adv
২৪শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভারত থেকে দেশে ফিরে বেনাপোলে আটকা

image-22122ডেস্ক রিপাের্ট : সড়ক দুর্ঘটনায় দুই বিশিষ্ট ব্যক্তির মৃত্যুর মামলায় এক বাস চালককে যাবজ্জীবন কারাদ- দেয়ার প্রতিবাদে গোটা খুলনা বিভাগে বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছেন পরিবহন শ্রমিকরা। এতে বিশেষভাবে বিপাকে যশোরের বেনাপোল বন্দর দিয়ে বাংলাদেশে ফেরা যাত্রীরা। বাস না পেয়ে বন্দরে আটকে পড়েছে শত শত মানুষ।

কেবল যাত্রী না, বিপাকে ব্যবসায়ীরাও। বিশেষ করে পচনশীল পণ্য আমদানি করেছেন যারা তারা আছেন দুশ্চিন্তায়। বন্দরে চার শতাধিক পণ্যবাহী ট্রাক আটকা পড়ে আছে। বন্দর থেকে মালামাল খালাস পুরোপুরি বন্ধ রয়েছে।

গত ২২ ফেব্রুয়ারি সড়ক দুর্ঘটনায় সাংবাদিক মিশুক মুনীর ও চলচিত্র নির্মাতা তারেক মাসুদসহ পাঁচ জন নিহত হওয়ার মামলায় বাস চালক জমির হোসেনের যাবজ্জীবন কারাদ- দিয়েছে মানিকগঞ্জের একটি আদালত। এর প্রতিবাদে পরদিন থেকেই জমিরের নিজ এলাকা চুয়াডাঙ্গায় পরিবহন ধর্মঘট শুরু হয়। রবিবার সকাল থেকে ধর্মঘট শুরু হয় খুলনা বিভাগের ১০ জেলাতেই।

চট্টগ্রামের ধনিয়া এলাকার আট বছরের শিশু আলী সাদনান ভুগছে ক্যান্সারে। ভারতে ১৫ দিনের চিকিৎসা শেষে বাবা আহম্মদ আলীকে নিয়ে দেশে ফেওে সে। কিন্তু আর আগাতে পারছে না তারা।

আহম্মদ আলী জানান, তার কাছে বেশি টাকা-পয়সা নেই। কী করে এখন বাড়ি যাবেন, সে চিন্তা পেয়ে বসেছে তাকে।

একই সমস্যা ভারত থেকে আসা মাহবুব আলমের। তার বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জে। সঙ্গে আনা স্বজনদের জন্য উপহার সামগ্রী পরিবহন কোম্পানির কাউন্টারে জমা রেখে ঋণ করার পরিকল্পনা করছেন তিনি।

বেনাপোলের সোহাগ পরিবহনের ম্যানেজার আব্দুল জলিল জানান, মালিকপক্ষের সিদ্ধান্তের কারণে বেনাপোল থেকে সব রুটে পরিবহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। পরবর্তী নির্দেশনা না পাওয়া পর্যন্ত বেনাপোল বন্দর থেকে কোন বাস ছাড়বে না।

ভারত থেকে ফিরে আসা যাত্রীরা কেউ বিকল্প উপায়ে ছোট ছোট হাড়িতে ভেঙে ভেঙে গন্তব্যে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। কিন্তু এতে নিরাপত্তার সমস্যার পাশাপাশি অতিরিক্ত ব্যয় হচ্ছে। সময়ও লাগছে অনেক বেশি। এসব ভোগান্তি যারা সইতে চান না তারা আবাসিক হোটেল বা পরিচিতজনদের বাড়িতে যোগাযোগ করছেন।

বেনাপোলে একটি চায়ের দোকানে কথা হয় ভারত থেকে চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরে আসা নারায়নগঞ্জের আবু তাহেরের সঙ্গে। তিনি কোনো আবাসিক হোটেলে থাকার জন্য কক্ষ ভাড়া পাননি। তিনি বলেন, ‘কীভাবে বাড়ি ফিরবো  কিছু ভেবে পাচ্ছি না। তাই চায়ের দোকানে বসে অপেক্ষা করছি। কখন বাস ছাড়বে।’

রবিবার ভারত থেকে বাংলাদেশে এসে বেনাপোল বন্দরে কোটি টাকার পচনশীল পণ্যসহ পাঁচটি ট্রাক আটকা পড়ে। মাছের ট্রাকের বরফ গলে মাছ নষ্টের আশঙ্কা করছেন ভরতের উড়িশা থেকে আসা ট্রাক চালক পলাশ প্রামাণিক।

বেনাপোল ট্রান্সপোর্ট মালিক সমিতির সভাপতি কামাল হোসেন জানান, পরিবহন শ্রমিক ধর্মঘটের কারণে বন্দর থেকে আমদানি পণ্য খালাস হচ্ছে না। যে সব ট্রাক বন্দর থেকে পণ্য লোড করছে তারা ধর্মঘট শেষ হওয়ার আশায় বন্দরেই অপেক্ষা করছে। যদি ধর্মঘট দ্রুত প্রত্যাহার করা না হয় তাহলে বন্দরে ভয়াবহ জট হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।
বেনাপোল সি এন্ড এফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন বলেন, ধর্মঘটের ফলে বেনাপোল বন্দরে প্রায় চার শতাধিক ট্রাক আমদানি পণ্য নিয়ে বন্দর এলাকায় আটকা পড়েছে। এসব পণ্যের মধ্যে শিল্প কারখানায় ব্যবহৃত কাঁচামাল ও জরুরি অক্সিজেন এবং পচনশীল বিভিন্ন ধরনের পণ্য রয়েছে। দ্রুত সমাধান না হলে আটকে থাকা পণ্য পচে ব্যবসায়ীরা মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন হবেন।

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
February 2017
M T W T F S S
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া