adv
৩রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভারতকে কাঁদিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ফাইনালে

Untitled-2জহির ভূইয়া ঃ মধ্য রাতে মুম্বাইয়ের স্টেডিয়ামে হাজার হাজার দর্শক চুপ মেরে বসেছিলেন। কি যে হয়! ১৯৩ রানের টার্গেট তাড়া করছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। স্বাগতিক ভারত টি২০ বিশ্বকাপ-২০১৬ আসরের ফাইনালে যেতে ২ উইকেটে করেছে ১৯২ রানের বিশাল পাহাড়। সেই টার্গেটের চূড়ায় উঠতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রয়োজন শেষ ৬ বলে ৮ রান। হাতে ছিল ৭টি অক্ষত উইকেট। পরিস্থিতি ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে। ৭ উইকেটে হেরে স্বাগতিক ভারত নিজের ঘরে দর্শকের সারিতে চলে গেল। ৩ মার্চ ফাইনালে ইংল্যান্ডের প্রতিপক্ষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ। আসলে বিশ্বকাপের আগেই ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ভারত জয় করতে হয়েছে।


সিমন্স ৮১রানে আর রাসেল ২৩ রানে ব্যাট করছেন। ১৯.১ ওভারে রাসেলের ব্যাট থেকে আসে এক রান, দ্বিতীয় বলে সিমন্সের ব্যাট থেকে বাউন্ডারি। ১৯০/৩, ৩ বলে ৩ রান। সিন্সস বিশাল ছক্কার ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ২ বল না খেলেই ফাইনালের টিকিট এনে দেয়। মুল ভারতের ১৯৩ রানের স্কোওে ছিল ১৭টি বাউন্ডারি আর ৪টি ছক্কার মার। অপর দিকে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৯৬ রান করতে গিয়ে ২০টি বাউন্ডারি আর ছক্কা হাঁকায় ১১টি। এখানেই ম্যাচে পার্থক্যের গ্রাফটি পরিস্কার হয়ে গেছে। ৫১ বলে ৮২ রানে অপরাজিত সিমন্সের ব্যাট থেকে এসেছে ৭টি চার ও ৫টি বিশাল ছক্কা। তাই তো ম্যাচ শেষে সিমন্সের নামটি ম্যান অব দ্য ম্যাচ ঘোষনা হতে সমস্যা হয়নি।


বাংলাদেশ সেদিন ১ রানে হেরে যে কান্না কেঁদে ছিল সেই কান্না আজ মুম্বাইতে ভারতের সমর্থকরা কেঁদেছে। এবার নিয়ে তিন বার সেমিফাইনালে ব্যর্থ হল ভারত। ২০০৭ সালে সেমির গন্ডি পাড়ি দিয়ে ফাইনাল জিতে নেয়। কিন্তু ২০১৪ সালে ফাইনালে গিয়েও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে হেওে যায়। এবার নিয়ে তৃতীয় বার সেমিতে খেলেছে ভারত। গত আসরে ২০১৪ সালে মিরপুওে ফাইনালে যেতে পারলেও শিরোপা জেতা হয়নি। এবার তো সেমিতেই শেষ মিশন। আর ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২০০৯, ২০১২ ও ২০১৪ সালে টি২০ বিশ্বকাপ আসরে সেমিতে খেলেছে। চার বার সেমিতে খেলে দুই বার ব্যর্থ (২০০৯ ও ২০১৪) আর দুই বার ফাইনালে (২০১২ ও ২০১৬)। ২০১২ সালে শ্রীলঙ্কার মাটিতে প্রথম বার শিরোপা স্বাদ পায়।


ভারতের ১৯৪ রানের টার্গেট না বলে সেটা রানের পাহাড় বলাই শ্রেয়। কিন্তু ওয়েস্ট ইন্ডিজও কম নয় সেটাতো জানা তথ্য। সবচেয়ে বড় বিষয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের ওপেনার তান্ডব লীলা করা ব্যাটসম্যান ক্রিস গেইল। তিনি যতোটা সময় ক্রিজে থাকেন ততোটা সময় রানের মিশন চলতেই থাকে। কিন্তু আজ মুম্বাইয়ের উইকেটে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ভাগ্য খারাপই বলতে হবে। মাত্র ৫ রানে বোল্ড হলেন ঝড়ো গতির ওপেনার গেইল।
অপর ওপেনার জনসন ঠিকই নিজের দ্বায়িত্ব পালন করলেন। সঙ্গী পেলেন স্যামুয়েলকে। তিনি ৮ রানে বেশি টিকলেন না পেসার আশ্বিস নেহেরার বলে ক্যাচ দেবার কারনে। এরপর জনসন-লেন্ডি সিমন্স তৃতীয় জুটিতে ভারতের বোলিং বিভাগকে ভালই জবাব দিচ্ছিলেন।

