ভারতীয় বোর্ডের প্রত্যাশা, সোমবার বিশ্বকাপ স্থগিতের ঘোষণা দেবে আইসিসি

স্পাের্টস ডেস্ক : আরব আমিরাতের মাটিতে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) আয়োজনের সম্ভাব্য সময়সীমা নির্ধারণ করেছে ভারতীয় ক্রিকেট

বোর্ড (বিসিসিআই)। এমনটা দাবি করেছে জনপ্রিয় ক্রিকেট বিষয়ক ওয়েবসাইট ইএসপিএন ক্রিকইনফো। কিন্তু টি- টোয়েন্টি বিশ্বকাপ স্থগিত করা না হলে এই পরিকল্পনা বাস্তবে রূপ নেওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই।
২০ জুলাই সোমবার আইসিসির ভার্চুয়াল বোর্ড সভা অনুষ্ঠিত হবে। বিসিসিআইয়ের প্রত্যাশা, এই সভা শেষে আনুষ্ঠানিকভাবে বিশ্বকাপ স্থগিতের ঘোষণা দেবে বিশ্বের সর্বোচ্চ ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থা। আর এর পরপরই আইপিএল নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাবে তারা।

সূচি অনুসারে, আগামী ১৮ অক্টোবর থেকে ১৫ নভেম্বরের মধ্যে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আসর বসার কথা রয়েছে। কিন্তু বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের ফলে সৃষ্ট পরিস্থিতির কারণে প্রতিযোগিতাটি শেষ পর্যন্ত মাঠে গড়াবে কিনা তা নিয়ে রয়েছে জোরালো শঙ্কা। বিভিন্ন সময়ে অজি ক্রিকেট বোর্ডের বক্তব্যে আভাস মিলেছে, চলতি বছর আর অনুষ্ঠিত হচ্ছে না বিশ্বকাপ।

রোববার ভারতীয় বার্তা সংস্থা পিটিআইয়ের কাছে বিসিসিআইয়ের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, ‘(আইপিএল আয়োজনের জন্য) প্রথম ধাপ ছিল এশিয়া কাপ স্থগিত করা, যা এরই মধ্যে হয়েছে। এখন আমরা পরিকল্পনা অনুসারে এগোতে পারি যদি আইসিসি (টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ) স্থগিত করে। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া আসরটি আয়োজনের ব্যাপারে খুব বেশি আগ্রহ না দেখালেও তারা সিদ্ধান্তটি ঝুলিয়ে রেখেছে।

ক্রিকইনফো জানিয়েছে, আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর থেকে ৭ নভেম্বরের মধ্যে আইপিএল আয়োজনের একটি সম্ভাব্য ছক কষেছে ভারতীয় বোর্ড। আরব আমিরাতের তিন মূল ভেন্যু- দুবাই, আবুধাবি ও শারজাহতে খেলা রাখার চিন্তা করা হয়েছে। ক্রিকইনফো/ পিটিআই/ ডেইলি স্টার

একাদশে ভর্তির ফি কিস্তিতে নিতে শিক্ষামন্ত্রীর আহ্বান

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনার প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর জন্য একাদশে ভর্তির ফি কিস্তিতে নিতে আহ্বান জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

রবিবার (১৯ জুলাই) এক অনলাইন সভায় চলতি বছরের জন্য একাদশ শ্রেণিতে শিক্ষার্থী ভর্তির সময় ঘোষণা করেন শিক্ষামন্ত্রী।

আগামী ৯ আগস্ট থেকে ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেণিতে অনলাইন ভর্তির কার্যক্রম শুরু হচ্ছে। আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর এই আবেদন শেষ হবে। ভর্তির যাবতীয় তথ্য শিক্ষা বোর্ডের ওয়েব সাইটে প্রকাশ করা হবে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, মেধাবী কিন্তু আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল শিক্ষার্থীদের ভর্তিতে যেন সমাস্যা না হয় সেদিকে প্রতিষ্ঠানগুলিকে সতর্ক থাকতে হবে। কোভিড-১৯ এর কারণে ক্ষতিগ্রস্ত অনেকেই হয়ত ভর্তির ফি একসাথে দিতে পারবে না। সে ক্ষেত্রে তারা যেন কিস্তিতে ভর্তি ফি দিতে পারে সে ব্যবস্থা রাখতে হবে।

