মির্জা ফখরুল বললেন- আমি লিডারের সঙ্গে দেখা করবই

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

শনিবার (১৩ জুন) রাতে রাজধানীর গুলশানে খালেদা জিয়ার বাসভবন ‌ফিরোজায় দেখা করতে যান তিনি। এক ঘণ্টার এই সাক্ষাতে খালেদা জিয়ার শারীরিক খোঁজ-খবর নেন মির্জা ফখরুল। একই সঙ্গে দলের কার্যক্রম ও মহামারি করোনার সময়ে দলীয় নেতাকর্মীদের কর্মকাণ্ড সম্পর্কে তাকে অবহিত করেন। বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইং সূত্র এই তথ্য নিশ্চিত করেছে।

দলীয়প্রধানে সঙ্গে আলোচনার বিষয়ে জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, জাস্ট ফরমাল। আমি আমার পার্টির লিডারের সাথে মাঝে মাঝে দেখা করবই। এখানে বলার মতো কিছু নেই।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ম্যাডামের শরীর ভালো না, অসুস্থ। পায়ের ব্যথা আরও বেড়েছে। যে চিকিৎসা নিচ্ছেন, সেভাবেই উনি আছেন। বর্তমান যে পরিবেশ, তাতে বেটার ট্রিটমেন্টের সুযোগ নেই। এখন তো হাসপাতালে নেয়া সম্ভব নয়। বিদেশে যাওয়ার নিষেধাজ্ঞা আছে।

আরও পড়ুন : করোনা মোকাবিলায় আসছে নতুন নির্দেশনা

সূত্র জানায়, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে ডেকেছিলেন খালেদা জিয়া। খালেদা জিয়ার কারামুক্তির পর দলের মহাসচিবের এটা তৃতীয় সাক্ষাৎ। এর মধ্যে দুই দফায় দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির সঙ্গে দেখা করেছিলেন খালেদা জিয়া।

প্রসঙ্গত, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় সাজা হওয়ার পর গত ২৫ মার্চ নির্বাহী আদেশে ৬ মাস সাজা স্থগিত রেখে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেয় সরকার। দেশের বাইরে যেতে পারবেন না এবং দেশেই চিকিৎসা নেবেন-এই দুই শর্তে মুক্তির পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) থেকে গুলশানের ভাড়া বাসায় ওঠেন সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী। এরপর থেকে তিনি চিকিৎসকদের পরামর্শে বাসায়ই আছেন।

এদিকে একটি সূত্র জানিয়েছে, খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে নেয়ার চেষ্টা চলছে। তার ভাই শামীম ইস্কান্দার এসব বিষয় নিয়ে সরকারের বিভিন্ন মহলে দেন-দরকার করছেন। তবে তার বিদেশে যাওয়ার বিষয়ে সরকারের অনুমতি পাওয়া যাবে কি না, সে বিষয়ে কিছু জানা যায়নি।

পাবনার সাবেক এমপি সুজা আর নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক : পাবনা-৩ আসনের বিএনপি দলীয় সাবেক সংসদ সদস্য (এমপি) ও বিমান বাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত গ্রুপ ক্যাপ্টেন সাইফুল আজম সুজা মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

রবিবার ( ১৪ জুন) সকাল ১১টার দিকে বার্ধক্যজনিত কারণে পাবনার নিজ বাসায় তিনি মারা যান।

বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইং সদস্য শায়রুল কবীর খান সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

শায়রুল কবীর বলেন, সাইফুল আজম সুজা ১৯৯১-৯৬ সালে পাবনা-৩ আসন থেকে (চাটমোহর-ফরিদপুর-ভাঙ্গুরা) বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের পক্ষে পঞ্চম জাতীয় সংসদের সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন।

সাবেক এমপি সাইফুল আজম সুজার মৃত্যুতে গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

ওয়েব সিরিজের অশ্লীল দৃশ্য সরাতে আইনি নোটিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের বিভিন্ন অনলাইন প্লাটফর্মে পরিবেশিত সিনেমা এবং ওয়েব সিরিজে প্রদর্শিত অশ্লীল ও আপত্তিকর দৃশ্য সরিয়ে ফেলতে বা সম্প্রচার বন্ধ করতে সরকারকে আইনি নোটিশ দেওয়া হয়েছে। ২৪ ঘণ্টার সময় বেধে দিয়ে রবিবার (১৪ জুন) ই-মেইলের মাধ্যমে এ নোটিশ পাঠান সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. তানভীর আহমেদ।

একইসঙ্গে ওয়েবভিত্তিক সম্প্রচার নিয়ন্ত্রণে কেন পৃথক একটি নীতিমালা তৈরি করা হবে না, তা আগামী সাত দিনের মধ্যে জানাতে বলা হয়েছে। অন্যথায় যথাযথ আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলেও উল্লেখ করা হয়েছে নোটিশে।

তথ্য ও স্বরাষ্ট্র সচিব, বিটিআরসি চেয়ারম্যান ও পরিচালক, পুলিশের আইজি এবং সিআইডি’র সাইবার পুলিশ ব্যুরোর অতিরিক্ত উপ-মহাপরিদর্শকের (ডিআইজি) কাছে এ নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

