adv
৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ১৬ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাঁশখালী ট্র্যাজেডি : সারাদেশে বিক্ষোভ শুক্রবার

2016_04_05_19_40_07_MAFmxuLszRnxgRhPgr1qMcvrjCM5SW_originalনিজস্ব প্রতিবেদক : চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে পুলিশের গুলিতে ৬ জন নিহত হওয়ার ঘটনায় আগামী শুক্রবার (৮ এপ্রিল) সারাদেশে বিক্ষোভ মিছিলের ডাক দিয়েছে তেল-গ্যাস-খনিজসম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি।

মঙ্গলবার (৫ এপ্রিল) বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বাঁশখালী হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে এবং মানুষ-প্রকৃতি বিধ্বংসী সকল লুণ্ঠন প্রকল্প বাতিলের দাবিতে আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে এ ঘোষণা দেন কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মোহাম্মদ।

উন্নয়নের নামে এ সরকার দেশের সাধারণ মানুষের জমি দখল প্রকল্প চালাচ্ছে বলেও এসময় মন্তব্য করেন তিনি।

কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন নিয়ে বাঁশখালীতে গ্রামবাসী আর পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় এস আলম গ্রুপ ও চীনা কোম্পানিকে দায়ী করেন আনু মোহাম্মদ। পাশাপাশি সংঘর্ষের কারণ তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘ওই গ্রুপ আর কোম্পানি এলাকার সাধারণ মানুষের কাছ থেকে প্রতারণামূলকভাবে জমি লিখে নেয় এবং তা জোরপূর্বক দখলে নিয়ে সেখানে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের চেষ্টা চালায়।’

তিনি আরো বলেন, ‘প্রতারণার শিকার হচ্ছে বুঝতে পেরে বাঁশখালির সাধারণ মানুষ এই বিদ্যুৎ প্রকল্পের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করে। আর সরকার সাধারণের বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে ওই গ্রুপ ও কোম্পানির হয়ে নিরীহ মানুষের ওপর পুলিশি আক্রমণ চালায়। এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে ৬ জনের মৃত্যু হয়।’
   
গ্রুপ, কোম্পানি, পুলিশ বাহিনী ছাড়াও এ সংঘর্ষের ঘটনায় সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, পরিবেশ অধিদপ্তরকেও দায়ী করেন আনু মোহম্মদ।

এসময় সরকারের উদ্দেশ্যে প্রশ্ন ছুড়ে দিয়ে তিনি বলেন, ‘যদি বাঁশখালী বিদ্যুৎ প্রকল্প উন্নয়ন প্রকল্পই হয়, তাহলে স্থানীয় সাধারণ মানুষের সঙ্গে আলোচনায় বসতে সমস্যা কি?’

সমাবেশ থেকে দাবি তুলে বলা হয়, বাঁশখালী সংঘর্ষের ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত বিচারের আওতায় আনার পাশাপাশি প্রকৃতি বিধ্বংসী ওই কয়লাভিত্তিক প্রকল্প থেকে সরে আসেতে হবে।

আনু মোহাম্মদের সভাপতিত্বেব সমাবেশে আরো বক্তব্য দেন- সিপিবি সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকী ও বাসদের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রাজেকুজ্জামান রতন প্রমুখ।

উল্লেখ্য, গতকাল সোমবার (৪ এপ্রিল) চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ নির্মাণের প্রতিবাদ মিছিলে পুলিশের গুলিতে ৬ জন নিহত হয়। নিহতরা হলেন- গণ্ডামারা ইউনিয়নের চরপাড়ার দুই ভাই মরতুজা আলী (৫৫) ও মো. আনোয়ারুল ইসলাম (৪৪), একই ইউনিয়নের রহমানিয়া সিনিয়র মাদরাসা এলাকার বাসিন্দা জাকের আহমদ (৬০) ও  মো. জাকের হোসেন। এছাড়া মঙ্গলবার (৫ এপ্রিল) সকালে গুলিবিদ্ধ আরও দুজন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। তারা হলেন জহিরুল ইসলাম ও মেয়ে (অজ্ঞাত)। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন গুলিবিদ্ধ আরও ১০-১৫ জন। তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া