বেসরকারি পাঁচ প্রতিষ্ঠানে করোনা টেস্ট স্থগিত করলাে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

নিজস্ব প্রতিবেদক : অনুমতি দেওয়া পাঁচটি বেসরকারি হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে করোনা টেস্ট স্থগিত করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। আজ রবিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত পৃথক পাঁচটি চিঠিতে প্রতিষ্ঠানগুলোকে কোভিড-১৯ আরটি পিসিআর টেস্ট স্থগিত রাখতে বলা হয়।

প্রতিষ্ঠানগুলো হলো-সাহাবউদ্দিন মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, কেয়ার মেডিকেল কলেজ, স্টিমজ হেলথ কেয়ার, থাইকেয়ার ডায়াগনস্টিক, চট্টগ্রামের এপিক হেলথ কেয়ার।

চিঠিগুলোতে বলা হয়, এই হাসপাতাল-ডায়গনস্টিক সেন্টারকে কোভিড-১৯ আরটিপিসিআর ল্যাবরেটরি পরীক্ষার অনুমতি দেওয়া হলেও এখনো কার্যক্রম শুরু করতে ব্যর্থ হয়েছে। তাই তাদের কোভিড-১৯ পরীক্ষা করার অনুমোদন সাময়িকভাবে স্থগিত করা হলো।
ল্যাবরেটরি সম্পূর্ণভাবে কোভিড-১৯ আরটিপিসিআর পরীক্ষার প্রস্তুতি সাপেক্ষে পুনরায় আবেদন করতে হবে। কোভিড-১৯ আরটিপিসিআর মেশিন এবং আমদানিকৃত কিটের অনাপত্তিপত্র ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর থেকে নিতে হবে এবং পরবর্তীতে সরেজমিনে পরিদর্শনের রিপোর্ট অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অমিতাভ বচ্চনের জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া চাইলেন শোয়েব আখতার, ভারতীয় নেটিজেনের জবাব, সন্ত্রাসীদের দোয়া চাই না

স্পাের্টস ডেস্ক : শনিবার রাত থেকেই কোভিড ১৯ এ আক্রান্ত অমিতাভ বচ্চনের আরোগ্য কামনা করে একের পর এক টুইট আসছে। অগণিত অনুরাগী তো বটেই, গ্ল্যামার দুনিয়ার তারকা থেকে ক্রীড়াবিদ, রাজনীতিবিদ প্রত্যেকেই এমন খবরে চিন্তিত। তবে শুধু দেশবাসীই নয়, বিগ বি করোনা পজিটিভ হওয়ায় মন খারাপ প্রতিবেশী দেশগুলিরও।

টুইট করে যেমন অমিতাভের দ্রুত সুস্থতা কামনা করেন সাবেক পাক ক্রিকেটার শোয়েব আখতার। যদিও তার প্রার্থনাকে ভালভাবে নেননি এক ভারতীয় নেটিজেন। মোক্ষম জবাব দিয়ে তার মুখও অবশ্য বন্ধ করে দেন রাওয়ালপি-ি এক্সপ্রেস।

গতকাল একটা টুইট আপামর দেশবাসীর রাতের ঘুম কেড়ে নিয়েছিল। করোনায় আক্রান্ত দেশের সর্বকালের সবচেয়ে মহান অভিনেতা। টুইট করে নিজেই সে খবর জানিয়েছিলেন বিগ বি। খবরটি শোনার পর অনেকের মতো বিগ বি’র আরোগ্য কামনা করে টুইট করেন শোয়েব। লেখেন, তাড়াতাড়ি সুস্থ হয়ে উঠুন। আপনার জন্য প্রার্থনা করছি। বলিউডের শাহেনশাহকে নিয়ে শোয়েবের এই প্রার্থনার টুইটের প্রশংসা করেন অনেকেই। তবে এক নেটিজেনের প্রতিক্রিয়া একেবারে উলটো। এমন একটা দুঃসংবাদের মধ্যে ভারত-পাকিস্তান সম্পর্কের টানাপোড়েনকে টেনে এনেছেন তিনি। ঢুকে পড়েছে সন্ত্রাসবাদের প্রসঙ্গ।

তার টুইটেই বোঝা যায়, তিনি পাকিস্তানের নাগরিক নন। ভারতের ব্যক্তি। যদিও অ্যাকাউন্টটি ভুয়ো কি না, জানা যায়নি। ‘অ্যান্টম্যান’ নামের ওই প্রোফাইল থেকে পাক তারকার উদ্দেশে লেখা হয়, সীমান্ত ওপারে (পাকিস্তানে) জঙ্গিরা থাকে। তাই দ্রুত সুস্থতা কামনা করে কোনও প্রার্থনা চাই না। তবে নেটিজেনের এমন আক্রমণে একেবারেই মেজাজ হারাননি এককালের সেরা পাক পেসার। বরং ঠা-া মাথাতেই ছুঁড়েছেন বাউন্সার। যাতে একেবারে হিট উইকেট ওই নেটিজেন।

