adv
১৭ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

রাষ্ট্রপতি রাজনৈতিক দলগুলোর মতৈক্য চান

pডেস্ক রিপাের্ট : সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য সব রাজনৈতিক দলের আন্তরিকতা জরুরি বলে মনে করছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। ৭ জানুয়ারি শনিবার বিকালে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদের একাংশের সঙ্গে সংলাপে তিনি এই কথা বলেন বলে জানান রাষ্ট্রপতির প্রেস সিচব জয়নাল আবেদীন।

বেলা সাড়ে তিনটায় রাষ্ট্রপতির সঙ্গে বৈঠকে বঙ্গভবনে যায় জেএসডির প্রতিনিধি দল। তারা প্রায় দেড় ঘন্টা বৈঠক করে। বৈঠক শেষে দলটির সভাপতি আ স ম আবদুর রব বলেন, নির্বাচন কমিশন গঠনের পাশাপাশি নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে চলমান পরিস্থিতির স্থায়ী সমাধানের লক্ষ্যে জাতীয় সংসদের উচ্চকক্ষ গঠনের প্রস্তাব দিয়েছেন তারা।

রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব জয়নাল আবেদীন এই বৈঠকের বিষয়ে সাংবাদিকদের বলেন, `জেএসডির প্রতিনিধি দলকে বঙ্গভবনে স্বাগত জানিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেছেন, সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন গঠনের পাশাপাশি রাজনৈতিক দলগুলোর মতৈক্যও জরুরি।

জেএসডির তিন প্রস্তাব: রাষ্ট্রপতিকে তারা মোট তিন দফা প্রস্তাব দিয়েছেন। এগুলো কেবল আগামী সংসদ নির্বাচনকেন্দ্রীক নয়।

প্রথম প্রস্তাবে পার্লামেন্টের ‘উচ্চকক্ষ’ গঠন করে সেখান থেকে নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের বিধান করার কথা বলা হয়েছে।

জেএসডির প্রস্তাব অনুযায়ী উচ্চকক্ষসহ পার্লামেন্ট হবে ‘দ্বি-কক্ষ’ বিশিষ্ট। অঞ্চলভিত্তিক প্রতিনিধি নিয়ে পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ হবে ৩০০ সদস্য বিশিষ্ট। ২০০ সদস্য বিশিষ্ট ‘উচ্চকক্ষে’ থাকবেন নির্দলীয়ভাবে নির্বাচিত বিভিন্ন শ্রম-কর্ম-পেশার প্রতিনিধি।

নিম্নকক্ষের নির্বাচনে বিভিন্ন দলের প্রাপ্ত আসনের আনুপাতিক প্রতিনিধি, প্রবাসীদের মধ্য থেকে অন্তত ১০ জন প্রতিনিধি, রাষ্ট্রপতি কর্তৃক মনোনীত প্রতিনিধি, বিভিন্ন প্রাদেশিক পরিষদ (গঠনের পর) প্রতিনিধি, মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিনিধি, নারী প্রতিনিধি ও ক্ষুদ্র জাতিসত্তার প্রতিনিধি।

নির্বাচনের পূর্বে এ ‘উচ্চকক্ষ’ থেকে নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের পর সে সরকারের পরামর্শ মোতাবেকই নির্বাচন কমিশন গঠনের বিধান করতে হবে। একইভাবে নির্বাচন কমিশনের গঠন কাঠামো এবং ক্ষমতাও নির্বারিত হবে।

আ স ম রব বলেন, বর্তমান পার্লামেন্টে সরকারি দল ও জোটের যে অবস্থান এতে সহজেই সংবিধান সংশোধন করে এ ব্যবস্থা প্রবর্তন করা সম্ভব।

জেএসডির দ্বিতীয় প্রস্তাবে রয়েছে গণতন্ত্রের জন্য এর ভিতকে সম্প্রসারিত, সুদৃঢ় ও শক্তিশালী করা, অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও বেকারত্বের অবসান। এ প্রস্তাবে বলা হয়, ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ, গণতন্ত্রকে তৃণমূল পর্যন্ত বিস্তৃত করা ও শিল্পাঞ্চলসমূহের জন্য রাজনৈতিক-প্রশাসনিক ইউনিট হিসেবে প্রাদেশিক ব্যবস্থা গড়ে তোলা; জেলা পরিষদ, উপজেলা পরিষদ, ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাট-বাজার, অর্থলগ্নি প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিষদের প্রতিনিধিত্ব পদ্ধতি ও নির্বাচন সঠিকভাবে অনুষ্ঠান করা, মেট্রপলিটন সরকার ও গ্রাম সরকার গঠন করা; সর্বস্তরের গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানে অদলীয়ভাবে নির্বাচিত বিভিন্ন শ্রেণী-পেশা, নারী ও মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করা।

তৃতীয় প্রস্তাবে কর্মসংস্থান, অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং জাতীয় ও আঞ্চলিক নিরাপত্তা জোড়দার করার জন্য বাংলাদেশ, ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চল, চীনের কুনমিং, নেপাল, ভুটান ও মিয়ানমারের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল নিয়ে ‘উপ-আঞ্চলিক অর্থনৈতিক সহযোগিতা, কানেক্টিভিটি ও পরিবহন অর্থনীতি জোরদার করার উদ্যোগ গ্রহণ করার কথা বলা হয়েছে।

দলটির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন বলেন, ‘নির্বাচনের জন্য নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা প্রধান হলেও আমাদের দেশের রাজনৈতিক সংস্কৃতিতে এ ক্ষেত্রে সরকারই নিয়ামক ভূমিকা পালন করে। এ জন্য নির্বাচনকালীন সময়ে এখানে একটি দল নিরপেক্ষ, নির্বাচিত ও জবাবদিহিতামূলক সরকারের বিধান করা অপরিহার্য।’

প্রতিনিধি দলে ছিলেন দলটির সিনিয়র সহ-সভাপতি এম এ গোফরান, সহ-সভাপতি দবিরউদ্দিন জোয়ার্দার, অ্যাডভোকেট আবদুর রহমান মাস্টার, সহ-সভাপতি তানিয়া ফেরদৌসী, সিনিয়র যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আতাউল করিম ফারুক, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সিরাজ মিয়া, শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম আনসার উদ্দিন

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
January 2017
M T W T F S S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া