adv
২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

১৪ বছর পর বিস্ফোরক স্বীকারোক্তি মাতেরাজ্জির, উত্তেজিত হয়ে জিদানকে বলেছিলাম, তোর বোনকে চাই

স্পাের্টস ডেস্ক : ২০০৬ বিশ্বকাপ ফাইনাল। এখনও সেই ছবি অনেকের চোখে ভাসে। ইটালির মাতেরাজ্জির সঙ্গে কথা কাটাকাটির পর এগিয়ে মাথায় ঢুঁ মারছেন জিনেদিন জিদান। তারপর লালকার্ড দেখে মাঠ থেকে বেরোচ্ছেন ফরাসি তারকা। ২০০৬-এর বিশ্বকাপ ফাইনালে সেই ন্যক্কারজনক ঘটনায় বিস্মিত হয়েছিল গোটা বিশ্ব। ইতালি চ্যাম্পিয়ন হলেও সেই একজন ডিফেন্ডারের জন্যই বিশ্বের ফুটবলপ্রেমীরা ধিক্কার জানিয়েছিল ইতালীয়দের। কিন্তু এতদিন যা বলেননি মাতেরাজ্জি, এবার সেই কথাটাই বলে ফেললেন। জানালেন, কেন সেদিন ওই কা- ঘটিয়েছিলেন জিদান। কতখানি অশালীন ছিল মাতেরাজ্জির মন্তব্য।

মনে বড় আঘাত পেয়েছিলাম। বিশ্বাস করুন, এই ধরনের কথা আমি কখনও বলতে চাইনি। তারপর কখনও বলিওনি। জিদানকে আটকাতে না পারার জন্য গাটুসোর (কোচ) থেকে ধমক খাচ্ছিলাম। তাই জিদানকে আটকাতে শার্ট ধরে বেশ কয়েকবার টানাটানি করি।

ভেবেছিলাম ঠা-া মাথায় জিদান খেলে যাবেন। কিন্তু আমার ফাঁদে যে পা দেবেন ভাবিনি। একবার শার্ট ধরে টানায় আমাকে বলে বসল, তুমি কি আমার শার্টটা নিতে চাইছ? আমি মাথা গরম করে বলে বসি, তোমার শার্ট নয়, চাইছি তোমার বোনকে। – সংবাদ প্রতিদিন

ইতালিয়ান মিডিয়া প্যাশন ইন্টারকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এমনই বিস্ফোরক স্বীকারোক্তি মাতেরাজ্জির। তিনি খেলার মধ্যে ইচ্ছাকৃতভাবে একটা ঝামেলা সৃষ্টি করতে চেয়েছিলেন। যাতে জিদান না খেলতে পারেন। তিনি যে সেই ট্যাকটিক্সে সফল তা না বললেও চলে। মাতেরাজ্জি পরে স্বীকার করে নিয়ে বলেছেন, “ঝামেলা হোক চাইছিলাম। প্রত্যেকে চায় প্রতিপক্ষকে হারাতে। শান্ত থাকার কথা সকলেই বলে। কিন্তু করে দেখানোর কাজটা সত্যিই কঠিন। ম্যাচের পরে সকলে জয়ের আনন্দে ভেসে গিয়েছিলাম। সেবার আমাদের দলটার কথা ভাবুন। পির্লো, গাটুসোর মতো ফুটবলার দলে ছিল। পির্লোকে খুব শান্ত মনে হয়। আসলে প্রচন্ড চতুর।

তবে মাতেরাজ্জিকে এখনও আঘাত করে স্টেডিয়ামে দর্শকদের আচরণ। বহুবার দেখেছি স্টেডিয়ামে আমাকে ও বালোতেলিকে নিয়ে প্রচুর গালিগালাজ চলে। কখনও আমাকে ডাকা হয়েছে ডাইনির ছেলে। কেন? নাপোলির কাউকে বললে দেখবেন ধুন্ধুমার কা- ঘটে যাবে। রেফারিরা শক্ত হতে পারতেন। – প্যাশন ইন্টার

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া