পালটা দিয়ে শোয়েব লেখেন, উপরওয়ালার স্বভাবই মানুষের প্রার্থনা শোনা। কে জানে কার প্রার্থনা কখন শোনেন। আপনি কাউকে লেবেল করে দিলেই সেটা লেবেল হয়ে যাবে না। উপরওয়ালা আপনার মঙ্গল করুন। সাবেক পাক পেসারের এমন জবাবের পর অবশ্য আর টু শব্দটি করেননি নেটদুনিয়ার ওই বাসিন্দা। – সংবাদ প্রতিদিন

ডা. সাবরিনা পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে যা বলেছেন

ডেস্ক রিপাের্ট : করোনাভাইরাস টেস্ট নিয়ে প্রতারণার অভিযোগে জেকেজি হেলথকেয়ারের চেয়ারম্যান ও জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের চিকিৎসক ডা. সাবরিনা আরিফকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের পর গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারের পর তেজগাঁও থানায় পাঠানো হয়েছে। তাকে আদালতে পাঠিয়ে রিমান্ড চাইবে পুলিশ।

রোববার ডা. সাবরিনাকে গ্রেফতারের পর ডিসি কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে ডিসি মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ জানান প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি সন্তোষজনক কোনো তথ্য দিতে পারেননি।

ডা. সাবরিনাকে জিজ্ঞাসাবাদ ও গ্রেফতার প্রসঙ্গে ডিসি হারুন বলেন, ‘আমরা আজ তাকে যখন জিজ্ঞাসাবাদ করলাম, আপনি কি চেয়ারম্যান কিনা? উনি বলছেন, না আমি কখনই চেয়ারম্যান ছিলাম না। দ্বিতীয় কথা, আপনি তিতুমীর কলেজে (জেকেজির সঙ্গে কলেজ শিক্ষার্থী ও কর্মচারীদের সঙ্গে সংঘর্ষের) সময় আপনি সেখানে দাঁড়িয়ে তাদের পক্ষে কথা বললেন, জেকেজির মুখপাত্র হিসেবে, চেয়ারম্যান হিসেবে কথা বললেন। তখন তিনি (ডা. সাবরিনা) বললেন, আমার হাজব্যান্ড আমাকে এটা বলতে বলছে।’

ডিসি হারুন বলেন, ‘তারপর উনাকে আরও বিভিন্ন প্রশ্ন করা হলো, কিন্তু ওনি কোনো প্রশ্নের সদুত্তর দিতে পারে নাই। যার কারণে ওনাকে আমরা গ্রেফতার দেখিয়েছি। আমরা মনে করি, ওনি কখনই এই কোম্পানির চেয়ারম্যান হিসেবে এই কোম্পানি মানুষকে যে ক্ষতিগ্রস্ত করছে। যারা নেগেটিভ তাদেরকে পজিটিভ আর যারা পজিটিভ তাদেরকে নেগেটিভ বানাচ্ছে। হাজার হাজার মানুষের মাঝে সংক্রমণ ঘটছে।মানুষকে প্রতারণা করছেন টাকার বিনিময়ে। বিদেশের মাটিতে আমাদের দেশের মানুষেরা গিয়ে (তাদের ভুয়া রিপোর্টের কারণে) যে ফিরে এসেছে। সবকিছু মিলেই আমাদের তদন্তে আসবে।’

ডিসি হারুন বলেন, তাকে গ্রেফতার করতে আমরা সময় নিচ্ছিলাম। কারণ, তিনি একজন ডাক্তার, সরকারি কর্মকর্তা।

এক প্রশ্নের জবাবে ডিসি হারুন সাংবাদিকদের বলেন, আমরা আগামীকাল আদালতে তার জন্য রিমান্ড চাইব। রিমান্ডের প্রেক্ষিতে আরও কিছু তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে তার বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। আপাতত আমরা তাকে একটা মামলায় গ্রেফতার দেখাচ্ছি। ওই মামলায় রিমান্ডে আসবে, আমাদের যদি মনে হয় আরও কোনো অপরাধের সঙ্গে জড়িত, আরও কেউ এসব অপরাধের সঙ্গে জড়িত আরও কেউ আছে সেক্ষেত্রে অন্য ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরেক প্রশ্নের জবাবে ডিসি হারুন বলেন, যেহেতু তিনি একজন সরকারি কর্মকর্তা সেহেতু তিনি আরেকটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান থাকতে পারেন না, কিংবা ওই প্রতিষ্ঠানের মুখপাত্র হিসেবে বক্তব্য দিতে পারেন না।

