adv
২২শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রন্ধ্রে রন্ধ্রে দুর্নীতি: কী করতে পারি? মেজর জেনারেল অব. সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীরপ্রতীক

ibrahimগত সপ্তাহে লিখেছিলাম, যার যত বেশি আছে সে তত বেশি আরও দখল করতে চায়, আরও ভক্ষণ করতে চায়। কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কবিতার উদ্ধৃতি দিয়ে বলেছিলাম, ‘রাজার হস্ত করে সমস্ত কাঙালের ধন চুরি।’ অনেকেই হয়তো ভাবতে পারেন, এখানে শুধুই সমাজের উচ্চস্তরের ধনী ব্যক্তিদের কথা বলা হচ্ছে। আসলে কিন্তু এই প্রক্রিয়া বা প্রবণতা সমগ্র বাংলাদেশে সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে প্রবেশ করেছে। আরও একটি ব্যাপার হলো যে, রাজা হওয়ার প্রয়োজন নেই, প্রজারাই একে অপরকে ঠকাচ্ছে; একে অপরের সাথে প্রতারণা করছে; একে অপরকে বঞ্চিত করছে। তাহলে এরূপ বলা যায় যে, সমাজে নেতিবাচক কাজের প্রাধান্য, প্রবণতা, গতি, আকর্ষণও এত বৃদ্ধি পেয়েছে যে, রাষ্ট্রীয় জীবন, সমাজজীবন এবং অর্থনীতির উচ্চমার্গ, মধ্যমমার্গ ও খুচরামার্গ, সেবা খাত, উৎপাদন খাত, যোগাযোগ খাতসহ এমন কোনো ক্ষেত্র বাকি নেই যেটি নেতিবাচক কাজের আক্রমণের শিকার হয়নি।

পরীক্ষার খাতায় নম্বর বেশি দিয়ে ছাত্রদের বেশি করে পাস করিয়ে দেয়া একটি নেতিবাচক কাজ। পরীক্ষার আগে প্রশ্নপত্র ফাঁস করে দেয়াও অনুরূপ কাজ। পরীক্ষার হলে নকল করতে দেয়াও অনুরূপ কাজ। অনেক পরীক্ষাতে দুইটি ভাগ থাকে- লিখিত ও মৌখিক। লিখিত পরীক্ষায় নম্বর কম পেলেও মৌখিক পরীক্ষায় যেন পছন্দের প্রার্থীকে বেশি নম্বর দেয়া যায়, সে জন্য নম্বর বণ্টনকে ভারসাম্যহীন রাখা হয়। একটি উদাহরণ দিই। কোনো চাকরিতে প্রবেশের জন্য লিখিত পরীক্ষায় যদি ১০০ নম্বর থাকে, মৌখিক পরীক্ষায় ২০০ নম্বর দেয়া হয়; যেন পছন্দের প্রার্থী লিখিত পরীক্ষায় খারাপ করলেও মৌখিক পরীক্ষায় প্রশ্নের উত্তর দিতে পারুক বা না পারুক, তাকে বেশি নম্বর দিয়ে এবং চাকরি দেয় যায়। ফলে সত্যিকার মেধাবী ব্যক্তিরা সুবিচার পান না।

বাজারে ওষুধ কিনতে গেলে ওষুধটি নকল নাকি আসল, সেটা নিয়ে সংশয় দেখা দেয়। কারণ, অনেক নকল ওষুধ বের হয়েছে। বাজারে মিষ্টি কিনতে গেলে মিষ্টিতে কী কী ভেজাল আছে, তা নিয়ে প্রথমে প্রশ্ন মনে ওঠে। শিশুদের জন্য আইসক্রিম কিনতে গেলে সেটিতে কত প্রকার ভেজাল আছে, তা নিয়ে মনে প্রশ্ন জাগে। গাড়ির জন্য পেট্রল কিনতে গেলে পেট্রল প্রদানকারী মেশিনটির মাপ ঠিক আছে কি না তা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। তরমুজ কিনতে গেলে তরমুজটি আসলে স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় লাল হয়েছে কি না তা নিয়ে মনে প্রশ্ন জাগে। ডাক্তার যদি কোনো রোগীকে রক্ত, প্রস্রাব-পায়খানা ইত্যাদি পরীক্ষা করতে দেন তাহলে ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলো যে রিপোর্ট দেয়, সেই রিপোর্টগুলোর নির্ভুলতা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। সমাজ-সংসারে আমরা এতগুলো প্রশ্ন নিয়ে দৈনন্দিন জীবনযাপন করছি।

