স্বেচ্ছাসেবীকে ভ্যাকসিনটি দেয়া হবে।

ব্রিটিশ ফার্মাসিউটিক্যালস জায়ান্ট অ্যাস্ট্রাজেনেকার সঙ্গে যৌথভাবে এই ভ্যাকসিন তৈরি করেছে অক্সফোর্ড।অ্যাস্ট্রাজেনেকা বলেছে, চলতি বছরের শেষ দিকে ভ্যাকসিনটির কার্যকারিতার ব্যাপারে তারা চূড়ান্ত তথ্য-উপাত্ত পাবেন বলে আশা করছেন। শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যাজনিত কোভিড-১৯ রোগের বিরুদ্ধে অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনটিকে ‘দ্বৈত প্রতিরক্ষা’ হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে।

পিছিয়ে গেল টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

স্পোর্টস ডেস্ক : সময়ের প্রবাহে যা হয়ে উঠেছিল একরকম অবধারিত, সেটির আনুষ্ঠানিক ঘোষণা এলো অবশেষে। করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে কয়েক মাসের টানাপোড়েনের পর পিছিয়ে গেল এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ।

আইসিসির ভার্চুয়াল সভায় সোমবার চূড়ান্ত হয়েছে এই বছরের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পিছিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত। আগামী ১৮ অক্টোবর থেকে ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ায় হওয়ার কথা ছিল ২০ ওভারের বিশ্বকাপের সপ্তম আসর।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আইসিসি জানিয়েছে, এই আসর অস্ট্রেলিয়াতেই হবে আগামী বছরের অক্টোবর-নভেম্বরে। ফাইনাল ১৪ নভেম্বর। ২০২১ সালে ভারতে অনুষ্ঠেয় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পিছিয়ে হবে ২০২২ সালের অক্টোবর-নভেম্বরে, ফাইনাল ১৩ নভেম্বর।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পিছিয়ে যাওয়ায় আরেকটি বড় সিদ্ধান্তও নিতে হয়েছে আইসিসিকে। ২০২৩ সালের ৫০ ওভারের বিশ্বকাপের আয়োজকও ভারত, সেটির সময়কাল ছিল ৯ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৬ মার্চ। কিন্তু ২০২১ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ২০২২ সালের অক্টোবর-নভেম্বরে পিছিয়ে যাওয়ায় তিন মাসের মধ্যে ভারতে পড়ে যায় দুটি বিশ্বকাপ। আয়োজকদের পর্যাপ্ত প্রস্তুতির সময় দিতে ৫০ ওভারের বিশ্বকাপও পিছিয়ে নেওয়া হয়েছে। এখন এটি হবে ২০২৩ সালের অক্টোবর-নভেম্বরে। ফাইনাল ২৬ নভেম্বর।

বিশ্ব জুড়ে করোনাভাইরাস পরিস্থিতির বাস্তবতায় এবারের আসর স্থগিত হওয়া অনেকটা নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল আগেই। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার কর্তারা গত কিছুদিনে কয়েকবারই বলেছেন, এই বছর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ‘প্রচণ্ড ঝুঁকির হবে’ এবং ‘না হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি।’ আইসিসি তবু চূড়ান্ত ঘোষণা দিতে সময় নিয়েছে। বাস্তবতার কাছে শেষ পর্যন্ত নতি স্বীকার করতেই হলো।

সম্প্রতি মেলবোর্নে পরিস্থিতি একটু অবনতি হওয়ায় লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে, তবে সামগ্রিকভাবে অস্ট্রেলিয়ার করোনাভাইরাস পরিস্থিতি বেশ নিয়ন্ত্রিত। কিন্তু এত বড় টুর্নামেন্টকে ঘিরে যে প্রস্তুতি ও বিশাল কর্মযজ্ঞ, সেটি ক্রমশ হয়ে উঠছিল কঠিন। অংশগ্রহণকারী দেশগুলোর মধ্যে ভারত, বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও দক্ষিণ আফ্রিকার অবস্থা বেশ নাজুক। বৈশ্বিক ভ্রমণ পরিস্থিতিও সহসাই স্বাভাবিক হওয়ার সম্ভাবনা নেই। ১৬ টি দলকে অস্ট্রেলিয়ায় নিয়ে যাওয়া, ‘জীবাণুমুক্ত’ পরিবেশ তৈরি করা ও আনুষঙ্গিক আরও অনেক কিছু সময়ের বাস্তবতায় প্রায় অসম্ভব।