উনি যে একজন সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে জেকেজি গ্রুপের পক্ষে ফেসবুকে প্রচারণা চালিয়েছেন তাও একজন সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে তা করতে পারেন না। আগামীকাল যদি তিনি রিমান্ডে আসেন তাহলে লক্ষ লক্ষ মানুষের নমুনা নিয়ে পরে যে ভুয়া রিপোর্ট দিয়ে প্রতারণা করেছেন তা তদন্তে বেরিয়ে আসবে। রিমান্ডে আসলে আমরা সময় পাব, তখন বাকি তথ্যগুলো জানা সহজ হবে।

জেকেজির বুথে যারা কাজ করেন তারা আমাদের থানায় এসে ভাঙচুর করেছেন, সেটা পুলিশ বাদি হয়ে মামলা হয়েছে। আর ওনি জেলহাজতে ঢুকে সিসিটিভি ভাঙচুর করেছেন। এটার আরেকটা মামলা আছে।

মির্জা ফকরুল বললেন – করোনা পরীক্ষার দুর্নীতিতে আ’লীগ নেতাদের জড়িত দেখে আমার দুঃখ হয়, লজ্জা হয়

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, করোনাভাইরাস পরীক্ষায় দুর্নীতি এবং তার সঙ্গে আওয়ামী লীগের নেতারা জড়িত দেখে আজকে দুঃখ হয়, লজ্জা হয়। এ ছাড়া পত্রিকায় এসেছে, স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও স্বাস্থ্য অধিদফতরের মধ্যে এখন যুদ্ধ শুরু হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতর বলছে, আমি তো রিজেন্ট হাসপাতালকে অনুমোদন দিতাম না আমাকে যদি মন্ত্রণালয় থেকে না বলা হতো। অর্থাৎ মন্ত্রণালয় থেকে বলা হয়েছে, রিজেন্ট হসপিটালকে অনুমতি দাও তারা পরীক্ষা করবে। তাহলে কে রেসপনসেবল? রিজেন্ট হাসপাতালের অনুমোদনের বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে অবিলম্বে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ করা উচিত।

রোববার দুপুরে রাজধানীর উত্তরার নিজ বাসা থেকে এক ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে বিএনপি মহাসচিব এসব কথা বলেন।

জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে কোভিড-১৯ রোগীদের স্বাস্থ্যসেবায় হটলাইন কল সেন্টার উদ্বোধন উপলক্ষে এই ভার্চুয়াল অনুষ্ঠান হয়।

মির্জা ফখরুল বলেন, আজকে দুঃখ হয়, লজ্জা হয় যখন দেখি প্রচণ্ড দুঃসময়ের মধ্যে করোনা টেস্ট করতে গিয়ে দুর্নীতি। তার সঙ্গে জড়িত কে? আওয়ামী লীগের লোকজন । আজকে গোটা স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে ভেঙে ফেলেছে, ভঙ্গুর হয়ে গেছে। যে হারে লুটপাট করছে সবাই দেখছে। জনগণ দেখছে এই সরকারের আমলে কীভাবে দুর্নীতি ব্যাপক থেকে ব্যাপকতর হচ্ছে।

করোনা মোকাবেলায় বিএনপির দেয়া দীর্ঘ-মধ্য-স্বল্প মেয়াদী প্রণোদনা প্রস্তাবনায় সরকার সাড়া না দেয়ার কঠোর সমালোচনা করেন বিএনপি মহাসচিব। তিনি বলেন, ফলে এখন আমরা কী দেখেছি? প্রথম দিকে মানুষ যারা দিন আনে দিন খায় তারা কষ্ট করেছে, এখন তো কষ্ট আরও বেড়ে গেছে। একদিকে সব খুলে দেয়ার পরে সংক্রামিত বেড়েছে, মানুষও অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ মোকাবেলায় জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশনের নেয়া কর্মসূচিগুলোর প্রশংসা করে মির্জা ফখরুল বলেন, একটা কথা বলে রাখতে চাই, গোটা পৃথিবীর সভ্যতা আগের অবস্থায় আর থাকবে না, পরিবর্তন হবে, হচ্ছে। আজকে রাষ্ট্র বিজ্ঞানীরা, অর্থনীতিবিদরা সবাই বলছেন, এই করোনাভাইরাসের ফলে ওয়ার্ল্ড উইল রিমেন দি সেইম। এটা বদলাবে। কী বদলাবে, কীভাবে বদলাবে সেটা আমরা সবাই জানি না। বাট পরিবর্তন হবে, পরিবর্তন হচ্ছে।

