adv
২৯শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বিএনপির সামনে দুই চ্যালেঞ্জ

KHELEDAডেস্ক রিপাের্ট : জাতীয় সংসদের বাইরে থাকা প্রধান বিরোধী জোটের মূল দল বিএনপির সামনে এখন দুটি চ্যালেঞ্জ। এক. সরকারকে নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের দাবি মেনে নেওয়া বাধ্য করা এবং দুই. দলকে একতাবদ্ধ করে নির্বাচনে অংশ নেওয়া। তবে অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে, সরকার এখনো বিএনপির নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের দাবির প্রতি নমনীয় নয়। তারা সাফ জানিয়ে দিয়েছে যে, বর্তমান সাংবিধানিক কাঠামোতেই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

সম্প্রতি আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা লক্ষ্মীপুরে এক জনসভায় ভাষণ দিতে গিয়ে আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানিয়েছেন, সারা দেশের আওয়ামী লীগের বিদ্যমান কমিটিতে আগামী নির্বাচন পর্যন্ত কোনো পরিবর্তন করা হবে না। অর্থাৎ আওয়ামী লীগ যে নির্বাচনের প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করেছে- এসব কার্যক্রম থেকেই বুঝা যায়।

সেই তুলনায় বিএনপির অবস্থা কী। নতুন বছরে নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সাক্ষাৎকার নিতে গিয়ে তার কক্ষে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে একটি প্রশ্ন করা হয়েছিল, বিএনপি কি নির্বাচনে যাচ্ছে? তিনি স্পষ্ট ভাষায় উত্তর দিয়েছিলেন, ‘বিএনপি নির্বাচনমুখী দল। বিএনপি সবসময় নির্বাচনে অংশগ্রহণের প্রস্তুতি নিয়েই থাকে। তাই নির্বাচনে না যাওয়ার প্রশ্নই ওঠে না। তবে বিএনপি চায়, নির্বাচনে অংশগ্রহণের সমান সুযোগ। অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য আমরা নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের দাবি করেছি। এই সহায়ক সরকার ছাড়া বর্তমান দলীয় সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচনই নিরপেক্ষ আশা করা যায় না।’

এছাড়া বিএনপির নীতিনির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটির বেশ কয়েকজন সদস্য যেমন ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, গয়েশ্বর চন্দ্র রায় প্রমুখ এ নিবন্ধের লেখকের সঙ্গে আলাপে জানিয়েছেন যে, বিএনপি নির্বাচনে যেতে চায়। তবে কোনোভাবেই শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন কোনো সরকারের অধীনে নয়। নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য নিরপেক্ষ সরকারের প্রয়োজন। এজন্যই আমরা নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের দাবি জানিয়েছি। এ সরকার কেমন হবে সেই প্রস্তাবনাও আমরা উত্থাপন করব।  

উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল করে সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনী পাস হওয়ার পর থেকেই বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের প্রধান দাবি ছিল, সংবিধানে তত্ত্বাবধায়ক ব্যবস্থার পুনঃস্থাপন করা। এছাড়া তারা কোনো নির্বাচনে অংশ নিবে না। কিন্তু আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগীরা বিএনপির এ দাবিকে নাকচ করে দিয়ে বলেছিল, শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচনে অংশ নিতে হবে। অন্য কোনো দাবি মানা হবে না।

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন শেখ হাসিনা সরকারের অধীনেই হয়েছে। তবে ক্ষমতাসীন ১৪ দলীয় জোটের প্রধান আওয়ামী লীগের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপিসহ নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধিত ৪৪টি রাজনৈতিক দলের মধ্যে ৩২টিই সেই নির্বাচন বর্জন করে। তারা লীগ সরকারের অধীনে নির্বাচন করতে অস্বীকৃতি জ্ঞাপন করে এই বলে যে, তাদের অধীনে নির্বাচন অবাধ ও নিরপেক্ষ হবে না। একটি সংসদ বহাল রেখে আরেকটি সংসদ নির্বাচন সংবিধানের আলোকে যথার্থ নয়। তাতে প্রতিদ্বন্দ্বীরা কেউ নির্বাচন করেন এমপি পদে বহাল থেকে, অন্যরা করেন সাধারণ নন-এমপি প্রার্থী হিসেবে। তাতে বৈষম্য সৃষ্টি হয় প্রতিদ্বন্দ্বিতায়। লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড আর অবশিষ্ট থাকে না মোটেও।

বিএনপি ও তার সহযোগীরা এসব যুক্তি দেখিয়ে সেই নির্বাচনে অংশ না নিয়ে বয়কট করে। সারাদেশে ব্যাপক আন্দোলন গড়ে তুলতে পারলেও নির্বাচনের পরে মেষ মুহূর্তে আন্দোলন হঠাৎ করেই স্থগিত করা হয়। নির্বাচনের সময় আওয়ামী লীগের নেতারা যেখানে দশম সংসদ নির্বাচনকে বলেছিল কেবল ‘নিয়ম রক্ষার’, সেই তারাই আবার আন্দোলন স্থগিত করার পর বলেছে, সংসদের মেয়াদ ৫ বছরই থাকবে। ২০১৯ সালের একদিন আগেও নির্বাচন হবে না।-ঢাকাটাইমস

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া