adv
৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কুড়াল সরকারের পায়ে নয়, জাতির কপালে

                     – গোলাম মোর্তোজা –

MORTUJAনিজের ক্ষতি নিজে করা নিয়ে অনেক প্রবাদ আছে। এই প্রবাদগুলো সমাজ বাস্তবতা থেকেই তৈরি হয়েছে। এর কোনোটিই অসত্য বা কল্পনা করে কেউ তৈরি করেননি।
কোনও কোনও সময় প্রবাদের উপস্থিতি এত বেশি বেড়ে যায় যে, আতঙ্কিত না হয়ে উপায় থাকে না। আতঙ্ক এক সময় হাস্য-রসিকতায় রূপ নেয়। বর্তমান সময়ের বাংলাদেশে এমন একটা অবস্থা বিরাজ করছে।
১. বাল্যবিবাহ প্রসঙ্গ। নতুন আইনটির শিরোনাম ‘বাল্যবিবাহ নিরোধ বিল ২০১৭’। জাতীয় সংসদে পাস হওয়ার পর যা এখন আইন। এই আইনে একটি ‘বিশেষ বিধান’ রাখা হয়েছে। এই বিধানের সুযোগ কাজে লাগিয়ে 'বাল্য' নয় পরিষ্কার করে বললে, শিশুকে বিয়ে দেওয়া যাবে।
‘১৮ বছরের নিচের কোনও শিশুকে বিয়ে দেওয়া যাবে না’- তা আর কার্যকর থাকল না। এতদিনও কার্যকর ছিল না এবং নারী ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রেক্ষিতে বিশ্লেষণ।
ক. প্রতিমন্ত্রীর বক্তব্য ‘যুগোপযোগী’ আইন করেছে সরকার। প্রতিমন্ত্রী বলেছেন, ‘বাল্য বিয়ের ফলে সমাজে নানা সমস্যা, মানবাধিকার লঙ্ঘন, নিপীড়ন-নির্যাতনের শিকার হন নারীরা। বাল্যবিবাহের ক্ষতি সবাই জানেন, কিন্তু মানেন না।’
খ. বাংলাদেশে ৬৬% মেয়ে শিশুর বিয়ে হয়ে যায় যখন তার বয়স ১৮ বছরের নিচে থাকে। এর মধ্যে বয়স যখন ১৫ বছরের নিচে থাকে এমন ৪০% মেয়ে শিশুর বিয়ে হয়ে যায়।
গ. সরকারের বক্তব্য অনুযায়ী নতুন এই আইনের ফলে শিশু বা বাল্যবিবাহ কমে যাবে। ২০৪১ সালে বাল্যবিবাহমুক্ত দেশে পরিণত হবে বাংলাদেশ।

ঘ. বাংলাদেশের বাল্যবিবাহের পরিসংখ্যানটি ভয়ঙ্কর। তা কমানো যাচ্ছে না বা যাচ্ছিল না। কমানো না গেলেও গ্রামাঞ্চলে ‘বাল্যবিবাহ খারাপ’ কোনও শিশুকে বিয়ে দেওয়া যাবে না বা ঠিক না- এমন একটি ধারণা বা মনোভাব প্রচলিত ছিল। গ্রামের কিছু সচেতন মানুষ, এনজিও কর্মীরা বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে দুর্বল হলেও একটা ভূমিকা রাখতেন। অন্তত জনসচেতনতা তৈরির ক্ষেত্রে একটা ভূমিকা ছিল। দীর্ঘ বছর ধরে প্রচারণার ফলে তা তৈরি হয়েছিল। সংখ্যায় অত্যন্ত কম হলেও স্থানীয় প্রশাসনও বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে কিছু ভূমিকা রাখত বা রাখার সুযোগ ছিল। এ কারণে বাল্যবিবাহ সমাজে ভয়াবহভাবে থাকলেও এক ধরনের গোপনীয়তা বজায় রাখা হতো।

ঙ. নতুন আইনের ‘বিশেষ বিধানের ফলে বাল্যবিয়ে (যা আসলে শিশু বিয়ে) আইনি বৈধতা পেয়ে গেল। ‘বাল্যবিয়ে নিরোধ’ নয়, ‘বাল্য বা শিশু বিয়ে উৎসাহিত বা বৈধতা’ দেওয়ার আইন করা হলো।