এই পরিস্থিতিতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, আজকে ঐক্যবদ্ধ থাকা প্রয়োজন। আমাদেরকে জনগণকে আরও বেশি ঐক্যবদ্ধ করা প্রয়োজন। এই যে একটা সরকার যারা জোর করে দখলদারি সেজে আমাদের ওপরে অত্যাচার নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছে। চরম দুর্দিনেও তারা মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে না। তারা লুট করছে। আমরা বৃটিশ আমলে দেখেছি, বৃটিশরা সম্পদ লুট করে নিয়ে গেছে। পাকিস্তান আমলে দেখেছি পাকিস্তানিরা সব লুট করে নিয়ে গেল। এখন দেখছি, আওয়ামী লীগ তারা মানুষের পকেট কেটে সব লুট করে নিয়ে যাচ্ছে। এই অবস্থা থেকে আমরা পরিত্রাণ চাই। আমরা মানুষের জীবন বাঁচাতে চাই। জনগণের জীবিকাকে আরও বিকশিত করতে চাই।

পরে জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশনের স্বাস্থ্যসেবার কল সেন্টার ০৯৬৭৮১০২১০২ নাম্বারে ফোন করে এই কর্মসূচির উদ্বোধন ঘোষণা করেন মির্জা ফখরুল।

সরকারের দমন নীতির কঠোর সমালোচনা করে দলের বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, আজকে যারা স্বাধীনভাবে মতপ্রকাশ করতে চান তারা শিকার হচ্ছেন গুমের, মিথ্যা মামলার। তাদেরকে গ্রেফতার করা হচ্ছে। পলি নামে একজন কিশোরী মেয়ে তার ফেসবুকে স্বাধীন মতপ্রকাশ করার কারণে রাতের বেলা তাকে গ্রেফতার করে এখনও আটকে রেখেছে। ছাত্রদলের সাবেক নেতা টিটো হায়দার ৪-৫দিন হলো গায়েব। নোয়াখালীর নেতৃবৃন্দ বার বার সেখানকার র‌্যাব, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে যোগাযোগ করছেন। কখনো তারা আকার ইঙ্গিতে বলে আছে, আবার কখনো বলে আমরা কিছুই জানি না। কিন্তু অনেকেই দেখেছেন যে, টিটো বেগমগঞ্জ থানাই আছে। কিন্তু পুলিশ বলছে, সে তাদের কাছে নেই।

তিনি বলেন, আমরা সবাই জানি টিটো পুলিশের কাস্টিডিউতে আছে এখন। এই ঘটনার মধ্য দিয়ে ভয় পাইয়ে দিতে চায়, আর কেউ করোনা নিয়ে তোমরা কথা বলো না। কী হচ্ছে না হচ্ছে, কত জিকেজি, রিজেন্টের ঘটনা হবে-খবরদার এসব নিয়ে কথা বলতে পারবে না। সরকারের কোনো অনাচার নিয়ে কথা বলতে পারবে না। মানুষকে ভয় পাইয়ে দেয়ার জন্য এই পরিস্থিতি সৃষ্টি করা হয়েছে।

ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালন অধ্যাপক ফরহাদ হালিম ডোনারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-ড্যাবের সভাপতি অধ্যাপক ডা. হারুন আল রশীদ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) সভাপতি কাদের গণি চৌধুরী ও অধ্যাপক ড. মোর্শেদ হাসান খান।

ডা. সাবরিনা জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউট থেকে বরখাস্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক : সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান পদে থাকা ও করোনা টেস্টে প্রতারণার অভিযোগে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের রেজিস্ট্রার কার্ডিয়াক সার্জারি বিভাগের ডা. সাবরিনা শারমিন হুসাইনকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়।

রোববার স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. আব্দুল মান্নান স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত এক অফিস আদেশ জারি করা হয়।

