adv
৪ঠা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আইনমন্ত্রী বললেন- মামলার সুযোগ নেই বিশ্বব্যাংকের বিরুদ্ধে

image-20611নিজস্ব প্রতিবেদক : পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের ভুয়া অভিযোগ তুলে প্রকল্পটি পিছিয়ে দেয়ার ঘটনায় বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী সংস্থাটির বিরুদ্ধে সরকারের মামলা করার সুযোগ নেই বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। তবে যারা ব্যক্তিগতভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, তারা বিশ্বব্যাংকের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে পারেন কি না বিষয়টি খতিয়ে দেখা যেতে পারে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রী।

১৪ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে মিট দ্য প্রেস অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। ল রিপোর্টার্স ফোরাম এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

তবে গত রবিবার সংসদে আইনমন্ত্রী জানিয়েছিলেন বিশ্বব্যাংকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার সুযোগ আছে। তিনি জানিয়েছিলেন, এই ব্যবস্থা যেমন বাংলাদেশে নেয়া যাবে, তেমনি বিদেশেও নেয়া যায়। বিশ্বব্যাংককে প্রধানমন্ত্রীর কাছে ক্ষমা চাইতে হবে বলেও দাবি তুলেছিলেন মন্ত্রী।

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সেতু প্রকল্প পদ্মা সেতুতে দুর্নীতি চেষ্টার অভিযোগ নিয়ে গত কয়েক বছর ধরেই বাংলাদেশে তোলপাড় হয়েছে। ২০১০ সালেই ওই সেতুর পরামর্শক নিয়োগে ঘুষ দেয়ার চক্রান্তের অভিযোগ আনে বিশ্বব্যাংক। বাংলাদেশ সরকার বরাবর এই অভিযোগ অস্বীকার করলেও সে সময়ের যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনের বিরুদ্ধে মামলার দাবি জানায় বিশ্বব্যাংক।

একবার পদ্মা সেতুতে প্রতিশ্রুত ১২০ কোটি ডলার ঋণ স্থগিত করে বিশ্বব্যাংক প্রকল্পে পরে আবার ফিরে আসে। এরপর তাদের শর্ত মেনে একটি বিশেষ তদন্ত দল গঠন করে দুদক। আর সাতজনের বিরুদ্ধে মামলাও করে সংস্থাটি। কিন্তু আবুল হোসেনের বিরুদ্ধে কিছু পাওয়া যায়নি জানিয়ে তার বিরুদ্ধে মামলা করতে রাজি হয়নি বাংলাদেশের দুর্নীতিবিরোধী সংস্থাটি।

তবে বিশ্বব্যাংক এটা মেনে নিতে না পেরে ২০১৩ সালের ৩০ জুলাই অর্থায়নের সিদ্ধান্ত বাতিল করে বিশ্বব্যাংক। তারা সরে যাওয়ার পর জাইকা, এডিবি ও আইডিবিও সরকারের সঙ্গে ঋণচুক্তি বাতিল করে। এতে পদ্মা সেতু প্রকল্পটিই হুমকিতে পড়ে। এরপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজ অর্থায়নে সেতু বানানোর সিদ্ধান্ত নেন। এখন পর্যন্ত প্রায় অর্ধেক কাজ শেষ হয়েছে। ২০১৮ সালের ডিসেম্বরেই সেতুটি চালু হবে বলে জানিয়েছে সরকার।

এর মধ্যে এই ঘুষ চক্রান্ত নিয়ে কানাডার আদালতে চলা মামলার রায় প্রকাশ হয় স্থানীয় সময় গত শুক্রবার। এতে বিচারক বিশ্বব্যাংকের অভিযোগকে গালগপ্প ও উড়োকথা বলে বর্ণনা করে সব আসামিকে খালাস দেন।

পদ্মা সেতু প্রকল্পে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়ন বন্ধে নোবেলজয়ী ড. ইউনূস জড়িত বলে দাবি করেন আইনমন্ত্রী।  তবে তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে কি না সে বিষয়টি পরিষ্কার করেননি মন্ত্রী। এ ধরনের ষড়যন্ত্র অপরাধ কি না এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘এটি অপরাধ কি না জানি না। সামাজিক আইন ও মূল্যবোধ বলেতো একটি কথা আছে। যদি এটি আইনের আওতায় নাও আসে আপনাদের (সাংবাদিক) লেখনির মাধ্যমে এটি তুলে ধরবেন।’

পদ্মা সেতু নিয়ে যে ষড়যন্ত্র হয়েছে এটা সরাসরি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র বলে মনে করেন মন্ত্রী। পদ্মা সেতুর বিষয়ে যত তথ্য উপাত্ত আছে তা প্রকাশ করতে দুর্নীতি দমন কমিশনের প্রতি আহ্বান জানান আইনমন্ত্রী।

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আগে থেকেই আমরা বলে আসছিলাম, এ প্রকল্পে কোনো দুর্নীতি হয়নি। পদ্মা সেতু বাংলাদেশের নিজস্ব অর্থায়নে হচ্ছে। আর এটি সম্ভব হয়েছে শুধু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃঢ়তা, সাহসিকতা ও মনোবলের কারণে।’

আনিসুল হক বলেন, ‘পদ্মা সেতু নির্মাণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ইচ্ছাকে বাস্তবায়ন না করতে দেয়ার জন্য বিভিন্ন মহল থেকে ষড়যন্ত্র হয়েছে। অর্থায়ন বন্ধ করা হয়েছে। একজন ব্যক্তির ক্ষতি করতে গিয়ে পুরো জাতি ও রাষ্ট্রের ক্ষতি করা হয়েছে। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব বাধাকে অতিক্রম করে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করছেন।’

এলআরএফ-এর সভাপতি আশুতোষ সরকারের সভাপতিত্বে ও সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক দিদারুল আলম দিদারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সিনিয়র সাংবাদিক মনোজ কান্তি রায়, প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক কাজী আবদুল হান্নান, সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এম বদি-উজ-জামান, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ওয়াকিল আহমেদ হিরনসহ বর্তমান কার্যনির্বাহী কমিটির নেতারা।

এ অনুষ্ঠানে আইনমন্ত্রী তার বক্তব্য প্রদান ছাড়াও সংবাদ কর্মীদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, বিচার বিভাগ স্বাধীনভাবে কাজ করছে। সরকার বিচার বিভাগে কোনো হস্তক্ষেপ করছে না। সাধারণ মানুষ এখন ন্যায়বিচার পাচ্ছে।

তিনি বলেন, বিদ্যমান আইনকে আরও যুগোপযোগী করা হচ্ছে। দ্রুত সময়ে মামলা নিষ্পত্তি এবং বিদ্যমান মামলাজট নিরসনে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে।

এ সময় তিনি সিলেটের শিশু রাজন ও খুলনার রাকিব হত্যা দ্রুত সময়ে বিচার করার প্রসঙ্গ উল্লেখ করে বলেন, সংশ্লিষ্ট সবার যথাযথ দায়িত্ব পালন করলে ন্যায়বিচার প্রাপ্তি নিশ্চিত করা সম্ভব।

নাগরিকত্ব আইন প্রসঙ্গে আইনমন্ত্রী বলেন, সবার মতামতের ভিত্তিতেই আইনটি করা হবে।

বিচার বিভাগের জন্য আলাদা সচিবালয় প্রসঙ্গে তিনি বলেন, স্বাধীন বিচার ব্যবস্থার জন্য সম্ভব সবকিছুই করা হবে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
February 2017
M T W T F S S
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া