টেস্ট কোভিড-১৯ বদলি ক্রিকেটার সাময়িক অনুমোদন আইসিসির

স্পোর্টস ডেস্ক :টেস্ট ম্যাচে ‘কোভিড-১৯ বদলি’ চালু নিয়ে আলোচনা চলছিল বিস্তর। এবার আইসিসির পক্ষ থেকে এলো সিদ্ধান্ত। সাময়িকভাবে এই নিয়ম চালুর অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।
বলে লালা ব্যবহার নিষিদ্ধ, স্থানীয় ম্যাচ অফিসিয়াল নিয়োগ, প্রতি ইনিংসে বাড়তি একটি ডিআরএস রিভিউ যুক্ত করার যে সুপারিশগুলো আইসিসির ক্রিকেট কমিটি করেছিল, সেগুলোও সংস্থাটির প্রধান নির্বাহীর কমিটি অনুমোদন দিয়েছে। ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা মঙ্গলবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

কোভিড-১৯ বদলি
টেস্ট ম্যাচের মাঝে কোনো খেলোয়াড়ের করোনাভাইরাসের লক্ষণ দেখা দিলে তার বদলি নামাতে পারবে সংশ্লিষ্ট দল। এটি অনেকটা কনকাশন বদলির মতো, একই ধরনের খেলোয়াড় হতে হবে। এটির অনুমোদন পেতে হবে ম্যাচ রেফারির থেকে।
ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি ম্যাচের ক্ষেত্রে এই নিয়ম অবশ্য প্রযোজ্য হবে না।

বলে লালা ব্যবহার নিষিদ্ধ
বল চকচকে করতে খেলোয়াড়রা লালা ব্যবহার করতে পারবেন না। ভুল করে এই কাজ করলে সেই দলকে প্রথমে সতর্ক করা হবে। প্রতি ইনিংসে একটি দলকে দুবার সতর্ক করা হবে। এরপরও একই কাজ করলে ব্যাটিং দলকে ৫ রান পেনাল্টি হিসেবে দেওয়া হবে। লালা ব্যবহার করামাত্র আম্পায়ারের নির্দেশে বল জীবাণুমুক্ত করার পরই আবার খেলা শুরু করা যাবে। – ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

স্থানীয় ম্যাচ অফিসিয়াল
কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে ভ্রমণের ওপর বিধিনিষেধ থাকায় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিরপেক্ষ আম্পায়ার নিয়োগের নিয়মটি সাময়িকভাবে বাতিল করা হয়েছে। আপাতত আইসিসির এলিট প্যানেলের ম্যাচ অফিসিয়াল ও আন্তর্জাতিক প্যানেল ম্যাচ অফিসিয়ালদের মধ্যে স্থানীয়দেরকে ম্যাচে নিয়োগ দিতে পারবে আইসিসি।
বাড়তি রিভিউ
সঙ্কটকালীন সময়ে তুলনামূলক কম অভিজ্ঞ ম্যাচ অফিসিয়াল দায়িত্ব পালন করতে পারেন, বিষয়টি বিবেচনায় রেখে প্রতি ইনিংসে বাড়তি একটি ডিআরএস রিভিউ যুক্ত করার সুপারিশও অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। টেস্টের ক্ষেত্রে প্রতি ইনিংসে এখন থেকে রিভিউ থাকবে তিনটি করে, আর সাদা বলের ক্রিকেটে প্রতি ইনিংসে দুটি করে।
এছাড়া, খেলোয়াড়দের আচরণবিধি লঙ্ঘনের শাস্তি প্রক্রিয়ার সময় আইসিসি ক্রিকেট অপারেশনস টিম ম্যাচ রেফারিদের সহায়তা করবেন। একজন নিরপেক্ষ এলিট প্যানেল ম্যাচ রেফারি ভিডিও লিঙ্কের মাধ্যমে যে কোনো ধরনের শুনানি পরিচালনা করবেন। – বিডিনিউজ

পেলেকে ছাড়িয়ে যাবার হাতছানি মেসির সামনে

স্পোর্টস ডেস্ক : ক্যারিয়ার জুড়ে অপ্রতিরোধ্য পথচলায় লিওনেল মেসি যেন হয়ে উঠেছেন রেকর্ডের প্রতিশব্দ। সেই ধারাবাহিকতায় বার্সেলোনা অধিনায়কের সামনে আরও দুটি দারুণ রেকর্ডের হাতছানি। করোনাভাইরাসের বিরতি শেষে কদিন পরই শুরু হচ্ছে লা লিগা, শুরু হবে রেকর্ডের বরপুত্রের নতুন কীর্তি গড়ার অভিযানও।
পিচিচি নাম্বার সেভেন?