সভায় উপস্থিত ছিলেন- শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. সৈয়দ গোলাম ফারুক, আন্তঃ শিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির সভাপতি ও ঢাকা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মু. জিয়াউল হক।

শাহাবুদ্দিন মেডিকেলেও করোনা পরীক্ষায় জালিয়াতি- সহকারী পরিচালকসহ আটক ৩

নিজস্ব প্রতিবেদক : সাহাবউদ্দিন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা পরীক্ষায় জালিয়াতির প্রমাণ মিলেছে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের অনুমোদন ছাড়াই র‌্যাপিড কিট দিয়ে করোনা আক্রান্ত রোগীদের অ্যান্টিবডি পরীক্ষা করে আসছিল হাসপাতালটি। আর অ্যান্টিবডি পরীক্ষার জন্য রোগীদের কাছ থেকে তিন হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

রবিবার (১৯ জুলাই) দুপুরে রাজধানীর গুলশান-২ অবস্থিত সাহাবউদ্দিন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে র‍্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্টেট সারোয়ার আলমের নেতৃত্বে অভিযান চালায় র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) ভ্রাম্যমাণ আদালত। অভিযানে অসহযোগিতা করায় হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. মোহাম্মদ আবুল হাসনাতকে হাতকড়া পরিয়ে র‍্যাব হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

সারোয়ার আলম বলেন, হাসপাতালটিতে আমরা তিনটি অভিযোগ পেয়েছি। এর মধ্যে স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে কোভিড-১৯ পরীক্ষার অনুমোদন দিয়েছিল। কিন্তু তাদের কোভিড-১৯ পরীক্ষার স্বয়ংক্রিয় মেশিন না থাকায় অনুমোদন বাতিল করা হয়। তারপরও তারা কোভিড-১৯ পরীক্ষা চালিয়ে যাচ্ছিল। তারা বাইরের রোগীদেরও টেস্ট করেছে। এ টেস্টগুলো অননুমোদিত ডিভাইসের মাধ্যমে করেছে। যে রিপোর্ট দিয়েছে তা সবই ভুয়া।

তিনি বলেন, দ্বিতীয় অভিযোগ হলো হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কিছু পরীক্ষা বাইরের হাসপাতাল থেকে করে তা নিজেদের হাসপাতালের প্যাডে লিখে রোগীদের দিয়েছে। তৃতীয়ত তারা কিছু পণ্য যেমন মাস্ক, গ্লাভস- এগুলো একাধিকবার ব্যবহার করছে। এগুলো মূলত একবারই ব্যবহারযোগ্য (ওয়ানটাইম ইউজেবল)। কিন্তু তারা এগুলো বারবার ব্যবহার করছে।

তিনি বলেন, আমরা পুরো হাসপাতালটিতে অভিযান পরিচালনা করছি। হাসপাতালের ওষুধাগারেও অভিযান চলছে।

কোভিড-১৯ পরীক্ষায় স্বাস্থ্য অধিদফতর হাসপাতালটিকে অনুমতি দিলেও পরবর্তীতে অনিয়মের কারণে তা বাতিল করা হয়।এরপরও হাসপাতালটিতে টাকার বিনিময়ে কোভিড-১৯ রোগীদের অ্যান্টিবডি টেস্ট করা হচ্ছিল।

নেপালকে পানিতে ডুবিয়ে দিচ্ছে ভারত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতের হস্তক্ষেপের কারণে দক্ষিণাঞ্চলে বন্যা ছাড়াও অন্যান্য প্রাকৃতিক দুর্যোগের মতো পরিস্থিতির শিকার হচ্ছে নেপাল। সম্প্রতি এমন অভিযোগ তুলেছেন নেপালের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাম বাহাদুর থাপা।

দেশটির সংসদীয় কমিটির এক বৈঠকে তিনি বলেন, নেপালের সঙ্গে সীমান্ত এলাকায় ভারত অনেক অবকাঠামো নির্মাণ করেছে। এগুলোর কারণে বহু বছর ধরে নেপালকে ভুগতে হচ্ছে। ভারতের বন্যায় ডুবে যাচ্ছে নেপাল।

