adv
২৩শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ভারতের নাকের ডগায় চীনা ডুবোজাহাজ, বেইজিংয়ের হুঙ্কার!

INDIAআন্তর্জাতিক ডেস্ক : সিকিম সীমান্তে টানাপড়েনের মধ্যেই ভারত মহাসাগরে চীনা ডুবোজাহাজের আনাগোনা বেড়েছে। আর একই সঙ্গে চীনের সরকারি সংবাদপত্রে প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য তুলে ধরে ভারতকে দেওয়া হল যুদ্ধের হুমকি। যা দু’দেশের সম্পর্কে নতুন করে উত্তেজনার পারদ ছড়িয়েছে।

সম্প্রতি ভারতের বিভিন্ন উপগ্রহের পাঠানো ছবি তথ্য দিয়েছে, ভারত মহাসাগর এলাকায় সক্রিয় রয়েছে অন্তত ১৪টি চীনা যুদ্ধজাহাজ। এগুলির কয়েকটি অত্যাধুনিক লুয়াং-৩ বা কুনমিং শ্রেণির ডেস্ট্রয়ার। যেগুলি থেকে নিখুঁত নিশানা স্থির করে ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়ার অত্যাধুনিক ব্যবস্থা রয়েছে।  

এরই মধ্যে ভারত মহাসাগরে ডিজেল চালিত ইউয়ান শ্রেণির ডুবোজাহাজ পাঠিয়েছে চীন। তবে এটিই প্রথম নয়, বিভিন্ন সূত্রে ভারতীয় নৌ-বাহিনী জানতে পেরেছে, ভারত মহাসাগরে ভারতের জলসীমার কাছাকাছি এসে নজরদারি চালাতে সাতটি ডুবোজাহাজ পাঠিয়েছে বেইজিং।  

২০১৩-১৪ সাল নাগাদ ভারতের জলসীমার আশেপাশে ২টি চীনা রণতরী ও ডুবোজাহাজ নজরে এসেছিল। তার পর থেকে ভারত মহাসাগরে চীনা নৌ বাহিনীর তৎপরতা বেড়েই চলেছে।

সমুদ্রে এভাবে শক্তি দেখানোর পাশাপাশি যুদ্ধের আবহ তৈরি করেও চাপ বাড়াতে চাইছে বেইজিং। আর সে জন্য বেছে নেওয়া হয়েছে সরকারি সংবাদ মাধ্যম ‘গ্লোবাল টাইমস’কে।  

সিকিম সীমান্তের ডোকা লা-য় প্রায় তিন সপ্তাহ ধরে মুখোমুখি দু’দেশের সেনা। দু’পক্ষই নিজেদের জমি শক্ত করতে সেনা বাড়িয়ে চলেছে। এই পরিস্থিতিতে সরকারি সংবাদপত্রে চীনা প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞ হু জিয়াং মন্তব্য করেছেন, ‘‘ভারত যদি চীনের জমি থেকে সেনা না সরায়, তা হলে চীন বাধ্য হয়ে সামরিক ব্যবস্থা নিতে পারে। ’’ তাঁর মতে, ভারত আসলে আমেরিকাকে দেখাতে চাইছে, তারা চীনকে আটকে রাখতে পারে।  

অবশ্য জিয়াং-এর দাবি, ‘‘মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ভারতকে গুরুত্বপূর্ণ শরিক মনে করেন না। কারণ তিনি জানেন, বেইজিংয়ের সঙ্গে সংঘাতে যাওয়ার মতো শক্তিশালী নয় দিল্লি। ’’

সিকিম সীমান্তে টানাপড়েনের মধ্যে ১৯৬২ সালের যুদ্ধের কথা মনে করিয়েছিল চীন। তার জবাব দিয়ে প্রতিরক্ষামন্ত্রী অরুণ জেটলি মন্তব্য করেছিলেন, ‘‘বেইজিংয়ের বোঝা উচিত ভারত সেই ৬২ সালে পড়ে নেই। ২০১৭ সালের ভারত অনেক আলাদা। ’’

এই প্রসঙ্গেই হু জিয়াং-এর দাবি, ‘‘চীন ও ভারতের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার যে ফারাক, তা ৬২ সালের থেকেও এখন অনেক বেশি। নিজেদের ভাল চাইলে ভারত শান্ত থাকবে। ’’

চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জেং শুয়াং ডোকা লা-য় চিনা সেনাকে রাস্তা গড়তে বাধা দেওয়ায় ভারতীয় সেনার পদক্ষেপকে ‘বিশ্বাসঘাতকতা’ বলে আখ্যা দেন। তার পরে দু’দেশের মধ্যে উত্তেজনার বহর বেড়েই চলেছে।  

আজ ভারতে চীনের রাষ্ট্রদূত লিউ ঝাউউই গোটা পরিস্থিতিকে ‘উদ্বেগজনক’ আখ্যা দিয়ে বলেছেন, ‘‘সেনা সরানোর প্রশ্ন নিয়ে কোনও সমঝোতা হবে না। বল এখন দিল্লির কোর্টে। ’’

এরই মধ্যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর উপর চাপ বাড়িয়েছে কংগ্রেস। আজ কংগ্রেস বলেছে, সিকিম সীমান্তে চিনা অনুপ্রবেশকে গুরুত্ব দিচ্ছে না সরকার। কূটনীতির পথে সমাধান খুঁজতে সরকারকে পরামর্শ দিয়েছেন দলের মুখপাত্র অজয় মাকেন।

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া