স্পেনের শীর্ষ লিগে গত আসরে সর্বোচ্চ গোল করে মেসি বসেছিলেন রেকর্ড ছয়বার পিচিচি ট্রফি জয়ী তেলমো সাররার পাশে। চলতি আসরে এখন পর্যন্ত ১৯ গোল করে তিনিই শীর্ষে, দুইয়ে থাকা করিম বেনজেমার চেয়ে পাঁচটি বেশি। গোলের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারলে এবারও মেসির সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়াটা অনেকটাই নিশ্চিত। সেক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশিবার পিচিচি ট্রফি জয়ের রেকর্ড শুধুই একার করে নিবেন তিনি।
একটি ক্লাবের হয়ে সর্বোচ্চ গোল?

ব্রাজিলের ক্লাব সান্তোসের হয়ে ৬৪৩ গোল করে এক দলের হয়ে সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ডটি দীর্ঘদিন ধরেই পেলের। ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তির কীর্তির পর ওই চূড়া যুগ যুগ ধরেই ছিল সবার ধরাছোঁয়ার বাইরে। এখন সেটিই মেসির নাগালে। বার্সেলোনা অধিনায়কের সামনে সুযোগ, এই রেকর্ডে পেলেকে ছাড়িয়ে নিজেকে আরও অনেক উঁচুতে তুলে নেওয়ার।
এখন পর্যন্ত কাতালান ক্লাবটির হয়ে ৬২৭ গোল করেছেন মেসি। আর মাত্র ১৭ বার জালের দেখা পেলেই গড়বেন রেকর্ড। যে ছন্দে এগিয়ে চলেছেন তিনি, তাতে পেলেকে পেছনে ফেলতে পারেন এ মৌসুমেই। চলতি মৌসুমে এখনও ১২টি ম্যাচ নিশ্চিতভাবেই আছে বার্সেলোনার। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে পথচলা দীর্ঘায়িত হলে ম্যাচ বাড়বে আরও। – বিডিনিউজ

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসাতালের করোনা ইউনিটে আরো ১৫ জনের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। তাদের মধ্যে করোনা ভাইরাস পজিটিভ ৩ জন পুরুষের। আর অন্যরা করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যান।

ঢামেক হাসপাতালে গত ২মে থেকে শুরু করা করোনা ইউনিটে মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৫টা পযর্ন্ত করোনা ইউনিটে নারী ও পুরুষ মিলে ৫৪৫ জন মারা গেছেন। এদের মধ্যে ১২৪ জন করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা যান। ঢামেক হাসপাতালের করোনা ইউনিটের ওয়ার্ড মাস্টার রিয়াজউদ্দিন মঙ্গলবার বিকেলে এই মৃত্যুর বিষয়গুলো নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, আমাদের এই হাসপাতালে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের জন্য শিশু করোনা ইউনিটসহ ৩টি ইউনিট চালু করা হয়েছে। এখানে রোগী ভর্তি ও চিকিৎসা জন্য ২৪ ঘণ্টাই খোলা রয়েছে। করোনা ইউনিটে সার্বক্ষণিক রোগীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছে হাসপাতাল কতৃপক্ষসহ ডাক্তার, নার্স, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। যারা করোনা ভাইরাসে উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন তাদের লাশ তাদের আত্নীয়-স্বজনের কাছে পর্যায়ক্রমে হস্তান্তর করা হয়েছে। আর করোনা পজিটিভে যারা মারা গেছেন তাদের লাশ করোনা বিধিমোতাবেক তাদের আত্মীয়-স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হচ্ছে বলেও তিনি জানান।