নোটিশে বলা হয়েছে, উপযুক্ত পর্যবেক্ষণ বা নিয়ন্ত্রণ না থাকায় দেশীয় সিনেমা এবং ওয়েব সিরিজগুলোতে আপত্তিকর দৃশ্য দিন দিন বেড়েই চলেছে। সেসব দৃশ্য জনসমক্ষে তুলে ধরা হচ্ছে। সম্প্রতি বাংলাদেশে ভিডিও প্রোভাইডারদের অন্যতম প্লাটফর্ম বিং এবং ইউটিউবে ওয়েব সিরিজ ‘বুমেরাং’ এবং ‘আগস্ট ১৪’-তে আপত্তিকর দৃশ্য দেখা গেছে।

এমনকি এসব ওয়েব সিরিজে সিগারেট বা অ্যালকোহলবিষয়ক দৃশ্য থাকার পরও সেক্ষেত্রে কোনো প্রকার সতর্কতামূলক বাণী প্রচার করা হয়নি।

নোটিশে আরও বলা হয়েছে, এসব ভিডিও পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১২ এবং ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট, ২০১৮ এর স্পষ্ট লঙ্ঘন, যা আমাদের দেশীয় সংস্কৃতি এবং সামাজিক নিয়মশৃঙ্খলার জন্যও হুমকিস্বরূপ। তাই অনলাইন প্লাটফর্ম থেকে সিনেমা-ওয়েব সিরিজের আপত্তিকর ভিডিও বন্ধ এবং তা সরিয়ে ফেলা প্রয়োজন।

আত্মহত্যা করেছেন বলিউডের সুশান্ত সিং রাজপুত

বিনােদন ডেস্ক : গোটা বিশ্ব যখন করোনা নিয়ে দুশ্চিন্তায়, হঠাৎই বলিউডের উপরে যেন আকাশ ভেঙে পড়ল। আত্মহত্যা করলেন বলিউডের নতুন প্রজন্মের অন্যতম জনপ্রিয় মুখ সুশান্ত সিং রাজপুত। রবিবার মুম্বাইয়ের বাড়ি থেকেই উদ্ধার হয় তার ঝুলন্ত দেহ। বাড়িতে থাকা কাগজপত্র থেকে জানা যাচ্ছে, বেশ কিছুদিন ধরেই ডিপ্রেশনে ভুগছিলেন তিনি।

ইন্ডিয়া টুডে’র প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, লকডাউনের সময়টায় একাই বাসায় অবস্থান করছিলেন ৩৪ বছর বয়সী এই অভিনেতা। কেন, কোন পরিস্থিতিতে পরে এমন আত্মহননের পথ বেছে নিলেন এই অভিনেতা তা এখনো জানা যায়নি।

কয়েকদিন আগেই সুশান্তের প্রাক্তন সহকারী ১৪ তলা থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেছিলেন। যার মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করেছিলেন সুশান্ত নিজেই।

মোহামেডানের সাবেক ফুটবলার নুরুল হক মানিক মারা গেছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক : জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক মিডফিল্ডার, মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের সাবেক অধিনায়ক এবং বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের কোচ নুরুল হক মানিক আর নেই। আজ রোববার বিকেল সাড়ে ৩ টার দিকে তিনি ইন্তেকাল করেছেন।

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে। তবে তিনি কিভাবে মারা গেছেন তা জানা যায়নি। নুরুল হক মানিকের ঘনিষ্ট এক কোচ জানালেন, মারা গেছে নিশ্চিত হয়েছি, কিন্তু কিভাবে মারা গেলেন তা এখনো জানতে পারিনি।
তবে একটি সূত্র জানিয়েছে, হার্টঅ্যাটাকে মৃত্যু হয়েছে সাবেক এই ফুটবলার এবং বর্তমানে তৃণমূল পর্যায়ের কোচের।

জয়িতা ভট্টাচার্যের নিবন্ধ – চীনা সিস্টার সিটির শর্ত মেনেছে ঢাকা, উদ্বেগ বেড়েছে দিল্লির

ডেস্ক রিপাের্ট : ভারতীয় নিবন্ধকার জয়িতা ভট্টাচার্য কঠিন প্রশ্ন তুলেছেন। তার দাবি, কোভিড-১৯ মোকাবেলায় বিপদে পড়া বাংলাদেশের পাশে দাড়িয়েছে চীন। কিন্তু শর্ত হলো, বাংলাদেশকে চীনের সিস্টার সিটি কূটনীতি মানতে হবে। চীন এর আওতায় ঢাকা উত্তরসহ কয়েকটি নগরকে তাদের মতো করে গড়ে তুলতে চাইছে। এতে রাজি হয়েছে বাংলাদেশ। কিন্তু এটা যে ভারত সুনজরে দেখবে না, তেমন দাবিই করেছেন তিনি।

এপ্রসঙ্গে তিনি বাংলাদেশের সরকারই কেবল নয়, মিডিয়া ও নাগরিক সমাজের ওপরও উষ্মা প্রকাশ করেছেন। তিনি সতর্ক করেছেন, চীনের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা ক্রমাগতভাবে বাড়িয়ে তুলছে বাংলাদেশ। কিন্তু এটা যে, অন্যান্য শক্তির সঙ্গে তার সম্পর্ক বিশেষ করে দক্ষিণ এশিয় স্থিতিশীলতায় একটা যোগসূত্র আছে, সেটা ভুলে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

