বোনাস না দেয়ায় বার্সেলোনার বিরুদ্ধে করা মামলায় হেরে গেলেন নেইমার

স্পোর্টস ডেস্ক : আজ স্পেনের একটি আদালত নেইমারের অভিযোগ খারিজ করে দিয়েছেন।
উল্টো ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ডকে এখন গুণতে হবে অর্থ। ৬৭ লাখ ইউরো সাবেক ক্লাবকে ফিরিয়ে দিতে তাকে আদেশ দেওয়া হয়েছে বলে

শুক্রবার বার্সেলোনা এক বিবৃতিতে জানিয়েছে। আদালতের রায়ে তারা সন্তুষ্ট বলেও বিবৃতিতে জানিয়েছে কাতালান ক্লাবটি।
২০১৭ সালের অগাস্টে ২২ কোটি ২০ লাখ ইউরো রেকর্ড ট্রান্সফার ফিতে বার্সেলোনা ছেড়ে ফরাসি ক্লাব পিএসজিতে যোগ দেন নেইমার। তার মাত্র নয় মাস আগে ক্যাম্প ন্যুতে দলটির সঙ্গে নতুন চুক্তি করেছিলেন তিনি। ওই চুক্তিতে তাকে ৪ কোটি ৩৬ লাখ ইউরো বোনাস দেওয়ার কথা ছিল উল্লেখ করে বার্সেলোনার বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন নেইমার।
রায়ের পর নেইমারের প্রতিনিধিদের তাৎক্ষণিক কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

আইনি লড়াইয়ের মাঝেও গত বছর নেইমারকে ক্যাম্প ন্যুয়ে ফেরানোর জোর চেষ্টা চালিয়েছিল বার্সেলোনা। পুরনো ঠিকানায় ফিরতে মরিয়া নেইমার পিএসজির সঙ্গে অনুশীলন বন্ধ করে দিয়েছিলেন। তার এমন আচরণে ক্ষুব্ধ হয়েছিল লিগ ওয়ানের দলটির সমর্থকরা। – রয়টার্স

লকডাউনে গবেষণা, ইসলামের ছায়াতলে ৩ তারকা

বিনোদন ডেস্ক : সারাবিশ্ব যখন অদৃশ্য শক্তি করোনা ভাইরাসের আক্রমণে পুরোপুরি বিপর্যস্ত, ঠিক তখনই ছোট ছোট কিছু সংবাদ মুসলিম হিসেবে আপ্লুত করেছে বহু মানুষকে। করোনার সময়ে বিভিন্ন দেশের একাধিক জনপ্রিয় মডেল, তারকা ইসলামের সুশীতল ছায়ায় আশ্রয় নিয়েছেন। শুধু ইসলাম গ্রহণ করেই তারা ক্ষান্ত হননি, জাঁকজমকভাবে গর্বের সঙ্গে তা তারা জানিয়েছেন বিশ্ববাসীকে। তাদের কেউ কেউ জীবনের প্রথম ইফতার, রমজানের অনুভূতিও মিডিয়াতে প্রকাশ করেছেন। আবার কেউ কেউ কালেমায়ে শাহাদাত পাঠ করে শেয়ার করেছেন।

এদের মধ্যে অন্যতম হচ্ছেন তানাশা দোনা। পুরো নাম তানাশা দোনা বারবিয়ারি অকেচ। মুসলিম হওয়ার পর নিজের নাম রাখেন আয়েশা। তিনি কেনিয়ার জনপ্রিয় একজন রেডিও উপস্থাপক। উদ্যোক্তা ও মডেল। ‘ফর হার লাক্সারি হেয়ার’ নামক একটি হেয়ার ব্রান্ডের সিইও এবং ফাউন্ডার। তিনি প্রথমে অমুসলিম হলেও তাঁর স্বামী একজন মুসলিম ছিলেন। তানাশা তার ইসলাম গ্রহণের ব্যাপারে প্রথম জানিয়ে ছিলেন তার স্বামীর বোন ইসমাকে। গত ২৫ এপ্রিল সর্বপ্রথম তিনি ইসলাম গ্রহণের বিষয়টি বন্ধু মহলে প্রকাশ করেন। সেদিনই জীবনের প্রথম রোজাটি তিনি পূর্ণ করেন ও ইফতার করেন।

