adv
২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইস্টার্ন ব্যাংকের ১৩ কোটি টাকা কর ফাঁকি

bankডেস্ক রিপাের্ট : বেসরকারি খাতের ইস্টার্ন ব্যাংকের বিরুদ্ধে কর ফাঁকির অভিযোগ পাওয়া গেছে। ব্যাংকটি বিভিন্ন ক্ষেত্রে তথ্য গোপন করে ২০১২-১৩ কর বর্ষে ১২ কোটি ৭৫ লাখ ৩১ হাজার টাকা কর ফাঁকি দিয়েছে। এক অনুসন্ধানে এ তথ্য জানা গেছে।

অনুসন্ধানে পাওয়া তথ্যানুযায়ী, ইস্টার্ন ব্যাংকের ট্যাক্স আইডেন্টিফিকেশন নম্বর (টিআইএন) হল ২১১-২০০-২১৩০। এই পিন নম্বর ব্যবহার করে ২০১২-১৩ করবর্ষে বৃহৎ করদাতা ইউনিটে (এলটিইউ) আয়কর রিটার্ন দাখিল করে ব্যাংকটি। এরপর কর ফাঁকির বিষয়ে সন্দেহ হওয়ায় এলটিইউয়ের ঢাকা কার্যালয় ওই কর বছরে দাখিল করা রিটার্ন, বার্ষিক রিপোর্ট ট্যাক্স কম্পিউটেশন শিটসহ যাবতীয় নথি পরীক্ষার সিদ্ধান্ত নেয়। পরবর্তীতে বিদ্যমান আয়কর আইনের ৮২ ধারায় ব্যাংকটির রিটার্ন পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হয়। আর এতেই ধরা পড়ে ইস্টার্ন ব্যাংকের কর ফাঁকির ভয়াবহ তথ্য।

অনুসন্ধানে আরো জানা গেছে, ইস্টার্ন ব্যাংকের তৈরি করা ব্যালেন্স শিট ও আয়কর রিটার্নে প্রদর্শিত মূলধন ও রিজার্ভের পরিমাণের মধ্যে ব্যাপক গরমিল পাওয়া গেছে। মূলধন ও রিজার্ভের পরিমাণ ব্যালেন্স শিটে ৫০ শতাংশ যে পরিমাণ হয় রিটার্নে প্রদর্শিত প্রফিট তার চেয়ে বেশি। অর্থাৎ রিটার্নে প্রদর্শিত প্রফিট ৪৮৮ কোটি ৯৫ লাখ ১১ হাজার ২১৩ টাকা। অন্যদিকে ব্যালেন্স শিটে ক্যাপিটাল ও রিজার্ভের ৫০ শতাংশ হয় ৪০৩ কোটি ৯৩ লাখ ৪ হাজার ৫৪২ টাকা।

সুতরাং রিটার্নে অতিরিক্ত প্রফিট ৮৫ কোটি ২ লাখ ৬ হাজার ৬৭১ টাকা বেশি দেখিয়েছে ইস্টার্ন ব্যাংক। ওই অতিরিক্ত প্রফিটের উপর আয়কর অধ্যাদেশ ১৯৮৪ এর ১৬সি ধারা ও বাংলাদেশ ব্যাংকের আইন অনুযায়ী নিয়মিত করের বাইরে ১৫ শতাংশ হারে কর পরিশোধ করা বাধ্যতামূলক। অথচ এ কর পরিশোধ করেনি ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। এভাবে মাত্র ১ বছরে ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড সরকারের প্রায় ১২ কোটি ৭৫ লাখ ৩১ হাজার টাকা কর ফাঁকি দিয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে তৈরি করা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইস্টার্ন ব্যাংক ওই করবর্ষে আয়কর রিটার্ন সার্বজনীন স্ব নির্ধারণী পদ্ধতিতে দাখিল করেছে। সুতরাং বিষয়টি নিষ্পত্তির সময় এক্সসেস প্রফিট ট্যাক্সের বিষয়ে অডিট আপত্তি অনুযায়ী ব্যবস্থা নিয়ে ফাঁকি দেওয়া কর আদায় করতে বলা হয়েছে।

এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে ইস্টার্ন ব্যাংকের প্রধান তথ্য কর্মকর্তা জিয়াউল করিম বলেন, এ বিষয় আমরা কোনো বক্তব্য দিব না। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) এ বিষয়ে ভালো বলতে পারবে। এনবিআরের বক্তব্যই আমাদের বক্তব্য।

অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব ও এনবিআর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান বলেন, দেশের সকল ক্ষেত্রে রাজস্ববান্ধব সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠায় কাজ করছে এনবিআর। এজন্য সকলকে আন্তরিকতা ও সততার সঙ্গে সরকারের রাজস্ব প্রদান করতে হবে। কেউ যদি সরকারের ন্যায্য পাওনা রাজস্ব প্রদানে কোনো অনিয়ম করে তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নিয়ে আইনের আওতায়ও আনা হবে।

নজিবুর রহমান আরো বলেন, উন্নয়নের অক্সিজেন হলো রাজস্ব। তাই এনবিআর যেকোনো মূল্যে সরকারের প্রাপ্য রাজস্ব সঠিকহারে আদায় করবে। এজন্য প্রয়োজনে অসৎ ব্যবসায়ীদের দমন ও সৎ ব্যবসায়ীদের পালন করবে এনবিআর।পরিবর্তন ডট কম

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
September 2016
M T W T F S S
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
2627282930  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া