adv
১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইমাম শেখ আর শেখ হাসিনা- একটু ইতিবাচক হবেন কী?

                           – নাদীম কাদির –

nadim-qadir_imam-বেশ কিছুদিন ধরে পত্রপত্রিকা আর সামাজিক গণমাধ্যমে একটি ভালো কাজকে কীভাবে পঁচানোর চেষ্টা চলছে তাই দেখলাম। ব্যস্ত ছিলাম, তাই লিখতে একটু দেরি হলো।
ঘটনার সূত্রপাত মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গোপালগঞ্জ সফর আর একটি ভ্যানে করে ঘুরাকে কেন্দ্র করে। উনি তো বাঙালি মেয়ে, যার সবচেয়ে প্রিয় মানুষ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু টুঙ্গিপাড়ায় ঘুমিয়ে আছেন, তাই তার সেখানে যাওয়া। ইচ্ছে হয়েছে একটু ভ্যান গাড়িতে ঘুরবেন কারণ শেখ হাসিনা মাটির মানুষ। উনি সাধারণ জীবনযাপন করেন, তাই হয়তো ভ্যান গাড়িতে ঘুরে গ্রামের বাতাস উপভোগ করলেন। তবে ঝামেলা শুরু হলো উনি যখন তার ভ্যানচালক ইমাম শেখের একটি চাকরির ব্যবস্থা করে দিলেন। গ্রামের ছোট ভাই অথবা ছেলে সন্তানের মতো একজনকে প্রধানমন্ত্রী চাকরি দিতেই পারেন, এখানে দোষটা কোথায়? আমরা এ ঘটনায় প্রধানমন্ত্রীকে সাধুবাদ না জানিয়ে তাকে নিচু করছি। আমরা একটু পজিটিভ হতে পারি না? কিছু হলেই শুধু তার খুঁত বের করি। প্রধানমন্ত্রী আমাকে একবার বলেছিলেন- ‘কাজ করলে মানুষ কথা বলবেই; ভালো বা মন্দ। তুমি তোমার কাজ করে যাও।’ সাথে সাথে উনার দলের আর আমার কলিগদেরকেও আমাকে কাজে সাহায্য করতে বললেন, এই কারণে লন্ডনে দুই একটা ভালো কাজ করতে পারছি।
ধরুন শেখ হাসিনা ছেলেটাকে যদি চাকরি না দিতেন তাহলে কী আপনারা খুশি হতেন? আপনারা কি চেয়েছিলেন ইমাম শেখের জীবনটা একটু ভালো না হোক? আপনারা যারা তাই চেয়েছেন, ব্যঙ্গ করে বলবো- আপনারা সত্যিই ছোট মনের অধিকারী। ইমাম শেখের এখনো অল্প বয়স ‍আর বিমান বাহিনীর চাকরির ফলে তার আর তার পরিবারের জীবনটা হয়তো ঘুরে গেলো। কতগুলো জীবন আনন্দ পেলো, এটাকি বেশি ভালো না? ব্যঙ্গ করার আগে একটু ভাবুন। বাক স্বাধীনতা আছে দেখে যে সবকিছু নেগেটিভলি দেখতে হবে, তা ঠিক না। আল্লাহ বলেছেন ভালো চিন্তা করো নিশ্চয় তোমার ভালো হবে।
অনেকে বলেছেন গোপালগঞ্জের হলেই তাদেরও ভাগ্য খুলে যেত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারে কি সবাই গোপালগঞ্জের নাকি? আমি না। তাহলে উনি আমাকে এই রকম একটা সম্মানের এবং গুরুত্বপূর্ণ চাকরি দিলেন কেন? লন্ডন হাই কমিশনে কে যে গোপালগঞ্জের তা আমার জানা নেই। তাহলে যারা ব্যঙ্গ করেছেন তাদের উত্তর কি হবে? আমরা খুব পরচর্চাপরায়ণ আর তাই আমাদের উন্নতি হতে এত কষ্ট হয়। আমরা খোলা মন নিয়ে দেখি না। সবকিছুর মধ্যেই নেগেটিভ খুঁজি।
সংসার টানার জন্য পারিবারিক চাপে ক্লাশ ফাইভের পর ইমাম শেখ আর পড়তে পারেননি। ওকি ভেবেছিলো ভ্যান চালালে সেটাতে প্রধানমন্ত্রী উঠবেন? ওকি ভেবেছিলো ওর চাকরি হবে? আমি মনে করি ইমাম শেখকে, শেখ হাসিনা বুঝতে পেরেছেন যে সে একটি ভালো মানুষ আর তাই তার এই উপহার। আর সবচেয়ে বড় একটি কথা হলো- তকদির বলে একটা ব্যাপার আছে। যেমন আমি ভাবতে পারিনি লন্ডনে আমি এই চাকরি কোনোদিন পাবো! যখন পেলাম তখন হতবাক। প্রধানমন্ত্রীকে বললাম- আপা আমাকে এই সম্মান দেওয়ার জন্য আমি চিরকৃতজ্ঞ। উনি বলেছিলেন- ‘ধন্যবাদ লাগবে না, ভালো করে কাজ করো তাহলেই আমি খুশি হবো।’ আর যখন চাকরি পেলাম তখন আমার খুব খারাপ সময় যাচ্ছিলো। পাওয়ার পর মনে হলো আল্লাহ আমার দিকে তাকিয়েছেন। আমাকে বিপদ থেকে উদ্ধার করেছেন। আর আমার প্রাণপ্রিয় প্রধানমন্ত্রীর জন্য অনেক শুভ কামনা করলাম।
শেখ হাসিনা আমার ইতিবৃত্ত জানেন আর আমি জানি না- কেন এই চাকরির জন্য তিনি আমাকে পছন্দ করলেন। উত্তর একটাই, উনি সবার জন্য কিছু করে দেশটাকে সোনার বাংলা বানাবেন। আল্লাহ নিজে কিছু করেন না, কারো মারফতে করেন। আমার আর ইমাম শেখের মাধ্যম হলেন প্রধানমন্ত্রী।
তাই আমি যেমন উনার কথা মনে রেখে ভালো কাজ করার চেষ্টা করি, ইমাম শেখও তাই করবে। এই রকম বহু মানুষের উনি উপকার করেন আমাদের পাবলিশিটি ছাড়া। আমরাই সোনার বাংলা গড়বো। নেতিবাচক ভাবনা রেখে আসুন মন খুলে ইমাম শেখের জন্য শুভ কামনা করি আর মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর জন্য দীর্ঘ জীবন কামনা করি।
নাদীম কাদির : সাংবাদিকতায় জাতিসংঘের ড্যাগ হ্যামারসোল্ড স্কলার এবং লন্ডনে বাংলাদেশ হাইকমিশনের প্রেস মিনিস্টার। 
[email protected] gmail.com

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
February 2017
M T W T F S S
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া