১০ ওভারে স্কোর বোর্ডে জমা হয়ে গেছে ৮৪টি রান। ২ উইকেটের পতনের পর ধোনী বাহিনী উইকেট দ্রুত তুলে নিতে চাইছিল। সেটা তৃতীয় জুটি হতে দেয়নি। জনসন ২৭ বলে ৪৫ আর সিমন্স ২৫ বলে ৩৫ রানে ব্যাট করছেন। শেষ ৬০ বলে রান দরকার হয় ১১০ রান।


১২তম দলীয় ওভার, পেসার পান্ডার ডেলিভারিতে ৩০ বলে ৭টি চার ও ২টি ছক্কা দিয়ে ক্যারিয়ারের ২৮তম টি২০ ম্যাচে ৩য় ফিফটির দেখা পেয়ে যান। এই জুটি ১৪তম ওভারের শুরুতে ভেঙ্গে দিলেন স্পিনার কোহেলী। ৫২ রান করা জনসনের ক্যাচ তালুবন্দি করলেন শর্মা। ৩৫ রানে থাকা সিমন্স গঙ্গী পেলেন রাসেলকে। ১৫তম ওভারে এসে সিমন্স ৩৫ বলে ক্যারিয়ারের ৩৫তম টি২০ ম্যাচে ৫ম ফিফটি। ১৫তম ওভারের শেষ বলে সিমন্স নেহেরার বলে ক্যাচ দিয়েও বেঁচে গেছেন। কারন ডেলিভারিটা ছিল “নো’ বল। ১৩১ রানে ৩ উইকেট।
শেষ ৩০ বলে ৫৫ রান আর হাতে ছিল ৭টি অক্ষত উইকেট।  ১৬তম ওভারে ৬ বলে যোগ হয় ২০ রান। স্কোর ১৫১/৩। আর শেষ ১৮ বলে জয় পেতে দরকার হয় ৩২টি রান। ১৮তম ওভারে বোমরার পর পর তিনটি বলই মিস করলেন ব্যাটসম্যান সিমন্স। ৪র্থ বলে বিশাল ছক্কার মার দিলেন। ফিল্ডার তৈরি ছিলেন। বল হাতে নিয়ে পা স্পর্শ করে বাউন্ডারি। যদিও ফিল্ডার বল হাতে থাকা অবস্থায় হাওয়ায় ভেসে ছিলেন। বল ছুঁড়ে দিলেন কোহেলির হাতে। কিন্তু হল না। ছক্কার ঘোষনা আসে।


১৮ ওভার শেষে ১৭৩/৩। ফাইনালের দরজায় দাঁড়িয়ে থাকা ওয়েস্ট ইন্ডিরজর ১২ বলে ২০ রান দরকার। আর শেষ ৬ বলে ৮ রান! কোহেলীর ওভারে রাসেলের ব্যাট থেকে পর পর দুইটি বল ডট! এর পরের বলেই ১ রান আর ইনিংসের ৪র্থ বলে সিমন্সের বিশাল ছক্কা হাঁকালেন সিমন্স। ২ বল অক্ষত রেখেই সেমিফাইনালের গন্ডি পেরিয়ে যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ৫১ বলে ৮২ রানে সিমন্স আর রাসেল ২০ বলে ৪৩ রানে অপরাজিত রইলেন।  


এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নামা ভারত ২০ ওভারের মিশনের স্কোর বোর্ডে জমা করে ২ উইকেটে ১৯২ রানের বিশাল পাহাড়। টপ অর্ডারের ৪ ব্যাটসম্যানই রান করেছেন। ওপেনার রোহিম শর্মা ৩১ বলে ৪৩ রান। তাতে ছিল ৩ চার ও ৩ ছক্কার মার। অপর ওপেনার আজিনকে রাহিনির সঙ্গে জুটি বাঁধেন বিরাট কোহেরী। রাহিনি ৩৫ বলে ২ চার দিয়ে ৪০ রানে রাসেলের বলে বোল্ড হলেন। কোহেলীর এবারের সঙ্গে অধিনায়ক ধোনী। এই জুটি শেষ অবদি ক্রিজে বোলারদের শাসন করে যান। ৪৭ বলে ১১টি চার ও ১টি ছক্কার মার দিয়ে ৮৯ রানে অপরাজিত কোহেলীর এটা ৪৩তম টি২০ ম্যাচে ১৬তম টি২০ ম্যাচ।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া