আগামী ফেব্রুয়ারিতে নিউ জিল্যান্ডে অনুষ্ঠেয় মেয়েদের বিশ্বকাপ আপাতত সূচি অনুযায়ী আয়োজনের প্রস্তুতি চলতে থাকবে বলে জানিয়েছে আইসিসি। পরিস্থিতি বুঝে পরবর্তীতে নেওয়া হবে সিদ্ধান্ত।

ব্যালন ডি’অর দেওয়া হবে না এবার

স্পোর্টস ডেস্ক : আর সববারের মতো নয় চলতি মৌসুম। করোনাভাইরাসের থাবায় ফুটবলে স্বাভাবিক থাকেনি অনেক কিছুই। অনেক সংশয়ের মাঝে ২০২০ সালের বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কার ব্যালন ডি’অর না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ফরাসি সাময়িকী ‘ফ্রান্স ফুটবল।’

নিজেদের ওয়েবসাইটে সোমবার এক বিবৃতিতে সিদ্ধান্তটি জানায় ফ্রান্স ফুটবল কর্তৃপক্ষ। ১৯৫৬ সালে পুরস্কারটি দেওয়া শুরুর পর থেকে ৬৪ বছরের ইতিহাসে এবারই প্রথম এটি দেওয়া হবে না।

ফ্রান্স ফুটবলের আয়োজনে সাংবাদিকদের ভোটে বছরের সেরা ফুটবলারকে পুরস্কৃত করা হয়। তবে বিজয়ী বেছে নিতে যে সময় ধরা হয় এর মাঝে শেষ হয়ে যায় ক্লাব ফুটবল মৌসুম। কিন্তু এবার তা হয়নি।

গত মার্চ থেকে স্থগিত হয়ে যায় প্রায় সব ধরনের ফুটবল। স্বাস্থঝুঁকির কথা ভেবে মৌসুম বাতিল করে লিগ ওয়ান কর্তৃপক্ষ। প্রায় তিন মাসের বিরতি শেষে ইউরোপের শীর্ষ পাঁচ লিগের বাকি চারটি মাঠে গড়ালেও, তা স্বাভাবিকভাবে হয়নি। এখনও চলছে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ ও ইতালির সেরি আ। এরপর অগাস্টে হবে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ও ইউরোপা লিগ। দুটি প্রতিযোগিতাই হবে সংক্ষিপ্ত সংস্করণে, ‘মিনি টুর্নামেন্ট।’

আন্তর্জাতিক ফুটবল তো এখনও শুরুই হয়নি। এসব কিছু বিবেচনা নিয়ে পুরস্কারটি না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

গত বছরের ৩ ডিসেম্বর, ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো ও ভার্জিল ফন ডাইককে হারিয়ে রেকর্ড ষষ্ঠবারের মতো ব্যালন ডি’অর জিতেছিলেন লিওনেল মেসি।

নিরাপত্তা সুতায় পরিবর্তন এনে ১০০০ টাকার নতুন ব্যাংক নোট ইস্যু করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক

ডেস্ক রিপাের্ট : এতে নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্য আরও সুদৃঢ় এবং নোট জাল করা প্রতিরোধে রং পরিবর্তনশীল হলোগ্রাফিক ব্যবহার করা হয়েছে। সোমবার বাংলাদেশ ব্যাংকের কমিউনিকেশন এন্ড পাবলিকেশন ডিপার্টমেন্টের মহাব্যবস্থাপক সাঈদা খানমের সই করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে একথা জানানো হয়।

এতে বলা হয়, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি সম্বলিত বিদ্যমান ডিজাইন এবং গভর্নর ফজলে কবিরের সই করা ১৬০ মিমি x ৭০ মিমি পরিমাপের ১০০০ টাকা মূল্যমানের ব্যাংক নোট মুদ্রন করা হয়েছে যা আজ ২০ জুলাই থেকে বাংলাদেশ ব্যাংকের মিতিঝিল অফিস থেকে ইস্যু করা হয়েছে। পরবর্তীতে বাংলাদেশ ব্যাংকের অন্যান্য অফিস থেকে ইস্যু করা হবে।

নতুন নিরাপত্তা সুতা প্রচলিত নোটের নিরাপত্তা সুতা থেকে উন্নততর যা নোট জালকরণ প্রতিরোধে কার্যকর ভূমিকা রাখবে বলে জানানো হয়েছে। নতুন নোটে আগের রং ও ডিজাইন অপরিবর্তিত রেখে শুধুমাত্র নোটের সামনের দিকে বামপাশের নিরাপত্তা সুতায় পরিবর্তন করা হয়েছে।

