বাসভাড়া না বাড়িয়ে জ্বালানি মূল্য কমানোর দাবি সুজনের

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের চলমান করোনাভাইরাস সংক্রমণ ও মৃত্যুহারের ঊর্ধ্বগতির অব্যাহত থাকায় আবারও ‘লকডাউন’ কঠোর এবং বাসভাড়া না বাড়িয়ে জ্বালানি মূল্য কমিয়ে মালিকদের ক্ষতি পুষিয়ে দেওয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ‘সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজন’।

‘লকডাউন’ প্রত্যাহার এবং বাসভাড়া বৃদ্ধির প্রতিবাদে সোমবার (১ জুন) সংগঠনের সভাপতি এম হাফিজউদ্দিন খান এবং সম্পাদক ড.বদিউল আলম মজুমদার স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে এ আহ্বান জানানো হয়।

এতে বলা হয়, করোনাভাইরাস সংক্রমণের ভয়াবহতার মধ্যে ঘোষিত লকডাউন প্রত্যাহার করে উল্টোপথে হাঁটছে সরকার। দেখা গেছে যে, সংক্রমণহারের নিম্নমুখিতা দেখে অন্যান্য দেশ পর্যায়ক্রমে লকডাউন শিথিলের ঘোষণা দিলেও, আমাদের দেশে সরকার সংক্রমণ ও মৃত্যু ঊর্ধ্বমুখিতার সময়ে একযোগে সারাদেশে লকডাউন প্রত্যাহারের ঘোষণা দিয়েছে। এতে বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে সুজনেরও আশঙ্কা পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ আকার ধারণ করবে। সুজন মনে করে, সংক্রমণহারের নিম্নমুখিতা পরিলক্ষিত হওয়ার আগ পর্যন্ত কড়াকড়িভাবে লকডাউন আরোপ রাখার কোনো বিকল্প নেই। কেননা সব কিছুর আগে মানুষের জীবন।

বাসভাড়া বৃদ্ধির প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতিতে বলা হয়, সোমবার থেকে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে সারাদেশে বাস চলাচলের অনুমতির পাশাপাশি ৬০ শতাংশ বাসভাড়া বৃদ্ধির অনুমোদন দিয়েছে সরকার। এক্ষেত্রে বাসভাড়া বৃদ্ধির বিষয়টি কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। কেননা এমনিতেই করোনা পরিস্থিতিতে দুর্বিষহ দিনযাপন করছে সাধারণ মানুষ। এমতাবস্থায় তাদের ওপর বাড়তি ভাড়ার চাপ কোনোভাবেই যৌক্তিক নয়।

এতে আরও বলা হয়, অর্ধেক যাত্রী পরিবহনের ক্ষেত্রে গাড়ির মালিকরা যে ক্ষতির কথা বলছেন, সরকার কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করে তা সমন্বয় করতে পারে। বর্তমানে আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের মূল্য কয়েক দশকের মধ্যে সর্বনিম্ন পর্যায়ে নেমে এসেছে। সরকার যদি বিশ্ব বাজারের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে জ্বালানি তেলের মূল্য সমন্বয় করে, তবে বাসভাড়া বৃদ্ধির প্রয়োজন পড়বে না। এর পাশাপাশি পরিবহন সেক্টরের চাঁদাবাজি বন্ধ করতে হবে। গণপরিবহনে ভর্তুকি দিয়েও সরকার বাসভাড়া বৃদ্ধি না করার কথা ভাবতে পারে।

সরকারের প্রতি অবিলম্বে ‘লকডাউন’ কঠোর করার এবং সঙ্গে বাসভাড়া বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয় বিবৃতিতে ।

কোহলির প্রতি আমার অনেক শ্রদ্ধা, তার বিরুদ্ধে খেলতে আমি ভয় পই না, বললেন নাসিম শাহ

স্পোর্টস ডেস্ক : আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পথচলার শুরুতেই গতির ঝড় তুলে নজর কেড়েছেন নাসিম শাহ। এরই মধ্যে গড়েছেন দারুণ কিছু কীর্তি। পাকিস্তানের এই সময়ের পেস সেনসেশন এবার মুখিয়ে আছেন চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত ও দলটির অধিনায়ক বিরাট কোহলির বিপক্ষে খেলতে। সময়ের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান কোহলির প্রতি যথেষ্ট শ্রদ্ধা থাকলেও তাকে ভয় পান না বলে জানিয়েছেন তরুণ এই ফাস্ট বোলার।