করোনায় আক্রান্ত ডা. জলিলুর রহমানের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজধানীর তেজগাঁওয়ে অবস্থিত বেসরকারি ইমপালস হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট (অ্যানেস্থেসিওলজি) অধ্যাপক ডা. জলিলুর রহমান খান করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে মারা যান বলে ফাউন্ডেশন ফর ডক্টরস সেফটি রাইটস অ্যান্ড রেসপন্সসিবিলিটির (এফডিএসআর) যুগ্ম সম্পাদক ডা. রাহাত আনোয়ার চৌধুরী নিশ্চিত করেন।

রাহাত আনোয়ার বলেন, করোনায় আক্রান্ত হয়ে ডা. জলিলুর রহমান খান তিন দিন ধরে ইমপালস হাসপাতালের ভেন্টিলেশনে ছিলেন। ডা. রাহাত আনোয়ার চৌধুরী জানান, ডা. জলিলুর রহমান খানকে নিয়ে করোনায় আজ পর্যন্ত ২৪ জন চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে। এখন পর্যন্ত সারাদেশে এক হাজার ১০৮ জন চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

ডা. জাফরুল্লাহর চিকিৎসায় দেশি-বিদেশি চিকিৎসকদের নিয়ে মেডিক্যাল বোর্ড গঠন

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনা আক্রান্ত গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর চিকিৎসার জন্য দেশি-বিদেশি চিকিৎসকদের সমন্বয়ে অনলাইনে মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হয়েছে। তার চিকিৎসার দায়িত্বে গণস্বাস্থ্য হাসপাতালে ব্রিগেডিয়ার অধ্যাপক ডা. মামুন মুস্তাফি এ তথ্য জানিয়েছেন।

সোমবার (৮ জুন) গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. ফরহাদ বলেন, ডা. মামুন মুস্তাফি আমাদের জানিয়েছেন, স্যারের চিকিৎসা দেশি-বিদেশি চিকিৎসকদের নিয়ে ভিডিও কনফারেন্স হয়েছে। সেখানে তার বর্তমান শারীরিক অবস্থা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। তার চিকিৎসার জন্য একটি অনলাইন মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ডা. জাফরুল্লাহ ফুসফুসের সংক্রমণের কোনও উন্নতি না হওয়ায় আগের মতো নিয়মিত অক্সিজেন দেওয়ার সিদ্ধান্ত রয়েছেন ডাক্তারদের। তিনি ঝুঁকির মধ্যে থাকায় তাকে সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণে রাখার হবে।

এর আগে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ডা. মহিবুল্লাহ খন্দকার বলেন, ডা. জাফরুল্লাহ চিকিৎসার জন্য ইংল্যান্ড ও ভারতের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের সঙ্গে প্রতিনিয়তই যোগাযোগ হচ্ছে। তাদের সঙ্গে সমন্বয় করেই এখন তার চিকিৎসা চলবে। বর্তমানে বাংলাদেশ, ইংল্যান্ড ও ভারতের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের সমন্বিত বোর্ডের মাধ্যমেই তার চিকিৎসা চলছে।

তিনি আরও বলেন, ডা. জাফরুল্লাহর চিকিৎসায় সোমবার ব্রিগেডিয়ার অধ্যাপক ডা. মামুন মুস্তাফি, অধ্যাপক ডা. নজীব ও আমি ইংল্যান্ড ও ভারতের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের ভিডিও কনফারেন্স করেছি। ভিডিও কনফারেন্সে তার অসুস্থতার শুরু থেকে এখন পর্যন্ত দেওয়া চিকিৎসার বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। সবাই একমত যে প্রক্রিয়ায় তার চিকিৎসা চলছে তা ঠিক আছে। আগামীতে একইভাবে তার চিকিৎসাই চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ৫ মে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর করোনা শনাক্ত হয়েছে। গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উদ্ভাবিত কিট দিয়ে পরীক্ষাতেই তার করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এরপরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) পিসিআর পরীক্ষাতেও তার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। ডা. জাফরুল্লাহ ছাড়াও তার স্ত্রী শিরীন হক ও ছেলে বারিশ চৌধুরী করোনা আক্রান্ত। তারা বাসায় থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

