adv
২৫শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিদেশি কোম্পানি শেয়ারবাজারে আনার উপায় খুঁজছে সরকার

untitled-17_248992ডেস্ক রিপাের্ট : সাড়ে তিনশ'র বেশি নিবন্ধিত বিদেশি কোম্পানি বাংলাদেশে বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা করছে। ওষুধ, টেলিযোগাযোগ, জ্বালানি, প্রসাধনসামগ্রী, শিশু খাদ্যসহ পণ্যবাজারের একটি বড় অংশ এসব কোম্পানির দখলে। বছর গেলে বড় মুনাফাও করে প্রতিষ্ঠানগুলো। তবে গত সাত বছরে কোনো বহুজাতিক কোম্পানি শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হয়নি। এমন প্রতিষ্ঠানকে তালিকাভুক্ত করতে নতুন করে উপায় খুঁজছে সরকার। একই সঙ্গে সরকারি ও বেসরকারি বন্ড জনপ্রিয় করার উদ্যোগও নেওয়া হয়েছে। এ জন্য অর্থ মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে আলোচনা শুরু করেছে।

সরকার দীর্ঘদিন ধরে বহুজাতিক কোম্পানিগুলোকে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত করার চেষ্টা চালাচ্ছে। এ জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়া হলেও তেমন কাজে আসেনি। ২০০৯ সালে গ্রামীণফোনের পর আর কোনো বিদেশি কোম্পানি পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়নি। বর্তমানে সাড়ে তিনশ' নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠান থাকলেও শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত মাত্র ১২টি। এর পরিপ্রেক্ষিতে বাজার চাঙ্গা করতে আবারও উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ জন্য ১৩ নভেম্বর রোববার সংশ্লিষ্টদের নিয়ে বৈঠক ডেকেছে অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ। বৈঠকে বিদেশি কোম্পানির তালিকাভুক্তির জন্য করণীয় নির্ধারণ করা হবে। এরপর তা অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের কাছে পাঠানো হবে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বিদেশি কোম্পানি শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত না হওয়ার পেছনে কয়েকটি কারণ কাজ করছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বড় কারণ তালিকাভুক্তির শর্ত থেকে বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে অব্যাহতি দেওয়া। এ কারণে বিদেশি কোম্পানিকে আনা সম্ভব হচ্ছে না। এর বাইরে আস্থাহীনতা, সরকারের উদ্যোগের ঘাটতি এবং কর ছাড় যথেষ্ট পরিমাণ না হওয়াকে অনেকাংশে দায়ী বলে তারা মনে করেন।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা বলেন, প্রসাধনসামগ্রীর বাজারে কোম্পানির একচ্ছত্র আধিপত্য ইউনিলিভার বাংলাদেশের, নেস্লে বাংলাদেশও খাদ্যপণ্য বিশেষ করে শিশুখাদ্যের বাজারের বড় অংশ দখল করে আছে। কিন্তু শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হচ্ছে না। এ ধরনের বড় প্রতিষ্ঠান যাতে বাজারে আসে সে জন্য সরকারের সব সংস্থার সঙ্গে আলোচনা করা হবে। প্রয়োজনে প্রণোদনা কিংবা শর্ত জুড়ে দিয়ে তালিকাভুক্ত করার উদ্যোগ নেওয়া হবে। এর আগে সবার সঙ্গে আলোচনা করা হবে বলে জানান তিনি।

এ বৈঠকে বাংলাদেশ ব্যাংক, অর্থ বিভাগ, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি বিভাগ, শিল্প, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি), জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর), অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা), বাংলাদেশ রফতানি প্রক্রিয়াকরণ এলাকা কর্তৃপক্ষ (বেপজা), বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ, ডাক ও টেলিযোগাযোগ এবং বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকবেন।

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ড. এ বি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, বহুজাতিক কোম্পানিগুলোকে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্তির জন্য বিশেষ ছাড় দেওয়া হয়েছে। এর পরও কেন আসছে না তা ভালোভাবে বিশ্লেষণ করা দরকার। কোনো সরকারের সংস্থাই তা করছে না। তিনি বলেন, গড়পড়তা কোনো উদ্যোগ নিলে তাতে কাজ হবে না। বড় কোম্পানির সঙ্গে আলাদাভাবে আলোচনায় বসতে হবে। সে সব প্রতিষ্ঠানের অনাস্থা থাকলে তা দূর করতে হবে। তালিকাভুক্ত হলে জনগণের সম্পৃক্ততা বাড়বে- এমন বার্তা তাদের কাছে পেঁৗছে দিলে সেগুলোর বাজারে আসার সম্ভাবনা তৈরি হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

কোম্পানিকে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত করতে বিশেষ ছাড় দিয়েছে এনবিআর। তালিকাভুক্ত নয় এমন কোম্পানি যেখানে ৩৫ শতাংশ হারে করপোরেট কর দিচ্ছে, সেখানে তালিকাভুক্ত কোম্পানির করহার ২৫ শতাংশ। একইভাবে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংক, বীমা ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান আড়াই শতাংশ কর ছাড় পায়। মোবাইল কোম্পানি ৫ শতাংশ ছাড় পাচ্ছে।

বর্তমানে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে- গ্রামীণফোন, বাটা সু, ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো, বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশ, গ্গ্ন্যাসকোস্মিথক্লাইন বাংলাদেশ, ম্যারিকো বাংলাদেশ, লিন্ডে বাংলাদেশ, রেকিট বেনকিজার বাংলাদেশ, হাইডেলবার্গ সিমেন্ট, লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট লিমিটেড, সিঙ্গার বাংলাদেশ এবং আর কে সিরামিকস।

সংশ্লিষ্টরা জানান, ২০০৬ সালে বিএসইসি আইন করে কোনো কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন ৪০ কোটি টাকা অতিক্রম করলেই সেটিকে তালিকাভুক্তির শর্ত জুড়ে দেয়। পরে বর্তমানে বিলুপ্ত বিনিয়োগ বোর্ডে বহুজাতিক কোম্পানিগুলো এ শর্ত থেকে অব্যাহতির জন্য আবেদন করে। এর পর বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষ সুপারিশে বিদেশি কোম্পানিগুলো এ শর্ত থেকে অব্যাহতি পায়। বর্তমানে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২৮৪টি।

এদিকে শেয়ারবাজারে বন্ড জনপ্রিয় করারও উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ জন্য গত বুধবার সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, বিভাগ এবং সংস্থার সঙ্গে এ বিষয়ে করণীয় নির্ধারণে বৈঠক করেছে। দেশে সরকারি ২২১টি বিভিন্ন ধরনের বন্ড থাকলেও তা নানা চার্জ এবং ফির কারণে লেনদেন হয় না। কিন্তু ভারত এবং পাকিস্তানে এ ধরনের বন্ড থেকে বড় অঙ্কের অর্থ সংগ্রহ করছে সরকার। এ কারণে শেয়ারবাজারের মাধ্যমে বন্ডকে জনপ্রিয় করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
November 2016
M T W T F S S
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
282930  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া