১৭ বছর বয়সী নাসিম এখন পর্যন্ত খেলেছেন চারটি টেস্ট। উইকেট নিয়েছেন ১৩টি। এখনও ভারতের বিপক্ষে খেলার সুযোগ হয়নি তার। ভারত-পকিস্তান ম্যাচ মানেই ক্রিকেটার ও সমর্থকদের মাঝে বিরাজ করে বাড়তি উত্তেজনা, রোমাঞ্চ। যদিও দুই প্রতিবেশি দেশের রাজনৈতিক বৈরিতায় আইসিসি ও এসিসির টুর্নামেন্ট ছাড়া মাঠের লড়াইয়ে তাদের দেখা হয় না অনেক দিন ধরেই।
সম্প্রতি একটি ক্রিকেট ওয়েবসাইটকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে নাসিম বললেন, ভারতের বিপক্ষে খেলতে আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষায় তিনি।

ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ সব সময়ই বিশেষ কিছু। এরই মধ্যে অনেকে আমাকে বলেছেন, এসব ম্যাচে কোনো খেলোয়াড় যেমন নায়ক হতে পারে, তেমনি হতে পারে খলনায়ক। এই লড়াই বিশেষ কিছু, খুব কমই হয়ে থাকে এখন। যখনই সুযোগ আসে, ভারতের বিপক্ষে খেলতে আমি মুখিয়ে আছি।- ক্রিকইনফো
ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ মানেই এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ বিরাট কোহলিকে থামানো। নাসিম অবশ্য জানালেন, কঠিন চ্যালেঞ্জ তিনি উপভোগই করবেন।

আশা করি, যখন সুযোগ আসবে, ভারতের বিপক্ষে ভালো বোলিং করতে পারব। সমর্থকদের নিরাশ করব না। বিরাট কোহলির জন্য বলতে পারি, আমি তাকে শ্রদ্ধা করি, কিন্তু ভয় পাই না। সেরা ব্যাটসম্যানকে বল করা সবসময়ই চ্যালেঞ্জের। তবে এসব লড়াইয়েই তো নিজের খেলাকে অন্য উচ্চতায় নিয়ে যেতে হবে।

গত নভেম্বরে ব্রিজবেনে মাত্র ১৬ বছর ২৭৯ দিন বয়সে টেস্ট অভিষেক হয় নাসিমের। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে এত কম বয়সে টেস্ট খেলেননি আর কেউ। পরের মাসে সবচেয়ে কম বয়সি ফাস্ট বোলার হিসেবে পাঁচ উইকেট নেন করাচিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। আর ফেব্রুয়ারিতে রাওয়ালপিন্ডিতে সবচেয়ে কম বয়সী বোলার হিসেবে হ্যাটট্রিক করেন বাংলাদেশের বিপক্ষে।- বিডিনিউজ

পঙ্গপাল আক্রমণ ভারতের পাপের ফল, বিতর্কে অভিনেত্রী

বিনোদন ডেস্ক : বলিউড অভিনেত্রী জাইরা ওয়াসিম টুইটার ও ইনস্টাগ্রাম অ্য়াকাউন্টে বিতর্কিত মন্তব্য করে ট্রোলড হয়েছিলেন। আর সেই জন্য দুটি অ্যাকাউন্টই ডিঅ্যাক্টিভেট করেছিলেন। কিন্তু একদিন পরেই আবার ফিরে এলেন টুইটার ও ইনস্টাগ্রামে। কেন সোশ্যাল মিডিয়া ছেড়ে গিয়েছিলেন সেই উত্তরও দেন জাইরা।

অনেকেরই প্রশ্ন ছিল, কেন টুইটার ছাড়লেন জাইরা। উত্তরে জাইরা ফিরে আসার পরে টুইট করেছেন, আমিও একজন মানুষ সবার মতো। অন্যরা যেমন সমস্যা তৈরি হলে করে থাকেন, আমিও তাই করেছি।
সম্প্রতি জাইরা টুইট করেছিলেন, ভারতে হওয়া পঙ্গপাল হামলাপাপের ফল। সঙ্গে কোরানের একটি উক্তিও উল্লেখ করেন তিনি। সেই পোস্ট ঘিরেই শুরু হয়েছিল বিতর্ক। ট্রোলড হতে থাকেন দঙ্গল-কন্যা। আর তার পরেই সোশ্যাল মিডিয়া ত্যাগ করেন তিনি। টুইটারের সঙ্গে ইনস্টাগ্রামও ডিলিট করেন তিনি।

