adv
১০ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৬শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ধর্ম যার যার উৎসব সবার

                 – মোস্তফা হোসেইন –
  

ধর্ম যার যার উৎসব সবারবাঙালি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের দুর্গোৎসব সামগ্রিক কল্যাণ কামনায় উদযাপিত হয়। তাদের বিশ্বাস মতে দুর্গম অসুরকে বধ করার মাধ্যমে সব প্রাণীর দুর্গতি দূর করতে প্রয়াস নিয়েছেন বলেই তিনি দুর্গা নামে অভিহিত। সব অকল্যাণ ও অশুভের বিরুদ্ধে লড়াই ও কল্যাণ প্রতিষ্ঠাই যার মূল উদ্দেশ্য ছিলো। সেই অর্থে বিবেচনা করলে এর মধ্যে সর্বধর্মের সাযুজ্য খুঁজে পাওয়া যায়।

পৃথিবীর সব ধর্মই মানবের কল্যাণ কামনা করে। এমন কোনো ধর্ম পাওয়া যাবে না যে অশুভ শক্তিকে দমনের মাধ্যমে শুভর বিজয়কে স্বাগত না জানায়। এই অশুভকে দূর করে শুভর বিজয় মাধ্যমেই সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাসের এই দেবী পৃথিবীতে পূজিত হয়ে আসছে।
সর্বোতভাবে বাঙালি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের এই পূজা তাই নিজ গণ্ডি ছাড়িয়ে সর্বধর্মীয় আদর্শকে বাস্তবায়নে সচেষ্ট। আর এ কারণেই সনাতন ধর্মীয় আয়োজন হলেও এটা সব মহলের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষম হয়েছে।
তবে বাংলাদেশে এই উৎসবটি ঐতিহ্যগতভাবেই সব ধর্ম মতের মানুষের উৎসবে পরিণত হয়েছে সেই শত বছর আগে থেকেই। বিশেষ করে এদেশের সাধারণ মানুষের মধ্যে যে অসাম্প্রদায়িক চেতনা বহমান সেই চেতনা থেকেই এখানকার মানুষ উৎসব হিসেবে তাকে উচ্চে স্থান দিয়েছে। ধর্মীয় আচার হিসেবে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা তাকে লালন করে কিন্তু প্রতিবেশি অন্য ধর্মের মানুষকে সেই উৎসবের অংশীদার করছে।
আমাদের শৈশবে দেখা পূজার মধ্যে যে সৌহার্দ্য ও ভ্রাতৃত্ববোধ দেখেছি, কালের পরিবর্তনে তা কোনো ক্ষেত্রে দৃঢ়তর হয়েছে বললে বোধ করি ভুল হবে না। সেই প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ার সময় বন্ধুদের বাড়িতে নিমন্ত্রণ পেতাম পূজো দেখার। যেতামও। তবে পূজো দেখার চেয়ে যে নাড়ুর লোভটা বেশি ছিলো তা এই বয়সেও ভুলতে পারিনি।
দুর্গা পূজার সময় যে নাড়ু বানানো হতো মনে হয় অন্য সময়ের চেয়ে স্বাদে যেন আলাদা ছিলো। হয়তো এইসময় উৎসবের সংশ্রব থাকতো বলেও এর স্বাদ ছিলো আলাদা।
স্বাধীনতা লাভের আগে ষাটের দশকে আমাদের গ্রামে হিন্দু সম্প্রদায়ের সংখ্যা এখনকার চেয়ে দ্বিগুণ ছিলো। তবে সামগ্রিক আর্থিক অবস্থা এখনকার মতো এত ভালো ছিলো না। বিশেষ করে ব্রিটিশ ভারত থাকাকালে যেখানে হিন্দু মুসলমানের আনুপাতিক হার ছিলে ৪০:৬০ ষাটের দশকেই সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার পর এটা কমতে থাকে। এক পর্যায়ে কমে গিয়ে এক চতুর্থাংশে গিয়ে ঠেকে।
কিন্তু এই স্বল্পতা কিংবা পাকিস্তান নামক সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র তাদের সামাজিক সৌহার্দ্য সৃষ্টিতে বাধা হয়ে দাঁড়ায়নি। যে কারণে মুসলিম পরিবারের সন্তান হওয়ার পরও আমাদের পূজা দেখায় তেমন সমস্যা হয়নি। আর পূজার নাড়ু খেয়ে এসে বাড়িতে গল্প করলেও বকুনি খেতে হতো না, বাইরে কিছু খেয়ে এলাম বলে।
