লাদাখ সীমান্তে চীনের হামলায় ২০ ভারতীয় সেনা নিহত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : লাদাখের সীমান্তে গালোয়ান উপত্যকায় ভারত ও চীন সেনাদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় অন্তত ২০ জন ভারতীয় সেনা নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বিবিসি।
সোমবার রাতে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

এর আগে এই সংঘর্ষে ৩ জন ভারতীয় সেনা নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করে দেশটির সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি। মঙ্গলবার সকালে জানানো হয়, সংঘর্ষে ভারতীয় বাহিনীর এক কর্নেল ও দুই জওয়ানের মৃত্যু হয়েছে।

পরে মঙ্গলবার রাতে ভারতের সংবাদসংস্থা এএনআই জানিয়েছে, ভারতীয় সেনাবাহিনীর অন্তত ২০ জন নিহত হয়েছেন ওই সীমান্ত সংঘাতে। সরকারি সূত্রের মতে, এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা রয়েছে।

সংবাদ সংস্থা এএনআই জানিয়েছে, এ সংঘর্ষে চীনা বাহিনীরও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। যেখানে চীনা বাহিনীর অন্তত ৪৩ জন হতাহত হতে পারে বলে ধারণা ভারতীয় সেনা বাহিনীর।

ভারতীয় সেনা বাহিনীর বরাত দিয়ে সংবাদ সংস্থা এএনআই জানিয়েছে, সোমবার রাতের ওই সংঘর্ষে আরও ১৭ জন গুরুতর আহত হয়েছিল। পরে হিমাঙ্কের নিচে তাপমাত্রায় বৈরি আবহাওয়ার কারণে খোলা আকাশের নীচে তাদের মৃত্যু হয়। মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর থেকে সংঘর্ষস্থল থেকে দুই পক্ষই পিছু হটেছে বলে দাবি করেছে এএনআই।

আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমগুলো বলছে, কয়েক দশক পর পারমাণবিক শক্তিধর এই দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে এমন রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

১৯৬২ ও ১৯৭৫ সালের পর চীন-ভারত সীমান্তে এটি কোনো রক্তাক্ত সংঘর্ষের ঘটনা।

ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, দুই পক্ষের জ্যেষ্ঠ সামরিক কর্মকর্তারা বৈঠকে বসে উত্তেজনা নিরসনের চেষ্টা করেছে।

তথ্যসূত্র: বিবিসি, এনআই, আনন্দবাজার

‘মেসি ও রোনালদোকে নিয়ে বিতর্ক নয়, তাদের একই সময়ে দেখতে পেরে আমরা ভাগ্যবান’

স্পোর্টস ডেস্ক : কে সেরা? লিওনেল মেসি নাকি ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো? এ নিয়ে বিতর্কের যেন শেষ নেই। বের্নার্দো সিলভার মতে, এই তুলনা করাই ঠিক নয়। বরং সময়ের সেরা দুই ফুটবলারকে একই সময়ে দেখতে পারায় নিজেদের ভাগ্যবান মনে করা উচিত বলে মন্তব্য করেন ম্যানচেস্টার সিটির এই মিডফিল্ডার।

গত এক যুগ ধরে ফুটবল বিশ্বে রাজত্ব করে চলেছেন মেসি ও রোনালদো। বার্সেলোনা অধিনায়ক মেসি ছয়টি ব্যালন ডি’অর জিতেছেন, রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে এখন জুভেন্টাসে খেলা রোনালদো জিতেছেন পাঁচটি। দুজনের অর্জনের তালিকাতে আছে ভুরিভুরি ব্যক্তিগত ও দলীয় সাফল্য।
রোনালদোর সঙ্গে পর্তুগাল জাতীয় দলে খেলেন সিলভা। সম্প্রতি বিবিসির এক আয়োজনে দর্শকদের প্রশ্নোত্তর পর্বে মেসি ও রোনালদোর মধ্যে সেরার প্রশ্নে নিজের ভাবনা জানান এই মিডফিল্ডার। – গোল ডটকম