আবার তার ভক্তরা তাঁর সমর্থনেও কথা বলেন। অনেকেই জাইরাকে সমর্থন করে লেখেন, উপরওয়ালাই শিক্ষা দেওয়ার জন্য এই কাজ করছেন। তাই এই টুইটের মধ্যে ভুল কিছু নেই।

প্রসঙ্গত, গত বছরও একটি বড় পোস্ট করে জাইরা ওয়াসিম জানিয়েছিলেন, তিনি অভিনয় ছেড়ে দিচ্ছেন। কারণ তাঁর অভিনয় জগতে থাকা ইসলামকে অবমাননা করেন। এই ধর্মীয় কারণেই নিজের সমস্ত ছবি ডিলিট করে দেন তিনি। শেষ স্কাই ইজ পিঙ্ক ছবিতে দেখা গিয়েছিল জাইরাকে ।

বলিউডের সংগীত পরিচালক ওয়াজিদ খান আর নেই

বিনোদন ডেস্ক : আবারও শোকস্তব্ধ বলিউড। মারা গেলেন সঙ্গীত পরিচালক ওয়াজিদ খান। বয়স হয়েছিল ৪২ বছর। রোববার (৩১ মে)গভীর রাতে মুম্বাইয়ের এক বেসরকারি হাসপাতালে মারা যান তিনি।

মুম্বাইয়ের বেশ কিছু সংবাদমাধ্যম থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, কিডনির সমস্যায় ভুগছিলেন ওয়াজিদ।

বেশ কয়েক বছর আগেও একই সমস্যা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়েছিল তাকে। সেবার সুস্থ হয়ে ফিরে এলেও এবার পারলেন না। যদিও চিত্র সমালোচক এবং সাংবাদিক ফরিদুন শাহরিয়ার এ দিন টুইটারে লিখেছেন, করোনায় আক্রান্ত হয়েই মৃত্যু হয়েছে তার।

ওয়াজিদের অকালপ্রয়াণে বলিউডে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। গায়ক সোনু নিগমই প্রথম সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটা জানান। তিনি লেখেন, ‘বন্ধু ওয়াজিদ আমায় ছেড়ে চলে গিয়েছে।’

শোকপ্রকাশ করেছেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়াও। ‘ওয়াজিদ ভাই, তোমার ওই হাসিটা খুব মিস করব। বড্ড তাড়া ছিল তোমার’, লিখেছেন প্রিয়াঙ্কা।

ওয়াজিদের আকস্মিকভাবে চলে যাওয়ায় ভেঙে পড়েছেন গায়িকা সোনা মহাপাত্র, গায়ক সেলিম মার্চেন্টসহ আরও অনেকে।

তবলাবাদক উস্তাদ সারফত আলি খানের ছেলে ওয়াজিদ। ভাই সাজিদের সঙ্গে জুটি বেঁধে গত কুড়ি বছর ধরে বলিউড কাঁপিয়েছেন তিনি। ‘তেরে নাম’, ‘ওয়ান্টেড’, ‘দাবাং’- বক্সঅফিস-কাঁপানো বহু ছবিতে সুর দিয়েছিলেন ওয়াজিদ।

প্রথমে ইরফান খান, তারপর ঋষি কাপুর। সাম্পতিক কালে একের পর এক নক্ষত্রপতন ঘটেছে বলিউড। ওয়াজিদের অকালপ্রয়াণে সেই তালিকাটা আরও দীর্ঘ হল!

ক্যাটরিনা কাইফের হৃদয়ে অন্য পুরুষের আগমন মানতে পারেননি সালমান খান!

বিনোদন ডেস্ক : সালমান খান আর ক্যাটরিনা কাইফের প্রেমের গুঞ্জন এক সময়ে ছিল টিনসেল টাউনের বহু চর্চিত বিষয়। কিন্তু জানেন কি, তাদের মধ্যে অশান্তিও কিছু কম হয়নি! এমনও হয়েছে, রাগের চোটে ক্যাটের জিনিসপত্র ছুড়ে রাস্তায় ফেলে দিয়েছিলেন সালমান। বার করে দিয়েছিলেন নিজের বাড়ি থেকে। পরে ক্যাটরিনা নিজের ভুল বুঝতে পারেন।

সালমানের সাহায্যের হাত পাওয়ার আগে ক্যাটরিনা ছিলেন ইন্ডাস্ট্রির স্ট্রাগলিং নায়িকা। সালমানের নায়িকা হওয়ার পরেই বলিউডে পরিচিতি পান ক্যাটরিনা। ইন্ডাস্ট্রিতে সালমান ছিলেন ক্যাটরিনার গডফাদার। নিজের বৃত্তের বহু পরিচালক, প্রযোজকের সঙ্গে ক্যাটের পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন সাল্লু মিয়া।