মিজ জয়িতা বাংলাদেশের বিষয়ে প্রকারান্তরে এই অভিযোগ করেছেন যে, ২০১৬ সালে বাংলাদেশ চীনের বেল্ট এন্ড রোড ইনিশিয়েটিভ (বিআরআই) কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেছিল।

তখন বৈশ্বিক এই উদ্যোগ সম্পর্কে যে সন্দেহ-সংশয় রয়েছে, সেটা কার্যত উপেক্ষা করেছিল। তিনি স্মরণ করিয়ে দেন যে বিশ্বে বিআরআই কর্মসূচির সমালোচনা রয়েছে ।

উল্লেখ্য, বিআরআইতে ভারতের অংশ গ্রহণ নিয়ে ভারতীয় নীতি নির্ধারকদের মধ্যে মতভিন্নতা রয়েছে। অনেকে এর পক্ষে আছেন।

জয়িতা ভট্টাচার্য অবজারভার রিসার্চ ফাউন্ডেশন ওআরএফ এর একজন সিনিয়র ফেলো। ওআরএফতে নেইবারহুড রিজিওনাল স্টাডিজ ইনিশিয়েটিভ নামে একটি আলাদা বিভাগ আছে। তিনি এই বিভাগের একজন সিনিয়র ফেলো । ভারতের প্রতিবেশী নীতিবিষয়ক একজন বিশেষজ্ঞ মনে করা হয় তাকে।

ওআরএফ ওয়েবসাইট অবশ্য লিখেছে, বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ রাজনীতি বিষয়ক’’তিনি একজন বিশেষজ্ঞ। অনলাইন উইকিপিডিয়ার মতে অবজারভার রিসার্চ ফাউন্ডেশন একটি শীর্ষস্থানীয় স্বাধীন থিংক ট্যাংক। দিল্লি-কলকাতা চেন্নাইয়ে তাদের দপ্তর রয়েছে।

উইকিপিডিয়া বলেছে, যদিও তারা স্বাধীন কার্যক্রমের দাবি করে থাকে কিন্তু তাদের তহবিলের উল্লেখযোগ্য অংশ আসে ধীরুভাই আম্বানি পরিবার থেকে। কিছু রিপোর্ট অনুযায়ী ২০০৯ সাল পর্যন্ত ফাউন্ডেশনের বাজেটের ৯৫ ভাগ রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রি যোগান দিয়েছে।

চীনের ঋণ ফাঁদ
ঋণের বোঝা চাপিয়ে এবং কোন দেশ যদি ঋণ পরিশোধ করতে ব্যর্থ হয়, তাহলে চীন সেটা থেকে সুযোগ নিয়ে থাকে। এই মন্তব্য করে উদাহরণ হিসেবে জয়িতা বলেছেন, শ্রীলঙ্কা তার একটি উদাহরণ । ঋণ পরিশোধ করতে না পরে তাকে তার ভূখণ্ডের একটি অংশ চীনকে ইজারা দিতে হয়েছিল এবং এটা সবারই জানা আছে। কিন্তু বাংলাদেশে বিশ্বাস করে যে একই ধরণের পরিস্থিতি মুখোমুখি তাকে হতে হবে না। এবং চীনের সঙ্গে তারা এ বিষয়ে অধিকতর ভাল দরকষাকষি করতে সক্ষম হবে ।

চলতি বছরের মে মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এর সঙ্গে এক টেলিফোন আলোচনায় বি আর আই এর প্রতি তার সহযোগিতার বিষয়ে অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেন। জয়িতা লিখেছেন, বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ায় চীনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার । চীন বাংলাদেশ ২৪ বিলিয়ন ডলারের বিনিয়োগের অফার দিয়েছে । বি আর আই কর্মসূচির অধীনে এটা অন্যতম বৃহত্তম বিনিয়োগ প্রস্তাব । এই সহায়তার একটি বড় অংশই বাংলাদেশে ঋণ হিসেবে পাবে।

চীনের এই ভাবমূর্তি রয়েছে যে, তারা কোন দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করে না। কিন্তু এখন তারা সম্পর্ক গড়ে তুলতে সমর্থন দিচ্ছেন প্রকাশ্যেই।

জয়িতা ভট্টাচার্য মনে করেন এসব পদক্ষেপের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে চীনা এনগেজমেন্ট বৃদ্ধি পাবে। এখন যদি তারা সিস্টার সিটি ধারণা কার্যকর করতে পারে, তাহলে তারা বাংলাদেশে সমাজে আরো ভালোভাবে ঘনিষ্ঠ হতে পারবে । অংশীদারিত্ব বাড়াতে পারবে।

জয়িতা আরও স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন যে , চীনের সঙ্গে বাণিজ্য ঘাটতি থাকা সত্ত্বেও দু’দেশের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের আলোচনায় এই বিষয়টি একটি বাধা হিসেবে কখনোই স্বীকৃতি পাচ্ছে না। তিনি লিখেছেন, বাংলাদেশ এবং চীন একটি অংশীদারিত্ব গড়ে তুলেছে । দুই দেশের মধ্যে একটি ঘনিষ্ঠ সামরিক এবং অর্থনৈতিক সম্পর্ক রয়েছে । চীনের অনুকূলে বাণিজ্য ভারসাম্য রেখে বাংলাদেশের তাদের অন্যতম বৃহত্তম বাণিজ্য অংশীদারে পরিণত হয়েছে । দুই দেশের মধ্যকার সাংস্কৃতিক পার্থক্যকে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের পথে অন্তরায় হিসেবে দেখা হয় না বললেই চলে।

