adv
৯ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মজনু ৭ দিনের রিমান্ডে

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঢাকার কুর্মিটোলায় রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার মজনুকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিনের হেফাজতে পেয়েছে পুলিশ। ওই ছাত্রীর বাবার করা মামলায় বৃহস্পতিবার (৯ জানুয়ারি) তাকে আদালতে হাজির করে ১০ দিনের হেফাজতের আবেদন করেন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক আবু সিদ্দিক।

শুনানিতে বাদী পক্ষের আইনজীবী বাংলাদেশ আইন সমিতির ২৫ সদস্যসহ ঢাকা মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল্লাহ আবু আসামির রিমান্ডের জোর দাবি জানান। তবে আসামির পক্ষে কোনো আইনজীবী দাঁড়াননি।

শুনানি শেষে ঢাকার মহানগর হাকিম সরাফুজ্জামান আনসারী সাত দিনের হেফাজতে নেওয়ার আদেশ দেন বলে পুলিশের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা দীপক মিত্র দীপু জানিয়েছেন। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে অংশ নেন ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের প্রধান কৌঁসুলি আবদুল্লাহ আবু।

আদালত সূত্র জানায়, দুপুর ১টা ৩৫ মিনিটে মজনুকে বিশেষ নিরাপত্তার মাধ্যমে আদালতে হাজির করা হয়। দুপুর ২টা ৫০ মিনেটে তাকে আদালতের এজলাসে নেওয়া হয়। শুনানি শুরু হয় ২টা ৫২ মিনিটে, শেষ হয় ২টা ৫৮ মিনিটে।

রিমান্ড আবেদনে বলা হয়, গত ৫ জানুয়ারি ক্যান্টনমেন্ট থানার কুর্মিটোলা বাসস্ট্যান্ড হতে ৪০-৫০ গজ সামনে আর্মি গলফ ক্লাব মাঠ সংলগ্ন স্থানে পৌঁছায় ভিকটিম। এরপর আসামি পেছনের দিক থেকে ভিকটিমের গলা ধরে ফুটপাতে ফেলে দেয় এবং গলা চেপে ধরে। ভুক্তভোগী ছাত্রী তখন চিৎকার করতে গেলে আসামি মজনু তাকে কিলঘুষি মারে। ভয়ভীতি দেখায়। ছাত্রী অজ্ঞান হয়ে যায়। এরপর আসামি ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করে।

রিমান্ড আবেদনে আরও বলা হয়, এই ধর্ষণের ঘটনায় জড়িত আসামি মজনুকে রাজধানী থেকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব-১। আসামির স্বীকারোক্তি মোতাবেক, তার কাছ থেকে ভুক্তভোগী ছাত্রীর খোয়া যাওয়া সামগ্রী উদ্ধার করা হয়। আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তিনি ধর্ষণের কথা স্বীকার করে। আসামি মজনু একজন অভ্যাসগত ধর্ষক। জিজ্ঞাসাবাদে আসামি তার নাম ঠিকানা প্রকাশ করে এবং ধর্ষণের বিষয় স্বীকার করে। তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ভিকটিমের ব্যাগ, মোবাইল ফোন ও পাওয়ার ব্যাংক আসামির একটি জিনসের প্যান্ট ও একটি জ্যাকেট থেকে উদ্ধার করা হয়। সে অভ্যাসগতভাবে ধর্ষণকারী। প্রতিবন্ধী, পাগল ও ভ্রাম্যমাণ নারীদের সঙ্গে অনৈতিক কাজ করে আসছে সে। আসামি ভাসমান অবস্থায় থাকে। তার স্থায়ী কোনও বাসা নেই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় আর কেউ জড়িত আছেন কি না, তা জানার জন্য এই আসামিকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা জরুরি।

গত রোববার ওই শিক্ষার্থী ধর্ষিত হওয়ার পর ব্যাপক ক্ষোভ-বিক্ষোভের মধ্যে অপরাধীকে ধরতে অভিযানে নামে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। ঘটনার পরদিন ক্যান্টনমেন্ট থানায় করা মামলা পরে তদন্তের দায়িত্ব যায় ডিবি। এর মধ্যে ওই ছাত্রীর কাছ থেকে পাওয়া বর্ণনার ভিত্তিতে তার মোবাইল ফোনের সূত্র ধরে অভিযান চালিয়ে বুধবার ভোর পৌনে ৫টায় শেওড়া রেল ক্রসিং এলাকা থেকে মজনুকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।

ধর্ষণের পর ছাত্রীর মোবাইল ফোনটি মজনু নিয়ে গিয়ে বিক্রি করেছিল অরুণা নামে একজনের কাছে। অরুণার কাছ থেকে তা কিনেছিলেন রিকশাচালক খায়রুল। ফোন ট্র্যাক করে আটক এই দুজনকেও ডিবির কাছে হস্তান্তর করেছে র‌্যাব।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
January 2020
M T W T F S S
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া