তানাশার ইসলাম গ্রহণের ব্যাপারে স্বামী ডায়মন্ড বলেন, ‍‌‌‌‌‌‌’আমি কখনো তাকে ইসলাম গ্রহণ করতে চাপ দিইনি তবে পরামর্শ দিয়েছিলাম। সে যদি তা গ্রহণ করতে চায় করবে। আমি তার জন্য দোয়া করব। এরপর সে যখন ইসলাম গ্রহণ করল আমরা তখন কিগমা শহরে ছিলাম।’

কোভিড-১৯ এর আক্রমণে সারাবিশ্বের অন্যান্য মানুষের মতো অস্ট্রিয়ার জনপ্রিয় রেসলিং তারকা উইলহেলমও হয়ে যান ঘরবন্দী। ঘরবন্দী সময়টাকে তিনি অযথা বসে না থেকে শুরু করে দেন ইসলাম নিয়ে পড়াশুনা ও গবেষণা। একপর্যায়ে তিনি নিজের বিবেকের সঙ্গে বোঝাপড়া করে গ্রহণও করে ফেলেন চির সত্য ধর্ম ইসলামকে। শুধু তাই নয়। গত ১৬ এপ্রিল কালিমায়ে শাহাদাত পাঠ করে তার ইন্সটাগ্রাম অ্যাকাউন্ট থেকে একটি ভিডিয়ো প্রকাশ করেন। ইসলাম গ্রহণ সম্পর্কে তার ইনস্টাগ্রাম পোস্টে বলেন, ‍‌‌‌‌‌‌’করোনার সংকট আমাকে আমার বিশ্বাস খুঁজে পেতে সাহায্য করেছে। ইসলাম বহু বছর ধরেই আমার মনোজগতের দখলে ছিল। যখনই আমার কঠিন সময় ছিল তখনই ইসলামিক বিশ্বাস আমাকে প্রয়োজনীয় শক্তি দিয়েছে। আমার ধর্মবিশ্বাস এখন যথেষ্ট শক্তিশালী। আমি আমার প্রকৃত সত্ত্বাকে চিনতে পেরেছি। গর্বের সঙ্গে কালেমায়ে শাহাদাতও পাঠ করতে পেরেছি। হ্যাঁ,এখন থেকে আমি একজন মুসলিম।’

কয়েক দিনের ব্যবধানে যে কয়েকজন তারকা ইসলাম গ্রহণের সংবাদ প্রকাশ করেছেন তাদের আরো একজন হলেন লিসা মার্সেদেজ।তিনি ব্রিটিশ জ্যামাইকার প্রসিদ্ধ নৃত্যশিল্পী। ইসলাম গ্রহণের দুই মাস পর গত মাসের ৩ তারিখে ‘শাহাদা’ নামে একটি সঙ্গীত ইনস্টাগ্রামে শেয়ার করে তার ইসলাম গ্রহণের বিষয়টি প্রকাশ করেন। লিসার জন্ম জ্যামাইকার কিংস্টন শহরে। জন্মসুত্রে একজন খ্রিস্টান। তার মার সঙ্গে বাবার সম্পর্ক ছিন্ন হওয়ার পর তার বাবার কাছেই তিনি বড় হতে থাকেন।

নিজের ইসলাম গ্রহণ ব্যাপারে তিনি বলেন, ‍‌‌‌‌‌‌’আমি গবেষণা করে দেখেছি এটিই একমাত্র সঠিক ধর্ম। আমি একজন নৃত্যশিল্পী। আগে খোলামেলা পোশাক পরতাম। এখন যেখানে সম্ভব হয় স্কার্ফ পরার চেষ্টা করি। নিজেকে আগের তুলনায় আরো বেশি ঢেকে রাখি।’

ভালাে নেই সাবেক এমপি আবদুর রহমান বদি, করোনায় আক্রান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনা আক্রান্ত হয়েছেন উখিয়া-টেকনাফের সাবেক দুই বারের আলোচিত সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদি।