অফিস আদেশে বলা হয়েছে, ‘সাবরিনা শারমিন সরকারি চাকরিতে কর্মরত অবস্থায় বেসরকারি প্রতিষ্ঠান জেকেজি হেলথকেয়ারের চেয়ারম্যান হিসেবে কর্মরত ছিলেন এবং করোনা টেস্টের ভুয়া রিপোর্ট প্রদান ও অর্থ আত্মসাতের সাথে সংশ্লিষ্ট ছিলেন বিধায় তিনি আজ ১২ জুলাই গ্রেফতার হন। সরকারি কর্মকর্তা হয়ে সরকারের অনুমতি ব্যতীত বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান পদে অধিষ্ঠিত থাকা এবং অর্থ আত্মসাৎ সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা এবং আপিল) বিধিমালা ২০১৮ অনুযায়ী শাস্তিযোগ্য অপরাধ, সেহেতু ডা. সাবরিনা শারমিনকে সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা ২০১৮ এর ১২(১) অনুযায়ী সাময়িক বরখাস্ত করা হলো।’

তিনি সাময়িক বরখাস্তকালীন সময়ে বিধি মোতাবেক খোরপোষ প্রাপ্ত হবেন বলে অফিস আদেশে উল্লেখ করা হয়।

প্রসঙ্গত, করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা না করেই রিপোর্ট ডেলিভারি দেয়া জেকেজি হেলথকেয়ারের চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা আরিফকে রোববার গ্রেফতার করে পুলিশ। এর আগে দুপুরে তাকে তেজগাঁও বিভাগীয় উপ-পুলিশ (ডিসি) কার্যালয়ে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

ভয়াবহ বন্যার কবলে চীন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : একটানা ভারি বৃষ্টির কারণে চীনে ভয়াবহ বন্যা দেখা দিয়েছে। কার্যত বন্যার পানিতে ভাসছে দেশটির পূর্ব ও দক্ষিণ অঞ্চল।

গত কয়েকদিনের বৃষ্টিতে হুবেই, জিয়াংজি এবং ঝেঝিয়াং প্রদেশের হাজার হাজার ঘরবাড়ি পানিতে তলিতে গেছে। উঁচু বাঁধের ওপর আশ্রয় নিয়েছে লাখ লাখ মানুষ।

কিন্তু পানির চাপে বাঁধগুলোতেও ফাটল দেখা দিয়েছে। কখন ভেঙে পড়ে, সেই আশঙ্কায় পালা করে রাত জেগে পাহারা দিচ্ছে অধিবাসীরা। খবর সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টের।

খবরে বলা হয়েছে, গত ৭০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়েছে চীন। চলতি বছরের জুন মাস থেকেই দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলজুড়ে মুষলধারে বৃষ্টিপাত হচ্ছে। কিন্তু বর্ষার শুরুতেই নতুন মাত্রায় ভারিবৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে।

লাগাতার এই বর্ষণে একাধিক নদীর পানি উপচে প্লাবিত হয়েছে বিস্তীর্ণ অঞ্চল। কয়েকটি নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে বইছে। কোথাও কোথাও ভূমিধসের ঘটনা ঘটছে।

নদীর তীরবর্তী অঞ্চলের লাখ লাখ মানুষকে নিরাপদ দূরত্বে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এবারের বন্যায় আক্রান্ত হয়েছে প্রায় ৩ কোটি ৪০ লাখ অধিবাসী। এখন পর্যন্ত বন্যা ও ভূমিধসে প্রায় ১৪০ জন নিহত হয়েছে।

চীনের পূর্বাঞ্চলে জিয়াংজি প্রদেশে নদী তীরবর্তী বাঁধে আশ্রয় নিয়েছে এই অঞ্চলের কয়েক লাখ অধিবাসী। কিন্তু নদীর পানির চাপে বাঁধগুলোতেও ফাটল দেখা দিয়েছে। যে কোনো সময় ভেঙে পড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

জিয়াংজি প্রদেশের শাংগ্রাওয়ের পোয়াং অঞ্চলে সি নদীর তীরবর্তী বাঁধে পরিবারসহ আশ্রয় নিয়েছেন উ শেংসন। শনিবার রাতেও তার নির্ঘুম গেছে। অঝোর বৃষ্টির মধ্যেই বাঁধ ভেঙে পড়ার ভয়ে আরও কয়েক হাজার মানুষের সঙ্গে সারা রাত জেগে পাহারা দিয়েছেন তিনি।

আগের রাতগুলোর মতো এ দিন রাতেও উ শেংসনের পাহারার পালা শুরু হওয়ার পরপরই ঝড়বৃষ্টি হয়। আকাশে বিদ্যুৎ চমকাতে থাকে। অদূরে মুহুর্মুহু বজ্রপাত হয়। উ তখনও দুরুদুরু বুকে বাঁধের ওপর দাঁড়িয়ে।

সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টকে এক সাক্ষাৎকারে রাত জেগে বাঁধ পাহারা দেয়ার সেই অভিজ্ঞতা শেয়ার করে উ বলেন, ‘মনে মনে একটু ভয়ও পাই। কয়েকদিন ধরেই একটানা ভারি বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস দেয়া হচ্ছে।’

উ শেংসন মূলত চীনের সর্ববৃহৎ সাধুপানির হৃদ পোয়াং লেকের কাছেই ওযানলি গ্রামে একজন সরকারি কর্মকর্তা কাজ করেন।

কিন্তু একটানা বৃষ্টির কারণে গত রোববারই ইয়াংসিকিয়াং নদীর পানি উপচিয়ে লেকের পানি ২২.৫ মিটার পর্যন্ত পৌঁছেছে, যা এ যাবতকালের মধ্যে সর্বোচ্চ। এর ফলে শানগ্রাও অঞ্চলের বহু ছোট-বড় শহর ও গ্রাম তলিয়ে গেছে।

রিজেন্ট হাসপাতালের সঙ্গে চুক্তি, স্বাস্থ্য অধিদফতরের ডিজির কাছে সেই বক্তব্যের ব্যাখ্যা চেয়েছে মন্ত্রণালয়

ডেস্ক রিপাের্ট : ‘মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে স্বাস্থ্য অধিদফতর রিজেন্ট হাসপাতালের সাথে চুক্তি করেছে’ মর্মে শনিবার স্বাস্থ্য অধিদফতরের দেয়া বক্তব্যের সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা চেয়েছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়।

রিজেন্ট হাসপাতালের সঙ্গে চুক্তির আগে কী কী বিষয় বিবেচনা করা হয়েছিল, চুক্তির পর শর্তগুলো প্রতিপালনে কী কী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছিল এবং মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা বলতে কী বোঝানো হয়েছে, এর সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা আগামী তিন কার্যদিবসের মধ্যে দিতে বলেছে মন্ত্রণালয়।

রোববার উপসচিব শারমিন আক্তার জাহান স্বাক্ষরিত ওই আদেশে বলা হয়েছে, রিজেন্ট হাসপাতালের সঙ্গে চুক্তির পূর্বে কী কী বিষয় বিবেচনা করা হয়েছিল, চুক্তির পর উদ্ধৃত শর্তসমূহ প্রতিপালনে কি কি পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছিল এবং মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বলতে কী বুঝানো হয়েছে তা সুস্পষ্ট ব্যাখ্যাসহ আগামী তিন কার্যদিবসের মধ্যে প্রদান করার জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।

প্রসঙ্গত, শনিবার স্বাস্থ্য অধিদফতরের সহকারী পরিচালক (সমন্বয়) ডা. জাহাঙ্গীর কবির স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সম্প্রতি রিজেন্ট হাসপাতালের প্রতারণার বিষয়ে কিছু আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির স্বত্ত্বাধিকারি মো. শাহেদ করিমের বিভিন্ন প্রতারণার খবরও বেরিয়ে আসছে। স্বাস্থ্য অধিদফতর তার বিষয়ে আগে অবহিত ছিল না।

এ বছরের মার্চ মাসে আকস্মিকভাবে দেশে কোভিড-১৯ রোগীর সংখ্যা বেড়ে যায়। কোনো বেসরকারি হাসপাতাল কোভিড রোগী ভর্তি করতে চাইছিল না। অথচ অনেক রোগীরই পছন্দ থাকতো বেসরকারি হাসপাতাল বা ক্লিনিক। এমন একটি ক্রান্তিকালে রিজেন্ট হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ঢাকার উত্তরা এবং মীরপুরে অবস্থিত ঐ নামের দু’টি ক্লিনিককে কোভিড হাসপাতাল হিসেবে ডেডিকেটেড করার আগ্রহ প্রকাশ করে।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ কর্তৃক নির্দেশিত হয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের হাসপাতাল বিভাগ সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের উদ্যোগ নেয়। তবে ক্লিনিক দু’টি পরিদর্শনকালে চিকিৎসার পরিবেশ উপযুক্ত দেখতে পেলেও ক্লিনিক দু’টির লাইসেন্স নবায়ন ছিল না। বেসরকারি পর্যায়ে কোভিড রোগীদের চিকিৎসা সুবিধা সৃষ্টির মহতী উদ্দেশ্য নিয়ে অপরাপর বেসরকারি হাসপাতালগুলোকেও উৎসাহদানের লক্ষ্যে লাইসেন্স নবায়নের শর্ত দিয়ে রিজেন্ট হাসপাতালের সঙ্গে ২১ মার্চ ২০২০ তারিখে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করা হয়।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের বিজ্ঞপ্তিতে আরও উল্লেখ করা হয়, এই সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের সমঝোতা পূর্বে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক পরিচয় থাকা তো দূরের কথা টকশো ছাড়া আগে কখনও শাহেদকে দেখেননি। তবে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের পর বেশ ক’বার তিনি স্বাস্থ্য অধিদফতরে এসেছিলেন। এ সময় শাহেদ তার সঙ্গে বিভিন্ন বিশিষ্ট ব্যক্তির যোগাযোগ আছে এবং তার ক্লিনিকগুলোতে কোন কোন বিশিষ্ট ব্যক্তির কোভিড আক্রান্ত আত্মীয় ভর্তি আছেন সেসব কথা বলার চেষ্টা করতেন।