গত এক মাসে দেশটিতে বাস্তুচ্যুত হয়েছেন ১০ লাখের বেশি মানুষ। বন্যা-ভূমিধসে দেশটিতে মারা গেছে অন্তত ১১৭ জন। এদিকে বন্যায় ভারতে মারা গেছে অন্তত ১০১ জন। বাস্তুহারা হয়েছে ৩০ লাখ মানুষ।

করোনাভাইরাসের মধ্যে দক্ষিণ এশিয়া ও চীনে আঘাত হেনেছে বন্যা। ভারি বৃষ্টিপাতে নদ-নদীর পানি বেড়ে যাওয়ায় নেপাল, ভারত ও বাংলাদেশের ১০ লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। হাজার হাজার মানুষ নিজেদের ঘরবাড়ি ছেড়ে উঁচু স্থানে আশ্রয় নিয়েছে।

নেপালের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, গত এক মাসে বর্ষাসংক্রান্ত দুর্ঘটনায় দেশটিতে অন্তত ১১৭ জন মারা গেছে। এর মধ্যে পার্বত্য এলাকায় ভূমিধস ও দক্ষিণের সমতল অঞ্চলে বন্যার কারণে এসব প্রাণহানির ঘটনা ঘটে।

অন্তত ৪৭ জন নিখোঁজ রয়েছে। আহত হয়েছে ১২৬ জন। ভারতের সঙ্গে বন্যা নিয়ন্ত্রণ নিয়ে শিগগির বৈঠকে বসতে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন নেপালের পানিমন্ত্রী বর্ষাম্যান পুন।

ইংলিশদের বিরুদ্ধে মাঠে নামার আগেই পাকিস্তান শিবিরে দুঃসংবাদ

স্পোর্টস ডেস্ক : প্রস্তুতি ম্যাচে আঙুলে চোট পাওয়ায় আগামী তিন সপ্তাহ মাঠের বাইরে থাকতে হবে পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান খুশদিল শাহকে।
শনিবার ইংল্যান্ডের ডার্বিতে অনুশীলন সেশনে ব্যাট করার সময় বাম হাতের আঙ্গুলের ফ্রাকশ্চার হয় খুশদিল শাহর। চোটাক্রান্ত হওয়ায় চলমান প্রস্তুতি জোরদারের চারদিনের ম্যাচে খেলতে পারবেন না এ বাঁহাতি ব্যাটসম্যান।

পাকিস্তান ক্রিকেট দলের চিকিৎসক আশা করছেন আগামী সপ্তাহের শেষের দিকে খুশদিল শাহ আবার প্রশিক্ষণ শুরু করতে পারবেন। বর্তমানে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলছে ইংল্যান্ড ক্রিকেট দল। উইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ শেষ হলেই পাকিস্তানের বিপক্ষে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলবে ইংলিশরা।

আগামী ৫ আগস্ট ওল্ডট্র্যাফোর্ডে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে মুখোমুখি হবে পাকিস্তান। তিন ম্যাচ সিরিজের শেষ দুটি টেস্ট ১৩ ও ২১ আগস্ট সাউদাম্পটনের রোজ বোলে শুরু হবে। এরপর তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে মুখোমুখি হবে ইংল্যান্ড-পাকিস্তান। – ক্রিকইনফো

যুক্তরাষ্ট্র কুৎসিত চেহারা দেখিয়েছে : চীন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : চীনের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র জঘন্য মিথ্যা অপপ্রচার চালাচ্ছে বলে অভিযোগ তুলেছে দেশটির মিয়ানমারের দুতাবাস।

এতে বলা হয়েছে, বিতর্কিত দক্ষিণ চীন সাগর ও হংকং নিয়ে দুই প্রতিবেশীর মধ্যে সম্পর্ক ক্ষতিগ্রস্ত করতে চাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র।- খবর রয়টার্সের

বিশ্বের প্রথম ও দ্বিতীয় অর্থনৈতিক শক্তির মধ্যে উত্তেজনা যখন প্রবল হয়ে উঠছে, তখন মিয়ানমারের চীনা দূতাবাস এমন অভিযোগ তুলেছে।

বেইজিং প্রতিবেশী দেশগুলোর সার্বভৌমত্ব খর্ব করছে বলে এর আগে দাবি করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

