adv
৫ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২০শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

গৃহকর্তার ঈদ || তাপস রায়

cartoonদম ধরে বসেছিল পলক। হঠাৎ লাফিয়ে উঠে দুম করে টেবিলের ওপর কিল বসিয়ে দিল। তারপর হাঁসের মতো গলা উঁচিয়ে, ডান হাতটা নেসারের নাক বরাবর বাড়িয়ে তুড়ি বাজাতে বাজাতে বলল, পাগিয়া।
পেয়েছিস! বল না, বল না, বলতে বলতে নেসার নাক বাঁচানোর বদলে মুখটা বাড়িয়ে দিল।
এ নাক বাঁচানোর মতোই ব্যাপার। ঘরে ঘরে আজ মেরি কমের মতো বক্সার। তারা হয় এস্পার, নয় ওস্পারে ওস্তাদ।
 
হ্যাপাও কম না বাবা! ঈদ শপিং বলে কথা! শহরে এসে লাল লাল, নীল নীল বাত্তি দেইখ্যা পরাণ জুড়িয়ে নেওয়ার এই হলো মোক্ষম সুযোগ। গিন্নিকে নিয়ে এই লাল নীল বাতি দেখতে দেখতে কত গৃহকর্তার পকেটে যে ‘লালবাতি’ জ্বলেছে সে কেবল এই শহরই জানে। নেসার এবার স্পষ্ট বলে দিয়েছে নো শপিং, নো কেনাকাটা। ফি-বছর কচুকাটা হতে সে রাজি নয়। কাভি নেহিইইই।
শুনেই আকবরের ঘোড়ার মতো চিঁহিঁহিঁহিঁ শুরু করে দিয়েছে বউ। সেই এফএম রোধ করে সাধ্য কার? ভাগ্য ভালো নেসারের কষ্ট করতে হয়নি। বউ নিজেই বাজতে বাজতে এক সময় গলা ভেঙে স্পিকটি নট হয়ে গেছে। ঘরে এখন হাঙ্গার স্ট্রাইকের পায়তারা চলছে। কঠোর কর্মসূচি। বাঁচার উপায়টা কী?
 
উপায় বের করে ফেলেছে পলক। চাঁদিতে চুল নেই কিন্তু চেহারায় শ্রী আছে। এরা ঘটে বুদ্ধি রাখে। নেসার বিপদে পড়লে ছুটে আসে। পলকও বুদ্ধির ঘট বন্ধুর জন্য উপুর করে দেয়। সেই বুদ্ধিতে কখনও যে ভজঘট পাকেনি তা নয়, তবে ওর থটটা চমৎকার। 
পলক তার চমৎৎকার দেখাতে শুরু করে। টুলটা আরেকটু টেনে নিয়ে বলে, শোন, আজ অফিস থেকে ফেরার সময় পোস্টাফিস হয়ে যাবি। ডাকপিয়নটাকে কিছু মালপানি ধরিয়ে দিবি। ও কাল তোর বাসায় গিয়ে তুই দেউলিয়া হয়ে গিয়েছিস এমন উকিল নোটিশ পৌঁছে দিয়ে আসবে। সেই  নোটিশ ভাবিকে দেখালেই কেল্লাফতে! ভাবি একেবারে ঠান্ডা হয়ে যাবে।
আন্ডা হবে! নেসার প্রায় চেঁচিয়ে ওঠে। 
কেন?
আরে, পোস্টাফিস কোথায় সেটাই তো জানি না। ইটস আ ডিজিটাল টাইম ম্যান! তাছাড়া আমার আছেটা কী যে আমি দেউলিয়া হবো?
তা বটে! তুই তো আবার আউলিয়ার নাতি। কথাটা মনে পড়তেই পলক এক পলকে আরেকটা বুদ্ধি বের করে ফেলে। তারপর চোখেমুখে উত্তেজনা ছড়িয়ে বলে, শোন, টিপস্ নাম্বার-টু। রমজান মাস।
তো?
ধর্মে-কর্মে লেগে যা। গোটা কয়েক কম্বল বগলে নিয়ে সোজা তাবলিগে চলে যা। ঈদের পর ফিরবি। ব্যাস।
এত্ত সোজা! কোম্পানি হার্ড ক্যাশ চায়, মান্থলি টার্গেট, বোর্ড মিটিং, কাস্টমার কেয়ার- আরে এখন ছুটি নিলে কেরিয়ারটাই তো লাটে উঠবে। ওদিকে ঘরে লিস্ট রেডি। সেখানে সেমাই থেকে সুতি শাড়ি, বডি স্প্রে থেকে সুগন্ধী চাল, নেইল পলিশ থেকে বিছানার বালিশ, দরজা-জানালার নতুন পর্দা থেকে পানের জর্দা, সোফার কুশন থেকে বডি লোশন কোনো কিছুই বাদ নেই। বুঝেছিস?
পলক মাথা নেড়ে সায় দেয়, সে বুঝতে পারছে।
নেসার নো নো করে ওঠে, কচু বুঝেছ! এখানেই দি ইন্ড-এটা ভেব না। ঢ্যাড়সের মত ধেরেঙ্গা ছেলে তার চাই শর্ট পাঞ্জাবি। রাগে গা চিটমিট করে জ্বলে। রাতের ড্রেস আবার আলাদা। তখন ক্যাটস আই! টিশার্টের সঙ্গে দুই ঠ্যাং অথচ চৌদ্দ পকেটের প্যান্ট। মেয়েটা রোজার শুরু থেকেই পাখি পাখি করছে। কাঁটাবন থেকে একটা কিনে ফেলব ভেবেছিলাম। কিনিনি তাই প্রেস্টিজটা এ যাত্রা বেঁচেছে। কিন্তু কতক্ষণ? শ্যামল শ্যালিকা আছে এক জোড়া। বলিউডি লেহেঙ্গা এখন বালেশ্বরের চরেও ঢুকেছে। একেই বলে বিশ্বায়ন। মহাভারতে শ্রীকৃষ্ণ অর্জুনকে বিশ্বরূপ দেখিয়েছিল। আমাকে দেখাচ্ছে বউ। শ্বশুড়ের জন্য কড়া ভাজের পাঞ্জাবি, শাশুড়ির জর্জেট-জামদানির সঙ্গে নূরজাহান আতর। আরো শুনবি?
ওকে রিল্যাক্স! রিল্যাক্স! পলক খপ করে নেসারের মুখ চেপে ধরে। তাতেই নেসারের মুখটা বন্ধ হয়। ফোঁস ফোঁস নিঃশ্বাসটা বন্ধ হয় না।
 