চীনের প্রতি নরম, ভারতের প্রতি গরম
জয়িতা আরও উল্লেখ করেন যে এই সম্পর্কের অনুকূলে জনমত গড়ে তোলার ক্ষেত্রে চীনের জনগণের সমর্থন একটা বিশেষ ইতিবাচক ভূমিকা রাখছে। বাংলাদেশে চীনের বিরুদ্ধে খুব কমই কোন নেতিবাচক সেন্টিমেন্টের বহিঃপ্রকাশ ঘটে। এমনকি গণমাধ্যম এবং সিভিল সোসাইটি গুলো পারতপক্ষে চীনের বিরুদ্ধে কোন অসন্তোষ ব্যক্ত করে না। এমনকি রোহিঙ্গা উদ্বাস্তুদের সঙ্গে বোঝাপড়ার ক্ষেত্রেও চীন যে পর্যাপ্ত ভূমিকা রাখে না, তা নিয়েও তাদের কোনো অসন্তোষ নেই ।

জয়িতা আরও লিখেছেন, এটা খুবই কৌতুহল উদ্দীপক যে রোহিঙ্গা সংকট নিষ্পত্তি না করতে ভারত কোন ভূমিকা পালন না করার বিরুদ্ধে বাংলাদেশের মিডিয়া এবং জনগণের কঠোর অসন্তোষ রয়েছে । ভারতের সঙ্গে তাদের যে বাণিজ্য ঘাটতি রয়েছে, সেটা প্রায়ই তারা উল্লেখ করে। বাংলাদেশের নিজস্ব উদ্বেগ প্রশমনে ভারতের যে প্রচেষ্টা রয়েছে , তারও স্বীকৃতি খুব সামান্য। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, কতিপয় নারকটিক দ্রব্য ব্যতিরেকে বাংলাদেশকে যে পণ্যের শুল্কমুক্ত সুবিধা দিয়েছে, এই বাণিজ্য সুবিধার কথা উল্লেখ করা হয় না । অথচ এই পদক্ষেপের ফলে ভারতে বাংলাদেশের রপ্তানি বেড়ে গিয়েছে। ২০১৯ সালে ভারতে বাংলাদেশি রপ্তানির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১০০ কোটি মার্কিন ডলার।

জয়িতা আরো বলেছেন, যদি কোনো ছোটখাটো চীনা সহায়তা বাংলাদেশের অনুকূলে হয়, তাহলে সেটা বাংলাদেশি মিডিয়ায় বিরাটভাবে তুলে ধরা হয়। উল্লিখিত পর্যবেক্ষণ ও মন্তব্য তুলে দেয়ার পর জয়িতা ভট্টাচার্য এই মন্তব্য করেছেন যে, চীন আগের মত অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে নির্লিপ্ত আর থাকবে না । তারা তাদের সেই অবস্থান বদলাবে এবং কোনো দেশের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিকে তারা ডিকটেট করতে চাইবে।

ভাবতে হবে বাংলাদেশকে
জয়িতা ভট্টাচার্য পরামর্শ দিয়েছেন যে , দুদেশের সম্পর্ক পর্যালোচনা করে বাংলাদেশের উচিত হবে চীনের প্রস্তাবগুলোর তাৎপর্য ও কি প্রভাব পড়তে পারে সেটা বিবেচনায় নেয়া। তার কথায়, বাংলাদেশ যে সকলের প্রতি বন্ধুত্বের যে নীতি অনুসরণ করে চলছে তার পররাষ্ট্রনীতিতে, সেটা ক্ষতিগ্রস্ত হবে এবং অন্যান্য পরাশক্তির সঙ্গে তার সম্পর্কে প্রভাব ফেলবে। এটা গুরুত্বপূর্ণ । দেশের স্থিতিশীলতা, শান্তি এবং দক্ষিণ এশিয় মাত্রাগুলোর কথা বিবেচনা করা সমিচীন।

জয়িতা ভট্টাচার্যের এই নিবন্ধে বিশেষভাবে গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে, সিস্টার সিটির পেছনে চীনের কি উদ্দেশ্য রয়েছে, সেই বিষয়ে।

তার কথায়, সাম্প্রতিককালে সিস্টার সিটি অ্যালায়েন্সকে চীন এগিয়ে নিচ্ছে, তার পিছনে কি উদ্দেশ্য রয়েছে, সে বিষয়ে বিভিন্ন মহল থেকে আশঙ্কা ব্যক্ত করা হয়েছে । তার মতে চীন যে এতদিন সাংস্কৃতিক বন্ধনের উন্নয়নের কথা বলে আসছিল, তার সীমা তারা অতিক্রম করেছে এবং এটাই ফুটে উঠেছে যে, এই পদক্ষেপের একটি বৃহত্তর ভূ-কৌশলগত লক্ষ্য রয়েছে ।