জবাবে চীনা দূতাবাস জানায়, আমাদের নিয়ন্ত্রণে রাখতে মার্কিন সংস্থাগুলো বাজে কাজ করে যাচ্ছে। তারা তাদের স্বার্থপর, প্রতারণাপূর্ণ, ঘৃণ্য ও কুৎসিত চেহারা দেখিয়েছে।

গত সপ্তাহে দক্ষিণ চীন সাগর নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র তার অবস্থান আরও পরিষ্কার করে দিয়েছে। বলছে, বেইজিংকে চ্যালেঞ্জ জানানো দেশগুলোতে তারা সহায়তা দিয়ে যাবে।

দক্ষিণ চীন সাগরের কৌশলগত জলপথের ৯০ শতাংশ নিজেদের বলে দাবি করে আসছে চীন।

শনিবার ইয়াংগুনের মার্কিন দূতাবাস এক বিবৃতিতে জানায়, দক্ষিণ চীন সাগর ও হংকংয়ে বেইজিং যা করছে, তারা প্রতিবেশীদের সার্বভৌমত্ব হরণের বড় নমুনা।

মিয়ানমারে চীনের বিশাল বিনিয়োগকে ঋণ-ফাঁদ হতে পারে বলে হুশিয়ারি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। এছাড়া মিয়ানমার থেকে চীনে নারীদের পাচার ও চীন থেকে মিয়ানমারে মাদকের চালান নিয়েও সতর্ক করেছে।

মার্কিন দূতাবাস জানায়, এভাবেই আধুনিক সার্বভৌমত্ব হারানোর ঘটনা ঘটে। কেবল নাটকীয় প্রকাশ্য পদক্ষেপের মাধ্যমেই না, ছোট ছোট কার্যক্রমও তাতে ভূমিকা রাখছে, যাতে ধীরে ধীরে দেশগুলো সার্বভৌমত্ব হারিয়ে ফেলে।

জবাবে চীন বলছে, এই বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্রের ‘আঙুর ফল টক’ আচরণের মতোই লাগছে। চীন-মিয়ানমার সম্পর্ক যখন সমৃদ্ধ হচ্ছে, তখন তা অবমূল্যায়ন করতে চেষ্টা চালাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। অভ্যন্তরীণ সংকট ও স্বার্থপরের মতো রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিল করতে মার্কিন কর্তৃপক্ষের বৈশ্বিক অভিযানের আরেকটি প্রহসন এই বিবৃতি।

বিএনপির স্থায়ী কমিটি জামায়াত ছাড়ার পক্ষে

ডেস্ক রিপাের্ট : আগামীতে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের সব কমিটিতে নেতৃত্ব বাছাই হবে নির্বাচনের মাধ্যমে। কোনো কমিটিই কাউন্সিলবিহীন বা অনির্বাচিত হবে না।

শনিবার বিকালে বিএনপির সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটির ভার্চুয়ালে বৈঠকে নেতারা এমন মতামত তুলে ধরেন।

স্থায়ী কমিটির এক সদস্য বলেন, ২০ দলের অন্যতম শরিক জামায়াত নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। জামায়াতকে ছেড়ে দেয়ার বিষয়ে স্থায়ী কমিটির সব সদস্যের মতামত একই।

শুধুমাত্র একজন সদস্যের বক্তব্যে অস্পষ্টতা ছিল। তবে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। লন্ডন থেকে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন। প্রায় ২ ঘণ্টাব্যাপী এই বৈঠক চলে।

এতে নিজ নিজ বাসা থেকে অংশ নেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, বেগম সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু।

বৈঠকে অংশ নেয়া স্থায়ী কমিটির একাধিক সদস্য যুগান্তরকে বলেন, করোনা পরিস্থিতির পরে বিএনপির সাংগঠনিক পুনর্গঠন প্রক্রিয়া কী হবে তা নিয়েই মূলত সবাই বক্তব্য দিয়েছেন। সবাই একমত হন, আগামীতে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের সব কমিটিই হবে নির্বাচনের মাধ্যমে। এ সময় কমিটি গঠনে অতীতে ভুলত্রুটি নিয়েও কথা বলেন স্থায়ী কমিটির সদস্যরা।