ঢাকা মহানগরের ফুটপাথ প্রসঙ্গে কয়েকটি কথা বলি। আমরা ইদানিং প্রায়ই দেখি, ফুটপাথ পরিষ্কার করা তথা জনগণের চলাচলের সুবিধা করে দেয়ার জন্য অভিযান চালানো হচ্ছে; অথবা অবৈধ কাঁচাবাজার, দোকানপাট ইত্যাদি তুলে দেয়ার জন্য অভিযান চালানো হচ্ছে। কিন্তু ঠিক দুই দিন পরই একই এলাকা ঠিক আগের মতো দখল হয়। অর্থাৎ জায়গা পুনরুদ্ধারকারী কর্তৃপক্ষ যেমন সক্রিয় ও সচল তেমনই জায়গা অবৈধভাবে দখল করার জন্যও শক্তিশালী গোষ্ঠী সক্রিয় আছে। কাজগুলো সবার দৃষ্টির মধ্যেই হয়। সেহেতু সবাই কর্মগুলোকে মেনে নেন বলে ধরে নেয়া যায়। তার মানে, দুর্নীতি সমাজের অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে গেছে। এরূপ পরিস্থিতি থেকে পরিত্রাণের উপায় নিয়ে চিন্তা করার দায়িত্ব কার, চিন্তা করার পর্যায় কোনটি ইত্যাদি বিষয় আলোচনাযোগ্য। কিন্তু সেই আলোচনা গভীরভাবে বা নিবিড়ভাবে হচ্ছে না কোথাও। যাদের করা উচিত, তারা করছেন না। দেশের নেতৃত্বে যারা বা দেশ পরিচালনায় যারা নেতৃত্ব দিচ্ছেন তাদের দু’টি দলে বা সম্প্রদায়ে ভাগ করা যায়; যথা- রাজনৈতিক নেতৃত্ব এবং আমলাতান্ত্রিক নেতৃত্ব। দেশের সামাজিক উন্নয়ন, দেশের মানুষের নৈতিক উন্নয়ন যে, মনোযোগের দাবিদার একটি বিষয় সে কথাটি আমাদের প্রশাসনিক অভিধানে নেই। রাস্তাঘাট বানাতে হবে, রাস্তা মেরামত করতে হবে এটি একটি বিষয় এবং এ বিষয়ে চিন্তা বা পরিকল্পনা এবং বিষয়গুলো বাস্তবায়ন করার জন্য একটি মন্ত্রণালয় বা কর্তৃপক্ষ আছে। দেশে প্রাইমারি স্কুল বানাতে হবে, শিক্ষক নিয়োগ দিতে হবে, শিক্ষকদের বেতন দিতে হবে, বইপত্র ছাপাতে হবে ইত্যাদি বিষয় দেখার জন্য মন্ত্রণালয় বা কর্তৃপক্ষ আছে। দেশে পুলিশের থানা আছে, সেই থানার কর্মকাণ্ড দেখার জন্য কর্তৃপক্ষ আছে। খাদ্যশস্য ও অন্যান্য কৃষিজাত পণ্য উৎপাদিত হয়, সেগুলো বাজারজাত করা হয় এবং শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত এসব দেখার জন্য বিভাগ আছে, কর্তৃপক্ষ আছে। যে বিষয়টি আমাদের সমাজে নেই, আমাদের প্রশাসনে নেই, সেটি হলো মানুষের মধ্যে নৈতিকতা ও দেশপ্রেম সর্বদা জাগ্রত রাখার এবং রক্ষণাবেক্ষণ করার জন্য কোনো কর্তৃপক্ষ বা বিভাগ। পাঠক ভুল বুঝতে পারেন এবং কেন ভুল বুঝতে পারেন তা উদাহরণ দিয়ে বোঝাচ্ছি। পাট মন্ত্রণালয় আছে। এই মন্ত্রণালয়ের কাজ পাট নিয়ে, পাটের বীজ নিয়ে, পাটের মূল্য ও ক্রয় নিয়ে এবং পাট রপ্তানি নিয়ে। মৎস্য মন্ত্রণালয়ের কাজ মৎস্য চাষ নিয়ে, মৎস্যের লালন-পালন নিয়েও বাজারজাতকরণ নিয়ে এবং মৎস্যের স্বাস্থ্যসম্মত গুণাগণ রক্ষণাবেক্ষণ নিয়ে। স্বাস্থ্য বিভাগ আছে। এ বিভাগের কাজ হাসপাতাল স্থাপন ও রক্ষণাবেক্ষণ, ডাক্তারদের পদায়ন, হাসপাতালের শৃঙ্খলা ইত্যাদি। কিন্তু স্বাস্থ্য বলতে আমরা বোঝাচ্ছি মানুষের স্বাস্থ্য। পশুসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অধীনে পশুদের স্বাস্থ্য দেখাশোনার জন্য কার্যক্রম আছে। যে বিষয়টি নেই, যে বিষয়টির দিকে মনোযোগ আকর্ষণ করতে চাচ্ছি, সেটি হলো মনের স্বাস্থ্য। একটি ছোট প্রবাদবাক্য দিয়ে আরেকটি উদাহরণ দিই। প্রবাদবাক্যটি হলো ‘বনের বাঘ থেকে মনের বাঘের হুমকি বড়’। অর্থাৎ কিনা বনের বাঘকে দেখা যায়, বনের বাঘের আক্রমণ থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য পদক্ষেপ নেয়া যায়। কিন্তু মনের বাঘকে দেখা যায় না বিধায় সেই বাঘকে হত্যাও করা যায় না। তাহলে প্রশ্ন, মনের বাঘকে কী উপায়ে দূর করা যাবে তথা মনের স্বাস্থ্যকে কী উপায়ে রক্ষা করা যাবে? যেহেতু মানুষের মনই চিন্তার উৎপত্তিস্থল এবং আশ্রয়স্থল, অতএব সুস্থ মন বা সুস্বাস্থ্যের মন না হলে মন থেকে উৎপাদিত দ্রব্যাদি বা বিষয়গুলো ‘সু’ বা ভালো হবে না। অতএব, দুর্বল স্বাস্থ্যের মন নিয়ে বা অসুস্থ্ মন নিয়ে ভালো সমাজ, ভালো অর্থনীতি, ভালো প্রশাসন এবং কল্যাণমুখী রাষ্ট্র গঠন করা সম্ভব হবে না।