ধীরে ধীরে ইন্ডাস্ট্রিতে পরিচিতি পান ক্যাটরিনা। সালমান ছাড়াও অন্য নায়কের সঙ্গে অভিনয়ের সুযোগ আসতে থাকে। সেখানেই দেখা দেয় বিপত্তি। ‘নিউইয়র্ক’ ছবিতে ক্যাটের বিপরীতে ছিলেন জন আব্রাহাম। এই সময় থেকেই ক্যাট আর জনের সম্পর্ক নিয়ে গুঞ্জন শোনা যেতে থাকে।

যদিও সালমান বা জন, কারও সঙ্গেই নিজের সম্পর্কের কথা স্বীকার করেননি ক্যাটরিনা। কিন্তু তার একটি মোবাইল ফোনের বিল সালমানের হাতে পড়তেই সমস্যা জটিল হয়। সেই নম্বর থেকে জনের নম্বরে প্রচুর ফোনকল এবং মেসেজ করা হয়েছে বলে দেখা যায়। সেইসঙ্গে জনও উত্তরে ফোন করেছেন। মেসেজ পাঠিয়েছেন। এই ঘটনাকে ভালোভাবে নেননি সালমান। পজেসিভ বলে তার বদনাম ছিল বরাবরই।

সংবাদমাধ্যমের সামনে ক্যাটরিনা এবং জন দু’জনেই তাদের যাবতীয় ফোনকল ও মেসেজকে ‘কেজো’ বলে বর্ণনা করেছিলেন। কিন্তু সালমানের কাছে এই দাবিতে চিঁড়ে ভেজেনি। ক্যাটরিনা তখন থাকতেন সালমানের ‘গ্যালাক্সি অ্যাপার্টমেন্টে’ই। তার হিন্দি উচ্চারণ থেকে ছবি বাছাইয়ের মাপকাঠি, সব ঠিক করে দিতেন সালমান।

তিনি নিজের জীবনের অংশ বলেই মনে করতেন ক্যাটরিনাকে। সেখানে ক্যাটের হৃদয়ে অন্য পুরুষের আগমনকে মেনে নিতে পারেননি ভাইজান। শোনা যায়, এই ঘটনার জেরে ক্যাটরিনাকে তো বের করেই দিয়েছিলেন সালমান। এমনকি, তার জিনিসপত্রও ছুড়ে ফেলে দিয়েছিলেন।

ক্যাট তখন ব্যস্ত ছিলেন ‘নিউইয়র্ক’ ছবির প্রচারে। তাকে এই বিষয়ে জিজ্ঞাসাও করা হয়েছিল। সালমানের রোষ থেকে বাঁচতে তিনি সংবাদমাধ্যমের কাছে দাবি করেন, জন আব্রাহামের সঙ্গে তার কাজের বাইরে কোনও সম্পর্ক নেই।

এমনকি, এও স্বীকার করেছিলেন সালমানের সঙ্গে তার সম্পর্ক আছে। তার জিনিসপত্রও সালমানের কাছেই আছে বলে জানান ক্যাটরিনা। সালমান তার জিনিস ছুড়ে বাড়ির বাইরে ফেলে দেন, এ কথাও অস্বীকার করেন ক্যাটরিনা।

এখান থেকেই সালমান-ক্যাটরিনার সম্পর্কে ভাঙন শুরু। সেই ভাঙনে আর প্রলেপ লাগেনি। তা ছাড়া সালমানের সঙ্গে জন আব্রাহামের সম্পর্ক ভালো ছিল না। তার সঙ্গে নিজের প্রেমিকার ঘনিষ্ঠতা মানতে পারেননি তিনি।

ঐশ্বরিয়া পরে ক্যাটরিনার সঙ্গেই সালমানের সিরিয়াস সম্পর্ক তৈরি হয়েছিল। সেখানে প্রেয়সীর তরফে এই মানসিক ধাক্কা মেনে নিতে প্রস্তুত ছিলেন না সালমান। সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা।

বজ্রপাতে ৬ জনের মৃত্যু

ডেস্ক রিপাের্ট : সারাদেশের চার জেলায় বজ্রপাতে ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার (১ জুন) দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বজ্রপাতে পঞ্চগড়ে ৩, নীলফামারী, দিনাজপুর ও সিরাজগঞ্জে ১ জন করে মারা গেছেন। আহত হয়েছেন আরও বেশ কয়েকজন।