তবে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটিতে আগের বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ৩৩ শতাংশ নারী নেতৃত্ব নিশ্চিত করার বিষয়ে একটি খসড়া চূড়ান্ত করার কথা থাকলেও এ বৈঠকে এ নিয়ে কোনো আলোচনা হয়নি।

স্থায়ী কমিটির এক সদস্য জানান, বৈঠকে কিছু চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি। সাংগঠনিক পুনর্গঠন প্রক্রিয়া নিয়ে আরো বিস্তারিত পরে আলোচনা হবে। বৈঠকে চলমান করোনা পরিস্থিতি নিয়েও আলোচনা হয়। করোনা পরিস্থিতিতে নেতাকর্মীদের সবাইকে সতর্ক থেকে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানানো হয়।

মৃত্যুদণ্ডের বিরুদ্ধে জামায়াত নেতা আজহারের রিভিউ আবেদন

ডেস্ক রিপাের্ট : মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় জামায়াত নেতা এটিএম আজহারুল ইসলাম মৃত্যুদণ্ড থেকে খালাস চেয়ে রিভিউ আবেদন দাখিল করেছেন।

রোববার (১৯ জুলাই) দুপুরে আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় আজহারের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ শিশির মনির এ আবেদন দাখিল করেন।

অ্যাডভোকেট শিশির মনির বলেন, ২৩ পৃষ্ঠার রিভিউ আবেদনে ফাঁসির দণ্ড থেকে খালাস চেয়ে ১৪টি যুক্তি দেখানো হয়েছে।

এর আগে গত ১৫ মার্চ মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলায় আজহারুল ইসলামের মৃত্যুদণ্ড বহালের রায় প্রকাশ করেন আপিল বিভাগ। রায় প্রকাশের পর মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার আসামিরা রিভিউ করার জন্য ১৫ দিন সময় পেয়ে থাকেন। কিন্তু করোনার কারণে নিয়মিত আদালত বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এতদিন রিভিউ করতে পারেননি আজহার। রোববার থেকে ভার্চুয়ালি আপিল বেঞ্চে বিচার কার্যক্রম শুরু হয়েছে। কাশিমপুর-২ কারাগারের কনডেম সেলে রয়েছেন আজহার।

বিশিষ্ট ফৌজদারি বিশেষজ্ঞ সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ যুগান্তরকে বলেন, এটিএম আজহারের মৃত্যুদণ্ড কার্যকরে আরও দুটি ধাপ রয়েছে। সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগে ট্রাইব্যুনালের রায় বহাল থাকায় এখন রায় পুনর্বিবেচনা (রিভিউ) ও রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষাই একমাত্র পথ। এখানে বিফল হলে তাকে ফাঁসির দড়িতে ঝুলতেই হবে।

সংবিধানের ৪৯ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী রাষ্ট্রপতির ক্ষমা প্রদর্শনের বিশেষ অধিকার রয়েছে। সেই অনুচ্ছেদ অনুযায়ী ‘কোনো আদালত, ট্রাইব্যুনাল বা অন্য কোনো কর্তৃপক্ষ কর্তৃক প্রদত্ত যে কোনো দণ্ডের মার্জনা, বিলম্বন ও বিরাম মঞ্জুর করার এবং যে কোনো দণ্ড মওকুফ, স্থগিত বা হ্রাস করার ক্ষমতা রাষ্ট্রপতির থাকবে।’

আদালত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, রাষ্ট্রপতির কাছে আবেদন করার পর যদি নামঞ্জুর হয়, তাহলে কারা কর্তৃপক্ষ জেলকোড অনুযায়ী মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করবেন।

গত বছরের ৩১ অক্টোবর আজহারুল ইসলামকে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের দেওয়া মৃত্যুদণ্ডাদেশ বহাল রাখেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ নেতৃত্বাধীন চার বিচারপতির আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

২০১৪ সালের ৩০ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের দেওয়া রায়ে দুই নম্বর, তিন নম্বর এবং চার নম্বর অভিযোগে ফাঁসির দণ্ডাদেশ পেয়েছেন আজহার। এছাড়া পাঁচ নম্বর অভিযোগে অপহরণ, নির্যাতন, ধর্ষণসহ অমানবিক অপরাধের দায়ে ২৫ বছর ও ছয় নম্বর অভিযোগে নির্যাতনের দায়ে ৫ বছর কারাদণ্ডাদেশ দেয়া হয় ।