মনে করুন একটি পরিবারে স্বামী-স্ত্রী, বাবা-মা, সন্তান-সন্ততি আছে। মধ্যবয়স্ক স্বামীর কঠিন অসুখ। হাসপাতালে নেয়া হলো। ডাক্তার সাহেবরা দুই সপ্তাহ পর রোগীকে ছেড়ে দিলেন এবং বললেন, বাড়িতে নিয়ে যান। রোগীর মনের বল যেন হারিয়ে না যায়, অর্থাৎ মনোবল যেন উচ্চ থাকে। রোগীর সেবা করতে হবে। সঠিকভাবে রোগীর সেবা-শুশ্রুষা হলে রোগী সেরে উঠবে। তাকে কখনো একা রাখা যাবে না। এরূপ পরিস্থিতিতে এই রোগীর জন্য সবচেয়ে ভালো সেবা প্রদানকারী কে? স্বাভাবিক উত্তর হলো, প্রথমেই মা, দ্বিতীয়ত, স্ত্রী অথবা প্রথমে স্ত্রী, দ্বিতীয়ত, মা। এর কারণ একান্ত আন্তরিকতা তথা ভালোবাসা থাকতে হবে রোগীর প্রতি। তা না হলে সেবা প্রদানকারী ব্যক্তি নিজের আরাম-আয়েশ ত্যাগ করে রোগীর খেদমত করতে পারবে না। সেবাকারীদের জন্য এটি কঠিন পরীক্ষা। আমাদের সমাজে গ্রামে-গঞ্জে-নগরে, পরিচিতজনদের মধ্যে, আত্মীয়-স্বজনদের মধ্যে এরূপ পরিস্থিতি প্রায়ই সৃষ্টি হয়। যেহেতু চব্বিশ ঘণ্টাই রোগীর দিকে খেয়াল রাখতে হয়, কাজটা সে জন্য একজন সেবাকারীর পক্ষে সম্ভব হয় না। একাধিক ব্যক্তি লাগে। আমাদের বাংলাদেশের সমাজ এখন একটি রোগী। বাঙালি জাতি বীরের জাতি; তারা যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছে- এটা যেমন সত্য, যুগপৎ এটাও সত্য, যে আন্তরিকতা নিয়ে যুদ্ধ হয়েছিল, সেই আন্তরিকতা নিয়ে দেশ পরিচালনা করা হয়নি। এ কারণে বাংলাদেশের সমাজ একটি রুগ্ন সমাজ; যার কারণে আমাদের বহুলাংশের নৈতিকতা আজ অধঃপতিত। এই রোগী তথা এই সমাজকে সেবা-শুশ্রুষা করে সুস্থ করতে হবে। এ জন্য আন্তরিক সেবাকারী লাগবে। রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে সেবাকারী কারা? রাষ্ট্রের সরকার, সরকারের মন্ত্রিপরিষদ, জনগণের প্রতিনিধিত্বশীল আইন পরিষদ বা পার্লামেন্ট, রাষ্ট্রের অন্যতম অঙ্গ বিচার বিভাগ, বিচার বিভাগের অন্যতম অংশ মহামান্য সুপ্রিম কোর্ট, সরকারের জ্যেষ্ঠ আমলা, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর, কলেজের অধ্যাপক, জ্যেষ্ঠ ডাক্তার, মসজিদের ইমাম, মন্দিরের পুরোহিত প্রমুখ। পাঠক এত বড় একটি সেবা প্রদানকারী সম্প্রদায় সমন্বিতভাবে কাজ করাও মুশকিল। তাদের মধ্যেও অগ্রাধিকার প্রণয়ন করতে হবে। তা করতে গেলেই জ্যেষ্ঠতম সেবা প্রদানকারী হিসেবে চিহ্নিত হবেন সরকারের মন্ত্রী পরিষদ ও মন্ত্রীরা, পার্লামেন্ট এবং সুপ্রিম কোর্ট।

