adv
২৫শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

হেলালের অভিযোগ – নজিবকে প্রাডো, লোকমানকে কোটি টাকা উপহার দিলেন পোটন

HELAL.BFFনিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের নির্বাচন নিয়ে ক্রীড়াঙ্গণ উত্তপ্ত। বিশেষ করে সভাপতি পদে চতুর্মুখী লড়াই নিয়ে।  গতকাল একাধিক ভোটারদের সঙ্গে আলাপ করে বোঝা গেলো বর্তমান সভাপতি কাজি সালাউদ্দিনের পাল্লাই ভারী। তবে যাদরেল প্রার্থী হিসাবে সাবেক কৃতি ফুটবলার গোলাম রাব্বানী হেলালও লড়াইয়ে পিছিয়ে নেই।    তিনি বলেছেন, নির্বাচন সুষ্ঠু হলে তিনিই বাফুফের সভাপতি নির্বাচিত হবেন। তবে কাজি সালাউদ্দিন প্রকাশ্যে কোনো মন্তব্য করছেন না। টঙ্গী ক্রীড়া চক্রের কাউন্সিলর মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম নুরুও সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তবে ক্রীড়াঙ্গণে তার কোনো নাম ডাক নেই। আরেক প্রার্থী নরসিংদী-২ আসনের স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য কামরুল আশরাফ খান পোটন। তিনি নিজেকে যোগ্য সভাপতি প্রার্থী মনে করছেন। তার বিরুদ্ধেই ঘোরতর অভিযোগ তুলেছেন গোলাম রাব্বানী হেলাল। পোটন ঢাকার শীর্ষস্থানীয় দুই ক্লাব কর্মকর্তাকে বিলাসবহুল প্রাডো গাড়ি এবং কোটি টাকা দিয়েছেন, এমন অভিযোগ তুলে গোটা ক্রীড়াঙ্গণে হৈচৈ ফেলে দিয়েছেন হেলাল।
তিনি বলেন, পোটন কীভাবে প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হয়েছেন আমি সব জানি। তিনি বাফুফের নির্বাচনে সহ সভাপতি প্রার্থী শেখ জামালের নজিবকে প্রাডো গাড়ি উপহার দিয়েছেন। আরেক সহ সভাপতি প্রার্থী মোহামেডান ক্লাবের ডাইরেক্টর ইনচার্জ লোকমান হোসেন ভূঁইয়াকে দিয়েছেন কোটি টাকা। গাড়ি উপহার পেয়ে নজিব আমার কাছে স্বীকারও করেছেন। হেলাল বলেন, অতীতে বাফুফে নির্বাচনে এভাবে টাকার ছাড়াছড়ি ছিল না। এটা ফুটবলের জন্য অশনি সংকেত। এমনকি ফিফা আইনেরও লঙ্ঘন।
হেলাল নিজে প্রেসিডেন্ট পদে লড়ছেন, তবে তিনি কোন প্যানেল থেকে নয়। সাংসদ পোটন প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হয়েছেন ‘ফুটবল বাঁচাও’ জোট থেকে। সালাউদ্দিন বিরোধী জোট হিসেবে পুরো প্যানেল দিয়েছে ‘ফুটবল বাঁচাও’ কমিটি। এ জোটের  দুই গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হলেন নজিব আহমেদ ও লোকমান হোসেন ভূঁঁইয়া। নজিব সহ-সভাপতি পদে লড়লেও, মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়ার পরও তা প্রত্যাহার করে নেন মোহামেডান ক্লাবের ডিরেক্টর ইনচার্জ লোকমান হোসেন ভূঁইয়া। গোলাম রাব্বানী হেলাল দীর্ঘদিন ধরেই বর্তমান প্রেসিডেন্ট সালাউদ্দিনের ব্যর্থতা নিয়ে কথা বলে আসছেন। তিনি মনে করেন, গত আট বছরে ৮ জন ফুটবলারও তৈরি করতে পারেননি সালাউদ্দিন।
তবে সাংসদ পোটনের সমালোচনায় মুখর হেলাল। পোটনের সঙ্গে দীর্ঘ দিনের বন্ধুত্ব তার। হেলালের কারণেই পোটন নরসিংদী জেলা থেকে বাফুফের কাউন্সিলর হয়েছে। সেই পোটনই যখন পাশ কাটিয়ে বাফুফের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী, তখন হতাশ ও বিস্মিত হন হেলাল। তিনি সাংবাদিকদের জানান, আমিই পোটনকে কাউন্সিলর বানিয়েছিলাম। ভেবেছিলাম, যাক আমার একটা ভোট বাড়লো। এখন দেখি তিনি নিজেই প্রার্থী। ফুটবলে অবদান রাখার কি যোগ্যতা আছে তার, ফুটবলের কি বোঝেন? তিনি তো হবেন ব্যবসায়ী নেতা, ফুটবলে এলেন কেন। আসলে কোন স্বার্থে তিনি এখানে এসেছেন আমি সব জানি। এ ব্যাপারে পোটনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি তো হেলাল সাহেবের মতো বিত্তবান নই। হেলাল আমাকে হেয়প্রতিপন্ন করে ইমেজ ক্ষুণœ করতে প্রপাগাণ্ডা চালাচ্ছেন। আমি কারো বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলবোনা। নির্বাচনই প্রমাণ করবে ফুটবল অঙ্গণে কতো জনপ্রিয়তা।  

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া