adv
৮ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৫শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শেখ হাসিনার কৌশলে ধরাশায়ী ড. কামাল

ডেস্ক রিপাের্ট : আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতারা মত দিয়েছিলেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সংলাপ না করার। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বললেন, তিনি সংলাপ করবেন। প্রধানমন্ত্রী বললেন, ‘আমার দরজা সবার জন্য খোলা। কোনো চাপে নয়, আমি তাদের কাছে শুনতে চাই তাঁরা কি চায়।’ আজ দুপুরে মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর অনির্ধারিত আলোচনায় এভাবেই পাল্টে গেল আওয়ামী লীগের সিদ্ধান্ত।

প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সভাপতি দলের সবাইকে জানিয়ে দিলেন যে তিনি সংলাপ করবেন, দিন তারিখ ঠিক করে তাঁদের (জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট) জানাতে। প্রধানমন্ত্রীর এই কৌশলে ধরাশায়ী হলো ড. কামালের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বিকেলে যখন সংলাপে সম্মতির ঘোষণা দিলেন, তখন বিব্রত এবং অপ্রস্তুত হয়ে পড়ল জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। ঐক্যফ্রন্টের নেতা আ. স. ম. আবদুর রব বললেন, ‘সত্যি বলতে কি আমরা চিন্তাও করিনি এত দ্রুত এবং সহজে তিনি (প্রধানমন্ত্রী) সংলাপে রাজি হবেন।’ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আরেক নেতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বললেন, ‘শেখ হাসিনা যে রাজনৈতিক প্রজ্ঞায় সবাইকে ছাড়িয়ে গেছেন, তা আরেকবার প্রমাণ করলেন।’ তিনি বলেন, ‘আমার ধারণা আলোচনার টেবিলে আমরা সংকট সমাধানের একটা পথ খুঁজে পাবো।’

গতকাল রোববার রাতে আওয়ামী লীগের সঙ্গে সংলাপে বসার আহ্বান জানিয়ে চিঠি দেয় জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে চিঠি লেখেন ড. কামাল হোসেন । আর দলের সাধারণ সম্পাদককে দেওয়া চিঠিতে স্বাক্ষর করেন গণফোরামের নেতা মোস্তফা মোহসীন মন্টু। রাতেই আওয়ামী লীগের একাধিক শীর্ষ নেতা সংলাপের ব্যাপারে নেতিবাচক মনোভাব প্রকাশ করেন। কিন্তু মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর, শুধু মন্ত্রীদের নিয়ে অনির্ধারিত আলোচনায় শেখ হাসিনা সংলাপে যেতে রাজি হন। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, এর মাধ্যমে শেখ হাসিনা ড. কামাল হোসেনের কৌশলকে টেক্কা দিলেন। এরফলে সংলাপ ফেলে চটজলদি ঐক্যফ্রন্টের আন্দোলন জনসমর্থন পাবে না। নির্বাচনের আগে রাজনৈতিক পরিবেশকে তিনি উত্তপ্ত হতে দিলেন না।

আন্তর্জাতিকভাবেও এর ফলে সরকারের সদিচ্ছা এবং আন্তরিকতা প্রমাণিত হলো। এরপর যদি সংলাপ ব্যর্থও হয় তবুও একতরফা নির্বাচনের জন্য কেউ সরকারকে দায়ী করতে পারবে না। স্পষ্টত: শেখ হাসিনা অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের দায়িত্ব সরকারের ঘাড় থেকে নামিয়ে বিরোধী দলের উপর চাপিয়ে দিলেন।

অন্যদিকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট যে বৈঠকে সংলাপের চিঠি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল, সেই বৈঠকে নেতারা বলেছিলেন, সরকার কিছুতেই রাজি হবে না। ঐ বৈঠকে নাগরিক ঐক্যের নেতা মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছিলেন, সরকার সংলাপ টংলাপ করবে না। ড. কামাল হোসেন বলেছিলেন, আমরা চিঠি দিলে তো সরকার নাকচ করবে। আমরা এটাই চাই। এর ফলে আমরা সবাইকে বলতে পারব সরকার সংলাপ চায় না।

এর ফলে আমাদের আন্দোলনের কর্মসূচি দেওয়া সহজ হবে। আওয়ামী লীগ গণতন্ত্র চায় না, অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন চায় না- এজন্যই সংলাপ চায় না, এটা প্রমাণ করতেই ড. কামাল চিঠি দিয়েছিলেন। কিন্তু ঐক্যফ্রন্টের কৌশল বুমেরাং হলো তাঁদের জন্যই। বেগম খালেদা জিয়া জেলে, বিএনপির অনেক নেতা গ্রেপ্তার এবং পলাতক। এ অবস্থায় আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক নেতা কর্মীদের ভুল বার্তা দেবে বলে মনে করছেন বিএনপির অনেক নেতা।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ইতিমধ্যেই সংলাপের ব্যাপারে নেতিবাচক মনোভাব পোষণ করেছেন। তিনি বলেছেন ‘সরকার তো বলেই দিয়েছে সাত দফার একটি দাবিও মানবে না। তারপরও সংলাপে যাব কী করতে? নাস্তা খেতে?’ তিনি মনে করেন, ‘এর আগের বারও, শেখ হাসিনা বেগম জিয়াকে টেলিফোন সংলাপে ডেকে সবাইকে দেখিয়েছেন। ঐ টেলিফোন দিয়েই তিনি একতরফা নির্বাচন সেরে নিয়েছেন। এবারও হয়তো তাই করবেন।’

উল্লেখ্য, ২০১৪ এর নির্বাচনের আগে শেখ হাসিনা রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে ধারাবাহিক সংলাপ করেছিলেন। ওই সংলাপের জন্য বেগম জিয়াকে প্রধানমন্ত্রী টেলিফোনে আমন্ত্রণ জানালে তা বেগম জিয়া প্রত্যাখ্যান করেন।

এবার সংলাপে শেখ হাসিনা কী চমক দেখাবেন, সেটাই দেখার বিষয়। -বাংলা ইনসাইডার

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
October 2018
M T W T F S S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া