পঞ্চগড়: নিহত ৩

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া ও বোদা উপজেলায় বজ্রপাতে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। পঞ্চগড় সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. আতাহার সিদ্দিকী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

দুপুরে তেঁতুলিয়ার ভজনপুর ইউনিয়নের খুনিয়াগছ এলাকায় মোহাম্মদ আলী (৫৫) ও তার ছেলে আনিসুর রহমান (৩৫) এবং বিকেলে বোদা উপজেলার বড়শশী ইউনিয়নে চিলাপাড়ায় রিপন ইসলাম (১৪) নামে এক কিশোরের মৃত্যু হয়।

স্বাস্থ্য বিভাগ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, তেঁতুলিয়ার খুনিয়াগছ এলাকায় বাবা ও ছেলে একসঙ্গে বাড়ির পাশে ধান কাটছিলেন। এ সময় বৃষ্টির সঙ্গে হঠাৎ বজ্রপাতের ঘটনা ঘটে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে আসে। তবে হাসপাতালে পৌঁছানোর আগেই তাদের মৃত্যু হয়।

এদিকে চিলাপাড়া গ্রামের রিপন ইসলাম বাড়ির পাশের একটি খেতে ছিল। হঠাৎ বজ্রপাতে সে আহত হলে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে দেবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যায়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় সেখানে তার মৃত্যু হয়।

রিপন ওই গ্রামের মনসুর আলমের ছেলে এবং সে স্থানীয় একটি মাদরাসার দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল।

নীলফামারী: নিহত ১

সদর উপজেলায় মজিদুল ইসলাম (৩৫) নামে এক কৃষক বজ্রপাতে নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় গৃহবধূসহ ৩ জন আহত হয়েছেন। বেলা ৩টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত মজিদুল জেলা সদর উপজেলার কুন্দপুকুর ইউনিয়নের বালাপাড়া গ্রামের সহির উদ্দিনের ছেলে ছেলে।

বজ্রপাতে আহতরা হলেন, কুন্দপুকুর ইউনিয়নের পাটকামড়ী গ্রামের শ্যামল চৌধুরীর স্ত্রী দীপা (২০), রামনগর ইউনিয়নের রামনগর গ্রামের নাজিমুদ্দিনের ছেলে আব্দুল আউয়াল (১৬) ও টুপামারী ইউনিয়নের চৌধুরীপাড়া গ্রামের মইনুল ইসলামের ছেলে রুবেল (২২)। আহতদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য নীলফামারী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঘটনার সময় নিহত ও আহতরা বাড়ির বাইরে কৃষি কাজে ব্যস্ত ছিলেন। এমন সময় বজ্রসহ বৃষ্টি শুরু হয়। প্রচণ্ড বজ্রপাত ঘটলে তারা হতাহত হয়।

হাসপাতাল ও সংশ্লিষ্ট এলাকার জনপ্রতিনিধিদের বরাত দিয়ে নীলফামারী সদর থানা পুলিশের ওসি মোমিনুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

দিনাজপুর: নিহত ১

জেলার খানসামায় বজ্রপাতে এক কৃষক মারা গেছেন। তিনি উপজেলার খামারপাড়া ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের হাজীপাড়ার মৃত কছিমদ্দিনের ছেলে ফজলুল হক (৬০)। বিকেল সাড়ে ৩টায় মাঠে কাজ শেষে বাড়ির বাইরে টিউবওয়েলে গোসল করতে গেলে ঝড়-বৃষ্টির সময় বজ্রপাতে তিনি মারা যান।

খামারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাজেদুল হক সাজু ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

সিরাজগঞ্জ: নিহত ১

ক্ষেতে কৃষি কাজ শেষ করে বাড়ি ফেরার পথে সিরাজগঞ্জের শিয়ালকোল ইউনিয়নে বজ্রপাতে গোলাম হোসেন (১৭) নামে এক কলেজছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন তার বাবা আব্দুস সাত্তার। সন্ধ্যার আগে সদর উপজেলার উত্তর সারটিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত গোলাম হোসেন ওই গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ছেলে ও সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজের অনার্স প্রথমবর্ষের ছাত্র।

শিয়ালকোল ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য হযরত আলী জানান, মাঠের কাজ শেষে কৃষক আব্দুস সাত্তার তার ছেলে গোলাম হোসেনকে নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় হঠাৎ করেই বৃষ্টির সঙ্গে বজ্রপাত হলে বাবা-ছেলে দুজনেই শরীর ঝলসে গুরুতর আহত হন।

