বয়কটের বিষয়টি উদ্দেশ্যপ্রণোদিত: অভিনেতা জায়েদ খান

বিনােদন ডেস্ক : বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও অভিনেতা জায়েদ খানকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে তাকে বয়কট করেছে চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট ১৮টি সংগঠন। বুধবার এফডিসির জহির রায়হান কালার ল্যাব হলরুমে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দেয়া হয়।

চলচ্চিত্র নির্মাণে শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি নির্মাণ ব্যয় কমানোর লক্ষ্যে চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট সকল সংগঠন একত্রে মিলিত হয়ে ‘চলচ্চিত্র নির্মাণ সংক্রান্ত নীতিমালা প্রণয়ন কমিটি’ নামে একটি কমিটি গঠন করে। এতে শিল্পীদের পারিশ্রমিক ও দৈনন্দিন খরচ সীমাবদ্ধ করা হয়। কিন্তু চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি এই সিদ্ধান্তকে নাকচ করে দেয়। এই ঘটনাতেই জায়েদ খানকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়।

নিজের বয়কটের বিষয়ে সেলফোনের মাধ্যমে জায়েদ খান বলেন, ‘আমি এই মুহূর্তে রাজশাহীতে রয়েছি। বয়কটের কথা শুনেছি। বিষয়টি আমার কাছে একদম উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মনে হয়েছে।’

প্রশ্ন রেখে এই চিত্রনায়ক বলেন, ‘আপনাকে যদি কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয় এবং জবাব দেয়ার জন্য সাতদিন সময় দেয়া হয়, তাহলে সেই সাতদিন অতিক্রান্ত না হওয়া পর্যন্ত আপনার বিরুদ্ধে কীভাবে সিদ্ধান্ত নিতে পারে? তাহলে কি এটা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত নয়? আমাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে তিনদিন হলো। আমি যদি সাতদিনেও উত্তর না দিতাম তাহলে তারা আমার বিরুদ্ধে সিদ্ধান্ত নিতে পারতো।’

তিনি বলেন, ‘চলচ্চিত্র নির্মাণ ব্যয় নীতিমালায় বলা হয়েছে, প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময়ে শুটিং শুরু করতে হবে। দিনের শুটিং শুরু হবে ঠিক সকাল ১০টায়। অন্য সময় যখন শুটিং থাকবে নির্ধারিত সময়েই তা শুরু করতে হবে। শিল্পী ও কলাকুশলীদের সম্মানীর বাইরে যে যাতায়াত ভাড়া দেয়া হয়, তার পরিমাণ কমিয়ে আনা হবে। যাদের সম্মানী এক লাখ টাকার ওপরে তারা কোনো যাতায়াত ভাড়া পাবেন না।’

জায়েদ খানের দাবি, ‘শিল্পীরা এই সিদ্ধান্ত মানতে চাননি। তারা এ বিষয়ে শিল্পী সমিতিতে বারবার মৌখিকভাবে বলছিল। যার ফলে আমরা গত বছরের নভেম্বরে কার্যকরী সমিতির মিটিং ডাকি, সেখানে এই সিদ্ধান্তকে নাকচ করে দেয়া হয়। সিদ্ধান্তকে আমরা রেজুলেশন আকারে লিপিবদ্ধ করি। এটা সম্পূর্ণই শিল্পী সমিতির সিদ্ধান্ত। এই সিদ্ধান্তকে আমি মেসেজ আকারে সব শিল্পীকে জানিয়ে দেই।’

নিজের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ সম্পর্কে অভিনেতা বলেন, ‘ব্যক্তি জায়েদ খানকে তারা বয়কট করে কোন যুক্তিতে? সিদ্ধান্ত কি ব্যক্তি জায়েদের? শিল্পীদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত তারা নিয়ে নেবে? সেই সিদ্ধান্ত শিল্পীরা মানবে কি না সেটাও শিল্পীদের সংগঠনের বিষয়। কার্যকরী কমিটির ২৩ সদস্যের মধ্যে ১৯ জনের উপস্থিতিতে সিদ্ধান্ত নেয়া হয় যে, শিল্পীরা তাদের (প্রযোজক পরিবেশ সমিতির নেওয়া সিদ্ধান্ত) সিদ্ধান্তে কাজ করবে না। এখানে আমাকে এককভাবে টেনে আনার অর্থ কী? বয়কট করতে হলে শিল্পী সমিতিকে বয়কট করতে হবে।’

জায়েদ খান বলেন, ‘তারা আমাকে অনুরোধ করেছিল বিষয়টি বিবেচনা করতে। এই নিয়ে আবার বসার কথাও ছিল। এরমধ্যেই করোনাকাল শুরু হয়ে গেল। আমি শিল্পীদের বাঁচাতে ব্যস্ত হয়ে পড়লাম। পরিযায়ী শিল্পীদের খাবার যোগাতে বিভিন্নজনের দ্বারস্থ হচ্ছিলাম। যেভাবে পারছি আমি দুঃস্থ শিল্পীদের হাতে খাদ্য তুলে দেয়ার চেষ্টা করছি। এই করোনার সময় জায়েদ খানের কর্মকাণ্ড দেখে সবাই যখন প্রশংসা করছে, তখন হুট করে আমার বিরুদ্ধে সিদ্ধান্ত নেয়ার ইচ্ছে হলো! অথচ আমাদের বসার কথা ছিল এসব নিয়ে। আমি ঠিক জানি না কার ইঙ্গিতে এসব হচ্ছে।’

প্রসঙ্গত, জায়েদ খানকে অবাঞ্চিত ও বয়কট ঘোষণার পাশাপাশি একই অভিযোগে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সভাপতি ও খল অভিনেতা মিশা সওদাগরকে সতর্ক করে বুধবার চিঠি পাঠানো হয়।

জয় পরাজয় আরো খবর