অনেকেই বলতে পারেন, এই কলামের ওপরের অংশে আমার কথাগুলো হতাশাব্যঞ্জক বা নেতিবাচক। তবে বিনয়ের সাথে দ্বিমত পোষণ করব। আমার মতে, আমি কোদালকে কোদাল বলছি, আমড়াকে আম বলছি না, পেয়ারাকে আপেল বলছি না। চেষ্টা করছি অপ্রিয় কথাটিকে উপস্থাপন করতে। আমাদের মতো নৈতিক অবক্ষয়ের সমাজ পৃথিবীর আরও অনেক জায়গা আছে। কিন্তু তাদের অনুকরণ করে আমরা যদি অবক্ষয়ের দিকে যাই তাতে সমস্যার সমাধান হবে না। কারণ প্রত্যেক দেশ বা জাতিকে নিজেদের কর্মফল আলাদা আলাদাভাবে ভোগ করতে হবে। প্রত্যেক ব্যক্তি বা প্রত্যেক পরিবারকে তাদের কর্মফল আলাদা আলাদাভাবে ভোগ করতে হবে। সে জন্য বহু দেশ নৈতিকভাবে অবক্ষয়ে থাকলেও, দুর্নীতিতে থাকলেও তাদের নেতৃত্বকে তারা অতি উচ্চমার্গে প্রশ্নাতীতভাবে উজ্জ্বল রাখতে চায়। পাশ্চাত্যে বা আমেরিকায় বিয়েবহির্ভূত পুরুষ ও নারীর দৈহিক সম্পর্ক এমন পর্যায়ে যেটাকে ‘পান্তাভাত’ বলাই শ্রেয়। কিন্তু আমেরিকার রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসি নগরীতে, প্রেসিডেন্টের কর্মস্থল ও বাসভবন হোয়াইট হাউজে, তদানীন্তন প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন যখন মনিকা লিউনস্কি নামের নারীর সাথে অশোভন সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন, তখন আমেরিকার সমাজ প্রতিবাদে উদ্বেগে ফেটে পড়েছিল।