স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পথে গোলাম হোসেন মারা যায়। তার বাবা আব্দুস সাত্তারকে গুরুতর অবস্থায় সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।-পূর্বপশ্চিম

করোনার মধ্যে নিম্মমুখী বাজারদরে সবচেয়ে দামি এমবাপে, মেসি চার নম্বরে, ১০ জনের মধ্যে নেই রোনালদো

স্পোর্টস ডেস্ক : পিএসজি থেকে কিলিয়ান এমবাপেকে দলে ভেড়াতে হলে কত টাকা গুণতে হবে, এর একটা ধারণা রিয়াল মাদ্রিদ পেতে পারে কেপিএমজির করা তালিকা দেখে। সংস্থাটির হিসাব অনুযায়ী তরুণ এই ফরাসি ফরোয়ার্ডের বাজার মূল্য ১৭ কোটি ৭০ লাখ ইউরো।

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের প্রেক্ষাপটে দুটো দিক সামনে রেখে খেলোয়াড়দের বর্তমান বাজার মূল্য নির্ধারণ করেছে কেপিএমজি। লিগ চালু থাকা ও পুনরায় চালুর অপেক্ষায় থাকা (জার্মানি, ইংল্যান্ড, স্পেন) এবং বাতিল (বেলজিয়াম, স্কটল্যান্ড এবং ফ্রান্স) হওয়া লিগের খেলোয়াড়দের বিবেচনায় এনেছে তারা। -গোলডটকম

করোনাভাইরাসের জন্য যেসব দেশের লিগ বাতিল হয়েছে তাদের খেলোয়াড়দের বাজার মূল্য ২৬ দশমিক ৫ শতাংশ এবং যে দেশগুলো লিগ শেষ করবে তাদের খেলোয়াড়দের বাজার মূল্য ১৭ দশমিক ৭ শতাংশ পড়ে গেছে। কভিড-১৯ মহামারী শুরুর আগে এমবাপের বাজার মূল্য ছিল সাড়ে ২২ কোটি ইউরো।

এই তালিকায় ১৩ কোটি ৭০ লাখ ইউরো নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছেন এমবাপের পিএসজি সতীর্থ নেইমার। তৃতীয় স্থানে থাকা ম্যানচেস্টার সিটির ফরোয়ার্ড রাহিম স্টার্লিংয়ের বাজার মূল্য ১২ কোটি ৯০ লাখ ইউরো। ১২ কোটি ৭০ লাখ ইউরো নিয়ে চতুর্থ স্থানে আছেন বার্সেলোনার তারকা ফরোয়ার্ড লিওনেল মেসি। ১২ কোট ৪০ লাখ ইউরো নিয়ে সেরা পাঁচে ঠাঁই পেয়েছেন লিভারপুলের মিশরীয় ফরোয়ার্ড মোহামেদ সালাহ। এ তালিকার সেরা বিশেও জায়গা মেলেনি ইউভেন্তুসের পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর।

বার্সা ১৩ জুন খেলবে মায়োর্কারের বিরুদ্ধে, পরের দিন রিয়াল খেলবে এইবারের সঙ্গে

স্পোর্টস ডেস্ক : করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে স্থগিত হয়ে থাকা লা লিগা পুনরায় শুরু হচ্ছে আগামী ১১ জুন। আপাতত লা লিগা কর্তৃপক্ষ দুই রাউন্ডের সূচি দিয়েছে। সূচি অনুযায়ী বার্সেলোনার প্রথম ম্যাচ ১৩ জুন। রিয়াল মাদ্রিদ মাঠে নামবে ১৪ জুন।

গত মার্চের মাঝামাঝি স্থগিত হয়ে যাওয়ার লিগের বাকি আছে ১১ রাউন্ডের খেলা। রিয়ালের চেয়ে ২ পয়েন্টে এগিয়ে থেকে শীর্ষে আছে আসরের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বার্সেলোনা।
আগামী ১১ জুন রিয়াল রিয়াল বেতিস ও সেভিয়া ম্যাচ দিয়ে পুনরায় শুরু লিগ হবে। দুই দিন পর রিয়াল মায়োর্কার মাঠে খেলতে যাবে বার্সেলোনা। নিজেদের মাঠ কাম্প নউয়ে বার্সেলোনা পুনরায় শুরু হওয়া লিগে প্রথম ম্যাচ খেলবে ১৬ জুন, প্রতিপক্ষ লেগানেস।