আইনি কোনও বাধ্যবাধকতা না থাকায় বাল্যবিয়ে আগের মতো তো থাকবেই, আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে যাবে। এই আশঙ্কা মোটেই অমূলক নয়। প্রতিমন্ত্রী সংসদে যা বলেছেন, আর এই আইনে যা আছে, সম্পূর্ণ পরস্পরবিরোধী। বাল্যবিবাহ নিরোধের একটি বিষয়ও নতুন এই আইনে নেই।

চ. এযাবৎকালে নারীদের যতটা অগ্রগতি হয়েছিল, আইন ঠিক ততটাই বা তার চেয়ে বেশি পিছিয়ে দেবে। সবচেয়ে বেশি পেছাবে ভাবমূর্তি বা ইমেজগত জায়গায়। আইন করে যখন বাল্য বা শিশু বিয়ের বৈধতা দেওয়া হয়, দেশ বিদেশে যখন এই তথ্য জানবে, নারীর অধিকার আন্দোলনের ইমেজ তখন দারুণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। আর এটা শুধু নারীর ইমেজের জন্য ক্ষতিকর নয়। একটি দেশ ও দেশের মানুষের ইমেজের জন্যেও অত্যন্ত ক্ষতিকর। নারীদের জন্য অসম্মানজনক এই আইনটি,  সামগ্রিকভাবে অসম্মানজনক বাংলাদেশ ও বাংলাদেশের মানুষের জন্য।

ছ. একটি সমাজ কতটা এগিয়েছে তার একটি গুরুত্বপূর্ণ সূচক সেই সমাজে নারীর অবস্থান। নতুন এই আইন সমাজের নারীদের একটা ভয়ঙ্কর করুণার প্রতিনিধিত্ব করছে। একটি মেয়ে শিশু শারীরিক বা মানসিকভাবে নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। আরও সরাসরি বললে যৌন নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। নির্যাতন করছে একজন ‘পুরুষ’। সে ১৮ বছরের নিচে বা ঊর্ধ্বে যে কোনও বয়সের হতে পারে। ‘বিশেষ বিধান’ ওই নির্যাতিত নারী শিশুর ‘সুরক্ষা’ দেওয়ার জন্যে!

সুরক্ষা কী?

নির্যাতনকারীর সঙ্গে নির্যাতিতার বিয়ে দেওয়া যাবে। এবং এই বিয়ে দিয়ে দেওয়াটাকে উৎসাহিত করা হচ্ছে। ৫০ বছরের একজন পুরুষ যদি ১৫ বছরের একজন মেয়ে শিশুকে যৌন-নিপীড়ন করে, তবে তাদের বিয়ে দিয়ে দিতে হবে বা দেওয়া যাবে। আপনি যতই বিস্মিত হন, আইনের বিধানে তাই রাখা হয়েছে। সরকারের এই বিধান রাখার ধরন দেখে মনে হয়, দেশ বিশেষ করে গ্রামাঞ্চল ‘আইয়ামে জাহেলিয়া’র যুগে ফিরে গেছে।

‘ধষর্কের সঙ্গে বিয়ের বিধান’ কোনও সামান্য সভ্য দেশেও থাকতে পারে? সেই প্রশ্ন বা বিতর্কের অবকাশ নেই। বাংলাদেশের জাতীয় সংসদ এই আইন পাস করেছেন।

জ. আপনি একটি শিশুকে বিয়ে করতে চান, ধর্ষণ করেন বা অন্য কোনও উপায়ে নির্যাতন করেন, অভিভাবকরা মিলে আপনার সঙ্গে তার বিয়ে দিয়ে দেবেন। ধর্ষণ বা যৌন নিপীড়কদের উৎসাহিত করা হয়েছে এই আইনে। ধর্ষণ করলেই বিয়ে, এমন অনেক গল্প প্রচলিত হবে আগামীর বাংলাদেশকে নিয়ে।