নেসার হাত ছাড়িয়ে নিয়ে পুনরায় হোস পাইপের পানির মতো হরহর করে বলে যায়- দোষ ওই শপিংমলগুলাও কম না। বজ্জাত! বজ্জাতের আঁটি! সবগুলোতে ছাড়ের ছড়াছড়ি। এটা কিনলে ওটা ফ্রি তো আছেই, চলছে ঈদের বিশেষ ডিসকাউন্ট।
পলক বলে, হুম, কোথায় যেন একবার পড়েছিলাম, ঈদের সময় দোকানিরা বিশ, ত্রিশ পার্সেন্ট ছাড় দেয় কেন? কারণ তারপরও তাদের পঞ্চাশ পার্সেন্ট প্রফিট থাকে।
তাহলেই বল কোন চক্রে ফেঁসেছি। মার্কেট থেকে কেনাকাটা করে কচুকাটা হয়ে বের হয়ে আসবি তবুও এই ‘ছাড়’ পিছু ছাড়বে না। মার্কেটের সামনে বছরজুড়ে ‘দ’ হয়ে বসে থাকে যে দারোয়ান সে তখন ল-ম্বা সালাম ঠুকে তার চেয়েও চওড়া হাসি দিয়ে সামনে এসে দাঁড়াবে। ওদিকে পকেট তখন গড়ের মাঠ। বকশিশ দেবে কী, লিস্টের তখনও যে অর্ধেকই বাকি। ওদিকে গিন্নির তাড়া- রাত হলে গাউছিয়ায় গিয়ে কোনটা জর্জেট, কোনটা মশারি বোঝা যাবে না। সুতরাং দিনের আলো থাকতে থাকতেই ওদিকটা সেরে ফেলতে হবে।
এই হয়েছে আরেক যন্ত্রণা! ডাক্তারদের মতো মার্কেটেরও ক্লাসিফিকেশন। বসুন্ধরা সিটিতে যা মিলবে মাথা ঠুকেও নিউ মার্কেটে তা মিলবে না। সুতরং ঘোরো বোঁ বোঁ করে। আগে আগে গিন্নি, পেছনে পেছনে ব্যাগ, বাক্স হাতে কর্তা। দোস্ত, অফিস শেষে এই ওভারটাইম আর ভালো লাগে না।
 