২০১৯ সালে চিনা ডেইলি রিপোর্ট করেছিল যে, বিদেশি রাষ্ট্রগুলোর সঙ্গে গঠিত চীনা পিপলস অ্যাসোসিয়েশন ফর ফ্রেন্ডশিপ এর প্রেসিডেন্ট শাওলিন উল্লেখ করেছিলেন যে, বি আর আই ফ্রেমওয়ার্ক এর মধ্যে চিনা এবং বিদেশি নগরগুলোর মধ্যে সিস্টার সিটি সম্পর্ক একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে । জয়িতা লিখেছেন , তার এই মন্তব্যের পরই বিদেশি নগরগুলোর সঙ্গে যাদের চুক্তি রয়েছে, তাদের মধ্যে এক ধরনের গুঞ্জন শুরু হয়। বিআরআই হচ্ছে বেল্ট রোড ইনিশিয়েটিভ। চীনের বিদেশনীতির অংশ। কারণ তাদের এই বি আর আই কর্মসূচিকে একটি বৈশ্বিক স্ট্র্যাটেজিক লক্ষ্যের অংশ হিসেবে দেখা হয়।

জয়িতা ভট্টাচার্য তার নিবন্ধ লিখেছেন, বিআরআই কর্মসূচির আওতায় ইতিমধ্যেই চীন বিশ্বের প্রায় ৭০০ নগরীর সঙ্গে এই ধরনের চুক্তি করেছে।

জয়িতা আরও দাবি করেছেন, এই চুক্তিগুলো এমন সময়ে চীন এগিয়ে নিচ্ছে, যেটা অনেক সন্দেহ সংশয় বৃদ্ধি করেছে। কারণ তারা এটা করছে এমন একটা সময়, যখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতো পরাশক্তির নেতৃত্বে বৈশ্বিক অর্ডার নতুন করে একটা টানাপোড়েনের মুখোমুখি । বিআরআই কর্মসূচির সঙ্গে যুক্ত করে দেয়ার জন্য ইউরোপের অনেক দেশ এই বিষয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছে। অনেক ইউরোপীয় শহর যারা ইতিমধ্যেই চুক্তি করেছিল, তারা তা এগিয়ে নিতে এখন শিথিল মনোভাব দেখাচ্ছে।

জয়িতা তার যুক্তির স্বপক্ষে উদাহরণ দিতে গিয়ে উল্লেখ করেছেন সুইডেনের তিনটি শহর চীনের গুয়াংজু এবং বেইজিংয়ের সঙ্গে সহযোগিতামূলক চুক্তি করেছিল। তারা এর সমাপ্তি ঘটিয়েছে।

চীনা শর্ত
ওই নিবন্ধে বলা হয়, চীনের কমিউনিস্ট পার্টি সিপিসি বাংলাদেশকে কোভিড ১৯ মোকাবেলায় সহায়তা দিতে একটি প্রস্তাব দিয়েছে । তারা বলেছে বাংলাদেশ যদি চীনের নির্দিষ্ট কিছু শহরের সঙ্গে সিস্টার সিটি অ্যালায়েন্স বা জোট নগরী গড়ে তুলতে সম্মত হয়, তাহলে তারা ঐ সহায়তা পাবে । চলতি বছরের মে মাসে বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সঙ্গে এক বৈঠকে ওই প্রস্তাব দিয়েছে চীন। ঢাকার অন্যতম সিটি কর্পোরেশন ঢাকা উত্তর হবে সিস্টারদের অন্যতম। একে বন্ধুত্বপূর্ণ নিদর্শন হিসেবে দেখা হচ্ছে। আর সেটা বাংলাদেশে ব্যাপকভাবে নন্দিত হয়েছে।

কোন সন্দেহ নেই কোভিড ১৯ মোকাবেলা করার প্রেক্ষাপটে সিস্টার সিটি অ্যালয়েন্স গড়ে তোলার বিষয়টি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে ।

অবশ্য একইসঙ্গে এই প্রশ্ন কেউ কেউ তুলছেন, চিনা এই উদ্যোগের নেপথ্যে আসলে তাদের মনোভাব কি ?

বাংলাদেশে কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং এই কলাম লেখা পর্যন্ত সময়ে প্রায় ৭৪ হাজার ৮৬৫ জন মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন এবং ১০১২ জন ব্যক্তি মারা গেছেন। কতিপয় বেসরকারি প্রাক্কলন অনুযায়ী, আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা অনেক বেশি । কোভিড উন্নয়নশীল দেশগুলোর অর্থনীতির উপর প্রভাব ফেলেছে এবং বৈশ্বিক প্রবনতার মতোই বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি হোঁচট খেতে পারে । বাংলাদেশে এখন মরিয়া হয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সমর্থন কামনা করছে । কারণ তাকে এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হবে । একই সঙ্গে অবশ্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ও তাদের সমর্থনের হাত বাড়িয়ে দিচ্ছে । প্রতিবেশী ভারত বাংলাদেশকে সহায়তা দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছে । চীন বাংলাদেশকে কারিগরি এবং অর্থনৈতিক সহায়তা প্রদানের প্রস্তাব দিয়েছে। ডেঙ্গু এবং অন্যান্য মহামারী রোধেও তারা পাশে থাকবে। কিন্তু শর্ত হলো বাংলাদেশ যদি তাদের প্রস্তাব মেনে নেয়। চীন অবশ্য আরো সুপারিশ করেছে যে বাংলাদেশ যদি তাদের প্রস্তাব নেয় তাহলে তারা তাদের শহরগুলোকে চীনা শহরের মতো গড়ে তুলতে সহায়তা দেবে।

