adv
২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

৪২ বছর পর কবর খুঁড়ে মা জানলেন সন্তান সমাধিস্থই হয়নি!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ৬৮ বছর বয়সী লিডিয়া রিড। স্কটল্যান্ডের এডিনবরায় তিনি বসবাস করেন। বর্তমানে তিনি দুই সন্তানের জননী। ১৯৭৫ সালে ২৬ বছরের রিড তখন ৩৪ সপ্তাহের অন্তঃসত্ত্বা। হঠাৎ প্রসববেদনা শুরু হওয়ায় তাকে ভর্তি করানো হয় স্থানীয় হাসপাতালে। পরে তার অস্ত্রপচারের মাধ্যমে সন্তান জন্ম হয়। যার নাম রাখা হয় গ্যারি।

চিকিৎসকরা রিডকে বলেন, গ্যারির শারীরিক অবস্থা খুবই খারাপ। দিন কয়েক পরে রিডকে ছেড়ে দেওয়া হলেও গ্যারিকে রাখা হয় লাইফ সাপোর্ট সিস্টেমে। 

রিডের অভিযোগ, গ্যারিেক ভালো করে দেখতে পর্যন্ত দেওয়া হয়নি তাকে। এর পরেই রিডকে হাসপাতালের তরফে জানানো হয়, গ্যারির শরীরের বেশির ভাগ অঙ্গই কোনো কাজ করছে না। রিড অনুমতি দিলে খুলে দেওয়া হবে লাইফ সাপোর্ট সিস্টেম। পরে রিডকে জানানো হয় গ্যারির মৃত্যু হয়েছে।

নিজের হাতে বয়ে নিয়ে যান সন্তানের কফিন। তখনও কেমন যেন সন্দেহ হয় রিডের। কফিন এত হালকা কেন! তখনও তাকে বোঝানো হয় তার মানসিক স্বাস্থ্যের কথা। এরপর ১৯৭৫ সাল থেকে প্রতি সপ্তাহে মৃত সন্তানের সমাধিতে ফুল রেখে যান রিড।

১৯৯৯ সালে স্কটল্যান্ডে শিশু অঙ্গ পাচারের বিশাল এক চক্রের বিষয় সামনে আসে। এদের সঙ্গে বেশ কিছু হাসপাতালের যোগসাজশের প্রমাণ পাওয়া যায়। সন্দেহ হওয়ায় রিড এবং আরও একজন যোগাযোগ করেন হাসপাতালের সঙ্গে। সেখান থেকে তাদের জানানো হয়, তেমন কোনো ঘটনা তাদের শিশুদের সঙ্গে ঘটেনি। সংশয় কাটেনি রিডের।

একের পর এক হাসপাতালের সঙ্গে পাচার চক্রের নাম জড়িয়ে পড়ায় রিড আবেদন করেন গ্যারির কফিন পরীক্ষার। অবশেষে সেই আবেদনে সাড়া দেন আদালত। দিন কয়েক আগে কফিন তুলে পরীক্ষা করে হতবাক হয়ে যান রিড। কবরে গ্যারিকে সমাধিস্থই করা হয়নি।

তবে তবে কি গ্যারি জীবিত? এমন প্রশ্নে দ্বিধান্বিত রিড। রিডের মতো অসংখ্য মায়ের এখন একই প্রশ্ন-তাদের সন্তানরা মারা গিয়েছিল? নাকি তাদের পাচার করা হয়েছে! এসব প্রশ্নের জবাব পেতে আপাতত আদালতের দিকে তাকিয়ে থাকতে হচ্ছে অসংখ্য সন্তান হারা মায়ের। সূত্র: ওয়াশিংটন পোস্ট

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
September 2017
M T W T F S S
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া