adv
৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কাউন্সিল অধিবেশনে খালেদা – শাসক গোষ্ঠী জনগণের সব অধিকার হরণ করেছে

KHELADAনিজস্ব প্রতিবেদক,  বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, আজ রাষ্ট্রের মালিকানা আর জনগণের কাছে নেই। শাসক গোষ্ঠী জনগণের সব অধিকার হরণ করে নিয়ে গেছে। বিএনপি ক্ষমতায় গেলে জনগণের কাছে অধিকার ফিরিয়ে দেয়া হবে।

আজ ১৯ মার্চ শনিবার দুপুরে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে দলের ৬ষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিলে লিখিত বক্তব্যে খালেদা জিয়া এসব কথা বলেন। দুপুর একটার কিছু আগে খালেদা জিয়ার বক্তব্য শুরু হয়। তিনি এখনো বক্তব্য দিচ্ছেন।

খালেদা জিয়া বলেন, আমরা সকল মত ও পথকে নিয়ে রাজনৈতিক সংস্কৃতি গড়তে চাই। আমরা বৈচিত্র্যের মধ্যে ঐক্য চাই। যেসব বাধা জনগণের উতসাহ, মেধা দমন করে তা সরিয়ে আত্মমর্যাদাশীল বাংলাদেশ গড়বে বিএনপি।

তিনি বলেন, নষ্ট রাজনীতি থেকে দেশকে বের করে না আনলে দেশ অন্ধকারে চলে যাবে। হত্যা, গুমসহ সবধরনের জুলুম, হামলা, মামলায় সবাইকে অতিষ্ঠ করে রাখা হয়েছে।

খালেদা বলেন, আমরা সুনীতি, সুশাসন ও সুসরকার এ থ্রিজি বাস্তবায়ন করতে চাই। আমরা গণতন্ত্র ও উন্নয়নকে বিকল্প নয় পরস্পরের সম্পূরক মনে করি।

খালেদা জিয়া বলেন, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান এদেশে বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রবর্তন করেছেন। ইতিবাচক রাজনীতির ধারা প্রবর্তন করেছিলেন।

তিনি বলেন, বিশ্ব এখন বদলে গেছে। কিন্তু মেধা ও দক্ষতা থাকা সত্ত্বেও আমাদের দেশ এখনও পিছিয়ে রয়েছে। দেশে নাগরিকদের জানমালের নিরাপত্তা নেই এখন। জাতি হিসেবে আমাদের বর্তমান এখন সংকটে আর ভবিষ্যৎ অন্ধকার-অনিশ্চিতে। এ পরিস্থিতিতে জাতিকে দেখাতে হবে নতুন দিক-নির্দেশনা।

বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, বিরোধী দলে থাকতেও বিএনপি দেশকে এগিয়ে নেওয়ার রাজনীতি করে এসেছে। গঠনমূলক সমালোচনা ও পরামর্শ দিয়ে এসেছে। কিন্তু কখনো ক্ষমতাসীন দলের ইতিবাচক সাড়া পাওয়া যায়নি। এখনো বিএনপিই পারে শুধু ইতিবাচক ধারার রাজনীতির মাধ্যমে দেশকে এগিয়ে নিতে।

এর আগে বেলা পৌনে এগারটায় জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে কাউন্সিলের উদ্বোধন করেন খালেদা জিয়া। এ সময় দলীয় পতাকা উত্তোলন করেন ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। পতাকা উত্তোলনের সময় জাতীয় সংগীত এবং পরে দলীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়।

এরপর কেন্দ্রীয় নেতারা কাউন্সিল মঞ্চে গেলে প্রথমেই শোক প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়। পরে নেতাকর্মীদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

এর আগে সকাল দশটা ৪০ মিনিটের দিকে কাউন্সিলের ভেন্যুতে উপস্থিত হন খালেদা জিয়া। এ সময় হাজার হাজার নেতাকর্মী স্লোগান দিয়ে স্বাগত জানান তাদের নেত্রীকে।

রমনার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ মিলনায়তন চত্বর এবং সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের পূর্ব-উত্তর অংশে কাউন্সিলে এসেছেন হাজার হাজার নেতাকর্মী।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া