adv
২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘জঙ্গি’ সাইফুলের সুরতহাল রিপোর্ট পেলেই ময়নাতদন্ত

JONGIনিজস্ব প্রতিবেদক : রাজধানী পান্থপথে পুলিশের অভিযানে নিহত ‘জঙ্গি’ সাইফুল ইসলামের মরদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। তার সুরতহাল রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পরই ময়নাতদন্তের কাজ শুরু হবে।

এ বিষয়ে বুধবার (১৬ আগস্ট) সকালে ঢামেক হাসপাতালের ফরেনসিক মেডিসিনের বিভাগীয় প্রধান ডা. সোহেল মাহমুদ বলেন, মঙ্গলবার (১৫ আগস্ট) বিকেলে পান্থপথ থেকে এক জঙ্গির লাশ এসেছে বলে শুনেছি। তার সুরতহাল রিপোর্ট এখনও হাতে পাইনি। রিপোর্ট হাতে পেলেই আজ ময়নাতদন্ত করা হবে।

এর আগে মঙ্গলবার বিকেল ৫টা ৫ মিনিটে ঢামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগে আত্মঘাতী জঙ্গি সাইফুলের মরদেহ নিয়ে আসে কলাবাগান থানা পুলিশ। পরে কর্তব্যরত ডা. উম্মে সালমা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

মঙ্গলবার সকালে ধানমন্ডি ৩২ নম্বর থেকে মাত্র ৩০০ মিটার দূরে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে পান্থপথের ওলিও ইন্টারন্যাশনাল হোটেলে অভিযানে নিহত হন সাইফুল।

পুলিশ জানিয়েছে, সাইফুল ইসলামের বাড়ি খুলনার ডুমুরিয়ায়।

এ ঘটনার পর সাইফুল ইসলামের বাবা আবুল খায়ের মোল্লার বরাত দিয়ে খুলনার ডুমুরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাবিল হোসেন জানান, নিহত ‘জঙ্গি’ সাইফুল ইসলাম চাকরির খোঁজে এক সপ্তাহ আগে বাড়ি থেকে ঢাকায় আসেন।

জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে মঙ্গলবার রাত ৩টা থেকে ওলিও ইন্টারন্যাশনাল হোটেলটি ঘিরে রাখে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। সকাল পৌনে ১০টার দিকে চারতলা ওই ভবনের দিক থেকে বিকট বিস্ফোরণের পরপরই শুরু হয় গুলি। বিস্ফোরণে হোটেলের চতুর্থ তলার রাস্তার দিকের অংশের দেয়াল ও গ্রিল ধসে নিচে পড়ে। কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের এই অভিযানের নাম দেয়া হয়েছে ‘অপারেশন আগস্ট বাইট’। যা শেষ হয় সকাল সাড়ে ১০টার দিকে।

পুলিশের ভাষ্য, অভিযানের সময় সাইফুলকে আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়। পরে ওই ‘জঙ্গি’ একটি বোমা বিস্ফোরণের পর তাকে গুলি করে সোয়াটের সদস্যরা। এরপর মারা যান তিনি।
 

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া