আফগানিস্তান ম্যাচ দিয়েই আবার শুরু বাংলাদেশের বিশ্বকাপ বাছাই

স্পোর্টস ডেস্ক : করোনাভাইরাসের ছোবলে স্থগিত হয়ে যাওয়ার সময় গত মার্চে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ ছিল বাংলাদেশের। ২০২২ কাতার বিশ্বকাপ ও ২০২৩ এশিয়ান কাপের বাছাইয়ের দ্বিতীয় রাউন্ড সেই আফগানিস্তান ম্যাচ দিয়েই আবার শুরু করবে বাংলাদেশ।

প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে বাছাই পুনরায় শুরুর জন্য বিভিন্ন ফেডারেশনের সঙ্গে বসেছিল এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশন (এএফসি)। সেসময় শুধু আগামী অক্টোবর ও নভেম্বর মিলিয়ে চারটি ম্যাচ ডের কথা জানিয়েছিল তারা। -ক্রিকইনফো

এবারও পূর্ণাঙ্গ সূচি দেয়নি এএফসি। তবে তাদের ওয়েবসাইটে আগামী চারটি ম্যাচ ডেতে বাংলাদেশের চার প্রতিপক্ষের নাম জানিয়েছে। ম্যাচ শুরুর সময় নেই সূচিতে। পুনরায় শুরু হতে যাওয়া বাছাইয়ে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ আছে সেই আগের মতোই। আগামী ৮ অক্টোবর সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ফিরতি লেগে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। প্রথম লেগে আফগানদের কাছে ১-০ গোলে হেরে বাছাই শুরু করেছিল দল।
১৩ অক্টোবরের প্রতিপক্ষ ২০২২ বিশ্বকাপের আয়োজক কাতার। গত অক্টোবরে নিজেদের মাঠ বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে এশিয়ার শক্তিশালী দলটির কাছে ২-০ গোলে হেরেছিল বাংলাদেশ।

আগামী ১২ নভেম্বরে হোম ম্যাচে বাংলাদেশ মুখোমুখি হবে ভারতের। চলতি বাছাইয়ে দলের একমাত্র পয়েন্ট এই দলের বিপক্ষেই পাওয়া। গত বছর কলকাতার সল্ট লেক স্টেডিয়ামে এগিয়ে গিয়েও ভারতের সঙ্গে ১-১ ড্র করেছিল জেমি ডের দল।
এরপর নিজেদের মাঠে ১৭ নভেম্বর ওমানের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। গত নভেম্বরে প্রথম লেগে ওমানের মাঠে ৪-১ ব্যবধানে হেরেছিল দল। বাছাইয়ের দ্বিতীয় রাউন্ডে যেটি ছিল বাংলাদেশের তৃতীয় হার। -বিডিনিউজ

পাকিস্তানে নয়, শ্রীলঙ্কায় হচ্ছে এশিয়া কাপ ক্রিকেট

স্পোর্টস ডেস্ক এ বছর এশিয়া কাপ আয়োজনের জন্য এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের (এসিসি) সবুজ সংকেত পেয়েছে শ্রীলঙ্কা। শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ডের (এসএলসি) প্রধান নির্বাহী শাম্মি সিলভা দেশটির একটি দৈনিক টুডেকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে সোমবার (৮ জুন) এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের (এসিসি) সভা শেষে জানা যায় এশিয়া কাপ নিয়ে কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। পরবর্তী বোর্ড সভার দিনক্ষণ নির্ধারণ করা হয়েছে ২৯জুন। তাই এদিনই আসতে পারে চূড়ান্ত ঘোষণা।

করোনাভাইরাসের কারণে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এই বৈঠকে অংশ নেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী। এছাড়া সভাপতিত্ব করেন এসিসির প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপন। এবারই প্রথম এই বৈঠকে অংশ নেন বোর্ড অব কন্ট্রোল ফর ক্রিকেট ইন ইন্ডিয়ার প্রেসিডেন্ট সৌরভ গাঙ্গুলী এবং বিসিসিআই সচিব জয় শাহ।