গত কয়েকদিন ধরে অসুস্থতা বোধ করলে ডাক্তারের পরামর্শে তিনি বৃহস্পতিবার করোনার স্যাম্পল জমা দেন। আজ বিকালে টেস্ট রিপোর্ট হাতে আসে। এতে তার দেহে করোনা জীবাণু ধরা পড়ে।

স্যাম্পল দেওয়ার দিন থেকে তিনি কক্সবাজারের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। আজ করোনা সনাক্ত হওয়ার পর উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছেন। আবদুর রহমান বদি সুস্থতার জন্য সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন।
উল্লেখ্য, আবদুর রহমান বদি পত্নী, উখিয়া-টেকনাফের বর্তমান সংসদ সদস্য শাহীন আকতার কিছু দিন আগে করোনা টেস্ট করেন। এতে তার করোনা নেগেটিভ আসে।।

ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যের পরই বিভ্রান্তির জন্য ‘দুঃখ প্রকাশ’ করলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশে করোনাভাইরাস মহামারী কতদিন থাকতে পারে, সে বিষয়ে বক্তব্যে ‘বিভ্রান্তি’ সৃষ্টি হওয়ায় ‘দুঃখ প্রকাশ’ করেছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর শুক্রবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এর ব্যাখ্যা দিয়ে বলেছে, বক্তব্যের স্ক্রিপ্টটি দ্রুততার সঙ্গে তৈরি করতে দেরি হয়ে যাওয়ায় মহাপরিচালক সেটি ‘ভালো করে পরীক্ষা করার সুযোগ পাননি’। সেই স্ক্রিপ্ট পড়েই বৃহস্পতিবার তিনি অনলাইন বুলেটিনে বক্তব্য দেন।

“পরবর্তীতে তিনি বুঝতে পারেন ওই বক্তব্যে অস্পষ্টতা তৈরি হতে পারে। তাই প্রেস বিজ্ঞপ্তি আকারে পাঠানো স্বাস্থ্য বুলেটিনে বিষয়টি স্পষ্ট করে দেওয়া হয়।”

সেখানে অধ্যাপক আজাদ তার আগের বক্তব্য থেকে সরে আসেননি, তার বদলে কেন করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দুই বা তিন বছর স্থায়ী হতে পারে- সে বিষয়টি আরও স্পষ্ট করেছেন।

বাংলাদেশে প্রথম কোভিড-১৯ রোগী শনাক্তের ১০৩ দিনের মাথায় বৃহস্পতিবার শনাক্ত রোগীর সংখ্যা এক লাখ ছাড়িয়ে যায়।

সদ্য করোনাভাইরাস থেকে সেরে ওঠা আবুল কালাম আজাদ সেদিন স্বাস্থ্য বুলেটিনে হাজির হয়ে বলেন, নতুন করোনাভাইরাস থেকে বাংলাদেশের অচিরেই মুক্তি ঘটছে না।

“বিশ্বের বিভিন্ন দেশের অভিজ্ঞতা, জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ অনুযায়ী পরিস্থিতি বিবেচনা করে করোনা পরিস্থিতি এক, দুই বা তিন মাসে শেষ হচ্ছে না। এটি দুই থেকে তিন বছর বা তার চেয়েও বেশি দিন স্থায়ী হবে। যদিও সংক্রমণের মাত্রা উচ্চহারে নাও থাকতে পারে।”

তার ওই বক্তব্যের সমালোচনা করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের শুক্রবার দুপুরে এক ব্রিফিংয়ে বলেন, “মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও সরকার যখন দিনরাত পরিশ্রম করে মানুষের মনোবল চাঙ্গা রাখারা নিরলস প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে, তখন করোনার আয়ুষ্কাল নিয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের ঊর্ধ্বতন কোনো কোনো কর্মকর্তার অদূরদর্শী ও দায়িত্বজ্ঞানহীন বক্তব্য জনমনে হতাশা তৈরি করছে।”

সেতুমন্ত্রী কাদের ‘এ ধরনের সমন্বয়হীন, অযাচিত বক্তব্য’ দেওয়া থেকে স্বাস্থ্য বিভাগের ঊর্ধ্বতনদের বিরত রাখার অনুরোধ জানিয়ে বলেন, “স্পর্শকাতর এই সময়ে দায়িত্বশীল পদে থেকে কারো দায়িত্বহীন বক্তব্য রাখা সমীচীন নয়।”