নতুন নিরাপত্তা সুতাটি ৫ মিলি মিটার প্রশস্ত এবং নোটে নিরাপত্তা সুতার চারটি অংশ দৃশ্যমান থাকবে। এতে ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের মনোগ্রাম’ এবং ‘১০০০ টাকা’ খচিত রয়েছে। যা নিরাপত্তা সুতার দৃশ্যমান অংশে সম্পূর্ণ ও আংশিক এবং কতিপয় ক্ষেত্রে নিরাপত্তা সুতার ভেতরে অবস্থান করবে। বাংলাদেশ ব্যাংক আরও জানায়, নতুন নিরাপত্তা সুতাটি নখের আঁচড় বা মুচড়িয়ে সহজে ওঠানে সম্ভব হবে না। নোটটি কাত করলে নিরাপত্তা সুতার রং সোনালী থেকে হালকা সবুজ ও গাঢ় সবুজ রংয়ে পরিবর্তিত হয় এবং উজ্জ্বল রংধনুর রংয়ের বারে রূপান্তরিত হয়ে উপর থেকে নিচে চলতে দেখা যাবে।

নোটের রং, ডিজাইন ও অন্যান্য সব নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্য (জলছাপ, ওভিআই কালিতে লেখা ‘১০০০’, দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের জন্য ৫টি বিন্দু, মাইক্রোপ্রিন্ট, খসখসে লেখা, লুকানো ছাপা, নোটের পিছনের দিকে ইরিডিসেন্ট স্ট্রাইপ ইত্যাদি) অপরিবর্তিত রয়েছে। নতুন এই নোটের পাশাপাশি বর্তমানে প্রচলনে থাকা ১০০০ টাকা মূল্যমানের অন্যান্য নোট (শহীদ মিনার ও কার্জন হলের ছবি সম্বলিত হালকা লাল রংয়ের নোট এবং বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি সম্বলিত হালকা বেগুনী রংয়ের নোট) বৈধ ব্যাংক নোট হিসেবে যুগপৎ চালু থাকবে বলেও জানানো হয়েছে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে।

সংক্রমণ রোধে ঈদযাত্রায় সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করুন : ওবায়দুল কাদেরের

নিজস্ব প্রতিবেদক :করোনা সংক্রমণ রোধে ঈদযাত্রায় সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বনের আহ্বান জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

সোমবার বনানীতে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি-বিআরটিএর প্রধান কার্যালয়ে কোরবানির ঈদ উপলক্ষে সড়ক-মহাসড়কে যাত্রীসাধারণের যাতায়াত নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন করতে করণীয় নির্ধারণ সংক্রান্ত সভায় তার বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে এ আহ্বান জানান।

যেসব পরিবহন সরকার ও মালিক-সমিতির সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে যাবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন মন্ত্রী।

ঈদ কেন্দ্র করে সংক্রমণ ছড়ানোর ঝুঁকি এড়াতে জনগণকে সুরক্ষা দিতে দায়িত্বশীল সবাইকে একযোগে কাজ করার নির্দেশ দিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, এটি ধর্মীয় উৎসব হওয়ায় সামাজিক ও ধর্মীয় বাস্তবতায় সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

তিনি বলেন, মহাসড়কে ফিটনেসবিহীন যানবাহন বন্ধ করতে হবে এবং তা উৎসমুখেই নিয়ন্ত্রণ করতে হবে।

আইন প্রয়োগকারী সংস্থা, মালিক-শ্রমিক প্রতিনিধি, টার্মিনাল প্রতিনিধি, বিআরটিএ, সিটি কর্পোরেশনসহ সব অংশীজনকে নিয়ে যাত্রীদের স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনে কার্যকর ভূমিকা পালন করতে হবে বলেও জানান ওবায়দুল কাদের।

বিআরটিএর মোবাইল কোর্ট সার্বক্ষণিক মনিটর করবে, কোনো ধরনের অভিযোগ পেলেই ব্যবস্থা নিতে হবে জানিয়ে সড়ক পরিবহনমন্ত্রী বলেন, প্রতিটি টিপ শেষে গাড়ির ভেতর ও বাইরে জীবাণুমুক্ত করতে হবে।

