করোনা হয়নি, তবুও করোনা করােনা বলে চিকিৎসা-অবহেলায় নাজমার মর্মান্তিক মৃত্যু

ডেস্ক রিপাের্ট : কানাডার সাসকাচোয়ান প্রদেশের ইউনিভার্সিটি অব রেজিনের স্নাতক শিক্ষার্থী ছিলেন নাজমা আমিন। ২৪ বছর বয়সী এই শিক্ষার্থী ১০ মাস আগে কানাডা গিয়েছিলেন গ্রাজুয়েশন করতে। সারাবিশ্বে করোনাভাইরাসের প্রকোপ দেখে বাবা-মার অনুরোধে ৯ মার্চ ঢাকায় ফিরে আসেন। গত শুক্রবার (১৩ মার্চ) দুপুরে বাবাকে ‘পেটে প্রচণ্ড ব্যথা’ বলে জানান নাজমা। মোহাম্মদপুরে একটি হাসপাতালে নেওয়ার পর অবস্থার অবনতি হলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেয়া হয়ে তাকে। তবে ব্যথা থেকে মুক্ত তো হতে পারেননি; লাশ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন তিনি। ডাক্তারদের ভাষায় তিনি গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল জটিলতায় মারা গেছেন। আর পরিবারের দাবি তিনি মারা গেছেন ডাক্তারদের করোনাভাইরাস আতঙ্ক আর অবহেলায়।

পরিবারের সদস্যরা জানান, নাজমা খেতে পারছিলেন না। প্রতিবার খাওয়ার সময় তার বমি ভাব হয়েছে বা পেটে ভীষণ ব্যথা হয়েছে। শুক্রবার দুপুরে বাবা আমিন উল্লাহ দুপুরে ধানমন্ডির বাংলাদেশ মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে তাকে একটি ইনজেকশন পুশ করা হলে সুস্থ অনুভব করেন তিনি। এরপর তারা চলে যান বাড়ি।

রাতে অসহনীয় ব্যথা হওয়ায় তাকে নেওয়া হয় বাড়ির কাছে মোহাম্মদপুরের আল মানারাহ হাসপাতালে। নাজমার বাবা আমিন উল্লাহ বলেন, সেখানকার চিকিৎসক বলেন, তার শরীর ভালো নয়, দ্রুত আইসিইউ-এ নেওয়া দরকার। সেই হাসপাতালে আইসিইউ খালি ছিল না।

আইসিইউ (ইনসেনটিভ কেয়ার ইউনিট) বেড খালি আছে এমন কোনো হাসপাতাল খুঁজে পাচ্ছিলেন না জানিয়ে আমিন উল্লাহ বলেন, তখন অনেক রাত। তাকে তেজগাঁওয়ের একটি হাসপাতালে নেই। সেখানেও আইসিইউ খালি না পেয়ে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাই। তারা আমাকে বলেন, নাজমার চিকিৎসার জন্য একটি মেশিন দরকার। এ হাসপাতালে দুটি মেশিন রয়েছে, যার একটি নষ্ট আরেকটি আরেকজন রোগীকে দেয়া হয়েছে। তারা ঢামেকে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন।

ভোর ৬টায় নাজমাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সার্জারি বিভাগের ২১৯ নম্বর ওয়ার্ডে অধ্যাপক ডা. এ বি এম জামালের তত্ত্বাবধানে ভর্তি করে স্যালাইন, অক্সিজেন ও ওষুধ দেওয়া হলে তিনি কিছুটা সুস্থ বোধ করেন। আমিন উল্লাহ বলেন, ‘নাকে পাইপ দিয়ে পেটের ময়লা বের করা হয়। তার ব্যথাও কিছুটা কমেছিল।’

সকাল আটটায় নার্সদের শিফট বদল হয়। সাড়ে এগারোটার দিকে নতুন শিফটের ডিউটিরত নার্সদের একজন জানতে চান নাজমার কী হয়েছে? সমস্যা বলার একপর্যায়ে নাজমা উল্লেখ করেন, তিনি সম্প্রতি কানাডা থেকে এসেছেন। এই তথ্যটিই কাল হয়ে দাঁড়ায় নাজমার জন্য। কানাডার কথা উল্লেখ করে নার্স চিৎকার করে বলতে থাকে, ‘সে কানাডা থেকে এসেছে! তার জ্বরও আছে!’ তারা ডাক্তারের কাছে গিয়ে জানায় নাজমা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত। এরপর পুরো ওয়ার্ডে বিশৃঙ্খলা ছড়িয়ে পড়ে। নাজমার কাছে আর কেউই আসেনি। সব ডাক্তার ও নার্স ওয়ার্ডটি ছেড়ে চলে যায়।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে মৃত্যুর শেষ কয়েক ঘণ্টা ডাক্তার ও নার্সদের অবহেলায় নাজমার মৃত্যু হয়েছে বলে পরিবার অভিযোগ করে। বাবা আমিন উল্লাহ বললেন, আমার মেয়ে কানাডাফেরত শুনেই তিন-চারজন ডিউটিরত নার্স ‘করোনা করোনা’ বলে আওয়াজ তোলেন। ওয়ার্ডে শুরু হয় ছোটাছুটি। ‘করোনা করোনা’ গুঞ্জন করতে থাকেন। তারা একে অন্যকে বলতে থাকেন, ‘বিদেশ থেকে আসছে, সেহেতু করোনা হয়েছে’।

কাঁদতে কাঁদতে আমিন উল্লাহ বলেন, এরপর থেকে আমার মেয়েকে কোনো চিকিৎসা দেয়া হয়নি। একপর্যায়ে আইইডিসিআর থেকে এসে আমার মেয়ের লালাসহ অন্যান্য নমুনা সংগ্রহ করে নিয়ে যায়। দুপুর ১টার দিকে আমার মেয়ের শরীর খারাপ হতে থাকে। কেউ তাকে দেখতে সামনেও আসেনি। আমার সামনেই মেয়েটার জান চলে গেল। কেউ আসেনি।