করোনা পজিটিভ সাবেক এলজিআরডিমন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেনের

নিজস্ব প্রতিবেদক : ফরিদপুর সদর আসনের সংসদ সদস্য ও এলজিআরডি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি, সাবেক এলজিআরডিমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। শুক্রবার দুপুরে তিনি নিজেই গণমাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ বলেন, ‘পরীক্ষার পর আজই জানতে পেরেছি আমার করোনা পজিটিভ। মানসিকভাবে ঠিক আছি। স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাসাতেই চিকিৎসা নিচ্ছি।’ বর্ষীয়ান এই নেতা সকলের দোয়া চেয়েছেন।

খন্দকার মোশাররফ হোসেন ২০০৯ সাল থেকে টানা দুই মেয়াদে সরকারের মন্ত্রিসভার সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। প্রথম মেয়াদে তিনি সরকারের প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ছিলেন। পরের মেয়াদে তাকে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী করা হয়।

স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) প্রতিষ্ঠায় তাঁর অবদান সর্বজন স্বীকৃত। জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) চিফ টেকনিক্যাল কনসালট্যান্ট পদে চাকরি নিয়ে তিনি ১৯৮০ সালে সিয়েরা লিওনে যান। সেখানে কাজের মাধ্যমে এতটাই স্থানীয়দের মন জয় করেন যে, এতে দেশটির সরকার খুশি হয়ে তাঁকে সম্মানজনক নাগরিকত্ব দেন। পরে উগান্ডাতেও সাফল্যের সঙ্গে একই দায়িত্ব পালন করেন খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

১৯৪২ সালে ফরিদপুরের ঐতিহ্যবাহী একটি মুসলিম পরিবারে মাতুলালয়ে গেরদায় খন্দকার মোশাররফ হোসেন জন্মগ্রহণ করেন। মা রত্নাগর্ভা হাসিনা মমতাজ ও বাবা বিশিষ্ট সমাজসেবক খন্দকার নুরুল হোসেন নুরু মিয়া। ১৯৬৩ সালে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও ১৯৭৪ সালে যুক্তরাজ্যের স্ট্রেথক্লেইড ইউনিভার্সিটি থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন।

তিনি যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশি প্রবাসীদের অধিকার সংরক্ষণের লক্ষ্যে মহারাণী এলিজাবেথের সঙ্গে দুটি ফলপ্রসূ সভায় নেতৃস্থানীয় অংশগ্রহণকারী ছিলেন।

২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ফরিদপুর সদর আসন থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। পরে দশম ও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও নৌকা প্রতীকে নিরষ্কুশ জয় পান তিনি।

প্রসঙ্গত, খন্দকার মোশাররফ হোসেন আত্মীয়তার সূত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিয়াই হন। প্রধানমন্ত্রীর একমাত্র মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ হোসেন পুতুল খন্দকার মোশাররফের ছেলে খন্দকার মাশরুর হোসেনের মিতুর স্ত্রী।

মক্কার ১৫’শ মসজিদ রোববার আবার খুলে দেয়া হচ্ছে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে ও ব্যক্তিগত জায়নামাজ বহনসহ বিভিন্ন স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে মক্কা গ্রান্ড মসজিদে মুসল্লিদের আসতে বলা হয়েছে। অন্যান্য মসজিদেও একই বিধি কঠিনভাবে অনুসরণ করতে বলা হয়েছে। কোভিড সংক্রমণের কারণে গত তিনমাস এসব মসজিদ বন্ধ করে দেয়া হয়। গালফ নিউজ

গত মাসে মক্কা ছাড়া সৌদি আরবের অন্যান্য শহরে মসজিদ খুলে দেয়া হয়। কোভিড পরিস্থিতি ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হয়ে আসার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে এসব মসজিদে নামাজিদের আসতে বলা হয়।

রোববার মক্কায় ১৫৬০টি মসজিদে ফজরের নামাজে মুসল্লিরা অংশ নেবেন। সৌদি আরবের ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় এসব মসজিদে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করা হচ্ছে কি না কঠিনভাবে তদারকি করবে। বিভিন্ন সংস্থাকে মসজিদ বন্ধের সময় তা পরিস্কার ও বিশুদ্ধকরণ করার দায়িত্ব দেয়া হয়।