তিনি বলেন, যাত্রাপথে জ্বালানি সংগ্রহ ও জরুরি প্রয়োজন ছাড়া গাড়ি থামানো যাবে না।

ঈদের তিনদিন আগে থেকে পণ্যবাহী ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে, তবে জরুরি সার্ভিস ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্য পরিবহনে এ নিষেধাজ্ঞার আওতামুক্ত থাকবে বলে জানান ওবায়দুল কাদের।

তিনি সড়ক ও মহাসড়কের ওপর এবং পাশে কোনোভাবেই পশুর হাট বসানো যাবে না বলেও জানান।

ঈদের আগে ও পরে সিএনজি স্টেশনসমূহ খোলা রাখতে জ্বালানি বিভাগকেও অনুরোধ জানান সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী।

সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব মো. নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য মশিউর রহমান রাঙ্গা, বিআরটিএর চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ মজুমদার, বিআরটিসির চেয়ারম্যান মো. এহছানে এলাহীসহ পরিবহন সংশ্লিষ্ট নেতৃবৃন্দ।

ইংল্যান্ড সফরে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলবে অস্ট্রেলিয়া

স্পোর্টস ডেস্ক : জৈব সুরক্ষিত পরিবেশে ইংল্যান্ডে নির্ধারিত সফরে যাওয়ার ব্যাপারে অনেকটাই এগিয়ে গেছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। আসছে সেপ্টেম্বরে টি-টোয়েন্টি ও ওয়ানডে সিরিজের একটা সম্ভাব্য সূচিও ঠিক হয়েছে। এমন খবরই দিয়েছে অসি গণমাধ্যম দ্য ডেইলি টেলিগ্রাফ।
টেলিগ্রাফ জানায়, ৪ সেপ্টেম্বর থেকে টি-টোয়েন্টি দিয়ে শুরু হবে এই সিরিজ। ৬ ও ৮ সেপ্টেম্বর হবে সিরিজের বাকি দুই ম্যাচ। টি-টোয়েন্টি সিরিজের দুদিন পরই শুরু হবে ওয়ানডে সিরিজ।

১০, ১২ ও ১৫ সেপ্টেম্বর হবে তিন ওয়ানডে সিরিজ। প্রতিটি ম্যাচই হবে জৈব সুরক্ষিত পরিবেশ ও দর্শকশূন্য মাঠে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সিরিজ খেলতে অস্ট্রেলিয়া দল ভাড়া করা উড়োজাহাজে পৌঁছাবে ইংল্যান্ডে। সেখানে নির্দিষ্ট স্বাস্থ্যবিধি, কোয়ারেন্টিন ও কোভিড-১৯ পরীক্ষার নিয়ম মানবে তারা।
সিরিজের ছয়টি ম্যাচের জন্য আবাসন সুবিধা থাকা দুই ভেন্যু সাউদাম্পটনের রোজভৌল আর ম্যানচেস্টারের ওল্ড টার্ফোডকে চূড়ান্ত করা হয়েছে।

ইংল্যান্ডের এই দুই মাঠের প্যাভিলিয়নের মধ্যেই আছে পাঁচ তারকা হোটেল। এই সুবিধা থাকায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ খেলছে ইংল্যান্ড। এই দুই ভেন্যুতে পাকিস্তানের বিপক্ষেও সিরিজ খেলবে জো রুট, বেন স্টোকসরা। এই দুই সিরিজ পরই ইংল্যান্ড খেলতে যাচ্ছে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে।

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় দলের প্রধান কর্মকর্তা বেন ওলিবার জানান, করোনাভাইরাসের পরবর্তীর পরিস্থিতিতে খেলোয়াড় ও অফিসিয়ালদের সুরক্ষা, প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধির কথা মাথায় নিয়েই এগুচ্ছেন তারা।- দ্য টেলিগ্রাফ অস্ট্রেলিয়া/ ডেইলি স্টার

অপু বিশ্বাসের বিরুদ্ধে ৫ লাখ টাকার চেক প্রতারণার অভিযোগে আইনি নোটিশ

বিনােদন ডেস্ক : চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাসকে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছেন এবি ইন্টারন্যাশনালের স্বত্ত্বাধিকারী বাদশাহ বুলবুলের আইনজীবী।

পাঁচ লাখ টাকার চেক জালিয়াতির অভিযোগে এই নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

গতকাল রোববার রাজধানীর জজ কোর্টের অ্যাডভোকেট মো. মুনজুর আলমের মাধ্যমে এ নোটিশ পাঠানো হয়।

