adv
১৬ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১লা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

উত্তপ্ত কুমিল্লা, নিরব প্রশাসন – তনু হত্যার বিচার দাবিতে ৪০ হাজার শিক্ষার্থীর বিক্ষোভ

comillaডেস্ক রিপোর্ট : কুমিল্লায় ভিক্টোরিয়া কলেজের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভকুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের ইতিহাস বিভাগের সম্মান দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ও নাট্যকর্মী সোহাগী জাহান তনুর খুনিদের বিচার দাবিতে মাঠে নেমে এসেছেন ভিক্টোরিয়া কলেজের প্রায় ৩০ হাজার শিক্ষার্থী। ২৪ মার্চ বৃহস্পতিবার নগরীর কেন্দ্রস্থল কান্দিরপাড় পূবালী চত্বরে বিক্ষোভ করেন তারা। অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ও সংস্কৃতি কর্মীরা বিক্ষোভে যোগ দিলে এই সংখ্যা ৪০ হাজার ছাড়িয়ে যায় বলে জানান প্রত্যক্ষদর্শীরা।

efc787786709645cf06f8b53f017207f-56f39cdd7dcd8বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা। এ সময় নগরীতে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। তাদের সঙ্গে যোগ দেন কুমিল্লা সরকারি কলেজ, কুমিল্লা সরকারি মহিলা কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সদস্যরা। পরে তারা জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের কাছে স্মারকলিপি দেন।

কান্দিরপাড়ে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভে এসে দুঃখ প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইমতিয়াজ আহমেদ, কোতয়ালী মডেল থানার ওসি আবদুর রব। তারা দ্রুত অপরাধীদের শনাক্ত করার আশ্বাস দেন।

শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করেন- সাংস্কৃতিক সংগঠক শহীদুল হক স্বপন, দক্ষিণ জেলা যুবদল সভাপতি আমিরুজ্জামান আমির, দক্ষিণ জেলা ছাত্রদল সভাপতি উতবাতুল বারী আবু, মহানগর ছাত্রলীগ সভাপতি আবদুল আজিজ সিহানু, ছাত্রলীগ নেতা রোকন উদ্দিন ও শাওন প্রমুখ। 

ভিক্টোরিয়া কলেজ থিয়েটারের সাবেক সভাপতি আল-আমিন বলেন, সোহাগী জাহান তনু আমাদের সংগঠনের সদস্য ছিলেন। তার হত্যার বিচার না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে। সন্ধ্যায় নগরীর কান্দিরপাড়ে প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মাধ্যমে হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ জানানো হবে।

নিহতের পরিবারের সূত্র জানায়, গত রবিবার (২০ মাচ) সন্ধ্যায় টিউশনি করে বাসায় ফেরার পথে কুমিল্লা সেনানিবাস এলাকায় পাশবিক নির্যাতনের পর হত্যা করা হয় সোহাগী জাহান তনুকে। পরে রাত সাড়ে ১০টার দিকে ময়নামতি সেনানিবাসের ভেতরে পাওয়ার হাউসের পানির ট্যাংকের পাশে তনুর মৃতদেহ পাওয়া যায়। কালভার্টের পাশে ঝোপের ভেতর মাথা থেতলানো অবস্থায় তনুর অর্ধনগ্ন মৃতদেহ পড়েছিল।

সোমবার (২১ মার্চ) নিহতের বাবা ইয়ার হোসেন কুমিল্লা কোতোয়ালী মডেল থানায় অজ্ঞাতদের নামে হত্যা মামলা দায়ের করেন। হত্যাকাণ্ডের চার দিনেও কাউকে গ্রেফতার বা হত্যার রহস্য উদঘাটন করতে পারেনি পুলিশ।
 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া