মসজিদগুলোর খাদেমদের মুসল্লিরা শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখছেন কি না তা দেখতে বলা হয়েছে।

স্বাস্থ্য খাত দেখলে মনে হয়, সরকার জনগণের সঙ্গে বছরের পর বছর ধরে ধাপ্পাবাজি করেছে : বললেন রিজভী

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের ৬৪ জেলার মধ্যে ৪৭টি জেলাতেই নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র (আইসিইউ) নেই। করোনাভাইরাসের এ মহামারির সময়ে মানুষের জীবনের বিনিময়ে স্বাস্থ্য খাতের বিপন্ন ও ভঙ্গুর ছবি প্রকাশ হয়ে পড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

শুক্রবার (১৯ জুন) এক ভিডিও কনফারেন্সে তিনি এ মন্তব্য করেন।

রিজভী বলেন, করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পেতে ১৫ দিন পর্যন্ত সময় লাগছে। ল্যাবে নমুনার স্তুপ জমা হয়ে আছে। বাংলাদেশের স্বাস্থ্য খাতের বর্তমান দুর্দশায় প্রমাণিত হয়েছে যে এ সরকার জনগণের সঙ্গে বছরের পর বছর ধরে ধাপ্পাবাজি করেছে।

তিনি বলেন, করোনা আতঙ্কে কাটছে মানুষের দিন। মানুষ বিপর্যস্ত ও আতঙ্কিত। করোনা ভীতিতে আচ্ছন্ন দেশের জনগণ। মৃত্যুর সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে প্রতিদিন। দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার বেহাল অবস্থায় জনমনে আতঙ্ক ও উদ্বেগ বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাংলাদেশের চিকিৎসা ব্যবস্থা একেবারেই ভেঙে পড়েছে। হাসপাতালগুলোতে ভেন্টিলেটর, আইসিইউ ও করোনা পরীক্ষার ব্যবস্থা সারাবিশ্বের মধ্যে সর্বনিন্ম।

বিএনপি সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, দেশের গণমাধ্যমকে ব্যবহার করে গত এক দশক ধরে ক্ষমতাসীন সরকার জনগণকে কথিত উন্নয়নের গল্প শুনিয়েছে। অথচ নির্মম বাস্তবতা হলো উন্নয়নের স্লোগানের আড়ালে গত এক দশকে দেশে দুর্নীতির-অর্থনীতি প্রতিষ্ঠা করা ছাড়া আর কিছুই হয়নি।

এ করোনার প্রকোপের মধ্যেও সরকার দুর্নীতির সংবাদ আড়াল করার জন্য প্রায় প্রতিদিনই গণমাধ্যমের সাংবাদিকদের ডেকে নিয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর লোকেরা ভয়ভীতি প্রদর্শন করছে ও হয়রারি করছে।

স্বাস্থ্য বিভাগের কোনো কোনো কর্মকর্তার করোনার আয়ুস্কাল নিয়ে অদূরদর্শী ও দায়িত্বজ্ঞানহীন বক্তব্য জনমনে হতাশা তৈরি করছে: ওবায়দুল কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক : সরকার যখন দিনরাত পরিশ্রম করে মানুষের মনোবল চাঙা রাখার নিরলস প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে, ঠিক তখন স্বাস্থ্য বিভাগের কোনো কোনো কর্মকর্তার করোনার আয়ুস্কাল নিয়ে অদূরদর্শী ও দায়িত্বজ্ঞানহীন বক্তব্য জনমনে হতাশ তৈরি করেছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

শুক্রবার (১৯ জুন) জাতীয় সংসদ ভবন এলাকায় সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন থেকে দেয়া ভিডিও বার্তায় এ কথা বলেন তিনি। এ ধরনের সমন্বয়হীন, অযাচিত বক্তব্য থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানান ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, করোনার এ সংকটে সম্মুখভাগের যোদ্ধাদের অনেকেই দেশ-জাতির সেবায় নিজেকে উৎসর্গ করেছেন। এ পরিস্থিতিতে খুলনায় একজন চিকিৎসক হত্যা অত্যন্ত দুঃখজনক ও অনাকাঙ্ক্ষিত। এ হত্যার তীব্র নিন্দা এবং নিহত চিকিৎসকের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান ওবায়দুল কাদের।

