adv
২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

করোনা ছড়ানোর পেছনে বিল গেটসের হাত? সত্যি নাকি ষড়যন্ত্র?

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস ছড়ানোর পেছনে মার্কিন বিলিয়নিয়ার ও প্রযুক্তি ব্যবসায়ী বিল গেটস এবং বিনিয়োগ মোগল খ্যাত জর্জ সরোসের মতো অতি ধনীদের হাত রয়েছে। ভাইরাসটি পরিকল্পিতভাবে ছড়ানো হয়েছে। এমন বেশ কিছু ষড়যন্ত্র তত্ত্ব ব্যাপকভাবে ছড়িয়েছে অনলাইনে। একই দাবি করেছেন যুক্তরাজ্যের খ্যাতনামা জ্যোতির্বিজ্ঞানী ও মানবাধিকারকর্মী পিয়ার্স করবিন। তিনি ব্রিটিশ রাজনীতিক ও লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিনের বড় ভাই। তবে সত্যিই কি করোনা ছড়ানোর পেছনে বিল গেটস কিংবা বিনিয়োগ মোগলদের হাত রয়েছে? নাকি পুরোটাই ষড়যন্ত্র তত্ত্ব?

নিউ গ্লোবাল টাইমসের বিশ্লেষণ অনুযায়ী, কীভাবে করোনাভাইরাসকে মোকাবেলা করা যায় সেটা নিয়ে সোচ্চার অবস্থানে থাকা বিল গেটসকে উদ্দেশ্যমূলকভাবে টার্গেট করেছেন অনলাইন ষড়যন্ত্র তাত্ত্বিকরা। প্রকৃতপক্ষে এসব ষড়যন্ত্র তত্ত্বের কোন সত্যতা নেই। ভাইরাসটিকে কিভাবে ঠেকানো যায় সেটা নিয়ে কাজ করছেন বিল গেটস।

মিডিয়া বিশ্লেষণ সংস্থা জিগনাল ল্যাবস গবেষণাটি চালিয়েছে। সেখানে দেখা গেছে যে মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতাকে অহেতুকভাবে টার্গেট করা হয়েছে। করোনাভাইরাস মহামারি ছড়িয়ে পড়ার পর থেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় বিল গেটস ও তার প্রতিষ্ঠানকে নিয়ে উদ্দেশ্যমূলক প্রচার ব্যাপকভাবে ছড়িয়েছে। জিগন্যাল ল্যাবস দেখেছে, ভাইরাসটির জন্য গেটসকে দোষারোপকারী ষড়যন্ত্র তত্ত্বগুলো সামাজিক মিডিয়া এবং টেলিভিশনে এখন পর্যন্ত ১২ লাখেরও বেশিবার সম্প্রচার করা হয়েছে।

জিগন্যাল ল্যাবস ১৬ হাজার ফেসবুক পোস্ট খুঁজে পেয়েছেন যেগুলোতে বিল গেটসকে মহামারিটির জন্য দায়ী করা হয়েছে। আর এসব পোস্ট সর্বমোট ৯০ লাখেরও বেশি মানুষ লাইক বা কমেন্ট করেছে। মার্চ এবং এপ্রিলে দশটি জনপ্রিয় ইউটিউব ভিডিওতে বিল গেটস সম্পর্কে ভুল তথ্য ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে এবং সেগুলো মোট ৫০ লাখ ভিউ হয়েছে।

জিগন্যাল ল্যাবসের বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ষড়যন্ত্র তত্ত্বগুলো প্রথমে এক ব্যক্তি ইউটিউবে প্রকাশ করে। যিনি কিউননের সাথে যুক্ত ছিলেন। এছাড়া জানুয়ারির শেষ দিকে ভিডিওটি তিনি টুইটারেও পোস্ট করেছিলেন। যেখানে দাবি করা হয়েছে, গেটস মহামারি সম্পর্কে আগেই জানত, যা ইনফো ওয়ার্স দু’দিন পরে তুলে নিয়েছিল। টুইটটিতে পিরব্রাইট ইনস্টিটিউট নামে একটি ব্রিটিশ কম্পানিকে দায়ী করা হয়েছে, যারা করোনার ভ্যাকসিনের পেটেন্ট লাভ করেছে বলে দাবি করা হয়। বলা হয় ব্রিটিশ এই কম্পানির অর্থায়নে রয়েছে গেটস ফাউন্ডেশন।

যাইহোক, ভ্যাকসিনটি নভেল করোনভাইরাসের জন্য নয়। এটা পোল্ট্রির সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত করোনাভাইরাসগুলোর বিরুদ্ধে কাজ করে। যেটা করোনার সম্পূর্ণ আলাদা একটি স্ট্রেন। জানুয়ারির শেষের দিকে ফ্যাক্ট-চেকিং সাইট ফুলফ্যাক্ট সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এমন গুজব ছড়িয়েছিল যে পিরব্রাইট ইনস্টিটিউট ২০১৫ সালে নভেল করোনাভাইরাসটির পেটেন্ট তৈরি করেছিল।

দ্য টাইমসের মতে, বিল গেটসকে দোষারোপকারী ষড়যন্ত্র তত্ত্বের তাৎপর্যটি বিশিষ্ট ডানপন্থী এবং টিকাদানবিরোধী পরিসংখ্যানের সাথে সম্পর্কিত।। নিউইয়র্ক পোস্টের খবরে বলা হয়েছে, ট্রাম্পের সাবেক ক্যাম্পেইন ম্যানেজার রজার স্টোন এই সপ্তাহে একটি রেডিও শোতে দাবি করেছিলেন, বিল গেটস এই ভাইরাস তৈরি ও প্রসারে কিছুটা ভূমিকা রেখেছিলেন কিনা সেটা নিয়ে জোরালো উন্মুক্ত বিতর্কের প্রয়োজন।।

বিল গেটসের দাতব্য সংস্থা ‘বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন’ করোনভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য ২৫০ মিলিয়ন ডলার দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। যার একটি অংশ ভ্যাকসিন তৈরি এবং উৎপাদনে ব্যবহার করা হবে। গেটস নিজেই টেলিভিশনে হাজির হয়েছেন। ভাইরাসটির বিরুদ্ধে কিভাবে লড়াই করা যাবে সেটা নিয়ে নিজের মতামত প্রকাশ করেছেন এবং ডব্লিউএইচও থেকে অর্থায়ন প্রত্যাহারের জন্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমালোচনা করেছিলেন।

গেটসই ভাইরাসটিকে ঘিরে ষড়যন্ত্র তত্ত্বগুলির একমাত্র কেন্দ্রবিন্দু নয়। ব্রিটেনে করোনাভাইরাসকে ৫ জি-র সাথে যুক্ত করার একটি ষড়যন্ত্র তত্ত্ব ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। এমনকি এজন্য প্রায় ৫০টিরও বেশি ৫ জি টাওয়ারে আক্রমণ ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে।

সূত্র- বিজনেস ইনসাইডার।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া