adv
৬ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২১শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

৩৯ বিশ্ববিদ্যালয় চলছে উপাচার্য ছাড়াই

univrcty22ডেস্ক রিপাের্ট : শীর্ষ পদগুলো ফাঁকা রেখেই শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে বেসরকারি অনেকগুলো বিশ্ববিদ্যালয়। উপাচার্য, উপ-উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষ এই ৩টি পদকে যেকোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে গণ্য করা হয়। কিন্তু দেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর বেশ কয়েকটিতে শীর্ষ ৩টি পদই ফাঁকা পড়ে আছে। কোথাও আবার শুধু উপাচার্য বা কোষাধ্যক্ষ নিয়োগের মাধ্যমে জোড়াতালি দিয়ে চালিয়ে নেওয়া হচ্ছে প্রশাসনিক ও একাডেমিক কার্যক্রম।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর এই করুণ অবস্থার চিত্র অবাক করেছে শিক্ষাবিদদেরও। তারা প্রশ্ন তুলেছেন, শীর্ষ পদগুলো ফাঁকা রেখে এসব প্রতিষ্ঠান কার্যক্রম চালাচ্ছে কীভাবে? শিক্ষাবিদরা অভিযোগ করেছেন, মুনাফার উদ্দেশ্য নিয়ে চলা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো পরিচালনা ব্যয় কমানোর জন্যই শীর্ষ পদগুলো ফাঁকা রেখে পরিচালিত হচ্ছে। একজন শিক্ষাবিদের ভাষ্য, বড় অঙ্কের বেতন ও গাড়ি বাবদ খরচ বাঁচাতে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মালিকপক্ষ শীর্ষ পদগুলো খালি রেখে জোড়াতালি দিয়ে কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। ফলে এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার মান তলানিতে নামছে। উচ্চশিক্ষা দানের পরিবর্তে এসব বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সনদ বিক্রির ব্যবসায় নেমেছে বলে অনেকের অভিযোগ।

বর্তমানে দেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সংখ্যা ৯৫টি। এরমধ্যে ৯টিতে এখনো শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়নি। বোর্ড অব ট্রাস্টি নিয়ে দ্বন্দ্ব আছে ১টিতে ও ১টি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম শুরুর অনুমতি নেই। বাদবাকি ৮৪টি প্রতিষ্ঠানের মাঝে মাত্র ৫টি বিশ্ববিদ্যালয় আছে যেখানে শীর্ষ ৩টি পদে জনবল আছে। অথচ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন ২০১০ অনুসারে প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ই উপাচার্য, উপ-উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষ, রেজিস্টার, ডিন, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ও প্রক্টর পদে পূর্ণকালীন জনবল রাখতে বাধ্য।

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি) থেকে প্রাপ্ত তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, বর্তমানে দেশের ২৬টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শীর্ষ ৩টি পদে উপাচার্য, উপ-উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষ কোনো জনবল নাই। ৩৯টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় চলছে উপাচার্য পদে কাউকে নিয়োগ না করেই। উপ-উপাচার্য পদে জনবল রাখার ক্ষেত্রে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের অনীহা লক্ষ্য করার মত। মাত্র ১৫টি বিশ্ববিদ্যালয়ে  উপ-উপাচার্য আছে, নেই ৬৯টিতে। দেশের ৪৮টি বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালিত হচ্ছে কোষাধ্যক্ষ নিয়োগ না দিয়েই। তথ্য প্রমাণ বলছে, বর্তমানে দেশের ৭টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় চলছে কোষাধ্যক্ষের ডানায় ভর করে। কারণ, এসব প্রতিষ্ঠানের উপাচার্য ও উপ-উপাচার্য পদে কেউ নেই। একটি বিশ্ববিদ্যালয় চলছে উপ-উপাচার্যের ওপর ভর করে। কারণ প্রতিষ্ঠানটিতে কোনো উপাচার্য বা কোষাধ্যক্ষ নেই। শুধু উপাচার্যের ওপর ভর করে চলছে ১৪টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন ২০১০ লঙ্ঘন করে এবং গুরুত্বপূর্ণ পদে রাষ্ট্রপতি অনুমোদিত জনবল না রেখে চলা প্রতিষ্ঠানগুলোর মাঝে বেশ কিছু নামডাকওয়ালা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ও আছে। বর্তমানে জঙ্গি ইস্যুতে সমালোচনার মুখে থাকা বিখ্যাত প্রতিষ্ঠান নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটিতে উপ-উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষ পদে কেউ নেই। আহাছানউল্লাহ ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজিতে উপ-উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষ নেই। ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটিতে নেই উপ-উপাচার্য। আরেকটি নামডাক থাকা প্রতিষ্ঠান ব্র্যাক ইউনিভার্সিটিতে কোষাধ্যক্ষ পদ খালি পড়ে আছে।