অনলাইনে কেনাকাটা করলেই পারিস। পলক বুদ্ধি বাতলে দেয়।
এই বুদ্ধি শত্রুকে দিস, আমাকে না। আরে খাল কেটে ঘরে কেউ কুমির আনে!
তা ঠিক, পলক বলে, তাহলে কী করবি?
বসুন্ধরা সিটির সামনে ফোয়ারা দেখেছিস?
হ্যাঁ, তো?
বউকে বলব, লিস্টে একটা কলসি আর এক গাছা দড়ি লিখতে। তারপর গলায় কলসি বেঁধে ঐ ফোয়ারায়…।
কী পাগলের মতো বকছিস? পলক বলে।
পাগলামির দেখেছিস কী?
দেখতেই তো চাই। পারবি দেখাতে?
মানে! নেসার প্রায় চমকে ওঠে।
পলক আরেক কাপ কফির অর্ডার দেয়। তারপর গলা নামিয়ে বলে, শোন, এ হলো আমার বুস্টার আইডিয়া। বিফলে মূল্য ফেরত। তুই কিছুদিনের জন্য স্রেফ পাগল হয়ে যা। ভাবি লিস্ট করেছে?
করেছে।
দ্যাটস গুড। ভাবির হাতে ওই লিস্ট দেখলেই তার পা ছুঁয়ে সালাম করবি আর বলবি, আম্মা এইডা কী? তুমি প্লেনের টিকিট কই পাইলা? এভাবে ঈদের এ কয়দিন পাগল সেজে থাক। পরেরটা পরে দেখা যাবে।
তুই তোর ভাবিকে চিনিস না। নেসার বিরক্ত কণ্ঠে বলে, পরে দেখা যাবে ও বগল বাজিয়ে বাপের বাড়ি ঈদ করতে চলে যাবে। আর আমার ঈদ করতে হবে পাবনা। না, না এ হবে না।
তাহলে কী করবি?
আমার মাথায় একটা বুদ্ধি এসেছে। তুই তোর ভাবিকে একটা ফোন দে।
আমি! পলক পিটপিট করে তাকায়। ফোন দিয়ে কী বলব?
আহা! সেটা আমি বলে দিচ্ছি। তুই ফোনটা কর প্লিজ।
নেসার নাছোড়বান্দার মতো পলককে পাকড়াও করে। পলক বাধ্য হয়ে পকেট থেকে স্মার্ট ফোনটা বের করে। তারপর মনিটরে টিপে দ্বিগুণ স্মার্ট কণ্ঠে বলে, হ্যালও… হ্যালওওও…।
ওপাশ থেকে ভাবির কণ্ঠ নিশ্চিত হওয়ার পর শুরু হয় কথোপকথন।
 
ভাবি, নেসার ভাই আজ অফিস থেকে বের হওয়ার সময়…।
কী হয়েছে ওর?
আসলে সিএনজিতে ওঠার সময় কখন যে হুস করে বাসটা চলে এলো।
বাসে চাপা পড়েছে? ও মাই গড!
না, পড়েনি। সিএনজিটা চাপা পড়েছে। দুমড়ে-মুচড়ে একেবারে বিমূর্ত শিল্পকলা! আসলে হয়েছে কী, স্যালারিটা আজ হলো তো, সঙ্গে ঈদ বোনাস। সেই ফূর্তিতে…।
আজও সাকুরায় বসেছিলেন নাকি আপনারা?
ছি ছি ভাবি! তবে পুলিশ ওটাই মিন করেছিল।
কেন?
ওই যে বললাম, ফূর্তিতে নেসার ভাই ফুটপাথে তখন মুনওয়াক করছিল। ওমনি পুলিশ এসে হাতড়াতে শুরু করল।
মাই গড! থাপড়িয়েছে?
না, না, ড্রাঙ্ক ভেবে পকেট সার্চ করেছে। তারপর ল্যামপোস্টের নিচে গিয়ে দাঁড়াতেই যখন চিনতে পারল তখন ছেড়ে দিল।
যাক, বেঁচেছেন তাহলে। একেই বলে ভাগ্যের ফের!
হ্যাঁ, ওখান থেকে ফিরতেই তো ঘটনাটা ঘটল।
মানে?
মানে, মোড়টা যেই ফিরেছি অমনি দুজন মুশকো মুশকো লোক, মিচকে শয়তানের মতো দেখতে, একেবারে নেসার ভাইয়ের সামনে এসে দাঁড়াল।
আর ওমনি আপনার ভাই টাকাটা ওদের হাতে তুলে দিল। তাই না?
হ্যাঁ, ভাবি। ঈদের বেতন, বোনাস বুঝতেই পারছেন। ভাই তো আপনার সামনে কোন মুখ নিয়ে দাঁড়াবে ভেবেই পাচ্ছে না। আমাকে বলল ঘটনাটা আপনাকে জানাতে।
 
অকর্মার ঢেঁকি! বিয়ের আগেই বুঝেছিলাম। কিন্তু ও এখনও বুঝতে পারেনি ঢেঁকি স্বর্গে গেলেও স্থান তার পায়ের নিচেই হয়। ওর চেকবুকটা ড্রয়ারেই আছে। আর ক্রেডিট কার্ডটাও আমি পার্সে সরিয়ে রেখেছি। নগদ টাকা ছাড়াও এখন দিব্যি শপিং করা যায়।
স্পিকার অন করা ছিল। ওপাশ থেকে শেষের কথাগুলো কেটে কেটে আসছিল। সেগুলো ওই ঢেঁকির মতোই ধপাধপ এসে পড়তে লাগল নেসারের বুকে। পলক ‘জি ভাবি, হ্যাঁ ভাবি’ বলতে বলতেই ওপাশ থেকে লাইনটা সাট করে কেটে গেল।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
September 2016
M T W T F S S
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
2627282930  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া