adv
২রা জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৮ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সঞ্জয় দত্তকে সমকামী ভাবতেন মা নার্গিস

বিনোদন ডেস্ক : একসময় রঙিন ফিল্মি কেরিয়ার ছেড়ে সংসারে মন দিয়েছিলেন সত্তরের দশকের জনপ্রিয় অভিনেত্রী নার্গিস দত্ত। সঞ্জয় দত্ত, নম্রতা আর প্রিয়া- তিন সন্তানকে নিয়ে দিব্যি কাটছিল তার জীবন। তবে তিন সন্তানের মধ্যে সঞ্জয় দত্তই ছিল নার্গিসের বেশি কাছের। সঞ্জয়ের বয়স যখন ২২, সেসময় বলিউডে তার প্রথম ছবি ‘রকি’ মুক্তির আগেই ক্যানসারে মৃত্যু হয়েছিল নার্গিসের।

ইয়াসের উসমানের লেখা সঞ্জয় দত্তের বায়োপিক ‘দ্যা ক্রেজি আনটোল্ড স্টোরি অফ বলিউড’স ব্যাড বয়’-এ অনেক কথাই খোলসা করেছেন নায়কের দুই বোন নম্রতা ও প্রিয়া। প্রিয়া দত্তের বলেছিলেন, ‘আমি একবার শুনেছিলাম মা তার এক বান্ধবীকে বলছেন, সঞ্জয় কেন একটা ঘরের মধ্যে বন্ধুদের সঙ্গে নিজেকে আটকে রাখে? কী এমন ব্যাপার, ও কী সমকামী নাকি?’

অন্যদিকে নম্রতা দত্ত জানান, মাঝে মধ্যে সঞ্জয় দত্তের কাণ্ড কারখানায় তার মা নার্গিস খুব রেগে যেতেন। তবে সঞ্জয়ের চাহিদার কাছে তাকে হার মানতে হত। নম্রতার কথায়, ‘মাঝে মধ্যে মা রেগে গিয়ে উল্লু, গাধে বলে ভাইয়াকে গালি দিতেন। চটি ছুঁড়েও মারতেন।’

ইয়াসের উসমানের লেখা বই থেকে জানা যায়, সঞ্জয় দত্ত যে মাদক সেবন করতেন সেটা কিছুতেই বিশ্বাস করতেন না নার্গিস। এমনকি শুভাকাঙ্খীরা যখন নার্গিসকে তার ছেলের এই মাদকাসক্তের কথা বলার চেষ্টা করেছিলেন, তখন নার্গিস তাদের স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছিলেন, ‘আমার ছেলে কখনও মদ্যপান করে না, মাদক সেবনও করে না।’

জানা যায়, মা নার্গিসের মৃত্যুর সময় নিজের মাদক সেবনের অভ্যাসের কারণে বেশ কষ্ট পেয়েছিলেন সঞ্জয় দত্ত। শেষ চিঠিতে সঞ্জয়কে নার্গিস বলেছিলেন, ‘সঞ্জয় সবকিছুর উপরে গিয়ে তুমি বিনয়ী থেকো। নিজের চরিত্রকে সামলে রেখো। কখনও দেখনদারিতে যেও না। নম্র থেকো, বড়দের সম্মান করো। এটাই তোমাকে অনেক উপরে নিয়ে যাবে।’

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া