আপিল বিভাগের রায়ে ২, ৩, ৪ (সংখ্যাগরিষ্ঠ মতের ভিত্তিতে) ও ৬ নম্বর অভিযোগের দণ্ড বহাল রাখেন। আর ৫ নম্বর অভিযোগ থেকে তাকে খালাস দেওয়া হয়। পরে এ রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন আজহারুল।

অনলাইনে ৯ আগস্ট থেকে একাদশে ভর্তি শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক : আগামী ৯ আগস্ট থেকে ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেণিতে অনলাইন ভর্তির কার্যক্রম শুরু হচ্ছে। আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ভর্তি কার্যক্রম চলবে।

রোববার অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক (ঢাকা শিক্ষা বোর্ড চেয়ারম্যান) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জানা গেছে, এ বছর একাদশ শ্রেণিতে ভর্তিতে মুক্তিযোদ্ধা, প্রবাসী ও বিকেএসপি কোটা বহাল থাকছে। তবে, অন্যান্য কোটা নিয়ে প্রস্তাবিত খসড়া নীতিমালায় কোনো কিছু উল্লেখ করা হয়নি। ভর্তি প্রক্রিয়ায় জটিলতা ও ব্যয় কমাতে এসএমএসের মাধ্যমে আবেদন প্রক্রিয়া বাতিল করা হয়েছে। শুধু অনলাইনে সর্বোচ্চ ১০টি প্রতিষ্ঠানে আবেদন করতে পারবেন শিক্ষার্থীরা। এছাড়া ভর্তিতে ফি আবেদন ফি ও ভর্তি ফি কিছুটা বাড়ানো হয়েছে। আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির সূত্র সংবাদ মাধ্যমকে জানায় ভর্তির সময় পরিবর্তন হলেও ইতিমধ্যে প্রকাশিত নীতিমালা অনুসারে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে।

করোনা মহামারীর কারণে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি কার্যক্রম বিলম্বিত হয়। বোর্ডের প্রস্তুতি থাকলিও মহামারীর প্রকোপতা বাড়তে থাকায় তা সম্ভব হয়নি।

মুগদা ও ঢাকা মেডিকেলসহ ৭টি হাসপাতালের ২১০০ মানুষের ওপর চালানো হবে চীনের তৈরি করোনা ভ্যাকসিনের ট্রায়াল

ডেস্ক রিপাের্ট : চীনের তৈরি ভ্যাকসিন বাংলাদেশে ট্রায়ালের জন্য ৭টি হাসপাতালকে নির্ধারণ করা হয়েছে। আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র বাংলাদেশ (আইসিডিডিআর,বি) পরিচালিত এ ট্রায়াল দেশের ৭টি হাসপাতালের ২১০০ মানুষের ওপর চালানো হবে। আর এটি চালানো হবে স্বাস্থ্যকর্মীদের ওপর।

ভ্যাকসিনের ট্রায়াল হিসেবে যেসব হাসপাতালকে নির্ধারণ করা হয়েছে সেগুলো হলো-মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল বার্ন ইউনিট-১, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল, হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, কুয়েত-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতাল, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ইউনিট-২ এবং ঢাকা মহানগর হাসপাতাল।

রোববার বাংলাদেশ মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিল (বিএমআরসি) পরিচালক মাহমুদ উজ জাহান সাংবাদিকদের এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

অনুমতিপত্রে আইসিডিডিআরবি সাতটি হাসপাতালের নাম উল্লেখ করেছে জানিয়ে বিএমআরসির পরিচালক বলেন, ‘ওই সাতটি হাসপাতালের যাদের ওপর ভ্যাকসিনটি প্রয়োগ করা হবে তাদের তালিকা করে কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে ট্রায়াল সম্পন্ন করতে হবে। নাম দেওয়া সাতটি প্রতিষ্ঠানই সরকারি হাসপাতাল। ভ্যাকসিনটি সুস্থ মানুষেরে ওপর প্রয়োগ করা হবে। আপাতত স্বাস্থ্যকর্মীদের ওপর ট্রায়াল চালানো হবে।