এটি এমন এক বিতর্ক, যা নিয়ে বিতর্ক করাই ঠিক নয়। আমাদের ভাগ্যবান মনে করা উচিত যে, আমরা দুজনকে একই সময়ে একসঙ্গে খেলতে দেখছি। তারা সর্বকালের সেরা খেলোয়াড়দের দুজন, যদি সর্বকালের সেরা দুই খেলোয়াড় নাও হয়। জাতীয় দলে একসঙ্গে খেলায় রোনালদোকে খুব কাছ থেকে দেখেছেন সিলভা। দেখেছেন নিজেকে ফিট রাখতে দেশের রেকর্ড গোলদাতা কতটা পরিশ্রম করেন।
আমি যে তার (রোনালদো) কিছু গোলে সহায়তা করেছি, এটা সন্তান ও নাতি-নাতনিদের বলতে পারাটা দারুণ ব্যাপার হবে। মাঠের ভেতরে ও বাইরে সে সবার জন্য এক উদাহরণ।

দায়িত্ব পালনে অনীহা, চসিকের ১০ চিকিৎসক বরখাস্ত

ডেস্ক রিপাের্ট : চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক) পরিচালিত ২৫০ শয্যার আইসোলেশন সেন্টারে করোনা রোগীদের চিকিৎসা দিতে রাজি না হওয়ায় ১০ চিকিৎসককে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে। একই অভিযোগে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে এক স্টোর কিপারকেও।

মঙ্গলবার চসিকের এক দাফতরিক আদেশে তাদের চাকরিচ্যুত করা হয় বলে জানিয়েছেন চসিকের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সেলিম আক্তার চৌধুরী।

এই ১০ চিকিৎসক আগ্রাবাদ এক্সেস রোডস্থ চট্টগ্রাম সিটি হল কমিউনিটি সেন্টারে চসিকের আইসোলেশন সেন্টারে দায়িত্বপ্রাপ্ত ছিলেন। এই সেন্টারে ১৬ চিকিৎসককে চসিকের বিভিন্ন স্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে এনে নিয়োগ দেয়া হয়েছিল।

গত ১৫ জুন এই আইসোলেশন সেন্টার উদ্বোধন করা হয়। অথচ ১০ চিকিৎসক কাজে যোগদানে অনীহা প্রকাশ করায় সোমবার পর্যন্ত চালু করা যায়নি এই আইসোলেশন সেন্টারটি।

চাকরিচ্যুতরা হলেন- চসিকের মেডিকেল অফিসার ডা. সিদ্ধার্থ শংকর দেবনাথ, ডা. ফরিদুল আলম, ডা. আবদুল মজিদ সিকদার, ডা. সেলিনা আক্তার, ডা. বিজয় তালুকদার, ডা. মোহন দাশ, ডা. ইফতেখারুল ইসলাম, ডা. সন্দিপন রুদ্র, ডা. হিমেল আচার্য্য, ডা. প্রসেনজিৎ মিত্র। এছাড়া অব্যাহতি পেয়েছেন স্টোর কিপার মহসিন কবির।

চসিকের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সেলিম আক্তার চৌধুরী যুগান্তরকে বলেন, অফিস আদেশ না মানায় ১০ চিকিৎসক ও এক স্টোর কিপারকে চাকরি থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, সরকার ঘোষিত প্রণোদনা দেয়াসহ মেয়র দ্বিগুণ বেতন দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। সব ধরনের সুরক্ষার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এরপরও কাজে যোগ না দেয়া খুবই দুঃখজনক।

জন্মদিনে রাজ্জাকের কীর্তিময় রেকর্ডের কথা বিশ্ববাসীকে জানিয়েছে আইসিসি

স্পোর্টস ডেস্ক : ওয়ানডে ক্রিকেটে বাংলাদেশের হয়ে প্রথম ২০০ উইকেট শিকারি বোলার আব্দুর রাজ্জাকের ৩৮তম জন্মদিন ছিলো আজ। জাতীয় দলের এই সাবেক তারকাকে জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানিয়েছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)।

