adv
২২শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রিজার্ভর অর্থ লুট – অর্থমন্ত্রীর অপসারণ চায় গণজাগরণ মঞ্চ

Moncho1458315207নিজস্ব প্রতিবেদক : অর্থমন্ত্রীর প্রশ্রয়েই রিজার্ভের অর্থ লুট হয়েছে, এ অভিযোগ করে তার অপসারণ চেয়েছে গণজাগরণ মঞ্চ।
 
গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার বলেছেন, ‘রিজার্ভ থেকে যে টাকা লোপাট হয়েছে, তা কীভাবে ফেরত আনা যায় আর দোষীদের শাস্তি দেওয়া যায়, সেদিকে আমাদের গুরুত্ব দিতে হবে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক সরকারের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানগুলোর একটি। এখান থেকে অর্থ লুট হওয়া বাংলাদেশ রাষ্ট্রের ওপর একটি চূড়ান্ত আক্রমণ।’
 
১৮ মার্চ শুক্রবার বিকেলে রিজার্ভ জালিয়াতির প্রতিবাদে শাহবাগে এক নাগরিক সমাবেশে ইমরান এইচ সরকার বলেন, ‘যখন একের পর আর্থিক প্রতিষ্ঠান ধ্বংস করা হয়েছে, সেই ধ্বংসকারীদের বিচারের আওতায় আনা হয়নি। তাই তারা মনে করেছে, তারা যা খুশি তা-ই করতে পারে, কেউ তাদের বিন্দুমাত্র বাধা দেবে না। রাষ্ট্রের ধ্বংসাত্মক ঔদাসীন্যের ফলেই সর্বশেষ তারা বাংলাদেশ ব্যাংকে হাত দেওয়ার সাহস পেয়েছে।’
 
তিনি বলেন, ‘এই লুটের বিচার করতে গেলে, বিগত ৭ বছরে বাংলাদেশের হাজার হাজার কোটি টাকা লোপাটের যিনি মূল প্রশ্রয়দাতা, বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী তাকে আগে বিচারের আওতায় আনতে হবে। কীসের ভিত্তিতে তিনি হাজার হাজার কোটি টাকা লোপাটের পর বলে যাচ্ছিলেন- এই টাকা কিছুই না, এটি আগে খুঁজে বের করতে হবে। যখনই বলা হয়েছে, ৪ হাজার কোটি টাকা কিছু না, তখনই বাংলাদেশ ব্যাংক লোপাটের নীলনকশা শুরু হয়েছে।’
 
ঘটনাকে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে, এ অভিযোগ করে গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র বলেন, ‘আমরা দেখেছি, হ্যাকিংয়ের নাম করে জনগণকে ধোঁয়াশায় রেখে ঘটনাকে ভিন্নখাতে নেওয়ার অপচেষ্টা করা হয়েছিল। কিন্তু আজকে জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত অর্থমন্ত্রীর বক্তব্য থেকে পরিষ্কার হয়েছে, হ্যাক করে এই টাকা সরিয়ে নেওয়া সম্ভব ছিল না।’
 
ইমরান আরো বলেন, ‘বছরের পর বছর ধরে একের পর এক লুটপাট করা হয়েছে, আর একেকটি ঘটনা দিয়ে এসব ধামাচাপা দেয়া হয়েছে। আর আমরা বোকা জনগণ নতুন নতুন ঘটনার গোলকধাঁধায় পড়ে সেসব ভুলে গেছি।’
 
সমাবেশে অন্যদের মধ্যে প্রকাশক রবিন আহসান, ব্লগার বাকী বিল্লাহ, স্থপতি সাঈদা সুলতানা এনি, ভাস্কর রাশা, আহমেদ রাজীব হায়দার শোভনের বাবা ডা. নাজিমুদ্দিন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। সমাবেশের পর একটি বিক্ষোভ মিছিল করেন গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীরা। মিছিলটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে শাহবাগে এসে শেষ হয়।

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া