adv
২১শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মেলার মাধ্যমে বাংলা ভাষার চর্চা বৃদ্ধি পাবে – বই মেলার উদ্বােধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী

P Mনিজস্ব প্রতিবেদক : ভাষা আন্দোলনের মাস ফেব্রুয়ারির প্রথম দিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে শুরু হলো একুশে গ্রন্থমেলা।

বৃহস্পতিবার বিকালে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে মেলার উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। একই অনুষ্ঠানে আগামী ২২ ও ২৩ ফেব্রুয়ারি দুই দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক সাহিত্য সম্মেলনের উদ্বোধন করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বই মেলা শুধু বই কেনা বেচার জন্য না। বই মেলা আকর্ষণ করে, আমাদের সাহিত্য চর্চার ক্ষেত্র প্রসারিত করে। অজানাকে জানার সুযোগ সৃষ্টি করে। তাই আমরা বলি বই মেলা প্রাণের মেলা।

এই মেলার মাধ্যমে অনেক নবীন লেখক তাদের সাহিত্যকর্ম করার সুযোগ পায়, আবার অনেক পাঠক তৈরি করে। এই মেলা জ্ঞান চর্চার দ্বার উন্মুক্ত করে।

এই মেলার মাধ্যমে বাংলা ভাষার চর্চা বৃদ্ধি পাবে বলেও আশা করেন শেখ হাসিনা।  

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের শিল্প সাহিত্য সংস্কৃতি কেবল বাংলাদেশের সীমানা না, বাংলাদেশের সীমানা পেরিয়ে সারাবিশ্বে বিস্তৃত হবে। সেটাই আমরা চাই।’

বাঙালি জাতিকে শিক্ষিত জাতি হিসেবে গড়ে তোলার কথা জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘শিক্ষিত জাতি ছাড়া দারিদ্র্যমুক্ত জাতি গঠন করা সম্ভব না। তাই আমরা শিক্ষার ওপর সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছি।’

‘বিনা পয়সায় আমরা কেবল বই দেই না, বই উৎসব করি। এটা করি এ জন্য যে, বই পেয়ে শিশুরা খুশি। সাথে সাথে বইয়ের প্রতি আকর্ষণ যেন ছোটবেলা থেকেই বাড়ে এবং বইয়ের প্রতি মনযোগ আকর্ষণ হয়, সে দিকেই লক্ষ্য রেখেই বই উৎসব করে থাকি।’

‘আমরা এগিয়ে যাচ্ছি, এগিয়ে যাব। আমরা বিশ্বাস করি বাঙালি জাতিকে কেউ পদানত করতে পারবে না।’

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাজ্যের লেখক এগনিস মিডোসম, ক্যামেরুনের ড. জয়েস অ্যাসউন টেনটেন, মিশরের ইব্রাহিম এলমাসরি ও সুইডেনের অরনে জনসন। তারা বক্তব্য রাখার পরই প্রধানমন্ত্রী বক্তব্য রাখেন।

একই অনুষ্ঠানে বাংলা একাডেমি পুরস্কারপ্রাপ্তদের হাতে পুরস্কারও ‍তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী। আর এর আগে তার হাতে ‘আলোকচিত্রে বাংলা একাডেমির ইতিহাস’ এবং ‘বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ: বহুমাত্রিক বিশ্লেষণ’ নামে দুটি বই প্রধানমন্ত্রীর জাতে তুলে ধরেন বাংলা একাডেমির সভাপতি অধ্যাপক আনিসুজ্জামান এবং মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান।

উদ্বোধনের পর প্রধানমন্ত্রী বইমেলার বিভিন্ন স্টল ঘুরে দেখেন। আর তার মেলা প্রাঙ্গণ ছেড়ে যাওয়ার পর পর সবার জন্য খুলে দেয়া হয় দ্বার।

৪৫৫টি প্রতিষ্ঠানকে ৭১৯টি ইউনিট, ২৪টি প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানকে ২৫টি প্যাভিলিয়ন বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। আবার ১৩৬টি লিটল ম্যাগাজিনকে লিটল ম্যাগাজিন কর্নারে স্টল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

এর আগে প্রধান অতিথির ভাষণে প্রধানমন্ত্রী ভাষা আন্দোলন, বাংলা ভাষার মর্যাদা নিশ্চিত করতে পাকিস্তান আমলে আওয়ামী লীগের প্রাদেশিক সরকারের ভূমিকার কথা তুলে ধরেন তিনি।

ছুটির দিন ছাড়া প্রতিদিন বিকাল তিনটা থেকে রাত নয়টা পর্যন্ত মেলা চলবে।

ছুটির দিন বেলা ১১টা থেকে রাত ৯টা এবং ২১ ফেব্রুয়ারি সকাল আটটা থেকে রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত খোলা থাকবে মেলা প্রাঙ্গণ। মাসব্যাপী গ্রন্থমেলায় এবারও ‘শিশুপ্রহর’ ঘোষণা করা হবে।

অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, সংস্কৃতি সচিব মো. ইব্রাহিম হোসেন খান এবং বাংলা একাডেমির পরিচালক শামসুজ্জামান খান উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন।

পুরস্কার পেলেন যারা –

কবিতায় মোহাম্মদ সাদিক ও মারুফুল ইসলাম, কথাসাহিত্যে মামুন হোসাইন, প্রবন্ধে অধ্যাপক মাহবুবুল হক, গবেষণায় অধ্যাপক রফিকউল্লাহ্ খান, অনুবাদে আমিনুল ইসলাম ভুঁইয়া, মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক সাহিত্যে কামরুল ইসলাম ভুঁইয়া ও সুরমা জাহিদ, ভ্রমণকাহিনীতে শাকুর মজিদ, নাটকে মলয় ভৌমিক, বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীতে মোশতাক আহমেদ এবং শিশুসাহিত্যে ঝর্ণা দাশ পুরকায়স্ত এবার বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার পেয়েছেন।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
February 2018
M T W T F S S
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া