adv
২৪শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

স্কয়ার হাসপাতালে নিবিড় পরিচর্যায় সেই শিশুটি

childনিজস্ব প্রতিবেদক : হাসপাতালে চিকিৎসক মৃত ঘোষণার পর দাফনের আগে কেঁদে ওঠা শিশু গালিবাতুল হায়াতকে (মৃত্যুঞ্জয়) উন্নত চিকিৎসার জন্য হেলিকপ্টারে করে ঢাকায় আনা হয়েছে। তাকে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। শিশু বিশেষজ্ঞ আফতাব ইউসুফ রাজের তত্ত্বাবধানে শিশুটি চিকিৎসাধীন।

২৪ সেপ্টেম্বর শনিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে স্কয়ার হাসপাতালের তথ্যকেন্দ্রে যোগাযোগ করা হলে জানানো হয়, শিশুটিকে কিছুক্ষণ আগে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাকে চিকিৎসক নিবিড় পর্যবেক্ষণে রেখেছেন। তার শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে আগামীকাল জানা যাবে।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, ফরিদপুর থেকে দ্রুত ঢাকার বিমানবন্দর পর্যন্ত আসা গেলেও যানজটের কবলে পড়ে স্কয়ার হাসপাতাল পর্যন্ত আসতে অনেক সময় লাগে।

এর আগে শিশুটিকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নিয়ে আসার পরামর্শ দিয়েছিলেন চিকিৎসকরা। কিন্তু তার স্বজনদের আর্থিক অবস্থা ভালো না থাকায় তারা সেই উদ্যোগ নিতে পারেননি। এরপর এগিয়ে আসেন এক দানশীল ব্যক্তি।
ফরিদপুর জেনারেল হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ খোন্দকার মো. আবদুল্লাহ হিস সায়াদ বলেন, ‘বাচ্চাটি ২৪ সপ্তাহে ডেলিভারি হওয়ায় তার ওজন সাতশ গ্রাম। এই কারণে তার জীবন ঝুঁকিতে রয়েছে। তবে ভালো পরিচর্যা পেলে সুফল পাওয়া যেতে পারে।’
শহরের কমলাপুর এলাকার বাসিন্দা নাজমুল হুদা ও নাজনীন আক্তার দম্পতির প্রথম সন্তান এই শিশুটি। আগামী জানুয়ারিতে শিশুটির ভূমিষ্ঠ হওয়ার কথা ছিল। নির্ধারিত সময়ের আগেই তার জন্মগ্রহণ এবং এর পরের ঘটনাপ্রবাহ তোলপাড় তুলে সারা দেশেই। শিশুটির চিকিৎসার জন্য গঠন করা হয় মেডিকেল বোর্ড।  

শিশুটির দাদা আবুল কালাম মিয়া জানান, শনিবার দুপুরের ঢাকার এক নাম প্রকাশ না করতে অনিচ্ছুক এক ব্যক্তি তাকে ফোন করে জানান, শিশুটির চিকিৎসার ভার নিতে নিতে চান। তারা সম্মতি দেয়ার পর শিশুটিকে নিয়ে আসার জন্য বিকাল পাঁচটার দিকে হেলিকপ্টার পাঠান তিনি।

ফরিদপুর স্টেডিয়ামে শিশুটিকে উড়োযানে তুলে দেয়ার সময় শত শত মানুষ সেখানে উপস্থিত হয়। তারা সবাই শিশুটির জন্য সৃষ্টি কর্তার কাজে প্রার্থনা করেন। নবজাতকের সঙ্গে তার বাবা নাজমুল হুদা মিঠু ও পরিবারের অন্য স্বজনরাও ঢাকায় এসেছেন।
এর আগে শনিবার সকাল ১০টার দিকে জেলা প্রশাসক উম্মে সালমা তানজিয়া হাসপাতালে গিয়ে নবজাতকের স্বাস্থ্যের খোঁজ-খবর নেন।

জেলার ডা. জাহেদ মেমোরিয়াল শিশু হাসপাতালে গত ২২ সেপ্টেম্বর রাতে জন্মের পর চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেছিলেন। পরে রাতে দাফন করতে নিয়ে যাওয়ার সময় কবরস্থানের মাওলানা সকালে আসতে তার স্বজনদের পরামর্শ দেন। রাতে তারা শিশুটিকে একটি কার্টনে করে কবরস্থানে রেখে আসেন। সকালে দাফনের সময় শিশুটি কেঁদে উঠলে তাকে সেখান থেকে আবার হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়।

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
September 2016
M T W T F S S
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
2627282930  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া