ঝ. অভিভাবকরা শিশু বিয়েতে সম্মত হলে, আদালতের আদেশের প্রয়োজন হবে। বিশেষ বিধানের মধ্যে ফেলে অভিভাবকরা যখন আদালতে যাবেন, আদালত কিভাবে অনুমতি দেবেন? আদালতের ওই লোকবল নেই যে, তারা তদন্ত করে সিদ্ধান্ত দেবেন। পুলিশ বা প্রশাসন তদন্ত করে আদালতকে জানাবে, তাও বাস্তবসম্মত নয়। নিম্ন আদালতের বিরুদ্ধে এমনিতেই অনেক অভিযোগ। সম্ভবত আর একটি অভিযোগের দরজা উন্মুক্ত করা হলো। বিশেষ বিধানকে কোনোভাবেই যুক্তি দিয়ে প্রতিষ্ঠিত করা যাচ্ছিল না। ফলে ‘আদালতের আদেশ’ সংযুক্তি করে অগ্রহণযোগ্য বিষয়কে গ্রহণযোগ্য করে তোলার ব্যর্থ চেষ্টা করা হয়েছে।

গ্রহণযোগ্যতা দেওয়ার জন্যে আরেকটি ব্যর্থ চেষ্টা ‘নারী’ বাদ দিয়ে ‘অপ্রাপ্ত বয়স্ক’ সংযুক্ত করা হয়েছে। এর ফলে ৫ বছরের ছেলে শিশুরও বিয়ের বৈধতা তৈরি হলো।

ঞ. প্রতিমন্ত্রীর স্ববিরোধী বক্তব্যের একটি সুনির্দিষ্ট করে বলছি। তিনি বলেন, বাল্যবিবাহের পরিণতিতে মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে, শিশু মৃত্যু, অপুষ্টি কমানো যাচ্ছে না।

ধর্ষকের সঙ্গে বিয়ে দিলে নির্যাতিত শিশুটিকে সম্মান করা হয় না, তার মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয়। ধর্ষককে শাস্তি দিলে, শিশুটির মানবাধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়। ধর্ষণ প্রবণতা কমে। শিশু বিয়ের বৈধতায়, অপুষ্ট শিশুর সংখ্যা বাড়বে, মৃত্যুহার বাড়বে কমবে না।

২. এত স্ববিরোধী, শিশু -নারী -দেশ -সমাজের জন্য ক্ষতিকর একটা আইন সরকার করল কেন?

‘সাফল্য’ এবং ‘উন্নয়ন’ শব্দ দুটির মধ্যে স্বাভাবিক বোধ বুদ্ধি হারিয়ে গেছে। এমডিজি (এসডিজি) লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বাংলাদেশ অনেক দেশের চেয়ে এগিয়ে আছে, পিছিয়ে আছে 'জেন্ডার সমতা অর্জন এবং সকল নারীর ও মেয়েদের ক্ষমতায়ন'র ক্ষেত্রে। বাল্যবিবাহের সূচক কমাতে না পারলে, এসডিজির এই লক্ষ্য অর্জনে সাফল্য দেখানো যাচ্ছে না। কথিত ‘উন্নয়ন’ ও প্রশ্নের মুখে পড়ছে। বাল্যবিবাহ এমন একটি বিষয় যা হুট করে কমানো যাবে না। বিশ পঁচিশ বছরের সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য, পরিকল্পনা নিয়ে কঠোর পরিশ্রম করলে কিছুটা অন্তত কমানো সম্ভব। কিন্তু এই সময় সরকারের হাতে নেই। তাছাড়া এমন নীতিতে বিশ্বাসও নেই। তাৎক্ষণিক সাফল্য প্রয়োজন। সেই সাফল্য দেখানোর জন্যেই এই নতুন আইন। এখন বাল্যবিবাহ আগের মতো যদি থাকে, যদি নাও বাড়ে, কাগজে-কলমে প্রমাণ করা যাবে না যে, বাল্য বিবাহ হয়েছে বা হচ্ছে। যেহেতু দেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী শিশু বিয়ে সম্পন্ন হবে, ফলে সূচকে বাল্যবিবাহ ৬৬ শতাংশ থেকে ৫ বা ১০ শতাংশে নেমে আসবে। একটি আইনের ফলে যদি তাৎক্ষণিকভাবে এত বড় সাফল্য পাওয়া যায়, তবে দীর্ঘ মেয়াদে কার্যকর উদ্যোগ নেওয়ার পথে সরকার হাঁটবে কেন!