সেই শুভেচ্ছায় লাল-সবুজের জার্সি গায়ে এই সাবেক স্পিনারের কীর্তিময় রেকর্ডের কথা বিশ্ববাসীকে জানিয়েছে আইসিসি। শুভেচ্ছাবার্তায় আইসিসির অফিশিয়াল ফেসবুক পেজে লেখা হয়েছে, ‘১৩ টেস্ট, ১৫৩ ওয়ানডে, ৩৪ টি-টোয়েন্টি; সবমিলে ২৭৯ আন্তর্জাতিক উইকেট। ২০১০ সালের বিশ্বের দ্বিতীয় স্পিনার হিসেবে ওয়ানডেতে হ্যাটট্রিক এবং বাংলাদেশের দ্রুততম ওয়ানডে হাফসেঞ্চুরির রেকর্ডও তার। শুভ জন্মদিন আব্দুর রাজ্জাক। জাতীয় দলে না থাকলেও চমৎকার খেলে যাচ্ছেন আব্দুর রাজ্জাক। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের অধিনায়কত্ব করছেন।

বাংলাদেশ ক্রিকেটের ইতিহাসে প্রথম শ্রেণি, লিস্ট ও টি-টোয়েন্টি মিলিয়ে তিনি দেশের প্রথম ও একমাত্র বোলার যার ঝুলিতে ১ হাজার উইকেট জমা পড়েছে। তিন ফরম্যাট মিলে উইকেটসংখ্যায় তার ধারেকাছেও নেই দেশের অন্য কোনো বোলার।
বর্তমানে তার উইকেটসংখ্যা ১১৪৫টি। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ৪১ বার পাঁচ উইকেটসহ ৬৩৪, লিস্ট এ’তে ৯ বার পাঁচ উইকেটসহ ৪১২ এবং টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে রাজ্জাকের শিকার ৯৯টি উইকেট। – আইসিসি ওয়েবসাইট

আরও দুই সংসদ সদস্য করোনায় আক্রান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আরও দুই সংসদ সদস্য আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্ত দুজন হলেন সাবেক প্রধান হুইপ উপাধ্যক্ষ আবদুস শহীদ এবং গণফোরামের নেতা মোকাব্বির খান। নতুন এই দুজনকে নিয়ে মোট ১১ জন সংসদ সদস্য করোনায় আক্রান্ত হলেন।

মঙ্গলবার উপাধ্যক্ষ আবদুস শহীদের একান্ত সচিব আহাদ মো. সাঈদ হায়দার গণমাধ্যমকে বলেন, তার করোনা রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। তার জ্বর রয়েছে, তবে শ্বাসকষ্ট নেই। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সংসদের অনুমিত হিসাব কমিটির সভাপতি ও মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ থেকে ছয়বারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য আবদুস শহীদ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত। বর্তমানে রাজধানীর শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালে ভর্তি আছেন। এর আগে তার ব্যক্তিগত সহকারীও আক্রান্ত হয়েছিলেন, তবে তিনি এখন সুস্থ।

এদিকে সিলেট-২ (ওসমানীনগর-বিশ্বনাথ) আসনের সংসদ সদস্য ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য এবং গণফোরাম নেতা মোকাব্বির খানের করোনা পজিটিভ ধরা পড়েছে।

গত সোমবার দুপুরে তিনি শ্বাসকষ্ট নিয়ে ঢাকা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ভর্তি হওয়ার পর তার নমুনা সংগ্রহ করে সিএমএইচ কর্তৃপক্ষ। মঙ্গলবার তার করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