পিসিবির প্রধান নির্বাহী এহসান মানি এবং লঙ্কান বোর্ডের প্রধান নির্বাহী সাম্মি সিলভা সহ আরও অনেকেই উপস্থিত ছিলেন এই বৈঠকে। শাম্মি সিলভা বলেন, করোনা পরিস্থিতির কারণে পাকিস্তান এ বছর এশিয়া কাপ আয়োজন করা নিয়ে শঙ্কার মধ্যে আছে। পিসিবির সঙ্গে আমাদের আলাপ হয়েছে। ভিডিও কনফারেন্সের এই বৈঠকে আমাদের প্রস্তাবে ইতিবাচক সাড়া দিয়েছে পিসিবি।

এশিয়া কাপ আয়োজনের জন্য আরও একটি বাঁধা পার করতে হবে শ্রীলঙ্কাকে। সরকারের নির্দেশনার অপেক্ষায় আছে এসএলসি। শাম্মি সিলভা জানিয়েছেন, এশিয়া কাপ সম্পূর্ণ সুন্দর পরিবেশে আয়োজন করতে সরকারের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন তারা।

মোট ৬ দলের আয়োজনে হবে এ বছরের এশিয়া কাপ। যেখানে বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ভারত, শ্রীলংকা এবং আফগানিস্তান ছাড়াও অংশ নেবে বাছাইপর্ব পার করে আসা একটি দল। ২০১৮ সালে এশিয়া কাপ আয়োজনের দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল পাকিস্তানকে।

পিসিবি জানিয়েছিল, নিজেদের দেশেই তারা আয়োজন করতে চায় টুর্নামেন্টটি। রাজনৈতিক কোন্দলের কারণে ভারত রাজি নয় পাকিস্তানে যেতে। আবার পাকিস্তানও অনড় আয়োজকের অবস্থান থেকে সরে আসতে। ফলে একটা অচলাবস্থা তৈরি হয়েছিল টুর্নামেন্টের আয়োজন নিয়ে।

এ নিয়ে চলতি মাসের শুরুতে দুবাইয়ে বৈঠকে বসার কথা ছিল এসিসির। কিন্তু করোনা আতঙ্কে সে বৈঠক পিছিয়ে যায়। এবার আইসিসির বৈঠকের পাশাপাশি বৈঠকে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার কাজ সেরে নিতে চেয়েছিল এসিসি। কিন্তু করোনা আতঙ্কে আবারও স্থগিত হয়েছে এই বৈঠক। -ক্রিকইনফো

মনে থাকার দিনটি আজ

স্পোর্টস ডেস্ক : দি মাইটি বাংলাদেশ নকড নিউজিল্যান্ড আউট, ইংল্যান্ড ও স্কটল্যান্ডের সাবেক ক্রিকেটার ও ধারাভাষ্যকার নাসের হোসেনের এই বাক্যটি আজও কানে বাজে বাংলাদেশের কোটি ক্রিকেট প্রেমীর। ২০১৭ সালের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে আজকের এই দিনে কিউইদের ৫ উইকেটে হারায় মাশরাফি বিন মুর্তজার দল। একই সঙ্গে টুর্নামেন্ট থেকে পরাক্রমশালী দলটিকে বিদায় করে দেয় তারা। এরপরেই নাসের হোসেনের সেই উক্তির উদ্ভব।

অবশ্য যতটা সহজে বলা হলো জয়ের কথাটা, বিষয়টি মোটেই সহজ ছিল না বাংলাদেশের জন্য। কারণ কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেনে অনুষ্ঠিত বাঁচা মরার সেই ম্যাচে শুরুতে ব্যাটিং করতে নেমে ৮ উইকেটে ২৬৫ রান সংগ্রহ করে নিউজিল্যান্ড। ইংল্যান্ডের কন্ডিশনে এই রান তাড়া করে জয় চাট্টিখানি কথা নয় অবশ্যই। তার উপর খেলতে নেমে ৩৩ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে ফেলার পর বাংলাদেশের পক্ষে বাজি ধরার মতো কেউ ছিল না নিঃসন্দেহে।

