adv
২৮শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

উপমন্ত্রী জয়ের বেপরোয়া আচরণ – বাস থেক পুলিশ কর্মকর্তাকে লাথি মেরে ফেলে দেন

JOYডেস্ক রিপোর্ট :  এর আগে বেশ কবার নিজ মন্ত্রণালয়ের সচিব থেকে শুরু করে অনেককে লাঞ্ছিত করে সংবাদের শিরোনাম ঞয়েছিলেন যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়।  এবার তাকে নিরাপত্তা (প্রটোকল) দিতে যাওয়া পুলিশের এক কর্মকর্তাকে লাথি মেরে বাস থেকে ফেলে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে জয়ের বিরুদ্ধে।

১ এপ্রিল শুক্রবার দিবাগত রাতের এ ঘটনা ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে জানিয়ে ভবিষ্যতের জন্য থানায় ডায়েরি (নোট) করেছেন ওই পুলিশ কর্মকর্তা।

নোটটি থেকে জানা যায়, শুক্রবার দিবাগত রাত ১টা ৫০ মিনিটের (০২/০৪/১৬) সময় যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী জয়কে বহনকারী গাড়িটিকে (ঢাকা মেট্রো ঘ-১৫-০১৮৩) নবীনগর-চন্দ্রা মহাসড়কের জিরানী এলাকা থেকে প্রটোকল দেয়ার দায়িত্বে ছিলেন আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মলয় কুমার।  কিন্তু উপমন্ত্রীর গাড়ি দ্রুতগতিতে এসে প্রটোকলের গাড়ি অতিক্রম করে সামনে এগিয়ে যায়।

উপমন্ত্রীর গাড়ির পেছনে ছুটে গেলেও তার গাড়ির নাগাল পাচ্ছিল না প্রটোকলের গাড়ি।

নোটে মলয় কুমার লেখেন, “আমি উপমন্ত্রীর গাড়ির পেছনে পেছনে আমার গাড়ির সর্বোচ্চ গতিসীমায় চালাইয়াও উপমন্ত্রীর গাড়ির গতির সঙ্গে সমন্বয় করতে ব্যর্থ হই।” এরপর ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের নবীনগর এলাকা অতিক্রম করে কিছুদূর এগিয়ে মন্ত্রীর  গাড়িটি সড়কের ডিভাইডারে উঠে যায়।

সেখানে ডিউটিরত সাভার মডেল থানার রোমিও-১ বেতার মাধ্যমে এ ঘটনাটি সংশ্লিষ্টদের জানানো হয়। এরপর মলয় কুমার উপমন্ত্রী জয়ের গাড়ির কাছে গিয়ে ঘটনার বিষয়টি আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে জানাতে থাকেন।  এ সময় সাভার থানার ডিউটিরত কর্মকর্তাকে গালাগাল দিচ্ছিলেন জয়। এর মধ্যেই মন্ত্রী দৌড়ে রাজশাহী থেকে ঢাকাগামী খালেক পরিবহনের (ঢাকা মেট্রো ব-১১-৬৮৪২) একটি বাসে উঠে যান। এ সময় বাসের সুপারভাইজারকে ধমক দিয়ে তিনি বাসটিতে উঠতে সক্ষম হন।

নোটে বলা হয়, আশুলিয়া থানার ওসিকে বিষয়টি জানানো হলে যেকোনো উপায়ে মন্ত্রী জয়কে ভিআইপি নিরাপত্তা দেয়ার নির্দেশ দেন তিনি।

এরপর আশুলিয়া থানার টহলদল জয়কে বহনকারী বাসটি অনুসরণ করতে শুরু করে। একপর্যায়ে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের বিএলআরআইয়ের সামনে মন্ত্রীকে বহনকারী  কোচটি থেমে যায়। এই সুযোগে উপপরিদর্শক মলয় কুমার পুলিশের গাড়ি থেকে নেমে মন্ত্রীকে বহনকারী বাসটিতে উঠতে গেলে দরজার সামনে দাঁড়িয়ে থাকা উপমন্ত্রী তাকে লাথি মেরে ফেলে দেন। এতে ওই পুলিশ কর্মকর্তা সামান্য আহত হন। এরপর ড্রাইভারকে ধমক দিয়ে গাড়িটি চালাতে বাধ্য করেন উপমন্ত্রী।

মলয় কুমার এরপর লেখেন, “আমি উক্ত বাসটির নিরাপত্তা ডিউটি অব্যাহত রাখিয়া পুলিশ সুপার ও ওসি স্যারকে বিস্তারিত জানাই। মন্ত্রেী মহোদয়কে বহনকারী বাসটি গাবতলী থামলে তিনি একটি সিএনজি (অটো) নিয়ে মাজার রোডের গলির দিকে চলে যান। আমি উনাকে বহনকারীর সিএনজি অনুসরণ করে গলির ভেতর গিয়ে সিএনজি হারিয়ে ফেলি।”

মলয় কুমার এরপর লেখেন, “বিষয়টি পুলিশ সুপার ঢাকা জেলা স্যারসহ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করিয়া কর্তৃপক্ষের নির্দেশে ভবিষ্যের জন্য নোট রাখিলাম।”  

এ ব্যাপারে জানতে আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক মলয় কুমারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি  কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া