adv
২০শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঢাকা মেডিকেলে সুস্থ আছে তোফা-তহুরা

TOHURAডেস্ক রিপাের্ট : ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শিশু তোফা ও তহুরার শারীরিক অবস্থা ভালো আছে। অস্ত্রোপচারের ধকল গেলেও ৫ আগস্ট শনিবার সকাল পর্যন্ত শারীরিকভাবে তাদের বড় ধরনের কোনো জটিলতা দেখা দেয়নি। তাদের শরীরে সংক্রমণের যে আশংকা ছিল তা ঘটেনি।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু সার্জারি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক আশরাফ উল হক বলেন, তোফা-তহুরাকে জোড়া লাগানো অবস্থা থেকে দেহ আলাদা করার পর এ পর্যন্ত তাদের জটিল কোনো সমস্যা দেখা দেয়নি।

তহুরার চেয়ে তোফা মোটামুটি বেশি ভালো আছে জানিয়ে শিশু সার্জারি বিভাগের এই চিকিৎসক বলেন, তহুরার ড্রেসিংয়ের জায়গা বারবার ড্রেসিং করতে হচ্ছে। কারণ ড্রেসিংয়ের জায়গাটি ভিজে যাচ্ছে। তবে এতে এখন পর্যন্ত কোনো সংক্রমণ দেখা দেয়নি।

তিনি বলেন, তোফা-তহুরা স্বাভাবিকভাবেই খাওয়াদাওয়া করছে। মুখে বুকের দুধসহ অন্যান্য খাবার খাচ্ছে।

পিঠের কিছুটা নীচ থেকে কোমর পর্যন্ত জোড়া লাগানো অবস্থায় জন্ম নেয়া যমজ শিশু তোফা ও তহুরাকে জটিল অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে আলাদা করেছেন চিকিৎসকরা।

গত মঙ্গলবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের এক দল বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের সার্বিক তত্ত্বাবধানে ৯ ঘণ্টা ধরে চলে এ অস্ত্রোপচার।

১০ মাস বয়সী গাইবান্ধার এই শিশুদের অস্ত্রোপচারের পর প্রথমে আইসিইউতে রাখলেও এখন পোস্ট অপারেটিভ ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে।

ঢামেক হাসপাতালের শিশু সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক শাহনূর ইসলাম জানান, শিশু দুটির বয়স ১০ মাস। তাদের স্পাইনাল কর্ড, মেরুদণ্ড, পায়খানার রাস্তা ও প্রস্রাবের রাস্তা একটাই ছিল। তবে মাথা-হাত-পা ছিল আলাদা। ১৬ জন সার্জন মিলে এ অস্ত্রোপচার সম্পন্ন করেন। তোফা-তহুরা যেভাবে জোড়া লাগানো ছিল, চিকিৎসাবিজ্ঞানের ভাষায় একে বলা হয় ‘পাইগোপেগাস’। দেশে ‘পাইগোপেগাস’ শিশু আলাদা করার ঘটনা এটাই প্রথম। এর আগে দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে তিন জোড়া শিশুকে আলাদা করা হয়েছে। তবে যেসব শিশুকে আলাদা করা হয়েছিল, তাদের ধরন আলাদা ছিল।

২০১৬ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার রাজ মিয়ার স্ত্রী সাহিদা আক্তার এ জোড়া শিশুর জন্ম দেন। ৭ অক্টোবর ৯ দিন বয়সে জোড়া শিশু দুটিকে চিকিৎসার জন্য ঢামেক হাসপাতালে নেয়া হয়। পরে মেডিকেল বোর্ড গঠন করে জোড়া শিশু দুটির প্রাথমিক চিকিৎসা শুরু করা হয়। তখন ছোট একটি অপারেশনের মাধ্যমে তাদের পায়খানার রাস্তা আলাদা করে দেয়া হয়। এরপর তাদের শুধু প্রাথমিক চিকিৎসা ও পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছিল।

দীর্ঘ ১০ মাস প্রাথমিক চিকিৎসা ও পর্যবেক্ষণে রাখার পর তোফা ও তহুরার অস্ত্রোপচার করেন চিকিৎসকরা।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া