এমপি মোকাব্বির খানের ব্যক্তিগত সহকারী ও তার ভাতিজা জুবের খান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, মঙ্গলবার বিকাল তিনটার দিকে মোকাব্বির খানের করোনা রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। তিনি মানসিক এবং শারীরিকভাবে সুস্থ রয়েছেন। দুপুরে নরম খাবারও গ্রহণ করেছেন। মোকাব্বির খান তার নির্বাচনী এলাকাসহ সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন বলে জানান জুবের খান।

কোভিডের জীবনরক্ষাকারী প্রথম ওষুধ ডেক্সামেথাসোন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বিজ্ঞানীরা বলছেন, ডেক্সামথাসোন নামে সস্তা ও সহজলভ্য একটি ওষুধ করোনাভাইরাসে গুরুতর অসুস্থ রোগীদের জীবন রক্ষা করতে সাহায্য করবে। বিবিসি

ব্রিটিশ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে এই স্বল্প মাত্রার স্টেরয়েড চিকিৎসা একটা বড় ধরণের আবিষ্কার।
তারা বলছেন, এই ওষুধ ব্যবহারে ভেন্টিলেটরে থাকা রোগীদের মৃত্যুর ঝুঁকি এক তৃতীয়াংশ কমানো যাবে। আর যাদের অক্সিজেন দিয়ে চিকিৎসা করা হচ্ছে তাদের ক্ষেত্রে মৃত্যুর হার এক পঞ্চমাংশ কমানো যাবে।

গবেষকরা বলছেন, ব্রিটেনে যখন করোনাভাইরাস মহামারি শুরু হয় সেসময় যদি এই ওষুধ ব্যবহার করা সম্ভব হতো তাহলে পাঁচ হাজার পর্যন্ত জীবন বাঁচানো যেত। কারণ এই ওষুধ সুলভ।

বিশ্বে এই ওষুধ নিয়ে সর্ববৃহৎ যে ট্রায়াল বা পরীক্ষা চালানো হচ্ছিল তার অংশ হিসাবে দেখা হচ্ছিল এই ওষুধ করোনাভাইরাসের চিকিৎসায়ও কাজ করবে কিনা।

তারা বলছেন, বিশ্বের দরিদ্র দেশগুলোতে কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসায় এই ওষুধ বিশালভাবে কাজে লাগতে পারে।

‘অস্ট্রেলিয়ান গ্রেগ চ্যাপেল চাইতেন ভারতীয় দলে ভাঙন ধরাতে’

স্পোর্টস ডেস্ক : গ্রেগ চ্যাপেল অধ্যায় ভারতীয় ক্রিকেটে মুছে গেছে প্রায় ১৩ বছর হলো। কিন্তু এ দীর্ঘ সময়েও চ্যাপেল ঝাঁজ কাটেনি ভারতীয় ক্রিকেটারদেও কাছে। সেই সময়ে ভারতীয় দলের অন্যতম সদস্য হরভজন সিংয়ের মনে তো এখনো ক্ষোভের আগুন গনগনে। হরভজন সরাসরি বলছেন, ভারতীয় ক্রিকেট দলে ভাঙন ধরানোই ছিল চ্যাপেলের উদ্দেশ্য।

আকাশ চোপড়ার সঙ্গে ক্রিকেট নিয়ে আলোচনায় হরভজন এই ক্ষোভ উগরে দেন। ‘গ্রেগ চ্যাপেল কোচ হয়ে আসার পর আমাদের গোটা দলটাকেই ভেঙে দেয়। জানিনা কী উদ্দেশ্য নিয়ে ও এসেছিল। তবে কীভাবে সলিড একটা দলকে ভেঙে দিতে হয়, সেটা ওর থেকে ভালো আর কেউ জানেনা।’- বলেন হরভজন।