কিন্তু এপরেই ভোজবাজির মতো যেন সবকিছু পাল্টে গেল। পঞ্চম উইকেটে সাকিব আল হাসান এবং মাহমুদউল্লাহ মিলে ২২৪ রানের অবিশ্বাস্য একটি জুটি গড়লেন। শুধু তাই নয়, জোড়া সেঞ্চুরি করে হারতে বসা দলটিকে জয়ের স্বপ্নও দেখাতে শুরু করলেন তারা। ২৫৭ রানের মাথায় সাকিবকে বোল্ড করে এই জুটি ভাঙতে সক্ষম হন কিউই পেসার ট্রেন্ট বোল্ট। ততক্ষণে অবশ্য জয় অনেকটাই নিশ্চিত হয়ে গেছে বাংলাদেশের।

মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতকে সঙ্গে নিয়ে তুলির শেষ আঁচড়টি দেন মাহমুদউল্লাহ। ১০২ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন তিনি। ফলে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিতে হয় নিউজিল্যান্ডকে। আর শেষ চারে যাওয়ার আশা জিইয়ে রাখে বাংলাদেশ। উপরি পাওয়া হিসেবে নাসের হোসেনের স্তুতিতে ভাসে টাইগাররা।
সেবার অবশ্য চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির শুরুটা তেমন ভালো ছিল না বাংলাদেশের। ইংল্যান্ডের কাছে প্রথম ম্যাচে ৮ উইকেটে পরাজিত হয় মাশরাফি বিন মুর্তজার দল। এরপরের ম্যাচটি ছিল শক্তিশালী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে। কঠিন সেই ম্যাচটিতে অবশ্য মাঠে নামা হয়নি টাইগারদের।

বৃষ্টির কারণে পয়েন্ট ভাগাভাগি করে সন্তুষ্ট থাকতে হয় দুই দলকেই। ফলে শেষ চারের আশা জিইয়ে রাখতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে পরের ম্যাচে জয় পেতেই হবে এমন সমীকরণের মুখে পড়ে বাংলাদেশ। কিউইদের হারানোর পরও তাদের তাকিয়ে থাকতে হয়েছিল ইংল্যান্ড এবং অস্ট্রেলিয়ার মধ্যকার ম্যাচটির দিকে। সেই ম্যাচে ইংল্যান্ড জয় পাওয়ায় পয়েন্টের ভিত্তিতে প্রথমবারের মতো আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনালে পা রাখে লাল সবুজের দেশ। – ক্রিকফ্রেঞ্জি

‘ক্ষতের ওপর প্লাস্টার দিয়ে খেলার মাঠে বর্ণবাদ দূর হবে না’

স্পোর্টস ডেস্ক : আইন থাকার পরেও ক্রিকেটসহ অন্যান্য খেলায় বর্ণবাদের শিকার হচ্ছেন খেলোয়াড়রা। সমাজ থেকে বর্ণবাদ দূর না হলে, খেলায় এর প্রভাব থেকে যাবে বলে মনে করছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের কিংবদন্তি ফাস্ট বোলার মাইকেল হোল্ডিং।

সম্প্রতি হোল্ডিং বলেন, ক্রিকেট মাঠে আপনি বর্ণবাদের শিকার হবেন। ক্রিকেট, ফুটবল মাঠ কিংবা যেকোনো জায়গায় মানুষ চিৎকার করে নানা কিছু বলবে।
একটি নির্দিষ্ট খেলায় নিয়ম করে বর্ণবাদ দূর করতে পারবেন না। সমাজ থেকেই এটা আগে দূর করতে হবে। সমাজ থেকে আসা মানুষেরাই তো খেলা দেখতে এসে বর্ণবাদী আচরণ করে। খেলা থেকে নয়, এটা আগে দূর করতে সমাজ থেকে।

সাম্প্রতিক সময়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাবেক অধিনায়ক ড্যারেন স্যামি জানিয়েছেন ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে খেলার সময় বর্ণবাদের শিকার হন তিনি।