নোটিশে বলা হয়েছে, ওই ব্যবসায়ীর সঙ্গে অপু বিশ্বাসের সুসম্পর্ক ছিল। সেই সুবাধে প্লট কেনার কিস্তি পরিশোধ, ব্যক্তিগত গাড়ি ও ফ্ল্যাট কেনার জন্য অপু ওই ব্যবসায়ীর কাছ থেকে ১০ লাখ টাকা ঋণ নেন।

গত ৭ জুলাই সে ঋণ পরিশোধের অংশ হিসেবে পাঁচ লাখ টাকার একটি চেক দিলেও অ্যাকাউন্টে প্রয়োজনীয় অর্থ না থাকায় সংশ্লিষ্ট ব্যাংক কর্তৃপক্ষ সেটি ফেরত দিয়েছে।

বিষয়টি অপুকে জানানো হলে তিনি কালক্ষেপণ করতে থাকেন এবং এক পর্যায়ে ওই ব্যবসায়ীর সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করে দেন।

নোটিশে অপুকে ৩০ দিনের মধ্যে সব অর্থ পরিশোধের জন্য বলা হয়েছে। তা না করা হলে তার বিরুদ্ধে মামলা করা হবে বলেও উল্লেখ করা হয়েছে।

অপু বিশ্বাস বলেন, ‘আমি নিজে কিছু করবো বলে বগুড়ায় আমাদের পরিবারিক কিছু সম্পত্তি বিক্রি করে বাদশা বুলবুলের সঙ্গে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে ব্যবসা শুরু করি। সরল মনে তার কাছে আমার চেকবই রেখেছিলাম। কারণ কখনো টাকা প্রয়োজন হলে ব্যাংক থেকে যেন তুলে নিতে পারেন।’

‘কিন্তু, কিছুদিন না যেতেই তার আচরণে পরিবর্তন হতে থাকে,’ উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, ‘এরপর সিদ্ধান্ত নিই, তার সঙ্গে আর ব্যবসা করবো না এবং চেকবই বাসায় নিয়ে আসি।’

‘তখনো বুঝিনি চেকের দুটি পাতা তিনি রেখে দিয়েছেন। এদিকে, আমি আমার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে ফেলি এবং চেকের দুটি পাতা না পাওয়ার কারণে থানায় জিডি করে রাখি। চেক প্রতারণার অভিযোগ পুরোপুরি একটা ষড়যন্ত্র, তার বিরুদ্ধে আমি মানহানির মামলা করবো,’ যোগ করেন ‘কোটি টাকার কাবিন’-খ্যাত অভিনেত্রী।

কে এই নারী? যিনি আরব আমিরাতের মঙ্গল অভিযানের নেতৃত্ব দিবেন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : সংযুক্ত আরব আমিরাতের ঐতিহাসিক একটি মহাকাশযান জাপান থেকে উৎক্ষেপণের পর এখন মঙ্গল গ্রহের পথে।

বিবিসি জানায়, মঙ্গল গ্রহের আবহাওয়া ও জলবায়ু নিয়ে পরীক্ষা করতে প্রায় ৫০০ মিলিয়ন কিলোমিটার পথ পাড়ি দিচ্ছে ‘মিশন হোপ’নামের এই মহাকাশযান।

আর এই মিশনের নেতৃত্ব দিচ্ছেন আরব আমিরাতে বৈজ্ঞানিক দলের প্রধান সারাহ আল আমিরি, যিনি দেশটির অ্যাডভান্সড সায়েন্সবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী।
বিবিসি জানিয়েছে, জাপানের সবচেয়ে বড় রকেটবন্দর তানেগাশিমা থেকে উড্ডয়ন করে আমিরাতের স্যাটেলাইট ‘হোপ মিশন’। মহাকাশযানটি ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে পৌঁছাবে যা কাকতালীয়ভাবে আরব আমিরাতের প্রতিষ্ঠার ৫০তম বার্ষিকী।

তবে আবহাওয়া খারাপ থাকায় এর আগে দুবার মহাকাশযানটির উৎক্ষেপণের সময় পেছাতে হয়।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের মঙ্গল অভিযান সফল হলে তাদের নাম যুক্ত হবে বিশ্বের হাতেগোনা কয়েকটি দেশের তালিকায়। এ তালিকায় আছে যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, ইউরোপ আর ভারতের মতো গুটিকয়েক দেশ, যারা মঙ্গলগ্রহে সফল মহাকাশ অভিযান করতে পেরেছে।

