খান সাহেব খেলোয়াড়ি জীবনে একটা ওয়াইড বলও করেননি

স্পোর্টস ডেস্ক : হালে ব্যাপক চর্চা হয় ক্রিকেটের। নিত্যনতুন কৌশল রপ্ত করেন ফাস্ট বোলাররা। অত্যাধুনিক প্রযুক্তি তাদের কাজটা অনেক সহজ করে দিয়েছে। তবু হরহামেশা ঝুড়ি ঝুড়ি ওয়াইড, নো-বল করে বসেন তারা। এতে প্রতিপক্ষ দলের স্কোর বড় হয়।
জাসপ্রিত বুমরাহ, মিচেল স্টার্ক, মোহাম্মদ আমিরদের প্রায়শই দেখা যায় লাইন-লেন্থ হারাতে। এ ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম ছিলেন পাকিস্তানের কিংবদন্তি সিমার ইমরান খান। দীর্ঘ ক্যারিয়ারে একটি ওয়াইড বলও করেননি তিনি। সেই বোলিং জাদুকরের নেতৃত্বেই পাকিস্তান একমাত্র বিশ্বকাপ জেতে। দুরন্ত বোলিং, ছন্দময় ব্যাটিং ও অনন্য অধিনায়কত্বে দেশটির ক্রিকেটেরই ভোল বদলে দেন তিনি।- যুগান্তর
১৯৮২ সালে পাক ব্রিগেডের নেতৃত্ব গ্রহণ করেন খান। দায়িত্ব নিয়েই তাদের চেহারা পাল্টে দেন তিনি। কয়েক বছরের মধ্যেই দলকে খ্যাতির শিখরে পৌঁছে দেন তখনকার অন্যতম বিশ্বসেরা এ পেস অলরাউন্ডার। ইমরানের হাত ধরেই ১৯৯২ ওয়ানডে বিশ্বকাপ জেতে পাকিস্তান। ক্রিকেটে এখন পর্যন্ত যা দেশটির সর্বোচ্চ অর্জন। তার সময়েই বিশ্বের তাবৎ দলকে হারানোর সক্ষমতা অর্জন করে তারা।
দলের প্রয়োজনে গুরুত্বপূর্ণ সময়ে উইকেট তুলে নিতে সিদ্ধহস্ত ছিলেন খান। পাশাপাশি ব্যাট হাতে বোলারদের ঘুম কেড়ে নিতেও পারদর্শী ছিলেন তিনি। জাতীয় দলের হয়ে ৮৮ টেস্ট এবং ১৭৫ আন্তর্জাতিক ওয়ানডে ম্যাচ খেলেন ইমরান। ক্রিকেটের অভিজাত সংস্করণে তিনি শিকার করেন ৩৬২ উইকেট। আর একদিনের ফরম্যাটে ১৮২ উইকেট ঝুলিতে ভরেন ডানহাতি পেসার। কিন্তু সবচেয়ে বিস্ময়কর বিষয় হচ্ছে­ খেলোয়াড়ি জীবনে কখনও একটা ওয়াইড বলও করেননি খান সাহেব। – ইন্ডিয়া টাইমস

জয় পরাজয় আরো খবর