সিস্টার সিটি কি
দুই দেশের নগরগুলোর ভিতরে চুক্তি সইয়ের মাধ্যমে সিস্টার সিটিসমূহ গঠন করা হবে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট আইজেনহাওয়ারকে বলা হয়ে থাকে, তিনিই প্রথম সিস্টার সিটি সৃষ্টির ধারণা দিয়েছিলেন। এই ধারণার মূলকথা হলো সিস্টার চিঠিগুলোর নাগরিকদের মধ্যে আন্তঃসম্পর্ক এবং কানেক্টিভিটি বাড়বে। এটাই প্রকারান্তরে দুই দেশের মধ্যে তৈরি করে দেবে একটা নাগরিক কূটনীতি বা সিটিজেন ডিপ্লোমেসি । ঐতিহ্যগতভাবে এই ধারণা গভীর হয়েছে যে, সিস্টার সিটি পারস্পরিক বোঝাপড়া বৃদ্ধিতে সহায়ক হয়। এবং দুই নগরী মনে করে যে তারা মিত্র নগরের নাগরিক।

নিবন্ধে উল্লেখ করা হয় যে, চীন এই কূটনীতিতে ক্রমবর্ধমানহারে পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে চলছে এবং তা ইতিমধ্যেই তাদের পররাষ্ট্রনীতির অবিচ্ছেদ্য অংশে পরিণত হয়েছে । আর এটা শুধু এই অঞ্চলেই নয়, গোটা বিশ্ব জুড়ে তাদের এই পরিকল্পনা এবং সেভাবেই তারা অগ্রসর হচ্ছে । চীনা শহরগুলোর মধ্যে বেইজিংয়ের রয়েছে সবথেকে বেশি সংখ্যক সিস্টার সিটি চুক্তি ।-শীর্ষনিউজ থেকে

ঢাকার ৪৫ এলাকা রেড জোনে, সােমবার থেকেই লকডাউন

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঢাকা সিটি করপোরেশনের ৪৫টি এলাকাকে রেড জোনে চিহ্নিত করা হয়েছে। করোনা প্রতিরোধে গঠিত কেন্দ্রীয় টেকনিক্যাল কমিটির গত শনিবারের সভায় এসব এলাকাকে চিহ্নিত করা হয়। এদিকে এসব এলাকায় ১৫ তারিখ থেকে লকডাউন ঘোষণা আসবে বলে জানিয়েছেন জনপ্রশাসন মন্ত্রী ফররহাদ হোসেন।

সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ঢাকার উত্তর ও দক্ষিণ সিটির মোট ৪৫টি এলাকাকে ‘রেড জোন’ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকা উত্তর সিটির ১৭ এবং দক্ষিণ সিটির ২৮টি এলাকা আছে। এছাড়া চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন এলাকার ১১টি এলাকা রেড জোনের মধ্যে পড়েছে। সিটির বাইরে তিন জেলার মধ্যে গাজীপুরের সব কটি উপজেলাকে রেড জোনের আওতার মধ্যে আনা হয়েছে। নারায়ণগঞ্জ জেলার আড়াইহাজার, রূপগঞ্জ, সদর এবং পুরো সিটি এলাকাকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার ডেপুটি পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) ও করোনা প্রতিরোধে গঠিত কেন্দ্রীয় টেকনিক্যাল কমিটির সদস্য সচিব ডা. জহিরুল করিম বলেন, গত ১১ জুন কেন্দ্রীয় টেকনিক্যাল কমিটি গঠন করা হয়েছে। তারা এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। গত ১৪ দিনের প্রতি এক লাখ জনসংখ্যার ভেতরে ৬০ জন রোগীর থাকার ভিত্তিতে এই রেড জোন ঘোষণা করা হচ্ছে। এটা কেবল ঢাকা এবং চট্টগ্রামের জন্য প্রযোজ্য। বাকি জেলাগুলোতে ১৪ দিনের ভেতরে ১ লাখ জনসংখ্যা্র ১০ জন থাকলে সেটাকে রেড জোন ঘোষণা করা হবে।

ঢাকা উত্তর সিটির রেড জোন চিহ্নিত এলাকা:

উত্তর সিটি করপোরেশনের যে ১৭ এলাকাকে রেড জোন হিসেবে ধরা হয়েছে সেগুলো হলো- মিরপুর, মোহাম্মদপুর, কল্যাণপুর, গুলশান, বাড্ডা, ক্যান্টনমেন্ট, মহাখালী, তেজগাঁও, রামপুরা, আফতাবনগর, মগবাজার, এয়ারপোর্ট, বনশ্রী, রাজাবাজার, উত্তরা।

ঢাকা দক্ষিণ সিটির রেড জোন চিহ্নিত এলাকা:

দক্ষিণ সিটির ২৮টি এলাকার মধ্যে আছে- যাত্রাবাড়ী, ডেমরা, মুগদা, গেন্ডারিয়া, ধানমন্ডি, জিগাতলা, লালবাগ, বাসাবো, শান্তিনগর, পরিবাগ, পল্টন, আজিমপুর, কলাবাগান, রমনা, সূত্রাপুর, মালিবাগ, কোতোয়ালি, টিকাটুলি, মিটফোর্ড, শাহজাহানপুর, মতিঝিল, ওয়ারী, খিলগাঁও, , কদমতলী, সিদ্ধেশ্বরী, লক্ষ্মীবাজার, এলিফ্যান্ট রোড, সেগুনবাগিচা।

