adv
২৪শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ফেরদৌসের সঙ্গে কথা বলায় শ্রীলেখাকে ফোন করেন প্রসেনজিৎ

বিনােদন ডেস্ক : সুশান্ত সিং রাজপুতের অকাল মৃত্যুর পর ডিপ্রেশন নিয়ে মুখ খুলেছেন অনেকেই। সরব হয়েছেন স্বজনপোষণ নীতি নিয়ে। উঠে এসেছে বেশ কিছু তাবড় ব্যক্তিত্বের নাম। অনেকেই সাহস পেয়ে মুখ খুলছেন। তবে সিনে ইন্ডাস্ট্রির সব জায়গার চিত্র সর্বত্রই এক। সেই কথাই শ্রীলেখা মিত্র তুলে ধরলেন তার নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেলে।

সেখানে জানান, একদিন শুটিং ফ্লোরে প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়কে পাত্তা না দিয়ে ফেরদৌসের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। এরপরই এই নায়িকাকে ফোন করে নতুন ছবির কথা জানান প্রসেনজিৎ।

পড়াশুনা, ইন্ডাস্ট্রিতে প্রবেশ এই সব কিছুই শ্রীলেখা তুলে ধরেন দীর্ঘ বক্তব্যে। সুশান্তের মতই তার কোনো গডফাদার ছিল না ইন্ডাস্ট্রিতে। ফলে কাজ পেতে ও কাজ ধরে রাখতে তাকে বেশ বেগ পেতে হয়েছে। শ্রীলেখার কথায় ইন্ডাস্ট্রির অন্দরে সবসময়ই পাওয়ার গেম চলে। সেই সঙ্গে রয়েছে ক্ষমতার আস্ফালন। অবশ্য সেই ক্ষমতা কে কীভাবে ব্যবহার করবে তা নিতান্তই ব্যক্তিগত।

প্রায় একঘন্টা নয় মিনিটের এই ভিডিওতে প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়, ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তকে নিয়ে ক্ষোভ উগরে দেন শ্রীলেখা। এসেছে সৃজিত মুখোপাধ্যায়, শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়, কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়, কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায়ের মতো বেশ কিছু নাম।

শ্রীলেখা জানান, ১৯৯৭-৯৮ সালে যখন তিনি অভিনয় করতে আসেন তখন জুটি হিসেবে হিট প্রসেনজিৎ-ঋতুপর্ণা। বলেন “প্রথমদিকে আমি নায়িকার কোনও চরিত্র পাইনি। তখন ইন্ডাস্ট্রিতে এক নম্বরে ছিলেন বুম্বাদা অর্থাৎ প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। তখন বোনের চরিত্র করেছি। সেকেন্ড লিড করেছি। যদিও আমি জানতাম আমি নায়িকা হওয়ার যোগ্য। কিন্তু সেই সময় ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তের সঙ্গে প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের প্রেম।”

প্রসেনজিৎ সম্পর্কে শ্রীলেখা বলছেন, “আমাদের সমাজটাই পুরুষতান্ত্রিক। তাই টলিউড তার বাইরে হবে এটা আমরা আশা করতে পারি। বুম্বাদার কথাতেই সমস্ত কিছু চলত। বুম্বাদার একটা আলাদা চেয়ার থাকত। আমি দেখতাম বুম্বাদা চেয়ারের ওপর পায়ের উপর পা তুলে বসে আছেন। কিন্তু পরিচালকরা মাটিতে বসে তার সঙ্গে কথা বলছেন। ঋতু দেরি করে শুটিং ফ্লোরে আসত। সবাই ওর জন্য অপেক্ষা করত। কিন্তু তাও ওকেই নেওয়া হতো পরের ছবিতেও। কিন্তু আমাদের সব সময় প্রমাণ করতে হতো যে আমরা সময়ানুবর্তিতা মেনে চলি। কিন্তু প্রসেনজিৎ ঋতুপর্ণা জুটি। এই জুটি তো ভাঙবার নয়। ছবি না চলুক ও তবুও এরাই এখন ছবি করবে।”

তিনি বলছেন, “ইন্ডাস্ট্রিতে আমি কোনও জুটি তৈরি করতে পারিনি। সব নায়ক ততদিনে জুটি বেঁধে ফেলেছেন।” প্রথমে প্রসেনজিৎ-ঋতুপর্ণা তারপর প্রসেনজিৎ-অর্পিতা, জিৎ-স্বস্তিকা, তারপর স্বস্তিকা-পরমব্রত। তার কথায়, “যে নায়িকার সঙ্গে নায়কের প্রেম ছিল তারা জুটি হিসেবে কাজ পেতেন। এটা যেন প্যাকেজ ডিল ছিল। আমার কোনো নায়ক পরিচালক বা প্রযোজকের সঙ্গে প্রেম হয়নি। তাই কাজটা আমায় দেবে কে। তার উপরে আমি সোজা কথা সোজাভাবে বলতে ভালোবাসি। মহিলা হওয়ার আলাদা কোনো সুবিধা নিতে পছন্দ করি না।”