৩. এসডিজিতে সাফল্য দেখানোর জন্য শিশু বিয়ে বৈধ করে আইন হলো। শিক্ষায় ‘উন্নয়ন’র জন্যে প্রশ্ন ফাঁস, উত্তর বলে দেওয়া, বেশি নম্বর দেওয়ার নির্দেশনা… সব বৈধ। সরকারের মন্ত্রীর বাসায় মিটিং করে ধর্মঘটের সিদ্ধান্ত হয়। ট্রাক চালককে আদালত ফাঁসির রায় দিয়েছে, তার প্রতিবাদে ধর্মঘট। এই ট্রাক চালক রাস্তায় ট্রাক চালাতে গিয়ে দুর্ঘটনা ঘটিয়ে মানুষ হত্যা করেনি। হত্যা করেছে, অন্যের পারিবারিক রাস্তা দিয়ে মাটি ভর্তি ট্রাক চালাতে নিষেধ করা হয়েছিল বলে। ঘটনাটি ঘটেছিল সাভারের ঝাউচরে। তাদের রাস্তা দিয়ে মাটির ট্রাক নিয়ে যাওয়া যাবে না, একথা বলে ট্রাকের সামনে এসে দাঁড়িয়েছিলেন খোদেজা বেগম। না সরলে চাপা দিয়ে মেরে ফেলবেন, চালকের এই হুমকিতেও সরেননি খোদেজা বেগম। ট্রাক চালক তারপর চাপা দিয়ে হত্যা করে খোদেজা বেগমকে। ২০০৩ সালের ২০ জুন ঘটানো হত্যাকাণ্ডের রায় হয় গত ২৮ ফেব্রুয়ারি।

বিচার বিভাগ বা আদালত নয়, কোন আইন কোন ধারায় বিচার হবে, তা বলে দিচ্ছেন সরকারের মন্ত্রীর শ্রমিক সংগঠন। মানুষ হত্যা করা যাবে, বিচার বা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া যাবে না, এই দাবিতে দেশের মানুষের বিরুদ্ধে ধর্মঘট বৈধ। মন্ত্রী বলেছেন, তাদের আন্দোলন করার অধিকার আছে।

আইনের শাসন বলতে কিছু থাকছে না, সব প্রতিষ্ঠান একেএকে ধ্বংস করে দেওয়া হচ্ছে। সরকার কুড়াল নিজের পায়ে মারলেও, সেই কুড়ালের আঘাত লাগছে জনমানুষের কপালে। ক্ষত-বিক্ষত, দগ্ধ হচ্ছে মানুষ।

গ্যাস খাত লাভজনক, কোনও যুক্তি নেই, তবুও গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি চলছেই। আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম যতই কমুক, তার সুফল জনগণ পাবেন না। দাম কমানো হবে না। কম দামের তেল দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন করে, তা বেশি দামেই জনগণের কাছে বিক্রি করা হবে। ব্যাংক থেকে, শেয়ারবাজার থেকে জনগণের টাকা লুট হয়ে যাবে, পাচার হয়ে যাবে, তদন্ত-বিচার হবে না।

সব সুফল ভোগ করবে সরকার, সরকারের কর্মচারী-কর্মকর্তারা। জনগণ এবং সরকার কার্যত পরস্পরবিরোধী শব্দে পরিণত হয়েছে। জনগণ আর সরকার এখন আলাদা বিষয়! জনগণের থেকে অর্থ নিয়ে, জনগণের নামে ঋণ নিয়ে সরকার ‘সাফল্য’ আর ‘উন্নয়ন’র গল্প বলবে। প্রশাসনের সুযোগ-সুবিধা দ্বিগুণ, তিনগুণ করবে। প্রশাসন, পুলিশ সরকারকে ক্ষমতায় রাখবে, জনগণের তো কোনও দরকার নেই।

লেখক: সম্পাদক, সাপ্তাহিক

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া