পর পর দুটি ম্যাচ খেলবে নিজেদের মাঠে। ১৪ জুন এইবারের বিপক্ষে খেলার চার দিন পর ভালেন্সিয়ার বিপক্ষে খেলবে জিনেদিন জিদানের দল।
ইউরোপের শীর্ষ পাঁচ লিগের মধ্যে দ্বিতীয় লিগ হিসেবে লা লিগা মাঠে গড়াচ্ছে। এরই মধ্যে পুনরায় শুরু হয়েছে জার্মানির বুন্ডেসলিগার খেলা। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ মাঠে গড়াবে ১৭ জুন। ২০ জুন শুরুর কথা ইতালির শীর্ষ লিগ সেরি-আ।
ফ্রান্সের লিগ ওয়ানের বাকি খেলাগুলো বাতিল করে দিয়ে এরই মধ্যে পিএসজিকে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ। – মার্কা

ইউনাইটেড হাসপাতালের লাইসেন্স বাতিল চেয়ে হাই কোর্টে রিট

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঢাকার গুলশানের ইউনাইটেড হাসপাতালে অগ্নিকাণ্ডে কোভিড-১৯ ইউনিটের পাঁচ রোগীর মৃত্যুর ঘটনার বিচারিক তদন্ত চেয়ে হাই কোর্টে একটি রিট আবেদন করা হয়েছে। সেই সঙ্গে মৃত পাঁচ রোগীর পরিবারের জন্য দৃষ্টান্তমূলক ক্ষতিপূরণ দেওয়ারও নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে রিটে।

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী রেদোয়ান আহমেদ রানজীব ও হামিদুল মিসবাহ সোমবার জনস্বার্থে এ রিট আবেদন করেন।

আইনজীবী রেদোয়ান বলেন, বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের ভার্চুয়াল হাই কোর্ট বেঞ্চে আজ রিট আবেদনটি দাখিল করা হয়েছে। কবে শুনানি হবে তা এখনও আমরা জানতে পারিনি। তারিখ দিলে আবেদনটির পক্ষে শুনানি করবেন আইনজীবী অনিক আর হক।

ডেন্টাল কাউন্সিল অ্যাক্ট, ২০১০- এর বিধান অনুযায়ী ইউনাইটেড হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেওয়ার নিস্ক্রিয়তা কেন আইনগত কতৃত্ববহির্ভূত ঘোষণা করা হবে না এবং এ ঘটনায় অবহেলার অভিযোগ এনে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা নিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না মর্মে রুল চাওয়া হয়েছে এ রিট আবেদনে।

এছাড়াও এ ঘটনায় বাংলাদেশ ন্যাশনাল বিল্ডিং কোড (বিএনবিসি) লঙ্ঘনের দায় আছে কি না, তা খতিয়ে দেখতে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানের প্রতি নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে।

স্বাস্থ্য সচিব, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের (বিএমডিসি) চেয়ারম্যান, পুলিশের মহাপরিদর্শক, ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার, বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) চেয়ারম্যান ও ইউনাইটেড হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের পক্ষে হাসপাতালটির ব্যবস্থাপনা পরিচালককে বিবাদী করা হয়েছে রিটে।

গত বুধবার রাত পৌনে ১০টার দিকে গুলশানের ইউনাইটেড হাসপাতালের নিচের প্রাঙ্গণে করোনাভাইরাস রোগীদের জন্য স্থাপিত আইসোলেশন ইউনিটে আগুন লাগে।

আধা ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হলেও তার মধ্যেই পাঁচ রোগীর মৃত্যু হয় বলে জানায় ফায়ার সার্ভিস।

নিহতরা হলেন, মো. মাহবুব (৫০), মো. মনির হোসেন (৭৫), ভারনন এ্যান্থনি পল (৭৪), খোদেজা বেগম (৭০) ও রিয়াজ উল আলম (৪৫)।

ঘটনার পরদিনই ফায়ার সার্ভিসের পক্ষ থেকে চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি করা হয়।

উপ-পরিচালক দেবাশীষ বর্ধনের নেতৃত্বে গঠিত এই কমিটিতে সদস্য হিসেবে আছেন ফায়ার ব্রিগেড ট্রেনিং সেন্টারের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ বাবুল চক্রবর্তী, উপ- সহকারী পরিচালক নিয়াজ আহমেদ এবং বারিধারার জ্যেষ্ঠ স্টেশন অফিসার মো. আবুল কালাম আজাদ।

লিজার অভিযোগ, অ্যাবরশন করিয়ে এনামুল বলেছিলেন, আবার এমপি হলে বাচ্চা নেবেন, এনামুল জানালেন, ডিভোর্স দিয়েছি