চীনের সিনোভেক রিসার্চ অ্যান্ড কোম্পানি লিমিটেডের ভ্যাকসিনের ফেইজ থ্রির ট্রায়াল শুরু করবে তারা। সেজন্য প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশ মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিল (বিএমআরসি) রোববার ট্রায়ালের অনুমোদন দিয়েছে।

তিনি বলেন, ‘ভ্যাকসিনটি চীনের তৈরি। ওই ভ্যাকসিনটির ট্রায়াল হবে বাংলাদেশে। এক মাস আগে বিএমআরসির ন্যাশনাল রিসার্চ ইথিকস কমিটির কাছে আবেদন করেছিল আইসিডিডিআর,বি। সেই ট্রায়ালটা তারা আগামীতে সম্পন্ন করবেন। তারা কেবল অনুমতি নিয়েছে। এরপর আরো অনেক প্রক্রিয়া আছে ভ্যাকসিন ট্রায়ালের বিষয়ে।’

বিএমআরসির পরিচালক মাহমুদ উজ জাহান সাংবাদিকদের বলেন, ‘চীনের সিনোভেক রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট লিমিটেড কোম্পানির তৈরি টিকার তৃতীয় ধাপের পরীক্ষার জন্য আইসিডিডিআরবি আমাদের কাছে প্রটোকল জমা দিয়েছিলে। ন্যাশনাল রিসার্চ এথিকস কমিটি নৈতিক অনুমোদন দিয়েছে। কমিটি এর নৈতিক অনুমোদন দিয়েছে। এখন তারা যেসব প্রতিষ্ঠানে এই পরীক্ষা করবে, তাদের প্রশাসনিক অনুমোদন নেবে।’

মাহমুদ উজ জাহান জানান, বিএমআরসির কাছে আইসিডিডিআরবির পক্ষ থেকে যে প্রটোকল দেওয়া হয়েছে, তাতে ৪ হাজার ২০০ জনের ওপর এটি প্রয়োগ করা হবে। তবে ৪ হাজার ২০০ জন টিকা পাবেন না। এঁদের মধ্যে অর্ধেক টিকা পাবেন, অর্ধেক পাবেন না। এটাই গবেষণার নিয়ম।

আইসিডিডিআরবি দেশের সাতটি হাসপাতালে টিকা পরীক্ষার জন্য স্বাস্থ্য অধিদফতরের কাছে অনুমোদন চেয়েছে বলে জানান বিএমআরসির পরিচালক। অধিদপ্তর অনুমোদন দিলে এসব হাসপাতালে পরীক্ষা শুরু হবে বলে জানান বিএমআরসির পরিচালক।

মাহমুদ উজ জাহান জানান, যে সাতটি প্রতিষ্ঠানে টিকার পরীক্ষা হবে সেগুলো হলো সারা বিশ্বে করোনার টিকা বানাতে এখন অন্তত ১৬০টি উদ্যোগ চালু আছে। এর মধ্যে মাত্র দুটি টিকার তৃতীয় ধাপে আছে। সিনোভেকের এ টিকার পাশে তৃতীয় ধাপে আছে যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের টিকা।

প্রসঙ্গত, চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে করোনার সংক্রমণ শুরু হয়েছিল গত ডিসেম্বরে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার স্থানীয় কার্যালয় নতুন ভাইরাসের বিষয়ে ঘোষণা দেয় ৩১ ডিসেম্বর। ধারণা করা হয়, ভাইরাস প্রতিরোধে চীন শুরু থেকে যেসব উদ্যোগ নিয়েছিল, তার মধ্যে টিকা উদ্ভাবনের প্রচেষ্টাও ছিল। সিনোভেক বায়োটেক এ ক্ষেত্রে এগিয়ে। সিনোভেকের টিকার সম্ভাব্য নাম ‘করোনাভেক’।

টিকা ও ওষুধ বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রথম পর্যায়ের পরীক্ষায় মানুষের জন্য টিকা কতটা নিরাপদ, তা দেখা হয়। দ্বিতীয় পর্যায়ের পরীক্ষায় টিকা নির্দিষ্ট জীবাণু প্রতিরোধে কতটা কার্যকর, তা দেখা হয়। তৃতীয় পর্যায়ের পরীক্ষায় দেখা হয় টিকা কতটা নিরাপদ, কতটা কার্যকর।