সাবেক অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক গ্রেগ চ্যাপেলের কোচিংয়েই ২০০৭ বিশ্বকাপে অংশ নেয় ভারত। সৌরভ গাঙ্গুলী, শচিন টেন্ডুলকার, রাহুল দ্রাবিড়দের নিয়ে গড়া দলটা সেবার গ্রুপের বাঁধাই পেরোতে পারেনি। বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার কাছে হেরে বিদায় নেয়। হরভজন নিজের ক্যারিয়ারে সব থেকে খারাপ অধ্যায় মানেন সেটিকে।

৩৯ বয়সী অফ স্পিনার বলেন, ‘২০০৭ ওয়ানডে বিশ্বকাপ আমার ক্রিকেট ক্যারিয়ারের সবচেয়ে খারাপ সময় ছিল। আমার মনে হয়েছিল, আমরা একটা কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছি এবং হয়তো দেশের হয়ে ক্রিকেট খেলার এটা সঠিক সময় নয়। আমার মনে হতো ভারতীয় ক্রিকেট ভুল লোকের হাতে রয়েছে।-জি নিউজ

বিশ্বকাপে পাকিস্তানকে আটকাতে ইচ্ছে করে ইংল্যান্ডের কাছে হেরেছিল ভারত, বললেন হাফিজ

স্পোর্টস ডেস্ক : আব্দুর রাজ্জাকের পর পাকিস্তানের আরো এক ক্রিকেটারের দাবি, পাকিস্তানকে আটকাতেই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্বের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ হেরে যায় ভারত। এবার যিনি এই দাবি করছেন, তিনি ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে পাকিস্তান দলের সারথি ছিলেন। তার নাম মোহাম্মদ হাফিজ।

এজবাস্টনে হওয়া ম্যাচটিতে টসে জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল ইংল্যান্ড। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ৩৩৭ রান তুলেছিল স্বাগতিকরা। ৩৩৮ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ম্যাচ জেতার মতো পরিস্থিতি থাকলেও শেষ ১০ ওভারে মহেন্দ্র সিং ধোনি ও কেদার যাদবের মন্থর ব্যাটিংয়ের ৩১ রানে হার হজম করতে হয় ভারতকে।- দেশরূপান্তর

ওই ম্যাচ ভারত জিতলেও জিততে পারতো বলে নিজের আত্মজীবনীতে দাবি করেছিলেন ইংল্যান্ডের অলরাউন্ডার বেন স্টোকস। যদিও নিজের বিবৃতি থেকে পরে সরেও এসেছেন তিনি।
বেন স্টোকসের কথার সূত্র ধরে পাকিস্তানের সাবেক অলরাউন্ডার আব্দুল রাজ্জাক দাবি করেছিলেন, ভারত ইচ্ছাকৃতভাবে ওই ম্যাচ হেরেছিল। পাকিস্তানকে আটকাতেই টিম ইন্ডিয়া এই কাজ করেছিল বলে দাবি রাজ্জাকের। এই অপরাধের জন্য ভারতকে আইসিসির জরিমানা করা উচিত বলেও মনে করেন রাজ্জাক।

আর এবার হাফিজ বলছেন, ওই ম্যাচে ভারতীয় দলের মধ্যে জয়ের ক্ষিদে ছিল না। ক্রিকেট দর্শক এবং সমর্থক হিসেবে ওই ম্যাচ দেখে তিনি হতাশ হয়েছিলেন বলে জানিয়েছেন পাকিস্তানি ক্রিকেটার। ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের আচরণ অখেলোয়াড় সুলভ ছিল বলে দাবি হাফিজের। ক্রিকেটের জন্য যা ভালো বিজ্ঞাপন নয় বলে মনে করেন হাফিজ। – ক্রিকটাইম

জিয়াউর রহমান নিজেই বাকশালের কার্যকরী সদস্য ছিলেন – বললেন ওবায়দুল কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাকশাল গণতান্ত্রিক সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠার অভিযাত্রা এবং বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান নিজেই বাকশালের কার্যকরী সদস্য ছিলেন বলে দাবি করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিয়ে বিএনপি মহাসচিবের বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় তিনি মঙ্গলবার এ কথা বলেন।

গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে ওবায়দুল কাদের বলেন, স্বাধীনতার পরপর সদ্য স্বাধীন দেশে দেশবিরোধী নানা অপতৎপরতা শুরু হয়। দেশের জনগণের প্রতি দায়বদ্ধ না থেকে বিদেশের টাকায় রাতারাতি সংবাদপত্র প্রকাশ করে জাতীয় বিভাজন ও সাম্প্রদায়িকতার বীজ বপন করা হয়।

তার দাবি, সাম্প্রদায়িকতার বিষবাষ্প থেকে জাতিকে রক্ষা করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বলীয়ান হয়ে সাম্যভিত্তিক সমাজ নির্মাণে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ‘গণতন্ত্র’ প্রত্যয়টির চেয়ে গণতান্ত্রিক সংস্কৃতির ওপর জোর দিয়েছিলেন। তিনি জানতেন, গণতান্ত্রিক সংস্কৃতি কায়েম না হলে গণতন্ত্র টেকসই হবে না।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, বাকশাল ছিল সেই গণতান্ত্রিক সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠার অভিযাত্রা এবং বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান নিজেই বাকশালের কার্যকরী সদস্য ছিলেন। বাকশাল কোন একদলীয় ব্যবস্থা ছিল না। এটি ছিল সকল মত-শ্রেণী-পেশার সমন্বয়ে একটি জাতীয় দল।

‘বাকশাল প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে ৪টি পত্রিকা ব্যতীত সকল সংবাদপত্র বন্ধ করে দেওয়া হয়’- বিএনপি মহাসচিবের এমন মন্তব্যের জবাবে তিনি বলেন, ফখরুল ইসলামের জ্ঞাতার্থে জানাতে চাই- তৎকালীন বঙ্গবন্ধু সরকারের সময় দৈনিক, সাপ্তাহিক ও অন্যান্য মিলে ১২৬টির মতো সংবাদপত্র প্রকাশিত হতো।

ওবায়দুল কাদের বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সংবাদপত্রের জগতে বস্তুনিষ্ঠতা ও দায়বদ্ধতা প্রতিষ্ঠার জন্য সাংবাদিকদের মাধ্যমে গঠিত কমিটির সুপারিশে একটি কাঠামো দাঁড় করিয়েছিলেন মাত্র।

তিনি বলেন, বিএনপির মিডিয়াবাজির রাজনীতিতেও ভাটা পড়ায় তারা গণমাধ্যমকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘কর্মভীরু মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীররা নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে বাক্যালাপে বীরত্ব প্রদর্শন করছেন। সেই কারণে সংকটময় এই সময়ে জনগণের পাশে না দাঁড়ানো বিএনপির মিডিয়াবাজির রাজনীতিতেও ভাটা পড়ায় তারা গণমাধ্যমকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করার অপচেষ্টা চালাচ্ছেন।’

‘গণমাধ্যম সত্য প্রচারে শঙ্কিত’ বিএনপি মহাসচিবের এমন বক্তব্যের জবাবে তিনি বলেন, ‘গণমাধ্যম সত্য প্রচারে শঙ্কিত। আমরা বলতে চাই, গণমাধ্যম হলো চলমান সমাজের দর্পণ। তারা সত্য প্রচারে নির্ভীক, বরং বিএনপির সৃষ্ট গুজব প্রচারে অনীহা।’

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘দেশবাসী লক্ষ্য করেছে- গত এক দশকেরও বেশি সময় ধরে বিভিন্ন আন্দোলনে সরকারবিরোধী প্রচারণায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ সকল ক্ষেত্রে বিএনপি কীভাবে গুজব ছড়িয়ে রাজনৈতিক ফায়দা লোটার অপচেষ্টা চালিয়েছে এবং গুজবভিত্তিক রাজনীতির বৈধতা দিয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘কথায়-কথায় বিএনপি নেতৃবৃন্দ অভিযোগ করেন, দেশে গণতন্ত্র নেই। দেশে যদি গণতন্ত্র না-ই থাকে তাহলে বিএনপির নেতৃবৃন্দ কীভাবে সরকারের বিরুদ্ধে এত মিথ্যাচার করার সুযোগ পান?