চিত্রনায়ক জায়েদ খান – হিরো আলমের দ্বন্দ্ব মেটালেন অনন্ত-বর্ষা

বিনোদন প্রতিবেদক : কিছুদিন আগে অভিনেতা-উপস্থাপক শাহরিয়ার নাজিম জয়ের ফেসবুক লাইভ অনুষ্ঠানে অভিনেতা ও শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান মন্তব্য করেন, তিনি নাকি হিরো আলম নামে কাউকে চেনেন না। এই মন্তব্যে বেশ ক্ষেপে যান হিরো আলম। তিনি ফেসবুক লাইভে এসে জায়েদের এই মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানান। এমনকি, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক সমিতিতে অভিযোগও করেন।

মোটকথা, জায়েদ খানের সঙ্গে একপ্রকার দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েন ফেসবুক ও ইউটিউবের আলোচিত মুখ হিরো আলম। তিনি জায়েদকে নানা চ্যালেঞ্জও ছুঁড়ে দেন। দাবি করেন, দেশের মানুষ তাকেই বেশি চেনেন, জায়েদকে নয়। অন্যদিকে, এমন পরিস্থিতির জন্য জায়েদ কাঁঠগড়ায় তোলেন উপস্থাপক শাহরিয়ার নাজিম জয়কে। বলেন, জয় তার অনুষ্ঠানে তারকাদের ডেকে নিয়ে অপমান করেন।

তবে আলোচনার কেন্দ্রে সবসময়ই ছিল জায়েদ খান ও হিরো আলমের দ্বন্দ্ব। অবশেষে দুই অভিনেতার সম্পর্কের সেই বরফ গলাতে এগিয়ে আসলেন তারকা জুটি অনন্ত জলিল ও বর্ষা। জায়েদ-আলমের দ্বন্দ্ব তারা মিটিয়ে দিয়েছেন বলে ফেসবুকে দাবি করেছেন। শনিবার অনন্ত জলিল তার ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে চারজনের একসঙ্গে তোলা একটি ছবিও শেয়ার করেন।

সেই ছবিতে দেখা গেছে, একপাশে জায়েদ খান ও অন্যপাশে হিরো আলম, আর মাঝখানে দাঁড়িয়ে রয়েছেন অনন্ত-বর্ষা জুটি। ছবিটির ক্যাপশনে অনন্ত লিখেছেন, ‘নাথিং ইমপসিবল।’ এমন মধ্যস্থতার জন্য অনন্ত জলিলকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন অগণিত সিনেপ্রেমীরা।

এদিকে গত ১৮ জুন অনন্ত জলিল প্রযোজিত একটি ছবিতে অভিনয়ের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন হিরো আলম। সেই ছবিতে থাকবেন অনন্ত-বর্ষা জুটিও। আরও থাকবেন চিত্রনায়ক ইমন। সেখানে একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করবেন হিরো আলম। সংবাদমাধ্যমকে এমনটাই জানান ছবির প্রযোজক ও অভিনেতা অনন্ত জলিল।

এটি হবে হিরো আলমের কেরিয়ারের তৃতীয় ছবি। তিনি প্রথম অভিনয় করেন ‘মার ছক্কা’ ছবিতে। মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে ‘সাহসী হিরো আলম’ নামে আরেকটি ছবি। এটির প্রযোজকও হিরো আলম। সেই হিসেবে অনন্ত জলিল প্রযোজিত ছবিটি হবে তার তৃতীয় ছবি। যদিও ছবির নাম এখনো ঠিক হয়নি।

জেকেজি হেলথকেয়ারের চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনার নমুনা সংগ্রহ করে ফেলে দিয়ে পরে মনগড়া রিপোর্ট দেয়ার অভিযোগে জেকেজির সিইও আরিফ চৌধুরীর পর এবার গ্রেপ্তার করা হলো প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরীকে।