টাকা চুরি করা, টাকা দেশ থেকে বিদেশে স্থানান্তর করা এটি একটি আধুনিক ও বহুল অভ্যাসকৃত অপরাধ। ঢাকা মহানগর থেকে প্রকাশিত পত্রিকার নাম বাংলাদেশ প্রতিদিন। এই পত্রিকায় ৭ এপ্রিল তারিখে প্রথম পৃষ্ঠায় লাল কালিতে সংবাদ শিরোনাম ছিল ‘টাকা পাচারের ভয়ঙ্কর চিত্র… বিদেশী নাগরিকদের নিয়োগের নামে অর্থ পাচার… হুন্ডি এলসি ঘুষ সেকেন্ড-হোম ভুয়া দলিলে ব্যাংকঋণ, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড, দুবাই, যুক্তরাজ্য ফ্রান্সে আবাসিক ভবন… জমি-হোটেলসহ বিভিন্ন ব্যবসায় বিনিয়োগ’। পত্রিকাটির দীর্ঘ রিপোর্টে ভয়ানক তথ্যবহুল উদাহরণ দেয়া হয়েছে। কালের কণ্ঠ, নয়া দিগন্ত, মানবজমিন, প্রথম আলো, ইনকিলাব ইত্যাদি বহুল প্রচারিত পত্রিকায়ও প্রায়ই দুর্নীতির বিভিন্ন সংবাদ বিস্তারিত প্রকাশিত হচ্ছে। কিন্তু রিপোর্ট প্রকাশের পর আর কিছু করার এখতিয়ার বা অবকাশ পত্রিকার নেই। তাহলে রিপোর্ট প্রকাশ করলেই বা কী, না করলেই বা কী? করলে কিছু না কিছু উপকার আছেই; যেমন মানুষের সচেতনতা সৃষ্টি হয়। কিন্তু সাধারণ মানুষ সচেতন হয়ে যত লাভ তার থেকে হাজার গুণ বেশি লাভ যদি দায়িত্বশীলেরা সচেতন হন।

বাংলাদেশের বিভিন্ন রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকে গত চার বছরে অনেক বড় বড় কেলেঙ্কারি উদ্ঘাটিত হয়েছে। সর্বশেষ ‘আবিষ্কার’ হচ্ছে বেসিক ব্যাংক। কোনো বাণিজ্যিক ব্যাংক থেকে, কোনো একজন আগ্রহী ব্যক্তি বাণিজ্যিক ঋণ নেয়ার সময় ব্যাংক অনেক বিষয় খোঁজ করে; যেমন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের ব্যবসার ধরন, শিল্পপ্রতিষ্ঠানের শিল্পের ধরন, লোনের বিপরীতে কী সম্পদ বন্ধক দেয়া যাবে, সেই সম্পদের মূল্য কত, লোন ফেরত দেয়ার মতো ইনকাম হবে কি না ইত্যাদি। রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোতে এসব আঙ্গিকেই খোলামেলাভাবে বহু ক্ষেত্রে দুর্নীতি করা হয়। অবশ্য ঢালাওভাবে মন্দ সার্টিফিকেট রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলো সম্পর্কে প্রদান করা অনুচিত; কিন্তু আমিসহ বাংলাদেশিদের মনে যে ধারণা সৃষ্টি হয়েছে, সেটি হলো রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোতে দুর্নীতি হয়। মিডিয়ার মাধ্যমে জানতে পারি, প্রাইভেট সেক্টরের অনেক ব্যাংকেও দুর্নীতি হয়েছে এবং হচ্ছে। এর কারণ, প্রাইভেট সেক্টরের ব্যাংকের মালিকেরা তথা পরিচালকরা সচেতন নন; এ কারণে কেলেঙ্কারি ঘটে। রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের অনেক কেলেঙ্কারির মধ্যে মাত্র আট-দশটি বড় কেলেঙ্কারি আবিষ্কৃত হয়েছে, তথা মিডিয়াতে ফলাও প্রচার পেয়েছে। কিন্তু ওই পর্যন্তই। বাংলাদেশে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের যে দীর্ঘ প্রক্রিয়া, তার মাধ্যমে দোষী ব্যক্তিকে শাস্তি দেয়া এবং টাকা উদ্ধার করা অনেকটা দুঃস্বপ্ন। ব্যাংকিং সেক্টরে সবচেয়ে বড় আলোচিত ঘটনা ঘটেছে অতিসম্প্রতি, বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরি প্রসঙ্গে। এর ফলে সাধারণ মানুষের আস্থা, ব্যাংকিং সিস্টেমের ওপর দুর্বল হয়ে গেছে। অর্থাৎ বিনিয়োগের অঙ্গনটি দুর্নীতিগ্রস্ত, ব্যাংকিংয়ের ওপর আস্থা নেই এবং এই দু’টির প্রভাবে সমাজে দুর্নীতি আরো বৃদ্ধি পাবে। এর থেকে উদ্ধারের উপায় হচ্ছে, রাজনীতি ও প্রশাসনের নেতৃত্বকে সচেতন হওয়া। কিন্তু ওই নেতৃত্ব যদি দুর্নীতিগ্রস্ত থাকে, তাহলে কী করণীয়? আমাদের দেশের অঙ্গনে জ্যেষ্ঠ রাজনৈতিক, প্রশাসনিক ও ব্যবসায়িক নেতৃত্বের প্রসঙ্গে আজকে আর বলছি না। আজকের শেষ কথাগুলো হচ্ছে, বিশ্বব্যাপী দুর্নীতি প্রসঙ্গে।