ডেস্ক রিপাের্ট : রাজশাহী-৪ আসনের সংসদ সদস্য, এনা প্রোপার্টিজসহ এনা গ্রুপের মালিক ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হকের বিরুদ্ধে ফেসবুকে এসব অভিযোগ করেছেন শভা আয়েশা আক্তার লিজা।

তিনি আরো বলেন, এমপি এনামুলের লোকজন আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে। মিথ্যা মামলা দিয়ে আমাকে জেলে দেয়া হবে এমন বলছেন। এবং গতকাল আমাকে বলেছেন, আমি গণমাধ্যমে এসেছি, তাই আমাকে আজ উনি ডিভোর্স দিবেন। সব মিলিয়ে আমি মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছি। তবে আমি প্রধানমন্ত্রী কাছে যাবো এবং এর বিচার চাইবো। আপনারা সকলেই আমাকে সহযোগিতা করেন।

এনামুল হকের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, লিজার চাঁদাবাজি ও ব্লাকমেইলের শিকার হয়ে তাকে বিয়ে করতে বাধ্য হয়েছি। পরে আইন অনুযায়ী তালাক দিয়েছি। দেনমোহর পরিশোধ করেছি। আমার স্ত্রীকে ডিভোর্স দিতে পারবো না? সমস্যা থাকলে সে কোর্টে যাবে।

শভা আয়েশা আক্তার লিজা সাংবাদিকদের বলেন, ২০১২ সালে এমপি এনামুল হকের সঙ্গে তার পরিচয় ও প্রেমের সূত্রপাত হয়। ২০১৩ সালের ৩০ এপ্রিল তারা ধর্মীয় বিধিমতে পারিবারিকভাবে বিয়ে করেন। কিন্তু বিয়ের কারণে সামনের নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেতে সমস্যা হতে পারে- এমন আশঙ্কায় তখন বিয়ে রেজিস্ট্রি করেননি। আট বছর লিজা এনামুল হকের রাজশাহী ও ঢাকার বাড়িতে থেকে সংসার করেছেন। তবে কোনোদিন বাইরের কারো সামনে তাকে স্ত্রী হিসেবে স্বীকৃতি দেননি এনামুল। তিনি বিভিন্ন সময় নির্যাতনেরও শিকার হয়েছেন।

এক প্রশ্নের জবাবে আয়েশা আক্তার লিজা জানান, বিষয়টি জানতেন এনামুল হকের প্রথম স্ত্রী ও পরিবারের সদস্যরাও। এরপর ২০১৫ সালে লিজা গর্ভবতী হলে এনামুল হক তার বাচ্চা নষ্ট করান। তখন এনামুল হক তাকে আশ্বাস দেন, আবারো এমপি হতে পারলে বাচ্চা নেবেন এবং স্বীকৃতি দেবেন। সেজন্য আমি অপেক্ষা করছিলেন। কথামতো, ২০১৮ সালের ১১ মে তারা রেজিস্ট্রি করে আবারও বিয়ে করেন। কিন্তু এরপরও এনামুল স্বীকৃতি দেননি, বাচ্চাও নেননি।

লিজা আরও অভিযোগ করেন, বিয়ের নামে সাংসদ এনামুল তার সঙ্গে প্রতারণা করেছেন। একজন এমপি আমাকে গোপনে বিয়ে করবেন কেন? গোপনে ডিভোর্স দেবেন কেন? আমি এমপি এনামুলের প্রতারণার বিচার চাই।

লিজা আরও বলেন, সংবাদ সম্মেলন করতে চেয়েছিলাম। এরপর থেকেই আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়া হচ্ছে। পুলিশ দিয়ে গ্রেপ্তার করানোর হুমকিও দেওয়া হচ্ছে। তিনি বলেন, আমি প্রচণ্ড ভয় পাচ্ছি। আমাকে মেরে ফেলতে পারে।

এ ব্যাপারে এমপি এনামুল হক বলেন, লিজা চাঁদাবাজি করার জন্যই এসব অভিযোগ করছে। আমার ছবি ফেসবুকে দিয়ে ব্লাকমেইল করেছে। চাঁদাবাজি করে রাজশাহীতে ৫ তলা বাড়ি করেছে। চরিত্রহীন একটা মেয়ে। অনেক চাঁদাবাজি করেছে। আমি শুনেছি সে আরো ৫-৬টা বিয়ে করেছে। গত ২৪ এপ্রিল ডিভোর্স দিয়েছি। লকডাউনের কারণে হয়তো চিঠি পায়নি, পেয়ে যাবে। – আমাদেরসময় ডটকম