রবিবার দুপুরে তাকে তেজগাঁও বিভাগীয় উপ-পুলিশ (ডিসি) কার্যালয়ে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাকে গ্রেপ্তার দেখায় পুলিশ।

পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, তদন্তে জেকেজির প্রতারণার সঙ্গে ডা. সাবরিনা আরিফের সংশ্লিষ্টতা পাওয়ায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

বিভিন্ন মাধ্যমে সাবরিনাকে জেকেজি চেয়ারম্যান হিসাবে পরিচয় দেয়া হলেও জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের এই চিকিৎসক দাবি করেছেন, জেকেজির সঙ্গে তার কোনো সম্পর্ক নেই। তিনি শুধু জেকেজিকে করোনার বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছেন।

সম্প্রতি ভুয়া করোনা রিপোর্ট তৈরির অভিযোগে জেকেজির সিইও আরিফ চৌধুরীসহ বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

পুলিশ জানতে পারে, জেকেজি হেলথকেয়ার থেকে ২৭ হাজার রোগীকে করোনার টেস্টের রিপোর্ট দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে ১১ হাজার ৫৪০ জনের করোনার নমুনার আইইডিসিআরের মাধ্যমে সঠিক পরীক্ষা করানো হয়েছিল। বাকি ১৫ হাজার ৪৬০ জনের রিপোর্ট প্রতিষ্ঠানটির ল্যাপটপে তৈরি করা হয়। জব্দ করা ল্যাপটপে তার প্রমাণ মিলেছে।

এই সংকটে রাস্তায় রাস্তায় মানুষ মরে পড়ে থাকেনি, এটাই বিএনপির গাত্রদাহ – ওবায়দুল কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিএনপি বিষোদগার ছাড়া এ সংকটে জাতিকে কিছুই দিতে পারেনি বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি রবিবার (১২ জুলাই) রাজধানীতে সরকারি বাসভবনে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির সুবিধাবাদী রাজনৈতিক চরিত্র এবং ডাবল স্ট্যান্ডার্ড ইতিমধ্যে জনগণের কাছে পরিষ্কার হয়ে গেছে।

বিএনপির বক্তব্যের সূত্র ধরে তিনি বলেন, রাস্তায় রাস্তায় মানুষ মরে পড়ে থাকেনি। আর সেটি হয়নি বলেই বিএনপির গাত্রদাহ।

জনগণের জীবন-জীবিকার ওপর সরকারের কোনো দায়িত্ব নেই– বিএনপি মহাসচিবের এমন অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে ওবায়দুল কাদের বলেন, জীবন ও জীবিকার চাকা সচল রাখতে শেখ হাসিনা সরকার যখন নানামুখী সিদ্ধান্ত নিয়েছিল, তখন বিএনপি সমালোচনা করেছিল কেন?

তিনি বলেন, লকডাউনের জন্য চাপ তৈরি করে মির্জা ফখরুল এখন জনগণের জীবিকার কথা বলছেন।

‘সরকারের অবহেলা আর অজ্ঞতার জন্য পরিস্থিতি খারাপ হয়েছে’- বিএনপি নেতাদের এমন বক্তব্যের জবাবে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, করোনা মহামারীতে বিশ্বের কোন দেশ বিদ্যমান সুবিধা দিয়ে সফলতা পেয়েছে? কোন দেশ হিমশিম খায়নি। সরকার সর্বোচ্চ চেষ্টা করে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে সংকট মোকাবেলা করে চলেছে।

সাম্প্রতিক করোনা পরীক্ষায় দুই প্রতিষ্ঠানের প্রতারণা মানুষকে বিস্মিত করেছে জানিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী দ্রুততার সঙ্গে তদন্তপূর্বক অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের আহ্বান জানান।

মন্ত্রী স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন, শেখ হাসিনার সরকার কোনো অন্যায়কারীকে ছাড় দেয়নি, ভবিষ্যতেও দেবে না।

কোরবানির পশুর হাট নিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, আসন্ন কোরবানির ঈদে পশুর হাট এবং মানুষের ঈদযাত্রা করোনা সংক্রমণের মাত্রাকে উদ্বেগজনক পর্যায়ে নিয়ে যেতে পারে– বিশেষজ্ঞদের এমন আশঙ্কায় করোনাবিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি কয়েকটি জেলায় পশুর হাট না বসানোর পরামর্শ দিয়েছে। বিদ্যমান এ পরিস্থিতিতে এ পরামর্শ খুবই ব্যবহারিক এবং বাস্তবায়ন সম্ভব হলে ভালো ফল বয়ে আনবে নিঃসন্দেহে।