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের বহুদলীয় গণতন্ত্রের নামে হ্যাঁ-না ভোটের মাধ্যমে ৯৯ শতাংশ ভোট ডাকাতির কথা দেশবাসী জানে।’

তিনি বলেন, সামরিক শাসনতন্ত্রের মোড়কে ১৯৭৯ সালের গণতান্ত্রিক নির্বাচনও দেশবাসী প্রত্যক্ষ করেছিল। সেই ইতিহাস এখনো বই-পুস্তক ও জাতীয় স্মৃতিতে জ্বল-জ্বলায়মান। সুতরাং বিএনপির মুখে আর যা-ই হোক গণতন্ত্রের কথা শোভা পায় না।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যার পরে অবরুদ্ধ গণতন্ত্রকে শৃঙ্খলমুক্ত করে সত্যিকারের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে সফল নেতৃত্ব দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, করোনাভাইরাসের আগ্রাসী তাণ্ডবে সারাবিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশেও প্রতিদিনের যাপিত জীবন পতিত হয়েছে এক অবর্ণনীয় সংকটে। জীবনের পাশাপাশি জীবিকা এবং স্বাস্থ্যের ঝুঁকিও পৌঁছেছে চরম পর্যায়ে। করোনার ফলে সৃষ্ট সংকটময় এই সময়ে সাংবাদিক বন্ধুরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সংবাদ সংগ্রহ করে চলেছেন।

আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে দায়িত্বশীল এইসব সাংবাদিক বন্ধুদের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে এই লড়াইয়ে সংবাদকর্মীরা সম্মুখযোদ্ধা হিসেবে অগ্রগণ্য। অধিকাংশ গণমাধ্যমের কর্মীরা দায়িত্বশীলতার সাথে ইতিবাচকভাবে কাজ করে চলেছেন।

বিবৃতিতে তিনি করোনা সংকট জয়ের লক্ষ্যে দলমত নির্বিশেষে সকলের ঐক্যবদ্ধ প্রয়াসের আহ্বান জানান এবং পরম করুণাময়ের অশেষ কৃপায় এই সংকট আমরা কাটিয়ে উঠতে সক্ষম হবো বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহর আবার অসুস্থ, নিউমোনিয়া বেড়েছে, চিন্তিত চিকিৎসকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনাভাইরাস থেকে সেরে উঠলেও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর শারীরিক অবস্থার কিছুটা অবনতি হয়েছে। তার নিউমোনিয়ার পরিমাণ বেড়েছে।

ডা. জাফরুল্লাহর চিকিৎসার দায়িত্বে থাকা অধ্যাপক ডা. ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) মামুন মোস্তাফী মঙ্গলবার বিকেলে এ কথা জানিয়েছেন।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ভেরিফায়েড ফেইসবুক পেজে তিনি বলেন, ‘গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর স্বাস্থ্যের অবস্থা আজকে কিছুটা চিন্তাযুক্ত। তার নিউমোনিয়ার পরিমাণ বেড়েছে। অবস্থা বিবেচনায় নতুন করে এন্টিবায়োটিক দেওয়ার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

ডা. জাফরুল্লাহ সকলের দোয়া চেয়েছেন যেন আল্লাহ তায়ালা তাকে এবং তার পরিবারের সদস্যদের দ্রুত সুস্থতা দান করেন।

এই বীর মুক্তিযোদ্ধা বর্তমানে নিজের স্থাপিত প্রতিষ্ঠান গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে অধ্যাপক ডা. ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) মামুন মোস্তাফী এবং অধ্যাপক ডা. নাজিব মোহাম্মদের সার্বক্ষণিক তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাধীন আছেন।