adv
৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

‘সাজা স্থগিত না হলে নির্বাচনে অযোগ্য হবেন খালেদা জিয়া’

ডেস্ক রিপাের্ট : জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ডাদেশের বিরুদ্ধে খালাস চেয়ে হাইকোর্টে আপিল করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। ওই আপিলের ওপর আগামীকাল মঙ্গলবার (২৯ অক্টোবর) রায় ঘোষণা করবেন হাইকোর্ট। এতে খালেদা জিয়ার সাজা বহাল থাকলে এবং তা স্থগিত না হলে তিনি সাংবিধানিকভাবে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য অযোগ্য হবেন বলে মনে করেন আইনজ্ঞরা।

সংবিধানের ৬৬(২)(ঘ) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, কোনও ব্যক্তি সংসদের সদস্য নির্বাচিত হওয়ার এবং সংসদ সদস্য থাকার যোগ্য হবেন না, যদি তিনি নৈতিক স্খলনজনিত কোনও ফৌজদারি অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হয়ে কমপক্ষে দুই বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হন এবং তার মুক্তির পর পাঁচ বছর অতিবাহিত না হয়।

আগামীকাল মঙ্গলবার হাইকোর্টের রায়ে খালেদা জিয়ার সাজা বহাল থাকলে তিনি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন কিনা জানতে চাইলে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, ‘এ অবস্থায় তিনি নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না। এটি আইনে বলা আছে। আরপিওতে (গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ) বলা আছে, সাজাপ্রাপ্ত হলে তিনি নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না।’

তবে আপিলের রায়ে সাজা বহাল থাকলেও সংসদ নির্বাচনে খালেদা জিয়ার অংশগ্রহণের পথ খোলা আছে বলে ব্যাখ্যা দেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সুব্রত চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘আপিলে সাজা বহাল থাকলে নির্বাচনে অংশ নিতে সমস্যার সৃষ্টি হবে। তবে নির্বাচন করতে গেলে সাজা স্থগিত করে নিতে হয়।’
অনেক রাজনৈতিক ব্যক্তিই সাজার ওপর স্থগিতাদেশ নিয়ে জাতীয় সংসদ নির্বাচন করেছেন বলে নজির আছে বলেও জানান আইনজীবী সুব্রত চৌধুরী।
এ বিষয়ে খালেদা জিয়ার আইনজীবী প্যানেলের প্রবীণতম সদস্য অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, ‘আইনে বিধান রয়েছে, তাই আমরা আদালতে তার সাজা স্থগিতে আবেদন করবো। দুই বছরের অধিক সাজা হলে সেখানে কেউ নির্বাচন করতে পারে না। তবে সেই সাজা যদি আদালত স্থগিত রাখেন সেক্ষেত্রে নির্বাচন করতে খালেদা জিয়ার আর কোনও বাধা থাকবে না।’

গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলা খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছর কারাদণ্ডাদেশ দেন বিচারিক আদালত। একইসঙ্গে এ মামলার অন্য ছয় আসামির প্রত্যেককে ১০ বছর করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

তবে বিচারিক আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে গত ২০ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় আপিল আবেদন করেন তিনি। একইসঙ্গে এ মামলার দুই আসামি কাজী সালিমুল হক কামাল ও শরফুদ্দিন আহমেদ খালাস চেয়ে আপিল করেন। পাশাপাশি এ মামলায় খালেদা জিয়ার সাজা বৃদ্ধি চেয়ে রিভিশন আবেদন করে দুদক।

এ মামলায় সোমবার (২৯ অক্টোবর) শুনানির জন্য দিন নির্ধারণ করলেও আদালতে যাননি খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা। ফলে আইনজীবীদের অনুপস্থিতিতেই রায় ঘোষণার জন্য মঙ্গলবার (৩০ অক্টোবর) দিন ধার্য করেন হাইকোর্ট।

প্রসঙ্গত,জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাজা পাওয়া অন্য ছয় আসামি হলেন খালেদা জিয়ার ছেলে তারেক রহমান, সাবেক মুখ্য সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী, সাবেক সাংসদ ও ব্যবসায়ী কাজী সালিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ ও জিয়াউর রহমানের ভাগনে মমিনুর রহমান। এ ছয় আসামির প্রত্যেককে দুই কোটি ১০ লাখ টাকা করে জরিমানাও করেছেন আদালত। -বাংলাট্রিবিউন

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
October 2018
M T W T F S S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া