adv
৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

গ্রেনফেল টাওয়ার নিয়ে পূর্ণাঙ্গ তদন্তের নির্দেশ থেরেসার

LONDON-1আন্তর্জাতিক ডেস্ক : লন্ডনে গ্রেনফেল টাওয়ারের আগুন নিয়ে তদন্তের (পাবলিক এনকোয়ারি) নির্দেশ দিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এই খবর জানিয়েছে।

বুধবার রাতে পশ্চিম লন্ডনের গ্রেনফেল টাওয়ারে আগুন লাগে। রাত ১টা ১৫ এর দিকে আগুনের সূত্রপাত হয় বলে ধারণা করা হচ্ছে। আগুনের তাণ্ডবে ভবনটি একদম ছারখার হয়ে যাওয়ায় ১৭ প্রাণহানির পাশাপাশি শতাধিক মানুষের প্রাণহানির আশঙ্কা করা হচ্ছে। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের সবশেষ খবর অনুযায়ী ৭৮ জনকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তাদের মধ্যে ১৮ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। ‍এ ঘটনায় শোক জানিয়েছেন ব্রিটেনের রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর দফতর ও কার্যালয় ১০ নম্বর ডাউনিং স্ট্রিট সূত্রকে উদ্ধৃত করে বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, একজন বিচারকের নেতৃত্বে গ্রেনফেল টাওয়ারের ঘটনা তদন্ত করা হবে।

১৯৭৪ সালে নির্মিত ভবনটিতে ১২০টি বাসা ছিলো। বিভিন্ন ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ওই ভবনে ৪০০ থেকে ৬০০ মানুষের বসবাসের কথা জানিয়েছে। তবে আগুন লাগার পর তাৎক্ষণিক তা ছড়িয়ে পড়ে ভবনজুড়ে। ঠিক কতজন বের হতে পেরেছেন বা কতজন আটকা পড়েছেন সে বিষয়ে নিশ্চিতভাবে কিছু জানা যায়নি। ভবনের ভেতরে বহু মানুষের জিম্মি হয়ে থাকার খবর জানিয়েছিল প্রত্যক্ষদর্শীরা। একটা পর্যায়ে ঘরের ভেতরে আটকা পড়ে তারা জানালা দিয়ে জীবনের আর্তি জানাতে শুরু করে। তবে এখন আর কোনও প্রাণের আর্তি নেই ওই ভবনে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনের পর এক বিবৃতিতে থেরেসা মে বলেছেন, জনগণের ‘জানার অধিকার’ রয়েছে যে কেন এতো দ্রুত আগুন ছড়িয়ে পড়ল। তদন্তে সেই প্রশ্নের উত্তর মিলবে। থেরেসার দাবি, জরুরি সহায়তা কতৃপক্ষ  তাকে জানিয়েছেন খুবই দ্রুত, ভয়ঙ্কর এবং অপ্রত্যাশিত কায়দায় আগুন ছড়িয়ে পড়েছিল।

এবিসি নিউজের বুধবারের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, মঙ্গলবারের অগ্নিকাণ্ডের  ১৮ মাস আগেই বসবাসরতদের আগুনের ঝুঁকির ব্যাপারে সাবধান করে দেওয়া হয়েছিল। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানের এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, ২০১২ সালে ভবনটির অগ্নি নিরাপত্তা নিয়ে একটি রিপোর্ট তৈরি করেছিলো গ্রেনফেল অ্যাকশন গ্রুপ। রিপোর্টে বলা হয়, বেসমেন্ট, লিফটের মোটর রুপ ও গ্রাউন্ড ফ্লোরের ইলেক্ট্রিকাল রুমের অগ্নি নির্বাপণ যন্ত্র এক বছরেরও বেশি পুরাতন ছিলো। আর ২০০৯ সালের পর থেকে সেগুলো পরীক্ষাও করা হয়নি বলে দাবি করে গ্রুপটি।

থেরেসার মতে, আগুন সংক্রান্ত প্রাথমিক প্রতিবেদন আর পুলিশি তদন্তের পাশাপাশি একটি পাবলিক তদন্ত করা গেলে ঘটনার একেবারে গভীরে কোন সঙ্কট ছিল, তা জানা যাবে।    
ভবনের উপরের তলাগুলোকে উদ্ধারকাজ শেষ হয়েছে। সেখানে কাউকে জীবিত পাওয়া যায়নি। আরও উদ্ধারকার্য চালানো হবে।লন্ডন ফায়ার সার্ভিসের প্রধান ড্যানি কটন স্কাই নিউজকে বলেন, ‘দুর্ভাগ্যবশত আমরা এখন কাউকে জীবিত উদ্ধার করার আশা করতে পারছি না। এরকম অগ্নিকাণ্ডে কেউ বেঁচে গেলে সেটা অলৌকিক ব্যাপার হবে।’ পৃথক এক সাক্ষাতকারে কটন বলেন, এই মুহূর্তে ভবনের কিছু জায়গা নিরাপদ নয়।

গতরাতে ভবনের উচতলায় আমাদের দমকলকর্মীরা উদ্ধার অভিযান চালিয়েছে। সেখানে থেকে প্রাথমিক তল্লাশি করা হয়েছে। তিনি বলেন, অর্থাৎ যদিও আমরা সেখানে গিয়েছি কিন্তু পুরোপুরি উদ্ধার অভিযান চালানো এখনও সম্ভব হয়নি। ভবনটি পুরোপুরো নিরাপদ নিশ্চিত না করা পর্যন্ত আমি দমকলকর্মীদের ঝুঁকিতে ফেলতে চাই না।’ কটন বলেন, স্ট্রাকচারাল সার্ভেয়ার ও আরবান উদ্ধার বিশেষজ্ঞরা বৃহস্পতিবার ভবনটি পরীক্ষা করে দেখবেন। তারা নিরাপদ ঘোষণা করার পর উদ্ধার অভিযান চালানো হবে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া