তদন্ত কর্মকর্তারা বলছেন- সাহেদের মাথায় ক্রিমিনাল বুদ্ধি গিজগিজ করে

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা নিয়ে ভুয়া রিপোর্ট দেয়ার মামলায় গ্রেপ্তার রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিম অন্য সব অপরাধীর মতো নন। তার মাথায় ক্রিমিনাল বুদ্ধি গিজগিজ করে বলে জানাচ্ছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তারা। তাদের ভাষ্য, কর্মজীবনে অনেক ধরনের প্রতারক ও অপরাধীকে সামলেছেন। কিন্তু সাহেদের মতো এত ধূর্ত লোক দেখেননি। সব বিষয় নিয়েই নিজের মতো করে যুক্তি দেন সাহেদ।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সাহেদের ব্যাপারে এমন মন্তব্য তদন্ত-সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের।

তদন্ত কর্মকর্তা আব্দুল গাফফার জানান, জামিনে ছাড়া পাওয়ার পর আবার দেখা হলে জীবনের অনেক কাহিনি শোনাবেন বলে জানিয়েছেন সাহেদ। তিনি বলেন, সাহেদ বলেছেন, ‘স্যার, আপনার সঙ্গে আবার দেখা হবে। হয়তো আপনি তখন আরও বড় পদে থাকবেন। তখন অনেক গল্প বলব।’

আইন শৃঙ্খলা বাহিনী সূত্রে জানা গেছে, গ্রেপ্তারের পর শত শত প্রতারিত লোক র‌্যাবের কাছে আসছেন। তারা প্রতিকার চান। সাহেদ অনেকের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। এখন তারা আইনি সহায়তা চাইছেন।

তদন্ত-সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, নিজের অপকর্ম ঢাকতে সাহেদ যুক্তি দেন- কতজনই তো অবৈধ কাজ করে খাচ্ছে। তার কাজ নিয়ে কোনো প্রশ্ন ছিল না। হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা দিচ্ছিলেন তিনি। তবে চিকিৎসার নামে অনৈতিক বাণিজ্যের সঙ্গে কর্মীদের জড়ানোর চেষ্টা করছেন তিনি। যদিও তদন্তে জানা গেছে, সব অপকর্মের পরিকল্পনা সাহেদের মাথা থেকেই এসেছিল।

জয় পরাজয় আরো খবর