পানামা পেপারস নামের যে তথ্য ফাঁস হয়েছে সেটাকে পর্যালোচনা করলে সাংঘাতিক চিত্র ভেসে ওঠে। বহু দেশের প্রেসিডেন্ট বা প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী, শীর্ষ আমলা, শীর্ষ অভিনেতা, শীর্ষ শিল্পপতি, শীর্ষ মিডিয়া মালিক, শীর্ষ এনজিও মালিক, শীর্ষ ব্যাংক মালিক, শীর্ষ ব্যাংক কর্মকর্তা, শীর্ষ শিক্ষাবিদ প্রমুখের নাম পানামা পেপারসের মাধ্যমে জনসমক্ষে এসেছে। বাংলাদেশেরও অনেকের নাম কয়েকটি পত্রিকায় এসেছে। পৃথিবীর অন্যত্র যেমন, বাংলাদেশেও অনেকেই চুপ করে আছেন এবং অনেকেই অস্বীকার করছেন। বাস্তবসম্মত মন্তব্য করার সময় এখনো আসেনি। সম্ভবত দুই-চার সপ্তাহ পর আসবে। পানামা পেপারসের মাধ্যমে ফাঁস হওয়া দুর্নীতির রূপ বা আকৃতি কী? নিজ নিজ দেশে বৈধ বা অবৈধ ইনকামের ওপর নিজের সরকারকে কর না দিয়ে, অথবা কর না দেয়ার জন্য, অথবা প্রকৃত ইনকাম লুকানোর জন্য, আলোচ্য ব্যক্তিরা বিদেশে ব্যবসার আশ্রয় নিয়েছেন। বিদেশ বলতে মাত্র দুই-তিনটি দেশ; অনেক দূরে, স্বল্প পরিচিত, যেখানে আর্থিক নিয়মকানুন ঢিলেঢালা। দূরের ওইসব দেশে আলোচ্য ব্যক্তিরা বিভিন্ন কোম্পানি বা ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান খুলেছেন কিংবা প্রতিষ্ঠানের মালিক বা অংশীদার হয়েছেন। এই কাজে সাহায্য করেছে যে প্রতিষ্ঠান গত পনেরো-বিশ বছর ধরে, মধ্য আমেরিকার পানামায় অবস্থিত। সে জন্য ফাঁস হয়ে যাওয়া কাগজপত্র বা তথ্যগুলোর মুখরোচক নাম হচ্ছে ‘পানামা পেপারস। এ প্রসঙ্গে আগামীতে ইনশাআল্লাহ আলোকপাত করা হবে।

লেখক: বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান।
 

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া