২০১৪ সালে আইপিএলে খেলার সময় স্যামি এবং শ্রীলঙ্কার তারকা অলরাউন্ডার থিসারা পেরেরাকে কালু বলে সম্বোধন করেছিলেন কয়েকজন ক্রিকেটার, এমনটা দাবি করেন স্যামি। এরপরেই ফুঁসে উঠে ক্রিকেটবিশ্ব। হোল্ডিং আরও বলেন, ঠিক আছে, খেলায় অনেক নিয়মকানুন আছে। সেসব মেনেই সবাইকে মাঠে আসতে হয়। কিন্তু এটা হচ্ছে ক্ষতের ওপর একটা প্লাস্টারের (আবরণ) মতো।

সমাজের মানুষকে আগে বুঝতে হবে এটা অগ্রহণযোগ্য। যখন আপনি সমাজ থেকে এটা নির্মূল করতে পারবেন দেখবেন খেলাধুলা (বর্ণবাদে) আক্রান্ত হবে না। কিছুদিন আগে যুক্তরাষ্ট্রের মিনিয়াপোলিসে কৃষ্ণাঙ্গ নাগরিক জর্জ ফ্লয়েডকে হাঁটুর নিচে পিষে হত্যা করে পুলিশ সদস্য ডেরেক চাওভিন। এমন ঘটনার পর সারা বিশ্ব আবারও ফুঁসে উঠেছে বর্ণবাদের বিরুদ্ধে। -ক্রিকফ্রেঞ্জি

ক্ষমতার জন্য ক্ষুধার্ত মির্জা ফখরুল – বললেন ওবায়দুল কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিএনপির হৃদয়ে ক্ষমতার ক্ষুধা। সে ক্ষুধার তীব্রতায় মির্জা ফখরুলদের হৃদয় হাহাকার করছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

মঙ্গলবার (৯ জুন) নিজের সরকারি বাসভবনে এক অনলাইন ব্রিফিংয়ে এ মন্তব্য করেন ওবায়দুল কাদের।

‘রাজনৈতিক অশুভ উদ্দেশ্যে সত্যকে আড়াল করে অন্ধকারে ঢিল না ছুড়তে’ বিএনপির প্রতি আহ্বান জানান তিনি। ‘সারাদেশে বিএনপির নেতাকর্মীদের ঢালাওভাবে গ্রেফতার ও মিথ্যা মামলা দেওয়া হচ্ছে’ বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুলের এই বক্তব্যের জবাবে কাদের বলেন, ‘কোথায় ঢালাওভাবে গ্রেফতার ও মামলা করা হচ্ছে, তার সঠিক তালিকা দিন। জনমানুষের প্রতি সরকারের দায়িত্বশীলতায় বিএনপির গা জ্বালা করছে। মানুষের ক্ষুধার হাহাকার কোথায় দেখছেন?’

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উদ্দেশ্যমূলক অপপ্রচার ও গুজব রটানো হচ্ছে বলে আবারও অভিযোগ করেন ওবায়দুল কাদের। তিনি সরকারকে ঠেকাতে গিয়ে দেশের ক্ষতি না করতে বিএনপি নেতাদের প্রতি আহ্বান জানান।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, করোনার এই সময়ে আওয়ামী লীগের এখন একটাই কর্মসূচি। তা হচ্ছে অভিন্ন শত্রু করোনা মোকাবিলা করা। সরকারের সামনে এখন দুটি চ্যালেঞ্জ- একটি করোনা সংক্রমণ রোধ ও আক্রান্তদের চিকিৎসা। অপরদিকে করোনাজনিত অসহায়, দরিদ্র মানুষের সুরক্ষা করা। সীমিত সামর্থ দিয়ে সে কাজ সূচারুরপে সম্পন্ন করছে সরকার।

তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, ‘নিউজিল্যান্ড ও ভিয়েতনাম পারলে আমরা কেন পারবো না? সবার সম্মিলিত চেষ্টায় আমরাও পারবো এবং সফল হবো ইনশাআল্লাহ।’