মহাকাশযান ডিজাইন ও নির্মাণ করার ক্ষেত্রে আরব আমিরাতের অভিজ্ঞতা একেবারেই নেই। তবে দেশটির উচ্চাভিলাষ তাদেরকে চ্যালেঞ্জটি নিতে উদ্বুদ্ধ করেছে।

বিজ্ঞানীরা মনে করছেন, মঙ্গল থেকে কিভাবে বাতাস কমে গেলো কিংবা পানির বিষয়টি বোঝার ক্ষেত্রে এগুলো সহায়ক ভূমিকা রাখবে।

তবে হোপ মিশন আসলে পরিণত হবে অনুপ্রেরণার বাহন হিসেবে যা আরব আমিরাতসহ পুরো আরব অঞ্চলের তরুণদের বিজ্ঞান নিয়ে পড়তে আকৃষ্ট করবে।

দেশটির সরকার বলছে, এ মহাকাশযাত্রা তেমন কিছু প্রকল্পের অংশ যা দেশটিকে তেল গ্যাস নির্ভর অর্থনীতি থেকে জ্ঞানভিত্তিক সমাজের দিকে নিয়ে যাবে।

তবে মঙ্গল অভিযানে আরব দেশের একজন নারীর নেতৃত্ব অবাক করার মতো ঘটনা বলে মনে করা হচ্ছে।

সারাহ আল-আমিরি ‘হোপ মিশনের’ বৈজ্ঞানিক দলের প্রধান। একই সঙ্গে তিনি দেশটির অ্যাডভান্সড সায়েন্সবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী।

এই নবীন বিজ্ঞানী এরই মধ্যে আরব বিশ্বের নারীদের জন্য এক বড় অনুপ্রেরণা হয়ে উঠেছেন। ‘হোপ মিশন’ পৃথিবী ছেড়ে যখন রওনা হয়েছে মঙ্গল অভিমুখে, তখন একই সঙ্গে সবার নজর সারাহ আল-আমিরির দিকেও।

মহাকাশযানটির সফল উৎক্ষেপণের পর তার স্বস্তি প্রকাশ করেছেন সারাহ আল আমিরি।

তিনি বলেন, তার দেশের ওপর এর প্রভাব অনেকটাই ৫১ বছর আগে আমেরিকার চাঁদে পা রাখার মতো। সেটিও ২০ জুলাই তারিখেই হয়েছিল।

‘আজি আমি আনন্দিত যে আরব আমিরাতের শিশুরা ২০ জুলাই তারিখে ঘুম থেকে উঠে তাদের নিজস্ব অভিযানটি দেখতে পাবে, যা নতুন একটি বাস্তবতা। যা তাদের নতুন কিছু করতে উদ্বুদ্ধ করবে।’

সারাহ আল আমিরি ১৯৮৭ সালে সংযুক্ত আরব আমিরাতে জন্ম গ্রহণ করেন। এখন বয়স মাত্র ৩২, কিন্তু মহাকাশে যাওয়ার স্বপ্ন দেখা শুরু করেছিলেন একেবারে ছোটবেলা থেকেই। সারাহ আল-আমিরি পড়াশোনা করেছেন কম্পিউটার সায়েন্সে, আমেরিকান ইউনিভার্সিটি অব শারজাহতে। তার বরাবরই আগ্রহ ছিল এরোস্পেস ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার। কিন্তু তখন সংযুক্ত আরব আমিরাতের কোন মহাকাশ কর্মসূচিই ছিল না।

পড়াশোনা শেষে তিনি যোগ দেন এমিরেটস ইনস্টিটিউশন ফর এডভান্সড সায়েন্স এন্ড টেকনোলজিতে। সেখানে তিনি কাজ করেছেন দুবাইস্যাট-১ এবং দুবাইস্যাট-২ প্রকল্পে। ইউএই‌’র পরিবেশ ও জলবায়ু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে যোগ দেন এরপর। ২০১৬ সালে তাকে এমিরেটস সায়েন্স কাউন্সিলের প্রধান করা হয়।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের মঙ্গল অভিযানের শুরু থেকে এর সঙ্গে জড়িত তিনি। এখন এই মিশনের বৈজ্ঞানিক দলের প্রধান। ২০১৭ সালে তাকে একই সঙ্গে সংযুক্ত আরব আমিরাতের এডভান্সড সায়েন্স বিষয়ক প্রতিমন্ত্রীও করা হয়।