নাজমার লালা পরীক্ষায় রেজাল্ট নেগেটিভ আসে। নাজমার বাবা বলেন, মেয়ে মারা যাওয়ার পরও কেউ সামনে আসেনি। ১টায় মারা গেল, তারা আমাকে তখন লাশও দেয়নি। পরে আইইডিসিআর থেকে আমার মেয়ের করোনা টেস্টের রেজাল্ট দেয়া হলো। রেজাল্ট ছিল ‘নেগেটিভ’। মেয়ের করোনা হয়নি- নিশ্চিত হওয়ার পর বিকেল ৫টার দিকে লাশ আমাকে বুঝিয়ে দিল তারা।

চাপা কষ্ট আর আক্ষেপ নিয়ে আমিন উল্লাহ বলেন, মেয়েটাকে নিজের হাতে কবরে রেখে আসলাম, অথচ মরার সময়ও কেউ তার সামনে আসলো না। কার কাছে বিচার চাইবো? দেশে তো বিচার নাই। বেশি কথা বললে আবার ময়নাতদন্ত করা হতো। তাই ‘রক্তশূন্যতার কারণে মেয়ের মৃত্যু হয়েছে’— আমি চিকিৎসককে এ কথা বলে লাশ এনে দাফন করি।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনাভাইরাসের জন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নেই। পরীক্ষা করার সরঞ্জাম ও চিকিৎসা কর্মীদের প্রতিরক্ষামূলক ব্যবস্থাও নেই। একজন ওয়ার্ড বয় বলেন, সবাই যখন শুনলো ওয়ার্ডে করোনাভাইরাস রোগী আছে, তখন সবাই আতঙ্কিত হয়ে ওঠে। আমিও সেখানেই ছিলাম। আমার মনে হচ্ছিল আমার জীবনের শেষ সময় চলে এসেছে। এই রোগীর থেকে যদি আমি সংক্রামিত হই আর আমি আমার পরিবারের সদস্যদের সংক্রামিত করি তাহলে কী হবে?

একজন নার্স বলেন, দেখুন, প্রত্যেকের নিজের জীবনের ভয় আছে। সেই ভয় নার্সদেরও আছে।

নাজমার তদারকির দায়িত্বে থাকা সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ডা. এবিএম জামাল বলেন, যখন জানা গেল মেয়েটি কানাডা থেকে এসেছে, জ্বর-কাশি আর শ্বাসকষ্ট ছিল, তখন ওয়ার্ডে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। নার্সরাও প্যানিক (আতঙ্কিত) ছিল। পাশাপাশি ওয়ার্ডে অন্য রোগীদের স্বজনরাও সেখানে ছোটাছুটি শুরু করেন। এরপর আমরা ডিরেক্টর স্যারকে বিষয়টি জানালে তিনি আইইডিসিআরে ফোন দিয়ে দ্রুত কনসালটেন্ট এনে স্যাম্পল (নমুনা) নিতে বলেন। তারা র‌্যাপিড টেস্ট করিয়ে রেজাল্ট দেয়। রেজাল্ট নেগেটিভ ছিল, অর্থাৎ তিনি করোনা আক্রান্ত ছিলেন না। তবে রেজাল্ট আসার আগেই তার মৃত্যু হয়। আমরা মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানতে মরদেহের ময়নাতদন্ত করতে চেয়েছিলাম। তবে তার বাবা এতে অস্বীকৃতি জানান। চিকিৎসকদের দায়িত্ব অবহেলার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সকাল থেকে তিনজন চিকিৎসক তাকে স্ট্যান্ডবাই (তাৎক্ষণিক) দেখেছে এবং চিকিৎসা দিয়েছে। প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর যখন তার হিস্ট্রি জানতে চেয়েছে, তখনই প্যানিকিং (আতঙ্ক) সিচুয়েশন তৈরি হয়। এত লোকের মধ্যে কারা বিশৃঙ্খলা করেছে তাদের ডিটেক্ট করা কষ্টকর।

মৃত্যুর কারণ জানতে চাইলে ডা. এবিএম জামাল বলেন, বুধবার মেয়েটি ফার্মেসি থেকে একটি ব্যথানাশক ওষুধ কিনে খেয়েছিল। খালি পেটে এসব ওষুধ খেলে অন্ত্র ফুটো হয়ে যায়। আমরা সন্দেহ করছি, তার অন্ত্রে ছিদ্র ছিল বা ফাটল ছিল। অর্থাৎ, গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল জটিলতায় তার মৃত্যু হয়। তাকে যখন ভর্তি করা হয়, তখন তার শরীর থেকে প্রচুর তরল বের হয়ে গেছে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল একেএম নাসির উদ্দিন বলেন, কর্মীদের প্রতিরক্ষামূলক ব্যবস্থা নেই। তারা দীর্ঘসময় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংস্পর্শে থাকতে হবে তা নিয়ে উদ্বিগ্ন ছিলেন।

তিনি আরও বলেন, তার করোনাভাইরাস আছে কি না, তা পরীক্ষা করার জন্য আমাদের আইইডিসিআর থেকে প্রতিনিধিদের আসতে বলতে হয়েছে। তারা অত্যন্ত আন্তরিকতার সঙ্গে জরুরী ভিত্তিতে এই কাজটি করেছেন বলেও তিনি জানান।

পরীক্ষার পর জানা যায় নাজমার করোনাভাইরাস নেই।

জয় পরাজয় আরো খবর