“সাগর বন্যা’ ছবির শুটিংয়ে আমরা দীঘা যাচ্ছিলাম। ওই ছবিতেই ছিলেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়, ইন্দ্রানী হালদার। আমার গাড়িতে আমি ও আমার মা ছিলাম। তখন একটি অ্যাক্সিডেন্ট হয়। আমি দীঘা হাসপাতালে ভর্তি হই। পরিচালক দেখতে এসেছিলেন। কিন্তু প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় দেখতে আসার সময় পাননি। কারণ আমি তো কেউ নই তখন।”

এই ছবিটি অশোক ধানুকার প্রযোজনায় ছিল। সঙ্গে বাংলাদেশের কোলাবরেশন ছিল। কিন্তু দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হওয়ার জন্য শ্রীলেখা সে ছবিতে অভিনয় করতে পারেননি। প্রাপ্য টাকার বিনিময় একটা হরলিক্সের শিশি নিয়ে তাকে দেখতে যান অশোক ধানুকা। তিনি কথা দিয়েছিলেন, একার প্রযোজনায় ছবি করলে শ্রীলেখা কেই নায়িকার চরিত্রে নেবেন। জানান অভিনেত্রী।

শ্রীলেখা জানান, এরপরে অশোক ধানুকার ‘অন্নদাতা’ ছবির নায়িকার চরিত্রে তিনি সই করেন। খুব আনন্দ পেয়েছিলেন প্রথম বাংলা ছবিতে নায়িকার ভূমিকায় অভিনয় করার সুযোগ পেয়ে। কিন্তু অশোক ধানুকা ফোন করে জানান, প্রসেনজিৎ তার সঙ্গে ছবি করতে চান না। কারণ তিনি মনে করেন শ্রীলেখা নায়িকা হলে কেউ টাকা দিয়ে সিনেমা হলে যাবেন না।

এর পরে একদিন স্টুডিওতে প্রসেনজিতকে দেখে এড়িয়ে গিয়েছিলেন তিনি। বদলে ফেরদৌসের সঙ্গে কথা বলেছিলেন। এবং তার কিছুদিন পরেই অশোক ধানুকা এবং খোদ প্রসেনজিৎ ফোন করে জানান, ‘অন্নদাতা’ ছবিতে শ্রীলেখাই কাজ করছেন।

শ্রীলেখা জানাচ্ছেন, ‘অন্নদাতা’ ছবিটি হিট করেছিল। কিন্তু তারপরে আর কোন ছবিতে প্রসেনজিতের সঙ্গে কাজ করা হয়নি। ‘অন্নদাতা’ ছবিতে একটি গেস্ট অ্যাপিয়ারেন্স ছিল অর্পিতা চট্টোপাধ্যায়। তখন থেকে প্রেম শুরু হয় অর্পিতা ও বুম্বাদার।

এরপরে অর্জুন চক্রবর্তীর পরিচালনায় ‘টলিলাইটস’ ছবিতে অভিনয় করেছিলেন শ্রীলেখা। অভিনেত্রীর কথায়, “সেই সময় ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত অর্জুন চক্রবর্তীকে ফোন করে বলেছিলেন, শ্রীলেখাকে বাদ দাও। আমাকে দাও। আমি কম পারিশ্রমিকে অভিনয় করব। শুনে খুব কষ্ট লেগেছিল। অর্জুনদাকে ধন্যবাদ যে তিনি আমাকে ছবিটা করতে দিয়েছিলেন। ঋতুকে পরে বলেছিলাম তোমার হা মুখটা ছোট করো। অন্যদেরও কাজ করতে দাও।”

ঋতুপর্ণার ওপর আরও ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন শ্রীলেখা। তিনি বলছেন, “আমরা অনেকেই সমালোচনা করি। কিন্তু ঋতুকে আমি কখনও দেখিনি কোনও খারাপ কথা বলতে। খুব চালাক ও। ও সবার সঙ্গে, যেকোনো বয়সের মানুষের সঙ্গে খুব মিষ্টি করে কথা বলে মোহিত করে দিতে পারে।”

এমনকি শ্রীলেখা জানাচ্ছেন বড় প্রযোজনা সংস্থা না হলে সেই ছবি ইচ্ছাকৃত ভাবেই চলতে দেওয়া হয় না। তার কথায়, “নেপোটিজম ছিল রয়েছে এবং থাকবে।”