এ সংকটে চিকিৎসকসহ সম্মুখযোদ্ধা ও সংশ্লিষ্ট সকলকে ধৈর্য ধারণের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, শেখ হাসিনা সরকার অন্যায়কে প্রশ্রয় দেয় না, অন্যায়কারী যত ক্ষমতাবানই হোক তার রেহাই নেই।

সংক্রমণের বর্তমান পর্যায়ে সরকারি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রশাসনকে সহযোগিতা করারও আহ্বান জানান তিনি।

আশাবাদ ব্যক্ত করে তিনি বলেন, আমাদের আশার শেষ ঠিকানা, চেতনার বাতিঘর, সংকটে দৃঢ় আস্থা শেখ হাসিনা দিনরাত নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন, তার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে দলীয় নেতাকর্মীরা সাহসী ও মানবিক ভূমিকা পালন করবেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, জোন ভিত্তিক লকডাউন সিদ্ধান্ত পাওয়ার পর পরই দ্রুত এবং কার্যকরভাবে সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করতে হবে, প্রতিষ্ঠা করতে হবে সুসমন্বয়। যে সব এলাকা লকডাউন করা হবে, সেসব এলাকায় জনসাধারণকে ধৈর্যের সঙ্গে পরিস্থিতি মোকাবিলারও আহ্বান জানান তিনি।

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন আইসিইউতে

নিজস্ব প্রতিবেদক : হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুনের শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়েছে। তাকে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালের নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র বা আইসিইউতে নেয়া হয়েছে।

শুক্রবার (১৯ জুন) সকালে তাকে আইসিইউতে ভর্তি করা হয় বলে জানিয়েছেন সাহারা খাতুনের ব্যক্তিগত সহকারী মুজিবুর রহমান।

মুজিবুর রহমান জানান, এর আগে শারীরিক অবস্থা খারাপ হওয়ায় ২ জুন দিনগত রাতে সাবেক এই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তবে তার করোনা টেস্টে নেগেটিভ এসেছে।

ব্যক্তিগত সহকারী সাহারা খাতুনের জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন।

সাহারা খাতুন গত তিন মেয়াদ ধরে ঢাকা-১৮ আসন থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য। ২০০৮ সালে মহাজোট ক্ষমতায় এলে প্রথমে তাকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী করা হয়।পরে সেখান থেকে সরিয়ে পাঠানো হয় ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানালাে- দেশে এক দিনে করোনা শনাক্ত ৩ হাজার ২৪৩, মৃত্যু ৪৫ জন

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশে করোনায় (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে আরও ৪৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মারা গেছেন ১ হাজার ৩৮৮ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ২৪৩ জন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৫ হাজার ৫৩৫ জন।

শুক্রবার (১৯ জুন) দুপুরে রাজধানীর মহাখালীতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে মিডিয়া বুলেটিনে এ তথ্য জানান অতিরিক্ত মহা-পরিচালক অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা।

অতিরিক্ত মহা-পরিচালক জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় ১৫ হাজার ৪৫ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে সর্বোচ্চ ৩ হাজার ২৪৩ জনের দেহে কোভিড-১৯ সংক্রমণ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৫ হাজার ৫৩৫ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ৪৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। করোনায় এ পর্যন্ত ১ হাজার ৩৮৮ জনের মৃত্যু হয়েছে।

অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় কোভিড-১৯ সংক্রমণ থেকে মুক্ত হয়েছেন ২ হাজার ৭৮১ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন ৪২ হাজার ৯৪৫ জন।

এদিকে সারা বিশ্বে এখন পর্যন্ত ৮৪ লাখ ৬৩ হাজার ৫৩৩ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। মারা গেছেন ৪ লাখ ৫৩ হাজার ২৬৮ জন। বিপরীতে সেরে উঠেছেন ৪৫ লাখ ৪৬ হাজার ৫৪৯ জন। বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত করোনায় মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ৩৮৮ জনের। মোট আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৫ হাজার ৫৩৫ জন।