এছাড়া চট্টগ্রাম সিটির ১০ এলাকাকে রেড জোনের মধ্যে রাখা হয়েছে। সেগুলো হলো, কোতোয়ালির ১৬, ২০, ২১ ও ২২ নম্বর ওয়ার্ড, বন্দরে ৩৭ ও ৩৮ নম্বর ওয়ার্ড, পতেঙ্গার ৩৯ নম্বর ওয়ার্ড, পাহাড়তলির ১০ নম্বর ওয়ার্ড, খুলশীর ১৪ নম্বর ওয়ার্ড, হালিশহর এলাকার ২৬ নম্বর ওয়ার্ড।

রেড জোনের ঘোষণা আসার আগেই জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন জানান এলাকাভিত্তিক লকডাউন সোমবার থেকেই শুরু হচ্ছে। তিনি বলেন, সরকার মূলত জোনভিত্তিক লকডাউনের মাধ্যমে করোনা মোকাবিলার কৌশল গ্রহণ করেছে। সেই কৌশলে রেড জোন চিহ্নিত এলাকা লকডাউনের আওতায় ও সাধারণ ছুটি থাকবে সেখানে।

ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের কেন্দ্রীয় চুক্তিতে থাকা পাঁচ খেলোয়াড়কে ডোপিং সংস্থার নোটিশ

স্পোর্টস ডেস্ক : ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের (বিসিসিআই) কেন্দ্রীয় চুক্তিবদ্ধ পাঁচ ক্রিকেটার চেতেশ্বর পুজারা, রবীন্দ্র জাদেজা, লোকেশ রাহুল, স্মৃতি মানধানা এবং দীপ্তি শর্মাকে নোটিশ পাঠিয়েছে জাতীয় অ্যান্টি ডোপিং সংস্থা (নাডা)।

সফটওয়্যারের মাধ্যমে খেলোয়াড়দের তথ্য নথিভুক্ত করা হয়। খেলোয়াড় নিজে বা তার ক্রীড়াসংস্থা এই কাজ করে থাকে। কিন্তু বিসিসিআই বা ক্রিকেটাররা কেউ নিজেদের তথ্য নথিভুক্ত করেননি। যে কারণে নোটিশ পাঠিয়েছে নাডা। বিসিসিআইয়ে দাবি, পাসওয়ার্ডের সমস্যার জন্যই ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে।
নাডার ডিজি নবীন আগরওয়াল জানিয়েছেন, ক্রিকেটাররা ব্যস্ত থাকায় বিসিসিআই সাধারণত এই কাজ করে। তবে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড যে যে ব্যাখ্যা দিয়েছে তা যুক্তিসঙ্গত। তারা বলেছে পাসওয়ার্ড নিয়ে সমস্যা থাকার কারণেই ঝামেলা হয়েছে।

উল্লেখ্য, তিনবার তথ্য জানাতে দেরি হলে দুই বছর পর্যন্ত নির্বাসিত হতে পারেন কোনো ক্রিকেটার। তবে এই ঘটনাকে তিনবারের মধ্যে ধরা হবে কিনা, তা স্পষ্ট করেননি নবীন। বোর্ডের একাংশ এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ। কেন সামান্য সমস্যা মেটাতে এতদিন লাগল, তারই উত্তর খুঁজছেন তারা। তাছাড়া ক্রিকেটাররা প্রত্যেকেই উচ্চশিক্ষিত। তাহলে কেন তারা নিজেরা তথ্য জানাচ্ছেন না।
ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের এক প্রবীণ কর্মকর্তা সংবাদ সংস্থাকে বলেছেন, লকডাউনে থাকার সময় ক্রিকেটাররা অনায়াসে কাজটা নিজেরাই করতে পারত। নাডা হয়তো এবার কিছু বলবে না। তবে সতর্ক করে দিলে কাকে দোষী বলা হবে?।
সূত্র: ক্রিকইনফো

প্রধানমন্ত্রীর কাছে শুধু মন্ত্রী, এমপি, মেয়র, দলীয় নেতা ও ভিআইপিদের জীবনের মূল্য আছে : বললেন রিজভী

নিজস্ব প্রতিবেদক : কোভিড-১৯ মহামারী থেকে সুরক্ষার ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে শুধু অতিগুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের (ভিআইপি) জীবনের মূল্য আছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

রোববার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনের দলীয় কার্যালয় থেকে এক ভার্চুয়াল সংবাদ ব্রিফিংয়ে তিনি এ মন্তব্য করেন।

রিজভী বলেন, প্রধানমন্ত্রী তার দলের মন্ত্রী, এমপি, মেয়র, নেতা ও ভিআইপিদের চিকিৎসার দায়িত্ব নিচ্ছেন। তাদের জন্য দ্রুততার সঙ্গে সিএমএইচ, এয়ার অ্যাম্বুলেন্স, হেলিকপ্টার, নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্র, ভেন্টিলেটরসহ সব সুবিধা নিশ্চিত করছেন। কিন্তু দেশের সাধারণ মানুষ চিকিৎসা না পেয়ে রাস্তায় মারা যাচ্ছেb, প্রধানমন্ত্রী তাদের কোনো খবর নিচ্ছেন না।

