adv
২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ভুল চিকিৎসায় স্কুলছাত্রের মৃত্যু, লাখ টাকায় সমঝোতা

comillaডেস্ক রিপাের্ট :কুমিল্লা জেলার নাঙ্গলকোটে প্রাইভেট ক্লিনিকে ভুল চিকিৎসায় এক স্কুলছাত্রের মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। 

শনিবার (১০ জুন) উপজেলার হরিপুর (সদর) গ্রামে অবস্থিত ‘নাঙ্গলকোট ট্রমা সেন্টারে’ এ ঘটনা ঘটে। পরে রাত ১০টায় ১ লাখ টাকায় ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়া হয়েছে বলে জানা যায়। 

নিহতের পরিবার ও স্বজনরা জানায়, উপজেলার আদ্রা ইউপির তুগুরিয়া গ্রামের প্রবাসী শাহ আলমের ছেলে ও ভোলাইন বাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী হৃদয় (১২)। সে গত ৪ মে গাছ থেকে পড়ে ডান পা ভেঙে যায় ও কোমরে ব্যাথা পায়। পরে অসুস্থ হৃদয়কে নাঙ্গলকোট ট্রমা সেন্টারে ভর্তি করে পরিবার। হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তার পায়ে প্লাষ্টার (ব্যান্ডেজ) করলে তাকে বাড়ি নিয়ে যাওয়া হয়। 

এরপর শুক্রবার (৯ জুন) রাতে আবারও তার পায়ে ব্যাথা অনুভুত হলে শনিবার সকাল ৭টায় পুনরায় ওই হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসে তার পরিবার। এ সময় হসপিটালের মালিক চাঁদ মিয়া ওরফে ডা. মনির একজন নার্সকে ডেকে হৃদয়কে ২টি ব্যাথানাশক ইনজেকশন ও স্যালাইন দেয়ার কথা বলে। 

পরে নার্স তাকে একটি ইনজেকশন প্রয়োগ করার ৫ মিনিটের মধ্যে সে অচেতন হয়ে পড়ে। তখন তড়িগড়ি করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ হৃদয়ের অবস্থা সঙ্কটাপন্ন বলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠায়। 

সেখানে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। 

হৃদয়ের দাদা আবদুস সাত্তার জানান, প্রায় ১ সপ্তাহ আগে হৃদয়কে ট্রমা হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। শুক্রবার রাতে হৃদয়ের পায়ে ব্যাথা হলে শনিবার সকালে পুনরায় ট্রমা হাসপাতালে নেয়া হয়। হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার হৃদয়ের চিকিৎসার জন্য স্যালাইন এবং ইনজেকশান আনতে বলেন। ইনজেকশান আনার পর হৃদয়কে একটি ইনজেকশান দেয়ার সাথে-সাথে হৃদয়ের মৃত্যু হয়।  

এদিকে, এ ঘটনার পর শনিবার রাত ১০টায় তুগুরিয়া গ্রামের যুবলীগ নেতা ফয়েজ উল্লাহ, জুলিয়াস ও তাজুল ইসলাম হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাথে সমন্বয় করে নিহতের পরিবারকে ১ লক্ষ টাকা দিয়ে এ ঘটনা দফারফা করেছেন বলে জানা গেছে।

এ ব্যাপারে ওই হাসপাতালের মালিক চাঁদ মিয়া ওরফে ডা. মনির বলেন, ‘আমি তাকে চিকিৎসা দেই নাই। আমাদের এখানে আনার পর তার অবস্থা খারাপ দেখে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠিয়ে দিয়েছি। তবে তার লিভারের সমস্যা থাকার কারণে সে মারা গেছে।’ 

এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মাহবুব আলম প্রশিক্ষণে থাকার কারণে তার সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি।
 
নাঙ্গলকোট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আইয়ূব জানান, আমি বিষয়টি জানি না। তবে অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
   
কুমিল্লা জেলা সিভিল সার্জন ডা. মো. মজিবুর রহমান বলেন, ‘আমি বিষয়টি আপনার কাছ থেকে এই মাত্র শুনেছি। এ ব্যাপারে খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া