পূজা মণ্ডপের ঐতিহ্য হয়তো এখনো টিকে আছে। যেখানে দর্শকদের মধ্যে কোনো ধর্মীয় আবরণ থাকতো না। বাঁশ দিয়ে মণ্ডপের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হতো। এই বেরিয়ারের বাইরে দাঁড়িয়ে কিংবা লম্বা বেঞ্চিতে বসে হুক্কা টানা চলতো একের পর এক। পূজা দর্শনার্থীদের এই হুক্কা মুসলমানের হাত থেকে যেমন যেতো হিন্দু দর্শনার্থীদের হাতে আবার হিন্দু ধর্মাবলম্বীর হাতথেকেও যেতো মুসলমানের হাতে।
এই দর্শকদের মধ্যে কখনো এমন মানসিকতা দেখা যায়নি যে তারা ভাবতে পারে দশভুজা দেবীর কোনো হাত ভেঙ্গে দেবে। কিংবা পূজা অনুষ্ঠানে কোনো রকম প্রতিবন্ধকতা তৈরি করবে। রাতভর আনন্দ উল্লাস করে বাড়ি ফিরতো মুসলমান কিশোরবৃদ্ধ।
এইতো বাংলাদেশের পূজো। এটা আমাদের স্বাধীনতা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধকে বেগবান করেছে। আমাদের সামাজিক বন্ধনকে শক্তিশালী করেছে। দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সহযোগিতা করেছে। পাকিস্তানিদের মানসিকতা থেকে আমাদের বোধের পার্থক্যটা ছিলো এখানেই।
আর মানসিকতার এই পার্থক্যই পাকিস্তানিদের আমাদের থেকে আলাদা করে দেয়। আর তারাও মনে করতে থাকে অমুসলিমদের এই দেশে থাকার সুযোগ নেই। যা একাত্তরে স্পষ্ট করে দিয়েছে পাকিস্তানি সৈন্যরা।  সেই জন্যই প্রথম আক্রমনটি পরিচালনা করে হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর।
আমার গ্রামেও প্রথম শিকার হয় কেতু পাল ও উমেশ বণিক। একসময় গ্রামের সব হিন্দু দেশত্যাগ করলে, মুসলমানরাই প্রাণ হারাতে থাকে হানাদার পাকিস্তানি বাহিনীর হাতে।
বাঙালি অসাম্প্রদায়িক চেতনাকে শীর্ষে স্থান দিয়ে একাত্তরে বিজয় লাভ করে। স্বাধীন দেশে ধর্মনিরপেক্ষ মৌল নীতি প্রতিষ্ঠা হয়। কিন্তু অশুভ রাজনৈতিক শক্তি জেঁকে বসে ১৯৭৫ সালে। ধর্মনিরপেক্ষতা দূরীভূত হয়। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা থেকে সাধারণ মানুষকে দূরে সরিয়ে নেয়ার রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা পায়। ফলশ্রুতিতে যা হওয়ার তাই হয়ে গেছে।
এই দেশের মানুষ দুটি সম্প্রদায়ে বিভক্ত হয়। পাকিস্তানি ভাবধারা প্রতিষ্ঠায় শুরু হয় সাম্প্রদায়িকতা। কিন্তু বেশিদিন এই পরিবেশ স্থায়ী হয়নি এই দেশে। মানুষ উৎসবে আনন্দে একে অন্যের পাশে থাকতে শুরু করে। উৎসবটা উজ্জ্বলতর হয়। কিন্তু অসুরের বংশধরদের তা সহ্য হচ্ছিল না।
রাত বিরাতে মন্দিরে হামলা করা, মূর্তি ভেঙ্গে ফেলা, পুরোহিতকে খুন করা ইত্যাকার অমানবিক কাজগুলো চোখে পড়ে এদেশে। অন্তত গত বছর যে হারে মূর্তি ভাঙ্গা হয়েছে তা আমাদের অতীত সব রেকর্ডকে আঘাত করেছে। লড়াই চলে অসুরের সাথে শুভর। মনে হয় অসুর পরাজিত হতে শুরু করেছে।
২০১৭ সালে এসে অন্তত আমরা দেখতে পাই মূর্তি ভাঙ্গা কিংবা সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ওপর নির্যাতনের পরিমানটা দৃশ্যত কমে গেছে। একইসঙ্গে দেশে প্রায় ৭ হাজার পূজো বেড়ে যাওয়া। অথচ এবছর গোটা উত্তরাঞ্চল পানিতে তলিয়ে গেছে। উত্তর-পূর্বাঞ্চলের হাওর এলাকায় অকাল বন্যা মানুষের জীবনধারণে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে।
তারপরও পুজার সংখ্যা দেখে অবশ্যই আশান্বিত হওয়া যায়। ভাবা যায়- না এদেশে মানুষ এখনো অশুভকে তাড়াতে একাট্টা। সেটা তাদের ধর্মীয় বিশ্বাসকে কার্যকর করেই।
মোস্তফা হোসেইন: সাংবাদিক, শিশুসাহিত্যিক ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক।
[email protected]

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
October 2017
M T W T F S S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া