‘কারণ জাতীয় নিশুতি রাতের নির্বাচনের প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতার মসনদে থাকতে দেশের সাধারণ মানুষের কোনো প্রয়োজন হয় না। তার কাছে শুধুই ‘ভিআইপি লাইভস ম্যাটার’, গরিব মানুষের জীবন উপেক্ষিত’-যোগ করেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব।

করোনা পরিস্থিতিতে হাসপাতালগুলো আইসিইউ ব্যবস্থাপনায় অনিয়মের চিত্র তুলে ধরে তিনি বলেন, রাজধানীতে কোনো হাসপাতালেই আইসিইউ বেড খালি নেই, কোনো কোনো বেসরকারি হাসপাতালে করোনার ওয়ার্ড খুললেও আইসিইউ বেড ও চিকিৎসার জন্য গলাকাটা দাম নিচ্ছে।

বিনাচিকিৎসা করোনা রোগীরা মারা যাচ্ছেন, অভিযোগ করে তিনি বলেন, তিন মাসে করোনা উপসর্গ নিয়ে অসংখ্য মানুষের মৃত্যু হয়েছে– যাদের মধ্যে সিংহভাগ মানুষ হাসপাতালে চিকিৎসা পাননি। বেঁচে থাকাবস্থায় নমুনা পরীক্ষার মাধ্যমে নিশ্চিত হতে পারেননি তারা করোনা আক্রান্ত কিনা।

প্রস্তাবিত বাজেটে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর ব্যয়বৃদ্ধির প্রস্তাবে উদ্বেগ প্রকাশ করেন রিজভী। বলেন, করোনা-উত্তর অর্থনৈতিক মন্দাকে কাটাতে বিভিন্ন দেশে সরকারি ব্যয় সংকোচনের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। বিভিন্ন দেশের প্রেসিডেন্ট-প্রধানমন্ত্রী নিজেদের ব্যয় কমিয়ে দৃষ্টান্ত করার চেষ্টা করেছেন। পক্ষান্তরে বাংলাদেশের ‘অনির্বাচিত সরকার’ হাঁটছে উল্টো দিকে। এই করোনাভাইরাসের সংকটের মধ্যেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সরকারি অফিসের ব্যয় বাড়িয়েছেন ৯৫ কোটি টাকা। প্রস্তাবিত বাজেটে প্রধানমন্ত্রীর অফিসের খরচের জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৩ হাজার ৮৩৮ কোটি টাকা। গত বছর ৩ হাজার ৭৪৩ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখার পর ব্যাপক সমালোচনা হলেও সরকার এতে কর্ণপাত করেনি।

করোনা পরিস্থিতি ভয়ানক হয়ে উঠছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সরকারের সীমিত টেস্টের লুকোচুরি করা ফলেও শনাক্তের ৯৮তম দিনে এসে আক্রান্তের সংখ্যায় চীনকে ছাড়িয়ে গেছে বাংলাদেশ। মুখে ‘লকডাউন’ কাগজে-কলমে ‘সাধারণ ছুটি’, আবার কখনও কখনও কথিত ‘রেড জোন’, ‘ইয়েলো জোন’, ‘গ্রিন জোন’— এভাবে সরকারের একেকবার একেক ধরনের কথা পুরো পরিস্থিতিকে আরও ভঙ্গুর ও জটিল করে তুলেছে।

রিজভী বলেন, ‘অপ্রিয় বাস্তবতা হলো— সরকার নিজেও পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে পারছে না, কারও পরামর্শ কিংবা সহায়তাও নিচ্ছে না। কেউ সুপরামর্শ দিলে বা সহযোগিতা করতে চাইলে তাদের কটাক্ষ করা মজ্জাগত হয়ে গেছে ক্ষমতাসীন মন্ত্রী-নেতাদের। দেশের মানুষের জীবন নিয়ে সরকারের এ ধরনের হেয়ালিপূর্ণ আচরণ মেনে নেয়া যায় না।’

বগুড়ায় শহীদ জিয়াউর রহমান বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও গাবতলী শহীদ জিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তন ও জিয়ার নামফলক মুছে ফেলা এবং মাগুরা জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা কৌশিক আহমেদ সোহাগের ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের হামলায় আহত হওয়ার ঘটনায় নিন্দা জানান রিজভী।

স্বাস্থ্য শিক্ষা সচিব সস্ত্রীক করোনায় আক্রান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক : স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়েল স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের সচিব আলী নূর সস্ত্রীক করোনায় আক্রান্ত হয়ে বাসায় আইসোলেশনে আছেন। তিনি ও তাঁর স্ত্রী বর্তমানে সুস্থ হওয়ার পথে। তিনি সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন।

রোববার দুপুরে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. মাইনুল ইসলাম প্রধান যুগান্তরকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের সচিব আলী নূর ও তার স্ত্রী নাসরিন আকতার গত ৫ দিন যাবৎ সস্ত্রীক করোনায় আক্রান্ত হয়ে বাসায় আইসোলেশনে আছেন। তারা বর্তমানে সুস্থ হওয়ার পথে।

এর আগে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে একই মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব আব্দুল মান্নানের সহধর্মিণী কামরুন্নাহার মৃত্যুবরণ করেন। শনিবার (১৩ জুন) দিবাগত রাত ১২টার পর ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচে) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। কামরুন্নাহার দুই পুত্র ও এক কন্যাসন্তানের জননী।