উপাচার্য, উপ-উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষ ছাড়াই যেসব প্রতিষ্ঠান কার্যক্রম চালাচ্ছে, সেগুলো হল- এশিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, গণ বিশ্ববিদ্যালয়, দি পিপল’স ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, প্রিমিয়াম ইউনিভার্সিটি, দি মিলেনিয়াম ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অব সাউথ এশিয়া, প্রেসিডেন্সি ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি এন্ড সায়েন্সেস, রয়েল ইউনিভার্সিটি অব ঢাকা,  ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটি, ইউরোপিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, ঈসাখাঁ ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, জেড. এইচ. সিকদার বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, ফারইস্ট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, রাজশাহী সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি ইউনিভার্সিটি, কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, রনদা প্রসাদ সাহা বিশ্ববিদ্যালয়, জার্মান ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ, সিসিএস বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, আর্মি ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি, আর্মি ইউনিভার্সিটি অব ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলজি, বাংলাদেশ আর্মি ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি, কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি  অব বাংলাদেশ ও নর্দান ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস এন্ড টেকনোলজি।

শীর্ষ ৩ পদের অন্তত ২টি পদে লোকবল না রেখে যেসব বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালিত হচ্ছে সেগুলোর মাঝে আছে- ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি চিটাগং, ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস এগ্রিকালচার এন্ড টেকনোলজি, ইন্টারন্যাশনাল ইসলামী ইউনিভার্সিটি চিটাগাং, স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, ভিক্টিরিয়া ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, প্রাইম এশিয়া ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ ইসলামী ইউনিভার্সিটি, হামদর্দ ইউনিভার্সিটি, ফাস্ট ক্যাপিটাল ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, এক্সিম ব্যাংক কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ, নর্থ অয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটি, ব্রিটনিয়া বিশ্ববিদ্যালয়, পোর্ট সিটি ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, নটরডেম বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ ও শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব ইউনিভার্সিটি।

উল্লেখ্য এই বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অধিকাংশই দীর্ঘদিন যাবত শীর্ষ পদে জনবল নিয়োগ না করে কার্যক্রম পরিচালনা করলেও এ যাবৎ পদগুলোতে পূর্ণকালীন জনবল নিয়োগের জন্য কোনো আবেদনও সরকারের কাছে জমা দেয়নি। শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. এম অহিদুজ্জামান বলেছেন, জোড়াতালির মাধ্যমে ভারপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় চালানো আইন বহিভূর্ত কাজ।

এই শিক্ষাবিদের অভিযোগ, নিয়মিত উপাচার্য ও উপ-উপাচার্য রাখতে হলে বেতন-গাড়ি খরচ হিসেবে বড় অঙ্কের টাকা খরচ করতে হবে বলেই বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ শীর্ষ পদগুলো ফাঁকা রাখতে পছন্দ করে। যা সম্পূর্ণ বাণিজ্যিক চিন্তাধারা। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় কোনো মুদি দোকান না। যে যেমন ইচ্ছা তেমন করে চলবে। ড. এম অহিদুজ্জামান, যিনি নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি বলেন, সরকারের উচিত বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে শক্ত নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করা। 

এসব প্রতিষ্ঠানের সিন্ডিকেট, একাডেমিক কাউন্সিল, অর্থ কমিটি এগুলো আইন অনুযায়ী ঠিকভাবে চলছে কিনা তা সরকারকে খতিয়ে দেখতে তাগিদ দিয়েছেন এই শিক্ষাবিদ। পাশাপাশি তিনি শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ করেছেন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শীর্ষ পদে নিয়োগের কোনো প্রস্তাব এলে তা যেন দ্রুততার সাথে বিবেচনা করে অনুমোদন দেওয়া হয়। তার ভাষ্য বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো নিয়োগের জন্য মন্ত্রণালয়ে একটি প্রস্তাব রেখে এক-দুই বছর কাটিয়ে দেয়। কোনো খোঁজ খবরও নেয় না। যদি দ্রুততার সাথে বিবেচনা করা হয় তাহলে টাল-বাহানার সুযোগ পাবে না বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন ভাঙার প্রতিযোগিতা দেখে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন শিক্ষাবিদ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। তার প্রশ্ন- শীর্ষ পদ ফাঁকা রেখে এসব বিশ্ববিদ্যালয় কীভাবে পরিচালিত হচ্ছে? উপাচার্য, উপ-উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষ পদ যে কোনো বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনায় গুরুত্বপূর্ণ পদ। এসব পদ শূন্য রেখে কোনো বিশ্ববিদ্যালয় চলতে পারে না। চলতে দেওয়াও উচিত নয়।

জানা গেছে, সম্প্রতি শিক্ষা মন্ত্রণালয় ইউজিসিকে নির্দেশনা দিয়েছিল শীর্ষ পদ ফাঁকা রেখে চলা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাপারে খোঁজ-খবর নিতে। সেই অনুযায়ী ইউজিসি গত ১৬ আগস্ট শীর্ষ পদ ফাঁকা থাকা প্রতিষ্ঠানগুলোর একটি তালিকা মন্ত্রণালয়কে পাঠিয়েছে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য। মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব হেলাল উদ্দিন জানিয়েছেন, আইন ভঙ্গ করে চলা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে আইনের মধ্যে আনার চেষ্টা চলছে। শিগগিরই এসব প্রতিষ্ঠানকে রাষ্ট্রপতি অনুমোদিত উপাচার্য, উপ-উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষ নিয়োগের জন্য বাধ্য করা হবে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
September 2016
M T W T F S S
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
2627282930  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া