কৌশিক গাঙ্গুলি সম্পর্কে শ্রীলেখা বলছেন, “ওনার ছবিতে তো শুধু চূর্ণী গঙ্গোপাধ্যায় কাজ করবেন। সেটা নিজেই কৌশিকদা আমায় বলেছিলেন। জয়া আহসান বোধহয় খুব ভালো অভিনেত্রী। তাই জয়া আহসান তার ছবিতে কাজ পান আমি পাই না।”

সৃজিতকে নিয়ে বলছেন, “আমি জানি সৃজিত লাইভ ভিডিওটা দেখছে। সৃজিত একসময় আমার খুব ভালো বন্ধু ছিল। কিন্তু যখন ছবি করল তখন আর আমাকে ডাকেনি। হয়তো আমার মত কোনো চরিত্র ছিল না। স্বস্তিকার মতনই চরিত্রগুলো ছিল। তখন স্বস্তিকার সঙ্গে আসলে সৃজিতের একটা প্রেম চলছিল।”

শ্রীলেখার কথায় “আমার মুনমুন সেন, অপর্ণা সেনের মত কোনও মা নেই। আমার রঞ্জিত মল্লিক, সন্তু মুখোপাধ্যায়ের মত কোনও বাবাও নেই। “

শুধু সিনেমা নয় সিরিয়ালেও এরকম হয়েছে। “অঞ্জনা বসু এবং গার্গী রায়চৌধুরী সঙ্গে প্রযোজকের প্রেম হয়েছিল বলে আমার সিরিয়ালের অংশ অনেক কমে গিয়েছিল। আমি জানি আজকের লাইভের পরে আমাকে আবার এক ঘরে করে দেওয়া হবে।”

“আসলে আমি ক্যামেরার সামনে ভালো নাটক করতে পারি। কিন্তু ক্যামেরাটা বন্ধ হয়ে গেলে অভিনয়টা আর করতে পারি না। ফলে প্রথম দিন থেকেই আমি এখানে ঠিক খাপ খাওয়াতে পারলাম না। কিন্তু মুখে বলা হতো আমি অভিনয়টা ভালো পারি। হিরোইন হওয়ার যোগ্য। কিন্তু সব ঠিক হয়ে যাওয়ার পরই কীভাবে যেন বাদ পড়ে যেতাম… আজ আমার বাড়ির নিচে দামি গাড়ি সার দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে না। কিন্তু আমার রাতের ঘুমটা তাদের থেকে অনেক ভালো হয়। নিজের শর্তে খুব ভালো আছি। যদিও আমি কিন্তু ডিপ্রেশনের রোগী। আমার অভিমান খুব ব্যক্তিগত। আমি কাজ পাওয়ার জন্য প্রেম করতে চাইনি। কোনও ছলানিপনা নেই। আমি সৎ, আমি যখন থাকব না তখন যাতে আমার সততাটুকু থেকে যায় সেই চেষ্টাই করেছি। আমি কাঁধ চাই না। আমার কীঁধ খুব শক্ত। আমার কাঁধেই অনেকে মাথা রাখতে পারে।”

মিডিয়া নামক সার্কাসে রুচি নেই শ্রীলেখার। বিশ্বাস করেন সবকিছু টিআরপির নিরিখে হয় না। শুধুমাত্র কাজের বিনিময়ে শ্রীলেখা মিত্র কোনোদিন কারোর সঙ্গে প্রেম করেনি, করবে না। শ্রীলেখা অনুরোধ করেছেন, তার মৃত্যুর পর সাদা পোশাকে কেউ যেন শোক দেখাতে না আসে। কারণ মৃত্যু কাছের লোকদের সঙ্গেই সেলিব্রেট করতে চান। ভেবেছিলেন এই সোশ্যাল মিডিয়া, এই প্রতারণার জগত থেকে অনেক দূরে থাকবেন। কিন্তু সুশান্তর মৃত্যু তাকে গভীরভাবে নাড়া দিয়েছে। তাই এত বছর বাদে মনের কথা তিনি খুলে বললেন।

ব্যক্তি বিশেষে টলিউডের তাবড় ব্যক্তিত্বদের নাম শ্রীলেখা নিয়েছেন। কিন্তু কেউ ব্যক্তিগত আঘাত পেলে তিনি ক্ষমাপ্রার্থী নন এমনটাও জানিয়ে দিয়েছেন। ফ্ল্যাটবাড়ি ছেড়ে শহরের উপকন্ঠে কোথাও একটা বাড়ি বানিয়ে থাকতে চান পোষ্যদের সঙ্গে। এমনটাই তাঁর আশা।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
June 2020
M T W T F S S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
2930  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া